দাদার লালসার শিকার বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী শিশু

প্রকাশিত : ২০ এপ্রিল ২০২১

সজ্ঞিব দাস, গলাচিপা (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি। পটুয়াখালীর গলাচিপার গজালিয়া গ্রামের এক বুদ্ধি প্রতিবন্ধী কিশোরীকে ভুল বুঝিয়ে প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে চাচাতো দাদার ওপর। এ ঘটনা ঘটার ছয়দিন পর গলাচিপা থানায় কিশোরীর চাচাতো দাদা মো. জালাল গাজীকে (৬৫) অভিযুক্ত তার বাবা মামলা দায়ের করেছেন। ঘটনার শিকার প্রতিবন্ধী কিশোরীটিকে শারীরিক পরীক্ষার জন্য পটুয়াখালী জেলারেল হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন গলাচিপা থানার ওসি এম আর শওকত আনোয়ার ইসলাম।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, গলাচিপা উপজেলার গজালিয়া ইউনিয়নের দক্ষিণ চরচন্দ্রাইল গ্রামের গজালিয়া ব্রিজ বাজারের চায়ের দোকানদার একই গ্রামের মো. জালাল গাজী। তিনি ও কিশোরী সম্পর্কে দাদা-নাতি। ওই দোকানে বুদ্ধি প্রতিবন্ধী ১২ বছরের কিশোরী গেলে চা দোকানি জালাল গাজী বিভিন্ন সময় খাবারসহ বিভিন্ন প্রলোভন দেখাতো। ঘটনার দিন ১২ এপ্রিল দুপুরের দিকে কিশোরীটি দোকানে গেলে তাকে ভুল বুঝিয়ে দোকানের পেছনে নিয়ে মুখ চেপে ধর্ষণ করে। এ সময় তার মুখ থেকে হাত সরে গেলে কান্নাকাটির শব্দ পেয়ে রেজাউল গাজী ঘটনাস্থলে ছুটে যান। এ সময় অভিযুক্ত জালাল গাজী দৌড়ে পালিয় যায়। পরে সে বাড়ি এসে তার মায়ের কাছে সব খুলে বলে। এ ঘটনায় তার বাবা বাদী হয়ে অভিযুক্ত জালাল গাজীর বিরুদ্ধে গলাচিপা থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা দায়ের করেন।

এ প্রসঙ্গে গলাচিপা থানার ওসি এমআর শওকত আনোয়ার ইসলাম বলেন, এ ঘটনায় রবিবার (১৮ এপ্র্রিল) রাতে কিশোরীর বাবা মো. জালাল গাজীর নাম উল্লেখ করে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা দায়ের করেছেন। তাকে পরীক্ষার জন্য পুটুয়াখালী সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। এ ঘটনায় আসামি গ্রেপ্তার চেষ্টা চলছে।

 

আপনার মতামত লিখুন :