সুন্দরবনে ফের উড়ছে ধোঁয়া

প্রকাশিত : ৫ মে ২০২১
ফাইল ছবি

সুন্দরবনে নিভে যাওয়া আগুনের কয়েকটি স্থানে আবারও ধোঁয়ার কুণ্ডলী উড়তে দেখা গেছে। তবে কোথাও দাউ দাউ করে আগুন জ্বলছে না। বুধবার সকালে বনকর্মীরা নিভিয়ে ফেলা কয়েকটি স্থানে ধোঁয়ার কুণ্ডলী দেখতে পেয়ে সেখানে পানি ছিটিয়ে নিভিয়ে ফেলার চেষ্টা করছেন। নতুন করে আবার আগুনের ধোঁয়ার কুণ্ডলী দেখা দেয়ায় পানি ছিটাতে ফায়ার সার্ভিসের একটি ইউনিট যোগ দিয়েছে। তারা সেখানে পৌঁছে পানি ছিটাচ্ছে।

এর আগে আগুন লাগার ৩০ ঘণ্টা চেষ্টার পর মঙ্গলবার বিকেল চারটায় বনে লাগা আগুন নিভে গেছে বলে ঘোষণা দেয় বনবিভাগ ও ফায়ার সার্ভিস। তবে বনের যে এলাকায় আগুন লেগেছিল সেই এলাকাটি পর্যবেক্ষণে রাখার কথা বলে বনবিভাগ। আগুনে এক দশমিক ৩১ একর বনভূমি পুড়ে গেছে। তবে আগুর লাগার কারণ সম্পর্কে কিছুই বলেনি বনবিভাগ। গত সোমবার বেলা ১১টা নাগাদ সুন্দরবন পূর্ব বিভাগের শরণখোলা রেঞ্জের দাসের ভারানি টহল ফাঁড়ি এলাকার ২৪ নম্বর কম্পার্টমেন্টে এই আগুনের ঘটনা ঘটে।

সুন্দরবন পূর্ব বিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা (ডিএফও) মোহাম্মদ বেলায়েত হোসেন বিকেলে বলেন, বুধবার সকালে সুন্দবনের দাসের ভারানি এলাকায় নিভে যাওয়া আগুনের কয়েকটি স্থানে বনবর্মীরা নতুন ধোঁয়ার কুণ্ডলী দেখতে পায়। তারা সেসব স্থানে পানি ছিটিয়ে তা নেভাচ্ছে। এখানে দাউ দাউ করে জ্বলার মত কোনো বড় আগুন দেখছি না। তারপরেও আমরা আগাম সতর্কতা হিসেবে ধোঁয়ার থেকে যেন আগুনের বিস্তার লাভ না করতে পারে সেজন্য ফায়ার সার্ভিসের একটি ইউনিট নিয়ে কাজ করছি।

নিভিয়ে ফেলা স্থানে আবার কেন আগুন এই প্রশ্নের জবাবে বন কর্মকর্তা বলেন, সুন্দরবনের পূর্ব বিভাগে গত দেড় দশকে ২৩ বার অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। এসব আগুন নেভানোর কাজে আমি নিজে থেকেছি। সুন্দরবনের যেসব বৃক্ষরাজি আছে তার পাতা মাটিতে পড়ে জমে থাকে। পরিষ্কার না করায় এই পাতা পড়ে বড় বড় স্তুপ হয়ে যায়। যেসব এলাকায় পাতার স্তুপ বেশি থাকে সেসব এলাকায় আগুন লাগলে বেশি বেশি পানি ছিটানো না হলে আগুন দেরিতে নেভে। এসব কারণে সুন্দরবনের বেশ কয়েকটি এলাকায় তিন চারদিন ধরে আগুন ছিল। ওই আগুন সম্পূর্ণ নেভাতে সেসময় বেগ পেতে হয়েছিল।

ওই অভিজ্ঞতার কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, গত সোমবার সুন্দরবনের যে এলাকায় অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে সেই এলাকায় বিপুল পরিমাণ লতাগুল্ম গাছপালায় ভরা। সেসব গাছের পাতা পতে মাটিতে বড় বড় স্তুপ হয়েছিল। এই স্তুপে আগুন লাগার কারণে স্তুপের ভেতরে আগুন ছড়িয়ে পড়ে। যা না জ্বললে বা ধোঁয়া বের হলে চোখে দেখা যায় না। এই স্তুপের নিচ থেকে ওই আগুন ধীরে ধীরে সামনে এগোয়। এই স্তুপের যেখানে আগুন জ্বলে বা ধোঁয়া বের হয় তখন তা চোখে পড়ে। সোমবার বিকেলে এবং সোমবার সকাল থেকে একটানা পানি ছিটানো হয়।

এরপরেও কিছু এলাকায় পাতার নিচে মাটির সাথে কিছু আগুন লুকিয়ে থাকায় আজ বুধবার কয়েকটি স্থানের আগুনের ধোঁয়া দেখা গেছে। এই আগুন পুরোপুরি নেভাতে আমাদের অন্তত আরও তিন চারদিন গভীর পর্যক্ষেণে থাকতে হবে। সুন্দরবন পূর্ব বিভাগের শরণখোলা রেঞ্জের সহকারী বন সংরক্ষক (এসিএফ) জয়নাল আবেদিন বলেন, শরণখোলা রেঞ্জের দাসের ভারানি টহল ফাঁড়ি এলাকার ২৪ নম্বর কম্পার্টমেন্টে লাগা আগুন যাতে বড় এলাকায় বিস্তৃতি লাভ করতে পারে সেজন্য প্রায় দেড় একর এলাকায় ফায়ার লাইন ((আগুনের অংশের মাটি আলাদা করা) কেটে দেয়া হয়েছে।

নতুন কোন এলাকায় এই আগুন যাতে ছড়িয়ে পড়তে না পারে সেজন্য এই ফায়ার লাইন কাটা। ধোঁয়া নির্দিষ্ট স্থানের মধ্যে রয়েছে। সকাল থেকে কয়েকটি স্থানে আগুনের ধোঁয়া উড়তে দেখা গেছে। যেখানেই ধোঁয়ার কুণ্ডলী আমরা দেখতে পাচ্ছি সঙ্গে সঙ্গে সেখানে পানি ছিটিয়ে নিভিয়ে ফেলছি।

 

আপনার মতামত লিখুন :