বাংলাদেশের কওমি মাদরাসাগুলোতে শিক্ষার্থীদের প্রাথমিকভাবে জঙ্গিবাদের ধারণা দেয়া হয়-মনিরুল ইসলাম

মো:মাসুদ হাসান মোল্লা রিদম, চিফ’স অব পুলিশ সম্মেলন থেকে (ঢাকা): বাংলাদেশের কওমি মাদরাসাগুলোতে শিক্ষার্থীদের প্রাথমিকভাবে জঙ্গিবাদের ধারণা দেয়া হয় এ কথা জানিয়েছেন ঢাকা মহানগর পুলিশের জঙ্গিবিরোধী বিশেষ শাখা  কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিটের প্রধান অতিরিক্ত কমিশনার মনিরুল ইসলাম।

 

রোববার (১২ মার্চ,২০১৭) দুপুরে রাজধানীর সোনারগাঁও হোটেলে ইন্টারপোল এবং বাংলাদেশ পুলিশের যৌথ উদ্যোগে আয়োজিত ১৪ দেশের পুলিশ বাহিনীর তিন দিনব্যাপী চিফ’স অব পুলিশ কনফারেন্সে বক্তব্যে (সিটিটিসি) প্রধান মনিরুল ইসলাম এসব কথা বলেন। বাংলাদেশে ১৯৯০ দশক থেকেও জঙ্গি সংগঠনগুলোর তৎপরতা শুরু। গত বছর পর্যন্ত জঙ্গি তৎপরতার অভিযোগে আটকদের বেশিরভাগই কওমি মাদ্রাসা পড়ুয়া শিক্ষার্থী। বিএনপি-জামায়াত জোটের আমলে এ নিয়ে মাদ্রাসাগুলোতে নজরদারির দাবি উঠে। তবে মাদ্রাসার পক্ষ থেকে বরাবর বলা হয়েছে, তারা ইসলামের দীক্ষা দেন, জঙ্গিবাদের নয়।

 

এ সময় মাদ্রাসা, বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় ও ইংরেজি মাধ্যম স্কুলের কথা তুলে ধরে কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিটের প্রধান মনিরুল ইসলাম বলেন, এসব প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা যখন দেশের বাইরে যান তখন বিভিন্ন ধরনের জঙ্গিবাদ কার্যক্রমে জড়িয়ে পড়েন। দেশে এসে তারাই জঙ্গি তৎপরতা চালান। আফগানিস্তান, সিরিয়া ও ইরাক থেকে জঙ্গিবাদের প্রশিক্ষণও তাদের কেউ কেউ নিয়েছেন। সম্প্রতি আমরা বিভিন্ন অভিযানের মাধ্যমে জঙ্গিবাদকে নিয়ন্ত্রণে এনেছি।

 

তবে সম্প্রতি ইংরেজি পড়ুয়া এবং উচ্চ শিক্ষিতদের মধ্যেও জঙ্গি তৎপরতায় জড়ানোর প্রমাণ পাওয়া যায়। বিশেষ করে ২০১৬ সালের জুলাইয়ে গুলশানের হলি আর্টিজান বেকারিতে হামলাকারীদের মধ্যে অন্তত তিনজন ছিলেন ইংরেজি মাধ্যমপড়ুয়া। এদের একজন বিদেশে উচ্চশিক্ষা নিয়ে এসেছেন। এক সপ্তাহ পর কিশোরগঞ্জের শোলাকিয়ায় ঈদের জামাতে হামলাকারী দুইজনের একজনও বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটির শিক্ষার্থী। এরপর নর্থ সাউথের আরও অনেকের জঙ্গি তৎপরতার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

 

এ ছাড়ও বেশ কিছু বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় এমনকি সরকারি বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া শিক্ষার্থীদেরও জঙ্গি সম্পৃক্ততার অভিযোগ এসেছে যাদের একটি বড় অংশই উচ্চবিত্ত শ্রেণির। মনিরুল বলেন, অতিদরিদ্র ও অভিজাত-দুই শ্রেণিরই যারা জঙ্গি তৎপরতায় জড়িয়েছে তারা মূলত সমাজের মূল ধারা থেকে বিচ্ছিন্ন। তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশে জঙ্গি ও সন্ত্রাসবাদের সঙ্গে যাদের সংশ্লিষ্টতা পাওয়া গেছে তাদের বেশির ভাগই অতিদরিদ্র ও অভিজাত পরিবারের সন্তান। তারা সমাজের মূল ধারা থেকে বিচ্ছিন্ন বলেই জঙ্গিবাদের সঙ্গে জড়িয়ে পড়ছে।’

 

বাংলাদেশে জঙ্গিবাদ উত্থানের বিভিন্ন দিক এবং জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে বাংলাদেশ সরকার ও পুলিশ বাহিনীর কঠোর অবস্থানের কথা তুলে ধরেন পুলিশের এই সিনিয়র কর্মকর্তা বলেন, । তিনি বলেন, “বাংলাদেশ সরকার সবসময় জঙ্গিবাদ নির্মূলের ক্ষেত্রে ‘জিরো টরালেন্স’ নীতি গ্রহণ করে আসছে।” তিনি বাংলাদেশে জঙ্গিবাদের উত্থানকে দুটি ভাগে ভাগ করেন। প্রথমত: বাংলাদেশের স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে উগ্রপন্থী অঅর্থাৎ বামপন্থী এবং দ্বিতীয়ত: সমসাময়িককালে বপিথগামী ধর্মীয় উগ্রপন্থীদের দ্বারা সৃষ্ট জঙ্গিবাদ।

 

২০১৩ সালে ব্লগার হত্যাসহ ২০১৬ সালে, ‘হলি আর্টিজান’ হামলাকে ধর্মীয় উগ্রপন্থীদের দ্বারা সৃষ্ট জঙ্গিবাদের উত্থান উল্লেখ করে সিটিটিসি প্রধান  বলেন, জঙ্গিবাদ দদমনে বাংলাদেশ পুলিশ ও নবগঠিত ‘কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম’ ইউনিট কার্যকর ভূমিকা রাখছে। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে ব্যাপক সচেতনামূলক কর্মসূচি নেয়াসহ জঙ্গিবাদ দমনে পুলিশ কাজ করে যাচ্ছে বলে জানান তিনি।

 

এ সময় সম্মেলনে প্রধান অতিথি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল। ছিলেন, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের সচিব ড. কামাল উদ্দিন আহম্মেদ, পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) এ কে এম শহীদুল হক, ইন্টারপোল মহাসচিব জারগেন স্টক এবং দক্ষিণ এশিয়া ও পার্শ্ববর্তী দেশের পুলিশ কর্মকর্তারা। সম্মেলন চলবে আগামী মঙ্গলবার (১৪ মার্চ) পর্যন্ত।

নিউজটি শেয়ার করুন:

সর্বশেষ আপডেট



» গোপালগঞ্জের কাশিয়ানীতে ছয় কোচিং সেন্টার সিলগালা : বেঞ্চ ধ্বংস

» গোপালগঞ্জে বিআরডিবি’র ইউসিসিএ কর্মচারীদের মানবন্ধন ও স্মারকলিপি প্রদান

» সৌদি আরবকে ইইউ’র কালো তালিকা ভুক্ত করায় নাগরিক সমাজের উদ্বেগ

» দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে ফুলচাষে প্রায় ৫০ লাখ মানুষের জীবন-জীবিকা নির্বাহ করে প্রায় ৬০ কোটি টাকাফুল বিক্রি

» যশোরের নাভারন প্রতিবন্ধী স্কুলে পথের আলো সংস্থার মোটর রিক্সা ভ্যান দান

» যশোরের শার্শায় মাদক ব্যবসায়ীর লাশ উদ্ধার

» গলাচিপায় বীজ আলুর মাঠ দিবস পালিত

» ভাষাসৈনিকদের যথাযথ মর্যাদা দেওয়া সময়ের দাবি: ভাষাসৈনিক লায়ন শামসুল হুদা

» বই কিনুন, বই পড়ুন, নিজেকে সমৃদ্ধ করুন: যুবলীগ চেয়ারম্যাম মোহাম্মদ ওমর ফারুক চৌধুরী

» ঝিনাইদহে শুদ্ধসুরে জাতীয় সংগীত পরিবেশন প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত

লাইক দিয়ে সংযুক্ত থাকুন

ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
সহ-সম্পাদক : নুরুজ্জামান কাফি
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com
Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
আজ বুধবার, ২০ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ খ্রিষ্টাব্দ, ৮ই ফাল্গুন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

বাংলাদেশের কওমি মাদরাসাগুলোতে শিক্ষার্থীদের প্রাথমিকভাবে জঙ্গিবাদের ধারণা দেয়া হয়-মনিরুল ইসলাম

ইউটিউবে সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

মো:মাসুদ হাসান মোল্লা রিদম, চিফ’স অব পুলিশ সম্মেলন থেকে (ঢাকা): বাংলাদেশের কওমি মাদরাসাগুলোতে শিক্ষার্থীদের প্রাথমিকভাবে জঙ্গিবাদের ধারণা দেয়া হয় এ কথা জানিয়েছেন ঢাকা মহানগর পুলিশের জঙ্গিবিরোধী বিশেষ শাখা  কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিটের প্রধান অতিরিক্ত কমিশনার মনিরুল ইসলাম।

 

রোববার (১২ মার্চ,২০১৭) দুপুরে রাজধানীর সোনারগাঁও হোটেলে ইন্টারপোল এবং বাংলাদেশ পুলিশের যৌথ উদ্যোগে আয়োজিত ১৪ দেশের পুলিশ বাহিনীর তিন দিনব্যাপী চিফ’স অব পুলিশ কনফারেন্সে বক্তব্যে (সিটিটিসি) প্রধান মনিরুল ইসলাম এসব কথা বলেন। বাংলাদেশে ১৯৯০ দশক থেকেও জঙ্গি সংগঠনগুলোর তৎপরতা শুরু। গত বছর পর্যন্ত জঙ্গি তৎপরতার অভিযোগে আটকদের বেশিরভাগই কওমি মাদ্রাসা পড়ুয়া শিক্ষার্থী। বিএনপি-জামায়াত জোটের আমলে এ নিয়ে মাদ্রাসাগুলোতে নজরদারির দাবি উঠে। তবে মাদ্রাসার পক্ষ থেকে বরাবর বলা হয়েছে, তারা ইসলামের দীক্ষা দেন, জঙ্গিবাদের নয়।

 

এ সময় মাদ্রাসা, বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় ও ইংরেজি মাধ্যম স্কুলের কথা তুলে ধরে কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিটের প্রধান মনিরুল ইসলাম বলেন, এসব প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা যখন দেশের বাইরে যান তখন বিভিন্ন ধরনের জঙ্গিবাদ কার্যক্রমে জড়িয়ে পড়েন। দেশে এসে তারাই জঙ্গি তৎপরতা চালান। আফগানিস্তান, সিরিয়া ও ইরাক থেকে জঙ্গিবাদের প্রশিক্ষণও তাদের কেউ কেউ নিয়েছেন। সম্প্রতি আমরা বিভিন্ন অভিযানের মাধ্যমে জঙ্গিবাদকে নিয়ন্ত্রণে এনেছি।

 

তবে সম্প্রতি ইংরেজি পড়ুয়া এবং উচ্চ শিক্ষিতদের মধ্যেও জঙ্গি তৎপরতায় জড়ানোর প্রমাণ পাওয়া যায়। বিশেষ করে ২০১৬ সালের জুলাইয়ে গুলশানের হলি আর্টিজান বেকারিতে হামলাকারীদের মধ্যে অন্তত তিনজন ছিলেন ইংরেজি মাধ্যমপড়ুয়া। এদের একজন বিদেশে উচ্চশিক্ষা নিয়ে এসেছেন। এক সপ্তাহ পর কিশোরগঞ্জের শোলাকিয়ায় ঈদের জামাতে হামলাকারী দুইজনের একজনও বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটির শিক্ষার্থী। এরপর নর্থ সাউথের আরও অনেকের জঙ্গি তৎপরতার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

 

এ ছাড়ও বেশ কিছু বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় এমনকি সরকারি বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া শিক্ষার্থীদেরও জঙ্গি সম্পৃক্ততার অভিযোগ এসেছে যাদের একটি বড় অংশই উচ্চবিত্ত শ্রেণির। মনিরুল বলেন, অতিদরিদ্র ও অভিজাত-দুই শ্রেণিরই যারা জঙ্গি তৎপরতায় জড়িয়েছে তারা মূলত সমাজের মূল ধারা থেকে বিচ্ছিন্ন। তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশে জঙ্গি ও সন্ত্রাসবাদের সঙ্গে যাদের সংশ্লিষ্টতা পাওয়া গেছে তাদের বেশির ভাগই অতিদরিদ্র ও অভিজাত পরিবারের সন্তান। তারা সমাজের মূল ধারা থেকে বিচ্ছিন্ন বলেই জঙ্গিবাদের সঙ্গে জড়িয়ে পড়ছে।’

 

বাংলাদেশে জঙ্গিবাদ উত্থানের বিভিন্ন দিক এবং জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে বাংলাদেশ সরকার ও পুলিশ বাহিনীর কঠোর অবস্থানের কথা তুলে ধরেন পুলিশের এই সিনিয়র কর্মকর্তা বলেন, । তিনি বলেন, “বাংলাদেশ সরকার সবসময় জঙ্গিবাদ নির্মূলের ক্ষেত্রে ‘জিরো টরালেন্স’ নীতি গ্রহণ করে আসছে।” তিনি বাংলাদেশে জঙ্গিবাদের উত্থানকে দুটি ভাগে ভাগ করেন। প্রথমত: বাংলাদেশের স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে উগ্রপন্থী অঅর্থাৎ বামপন্থী এবং দ্বিতীয়ত: সমসাময়িককালে বপিথগামী ধর্মীয় উগ্রপন্থীদের দ্বারা সৃষ্ট জঙ্গিবাদ।

 

২০১৩ সালে ব্লগার হত্যাসহ ২০১৬ সালে, ‘হলি আর্টিজান’ হামলাকে ধর্মীয় উগ্রপন্থীদের দ্বারা সৃষ্ট জঙ্গিবাদের উত্থান উল্লেখ করে সিটিটিসি প্রধান  বলেন, জঙ্গিবাদ দদমনে বাংলাদেশ পুলিশ ও নবগঠিত ‘কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম’ ইউনিট কার্যকর ভূমিকা রাখছে। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে ব্যাপক সচেতনামূলক কর্মসূচি নেয়াসহ জঙ্গিবাদ দমনে পুলিশ কাজ করে যাচ্ছে বলে জানান তিনি।

 

এ সময় সম্মেলনে প্রধান অতিথি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল। ছিলেন, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের সচিব ড. কামাল উদ্দিন আহম্মেদ, পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) এ কে এম শহীদুল হক, ইন্টারপোল মহাসচিব জারগেন স্টক এবং দক্ষিণ এশিয়া ও পার্শ্ববর্তী দেশের পুলিশ কর্মকর্তারা। সম্মেলন চলবে আগামী মঙ্গলবার (১৪ মার্চ) পর্যন্ত।

নিউজটি শেয়ার করুন:

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
সহ-সম্পাদক : নুরুজ্জামান কাফি
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com

© Copyright BY KuakataNews.Com

Design & Developed BY PopularITLimited