রাঙ্গাবালীতে শুটকি পল্লীতে বিপুল সংখ্যা শ্রমিক কাজে নিয়োজিত, নেই স্বাস্থ্যবিধি

প্রকাশিত : ১৬ এপ্রিল ২০২১

সঞ্জিব দাস, গলাচিপা (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি: দেশে করোনার সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় ১৩ দফা বিধিনিষেধ জারি করে কঠোর লকডাউন ঘোষণা করেছে সরকার। বুধবার শুরু হয়েছে দেশব্যাপী এ লকডাউন। তবে এসব বিধিনিষেধের বালাই নেই পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালীতে। উপজেলার চরমোন্তাজ ইউনিয়নের শুটকি পল্লীতে প্রান্তিক জেলে সম্প্রদায়ের চার শতাধিক শ্রমিক সরকারি বিধিনিষেধ উপেক্ষা করে পেটের টানে কাজ করছেন।

তারা মানছেন না ন্যূনতম কোনো স্বাস্থ্যবিধিও।জানা গেছে, প্রতিনিয়তই লড়াই করে বেঁচে থাকতে হচ্ছে উপকূলীয় অঞ্চলের এসব মানুষকে। ফলে করোনাভাইরাসে নতুন করে মরার ভয় তাদের কাছে পাত্তা পাচ্ছে না।বৃহস্পতিবার সকালে ইউনিয়নের বউ বাজার এলাকা ঘুরে এমন দৃশ্য দেখা যায়। এ সময় স্বাস্থ্যবিধি না মেনে শুটকি তৈরিতে ব্যস্ত থাকতে দেখা যায় মৎস্যশ্রমিকদের। পুরুষ শ্রমিকের চেয়ে নারী শ্রমিকদের উপস্থিতি বেশি দেখা যায় এ শুটকি পল্লীতে।জানা যায়, চলতি মৌসুমে তিন-সাত দিনের নিত্যপ্রয়োজনীয় খাদ্যসামগ্রী নিয়ে গভীর সাগরে মাছ শিকারে যায় জেলেরা।

খাদ্যসামগ্রী শেষ হওয়ার আগেই সাগর থেকে মাছ নিয়ে উপকূলে আসে ট্রলারগুলো। নির্ধারিত শুটকি পল্লীর কাছাকাছি নোঙ্গর করা হয় ট্রলার। এরপর ট্রলার থেকে মাছ নেয়া হয় শুটকি পল্লীতে। বর্তমানে করোনা মহামারীর কারণে স্বাস্থ্যবিধি মানার বাধ্য বাধকতা রয়েছে। কিন্তু মাস্ক পরা বা সামাজিক দূরত্ব মানার বালাই নেই রাঙ্গাবালীতে শুটকি তৈরির কাজে যুক্ত শত শত শ্রমিকের।

স্থানীয়রা জানান, বিভিন্ন প্রজাতির মাছের শুটকি তৈরিতে কাজ করছেন শ্রমিকরা। এ ছাড়াও প্রতিটি বাজারে মানুষের উপচে পড়া ভিড় দেখা যায়। প্রতিদিনের মতো বৃহস্পতিবারও গলাচিপা ও রাঙ্গাবালীর বিভিন্ন এলাকার উদ্দেশে চরমোন্তাজ থেকে ছেড়ে গেছে যাত্রী ও মালবাহী ট্রলার। অথচ নীরব ভূমিকা পালন করছে চরমোন্তাজ পুলিশ তদন্ত কেন্দ্র।

চরমোন্তাজের স্থানীয় ব্যবসায়ী এম আজাদ খান সাথী বলেন, লকডাউনে সামাজিক দূরত্ব রক্ষা না করা ও মাস্ক না পরে সবাই যেভাবে বাজারে আসছেন এতে করোনা বলে কিছু যে আছে তা বোঝার উপায় নেই। আর লকডাউনের নাম গন্ধও নেই এসব বাজারে।

জানতে চাইলে রাঙ্গাবালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো: মাশফাকুর রহমান জানান, লকডাউন সফল করার লক্ষ্যে নদীপথে যাত্রীবাহী সকল নৌযান বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। সরকারি নির্দেশনা মানতে প্রশাসনের পক্ষ থেকে সকল ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। স্বাস্থ্যবিধি মানতে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হবে।

 

আপনার মতামত লিখুন :