এবারো ছিন্নমূল মানুষের পাশে সাংবাদিক ফয়সাল

প্রকাশিত : ১৮ এপ্রিল ২০২১

প্রাণ’ঘা‌তি ক‌রোনা’ভাই’রা‌স সংক্র’ম‌ণের বিস্তার রো‌ধে সর্বা’ত্মক লকডা’উনের সবাইকে বাসায় থাকার কথা বলা হলেও রাজধানী ঢাকায় অনেকেরই থাকার জায়গা নেই। এ শহরেই আছে ভাসমান, ছিন্নমূল মানুষ। আছে অসংখ্য পথশিশু। তাদের কেউ ফুট পাতে ঘুমান, কারও কারও বসবাস যাত্রী ছাউনিতে, কেউ কেউ আবার লঞ্চ, বাস ও রেলস্টেশনের খোলা জায়গায় থাকেন। এসব মানুষের খাবারের জোগান দিতে রাত গভীর হলেই বেরিয়ে পড়েন তারা। কেউ ঠেলে নেন ভ্যানগাড়ি। তাতে সারি সারি সাজানো খাবারের প্যাকেট। কেউ সেই প্যাকেট দিচ্ছেন রাস্তার পাশে বসে থাকা অসহায় ব্যক্তিকে।

কেউ আবার ছিন্নমূল পথশিশুর হাতে পৌঁছে দিচ্ছেন খাবার। বাদ যাচ্ছেন না মার্কেটের সামনে আর অলিগলির নিরাপত্তায় থাকা নিরাপত্তাকর্মীও। সাংবাদিক ফয়সাল আহাম্মেদ এভাবে প্রতি রাতে পুরান ঢাকার বিভিন্ন এলাকার অলিগলিতে লোকজনকে হাতে তুলে দিচ্ছে সেহরির খাবার। ফয়সাল আহাম্মেদ ফতুল্লা রিপোর্টার্স ইউনিটের সাংগঠনিক সম্পাদক, নিজের বাসার রান্না করা খাবার দরিদ্র মানুষের সেহরির জন্য প্যাকেট করে নিজেই পুরান ঢাকার সূত্রাপুর, দয়াগঞ্জ, ধোলাইখাল, ধুপখোলা, টিপু সুলতান রোড, নবাবপুর, রায় সাহেববাজার, নয়াবাজার, বাবুবাজার, বংশাল, মালিটোলা, ইসলামপুর, সদরঘাট, এলাকায় বিতরণ করেন। তিনি বলেন, রাস্তায় অনেক লোক থাকেন যারা টাকার অভাবে সেহরি করতে পারেন না। না খেয়ে রোজা রাখেন।

অনেকের কাছে টাকা থাকলেও খাবারের দোকানগুলো বন্ধ থাকায় ভাসমান মানুষ বিপাকে পড়েছেন। এমন অবস্থায় নিজের সামর্থ্য অনুযায়ী মানুষের মাঝে সেহরি পৌঁছে দিচ্ছি।সাংবাদিক পরিচয়ের চেয়ে বড় পরিচয় হলো মানবতার সেবায় কাজ করা। অসহায় মানুষের পাশে রয়েছি। করোনা সংকট শুরু হওয়ার পর এ পর্যন্ত অনেক পরিবারের মাঝে খাবার বিতরণ করেছি। নিম্ন মধ্যবিত্ত মানুষের কাছ থেকে ফোন আর এসএমএস পেলে পরিচয় গোপন করে তাদের ঘরে খাবার পৌঁছে দিবো ইনশাআল্লাহ।

আপনার মতামত লিখুন :