নওগাঁয় ৯ বছরের শিশুর পানিপড়া খেয়ে অন্তঃসত্ত্বা হচ্ছেন নারীরা!

Spread the love

নওগাঁয় নয় বছরের এক শিশু কবিরাজি পানি পড়া দিয়ে চিকিৎসা দিচ্ছেন নিঃসন্তান দম্পতিদের জন্য। আর এ পানি পড়া খেয়ে নিঃসন্তান দম্পতিরা অন্তঃসত্ত্বা হচ্ছেন বলে অনেক নারীই দাবি করেছেন। সেই সাথে নিচ্ছেন তাবিজ প্রতি ৫২০ টাকা। ঘটনাটি ছড়িয়ে পড়ায় দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে শত শত নিঃসন্তান দম্পতি ছুটে আসছেন ওই শিশুর বাড়িতে। ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষা করছেন পানিপড়া নেয়ার জন্য। এমন কাণ্ড চলছে নওগাঁ সদর উপজেলার দুবলহাটী ইউনিয়নের সরিষপুর গ্রামের হাজীপাড়ায়।

 

কথিত কবিরাজ শিশুটির নাম দিপু। তবে মায়ের নাম দেলেয়ারা বেগম। আর এ পানিপড়াকে কেন্দ্র করে সেখানে গড়ে উঠেছে ভ্রাম্যমাণ অনেক দোকানপাট। এ বিষয়কে ভন্ডামি বলে দাবি করে ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ আনিছুর রহমান বলেছেন, ‘বেশ কিছুদিন ধরে কিছু ভন্ডলোক একটা প্রতিবন্ধী শিশুকে দিয়ে কবিরাজি চিকিৎসার নামে প্রতারণা করে আসছে। আমি এই বিষয়ে থানা এবং উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে জানিয়েছি তারা ব্যবস্থা নিবেন বলে আমাকে আশ্বাস দিয়েছেন। তিনি বলেন, ‘শুধু পানি পড়া না সাথে তাবিজ দিচ্ছে এবং প্রতি তাবিজ ৫২০ টাকা করে মূল্য নিচ্ছে। এবং যারা তাজিব নিচ্ছে তাদের এক মাস পর একটি ছাগল নিয়ে আসতে বলছে। এই ভাবে প্রতারণা করে টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে এলাকার সহজ সরল মানুষের থেকে।

 

জানা গেছে, দুই সন্তান নিয়ে অন্যের জমিতে টিনের বেড়াদিয়ে ঘর করে আছেন দেলেয়ারা বেগম। স্বামী তাদের ছেড়ে অনেক আগে চলে গেছেন। বিভিন্নস্থানে শ্রমিকের কাজ করে সংসার চালাতেন। এখন আর কাজ করতে হয় না। গ্রামের সমসের আলী হাফেজিয়া মাদরাসায় পড়াশোনা করে কবিরাজ হয় শিশু দিপু। তবে কুরআন পড়া এখনও শুরু হয়নি। দিপুর বয়স ৯ বছর হলেও ৬ বছর বয়স থেকে পানিপড়া দিয়ে আসছে। প্রতিবেশী জহুরুল ইসলামের বউয়ের দীর্ঘদিন থেকে কোনো বাচ্চা হচ্ছিল না। তিন বছর আগে তার বউকে পানিপড়া দেয়া হলে গর্ভধারণ করে এবং বাচ্চাটি নষ্ট হয়ে যায়। পরবর্তীতে আবারও একটি মেয়ে সন্তান জন্ম দেয়।

 

গত তিন বছর থেকে এ কবিরাজি চিকিৎসা দিয়ে আসছে। তখন তেমন ভিড় ছিল না। এ বিষয়ে তেমন কোনো প্রচার-প্রচারণা করা হয়নি। যাদের বাচ্চা হয়েছে এবং উপকৃত হয়েছেন তারাই মূলত এ প্রচার প্রচারণা করেছেন। তবে গত তিনমাস থেকে কবিরাজ দিপুর কাছে ঢাকা, চট্টগ্রাম, রাজশাহী, বগুড়া ও জয়পুরহাটসহ বিভিন্ন জেলা থেকে শত শত নারী-পুরুষ আসছেন পানিপড়া নিতে। পড়া পানি একজন নারীকে দিনে দুবার খেতে হয় এবং একজন পুরুষকে পড়া মধু দিনে দুবার খেতে হয়।এছাড়া পড়া তেল একজন পুরুষকে দিনে দু’বার শরীরে মাখতে হয়। এভাবে একজন নারীকে ৩/৫ সপ্তাহ চিকিৎসা নিতে হয়। এরমধ্যে ওই নারী অন্তঃসত্ত্বা হয় বলে কবিরাজের দাবি। অন্তঃসত্ত্বা হলে ডাক্তার দিয়ে কোনো চিকিৎসা বা আল্ট্রাসনোগ্রাম করানো যাবে না বলেও নিষেধ করা হয়।

 

প্রতি শুক্রবার করে পানিপড়া দেয়া হয়ে থাকে। কবিরাজি চিকিৎসা নিতে খরচ হয় তাবিজ ১৩০ টাকা এবং কবিরাজি ফি ১০ টাকা। যাদের মনোবাসনা পূরণ হয় তারা কবিরাজের বাড়িতে এসে খাসি জবাই করে উপস্থিত সবার মাঝে বিতরণ করেন। গত শুক্রবার ২৮টি খাসি জবাই করা হয়েছে বলেও জানা যায়। কবিরাজ দিপুর মা দেলেয়ারা বেগম বলেন, দিপু যখন পেটে তখন থেকেই অনেক কিছু উপলদ্ধি করতাম। জন্মের আড়াই মাস বয়সে এক রাতে বাচ্চা সাপের রূপ ধারণ করে। এরপর অনেক ডাক্তার ও কবিরাজ দেখানো হয়। কবিরাজ বাচ্চার গায়ে হাত দিলেই অজ্ঞান হয়ে পড়ে। আমাদের অসহায়ত্ব দেখেই নাকি বাচ্চার ওপর জিনের আছর পড়েছে। তখন কবিরাজরাই বলেন বাচ্চাটিকে আমাদের কিছুই করার নেই।

 

যখন বাচ্চার শরীরে জিনের ভর করে তখন কোনো নিঃসন্তান দম্পতি থাকলে তাকে বাচ্চা জন্মধারণের ক্ষমতা দেয়া হবে বলেও জানানো হয়। এছাড়া কেউ যদি কাউকে কুফরি করে সেটাও ভালো করা যাবে। এরপর ৬ বছর বয়স থেকে পানিপড়া দিয়ে আসছে। রোগী দেখতে দেখতে বাচ্চা যখন অস্বস্তি বোধ করে তখন একটু দেরি করে বাইরে থেকে ঘুরে এসে আবার দেখা শুরু করে। বৃহস্পতিবার রাতে ছেলের গায়ে যখন ভর করে (জিন হাজির হয়) কুরআনের সবকিছু বলতে পারে।নওগাঁ সদর থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুল হাই বলেন, ছদ্মবেশে ঘটনাস্থলে (বৃহস্পতিবার) পুলিশ পাঠানো হয়েছিল। এ রকম চিকিৎসা বন্ধ করার জন্য দ্রুত পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।

 

নিউজটি শেয়ার করুন:

সর্বশেষ আপডেট



» কলাপাড়ায় ইয়াবাসহ এক যুবক আটক

» কলাপাড়ায় ইউপি চেয়ারম্যান’র বিরুদ্ধে দন্ড সহ গ্রেফতারী পরোয়ানা জারি

» চীনে মুসলমানদের ফরজ বিধান নিষিদ্ধ করে মানবাধিকার লঙ্গন করেছে-মাওলানা জালালুদ্দীন আহমদ

» সরাসরি কৃষকের কাছ থেকে ধান কিনছে সরকার

» হ্যাপী বিতর্কের পর যেভাবে বদলে গেল রুবেলের ক্যারিয়ার

» মধুর ক্যান্টিনে সংঘর্ষের ঘটনায় জারিনসহ ছাত্রলীগের ৫ নেতাকর্মী বহিষ্কার

» একসময়ের কোটিপতি ব্যবসায়ী এখন ভাঙারি দোকানের শ্রমিক!

» আটকে গেল কেটলি বালিশ ফ্রিজ তোলার সব বিল

» হাজারো রোগ থেকে মুক্তি দেবে কাঁচামরিচ

» বিএনপির মনোনয়ন পেলেন ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানা

লাইক দিয়ে সংযুক্ত থাকুন



ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
সহ-সম্পাদক : নুরুজ্জামান কাফি
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com
Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
আজ মঙ্গলবার, ২১ মে ২০১৯ খ্রিষ্টাব্দ, ৭ই জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

নওগাঁয় ৯ বছরের শিশুর পানিপড়া খেয়ে অন্তঃসত্ত্বা হচ্ছেন নারীরা!

ইউটিউবে সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:
Spread the love

নওগাঁয় নয় বছরের এক শিশু কবিরাজি পানি পড়া দিয়ে চিকিৎসা দিচ্ছেন নিঃসন্তান দম্পতিদের জন্য। আর এ পানি পড়া খেয়ে নিঃসন্তান দম্পতিরা অন্তঃসত্ত্বা হচ্ছেন বলে অনেক নারীই দাবি করেছেন। সেই সাথে নিচ্ছেন তাবিজ প্রতি ৫২০ টাকা। ঘটনাটি ছড়িয়ে পড়ায় দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে শত শত নিঃসন্তান দম্পতি ছুটে আসছেন ওই শিশুর বাড়িতে। ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষা করছেন পানিপড়া নেয়ার জন্য। এমন কাণ্ড চলছে নওগাঁ সদর উপজেলার দুবলহাটী ইউনিয়নের সরিষপুর গ্রামের হাজীপাড়ায়।

 

কথিত কবিরাজ শিশুটির নাম দিপু। তবে মায়ের নাম দেলেয়ারা বেগম। আর এ পানিপড়াকে কেন্দ্র করে সেখানে গড়ে উঠেছে ভ্রাম্যমাণ অনেক দোকানপাট। এ বিষয়কে ভন্ডামি বলে দাবি করে ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ আনিছুর রহমান বলেছেন, ‘বেশ কিছুদিন ধরে কিছু ভন্ডলোক একটা প্রতিবন্ধী শিশুকে দিয়ে কবিরাজি চিকিৎসার নামে প্রতারণা করে আসছে। আমি এই বিষয়ে থানা এবং উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে জানিয়েছি তারা ব্যবস্থা নিবেন বলে আমাকে আশ্বাস দিয়েছেন। তিনি বলেন, ‘শুধু পানি পড়া না সাথে তাবিজ দিচ্ছে এবং প্রতি তাবিজ ৫২০ টাকা করে মূল্য নিচ্ছে। এবং যারা তাজিব নিচ্ছে তাদের এক মাস পর একটি ছাগল নিয়ে আসতে বলছে। এই ভাবে প্রতারণা করে টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে এলাকার সহজ সরল মানুষের থেকে।

 

জানা গেছে, দুই সন্তান নিয়ে অন্যের জমিতে টিনের বেড়াদিয়ে ঘর করে আছেন দেলেয়ারা বেগম। স্বামী তাদের ছেড়ে অনেক আগে চলে গেছেন। বিভিন্নস্থানে শ্রমিকের কাজ করে সংসার চালাতেন। এখন আর কাজ করতে হয় না। গ্রামের সমসের আলী হাফেজিয়া মাদরাসায় পড়াশোনা করে কবিরাজ হয় শিশু দিপু। তবে কুরআন পড়া এখনও শুরু হয়নি। দিপুর বয়স ৯ বছর হলেও ৬ বছর বয়স থেকে পানিপড়া দিয়ে আসছে। প্রতিবেশী জহুরুল ইসলামের বউয়ের দীর্ঘদিন থেকে কোনো বাচ্চা হচ্ছিল না। তিন বছর আগে তার বউকে পানিপড়া দেয়া হলে গর্ভধারণ করে এবং বাচ্চাটি নষ্ট হয়ে যায়। পরবর্তীতে আবারও একটি মেয়ে সন্তান জন্ম দেয়।

 

গত তিন বছর থেকে এ কবিরাজি চিকিৎসা দিয়ে আসছে। তখন তেমন ভিড় ছিল না। এ বিষয়ে তেমন কোনো প্রচার-প্রচারণা করা হয়নি। যাদের বাচ্চা হয়েছে এবং উপকৃত হয়েছেন তারাই মূলত এ প্রচার প্রচারণা করেছেন। তবে গত তিনমাস থেকে কবিরাজ দিপুর কাছে ঢাকা, চট্টগ্রাম, রাজশাহী, বগুড়া ও জয়পুরহাটসহ বিভিন্ন জেলা থেকে শত শত নারী-পুরুষ আসছেন পানিপড়া নিতে। পড়া পানি একজন নারীকে দিনে দুবার খেতে হয় এবং একজন পুরুষকে পড়া মধু দিনে দুবার খেতে হয়।এছাড়া পড়া তেল একজন পুরুষকে দিনে দু’বার শরীরে মাখতে হয়। এভাবে একজন নারীকে ৩/৫ সপ্তাহ চিকিৎসা নিতে হয়। এরমধ্যে ওই নারী অন্তঃসত্ত্বা হয় বলে কবিরাজের দাবি। অন্তঃসত্ত্বা হলে ডাক্তার দিয়ে কোনো চিকিৎসা বা আল্ট্রাসনোগ্রাম করানো যাবে না বলেও নিষেধ করা হয়।

 

প্রতি শুক্রবার করে পানিপড়া দেয়া হয়ে থাকে। কবিরাজি চিকিৎসা নিতে খরচ হয় তাবিজ ১৩০ টাকা এবং কবিরাজি ফি ১০ টাকা। যাদের মনোবাসনা পূরণ হয় তারা কবিরাজের বাড়িতে এসে খাসি জবাই করে উপস্থিত সবার মাঝে বিতরণ করেন। গত শুক্রবার ২৮টি খাসি জবাই করা হয়েছে বলেও জানা যায়। কবিরাজ দিপুর মা দেলেয়ারা বেগম বলেন, দিপু যখন পেটে তখন থেকেই অনেক কিছু উপলদ্ধি করতাম। জন্মের আড়াই মাস বয়সে এক রাতে বাচ্চা সাপের রূপ ধারণ করে। এরপর অনেক ডাক্তার ও কবিরাজ দেখানো হয়। কবিরাজ বাচ্চার গায়ে হাত দিলেই অজ্ঞান হয়ে পড়ে। আমাদের অসহায়ত্ব দেখেই নাকি বাচ্চার ওপর জিনের আছর পড়েছে। তখন কবিরাজরাই বলেন বাচ্চাটিকে আমাদের কিছুই করার নেই।

 

যখন বাচ্চার শরীরে জিনের ভর করে তখন কোনো নিঃসন্তান দম্পতি থাকলে তাকে বাচ্চা জন্মধারণের ক্ষমতা দেয়া হবে বলেও জানানো হয়। এছাড়া কেউ যদি কাউকে কুফরি করে সেটাও ভালো করা যাবে। এরপর ৬ বছর বয়স থেকে পানিপড়া দিয়ে আসছে। রোগী দেখতে দেখতে বাচ্চা যখন অস্বস্তি বোধ করে তখন একটু দেরি করে বাইরে থেকে ঘুরে এসে আবার দেখা শুরু করে। বৃহস্পতিবার রাতে ছেলের গায়ে যখন ভর করে (জিন হাজির হয়) কুরআনের সবকিছু বলতে পারে।নওগাঁ সদর থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুল হাই বলেন, ছদ্মবেশে ঘটনাস্থলে (বৃহস্পতিবার) পুলিশ পাঠানো হয়েছিল। এ রকম চিকিৎসা বন্ধ করার জন্য দ্রুত পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।

 

নিউজটি শেয়ার করুন:

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ





সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



About Us | Privacy Policy | Terms & Conditions | Contact Us | Sitemap
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
সহ-সম্পাদক : নুরুজ্জামান কাফি
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com

© Copyright BY KuakataNews.Com

Design & Developed BY PopularITLimited