গলাচিপায় স্কুল ছাত্রী পূর্ণিমা অপহরণের ১৩ দিনেও উদ্ধার না হওয়ায় বাকরুদ্ধ পরিবার

Spread the love

সঞ্জিব দাস, গলাচিপা (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি : গলাচিপায় অপহরণের তেরো দিনেও সপ্তম শ্রেণির স্কুল ছাত্রী পূর্ণিমার সন্ধান না পেয়ে বাকরুদ্ধ হয়ে গেছেন মা শেফালী রাণী ও বাবা নিঠুর চন্দ্র গাইন দম্পতি। এ দম্পতি এখন প্রায় বাকরুদ্ধ; দিশে হারা হয়ে বিভিন্ন জায়গায় ধরণা দিচ্ছেন মেয়েকে ফিরে পাওয়ার আশা। প্রিয় সন্তানের জন্য অপেক্ষায় চেয়ে আছেন পথ চেয়ে। পূর্ণিমা নিখোঁজ হওয়ার পর মা শেফালী রাণী জানতে পারেন উপজেলার আমখোলা ইউনিয়নের বাদুরা বাজারে প্রতিবেশি অহিদুলই অপহরণ করেছে পূর্ণিমাকে।

 

এ ঘটঁনায় গত ১ এপ্রিল গলাচিপা থানায় একটি মামলা হলে অহিদুলের পরিবারের লোকজনও এলাকা থেকে গা ঢাকা দিয়েছে। এদিকে মামলা তুলে নিতে বাদিকে (অঞ্জু রাণীকে) চাপ সৃষ্টি করছে পলাতক অহিদুল ও তার পরিবারের লোকজন। এদিকে অহিদুল দ্রুত অবস্থান পরিবর্তন করায় পুলিশ আসামীদের ধরতে বেগ পাচ্ছে বলে জানাগেছে। সরেজমিনে বাদুরা গ্রামে গেলে পুলিশ ও পূর্ণিমার পরিবারের লোকদের সাথে কথা বলে এসব তথ্য জানাগেছে। এ ঘটনায় পূর্ণিমার মাসি অঞ্জু রাণী বাদি হয়ে অহিদুলকে (২১) প্রধান আসামী করে তার বাবা শহিদুল ও মা পারুল বেগমসহ ছয়জনকে আসামী করে ১ এপ্রিল গলাচিপা থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

 

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা গলাচিপা থানার উপপরিদর্শক(এসআই) মো. আবু জাফর সিদ্দিকি বলেন, গলাচিপা উপজেলার আমখোলা ইউনিয়নের বাদুরা বাজারে হিন্দু ধর্মের সপ্তম শ্রেণির ছাত্রী পূর্ণিমাকে অপহরণ করে পালিয়ে আছে। থানায় মামলা হওয়ার পর থেকে আমরা একাধিক জায়গায় অভিযান চালিয়েছি। কিন্তু আসামীরা দ্রুত স্থান পরিবর্তন করায় গ্রেফতার করতে এখন পর্যন্ত সক্ষম হয়নি। তবে আশা করি দু’এক দিনের মধ্যে পূর্ণিমাকে উদ্ধার করা সম্ভব হবে।’ বাদীকে মামলা তুলে নেয়ার হুমকি প্রদানের ঘটনা স্বাীকার করে বলেন, ‘সবার আগে পূর্ণিমাকে উদ্ধারকে গুরুত্ব দিয়ে কাজ করছি।’

 

এদিকে পূর্ণিমার মা শেফালী রাণী বলেন, ‘আমার মাইয়া আমারে আইন্না (এনে) দেন। মায় (মেয়ে) আমার কি অবস্থায় আছে আমি জানি না। আমার মাইয়া (মেয়ে) আমার কাছে না দিয়ে অহিদুরের বাড়ির লোকজন উলডা (উল্টো) বিভিন্ন সময় মামলা তুইল্লা (তুলে) নিতে হুমকি দিচ্ছে। আমি এর বিচার চাই।’

 

উল্লেখ্য, গলাচিপা উপজেলার আমখোলা ইউনিয়নের বাদুরা বাজারের পূর্ণিমা তার মাসির (খালা) বাড়ি থেকে পড়াশোনা করতো। বিভিন্ন সময় একই বাজারের ডেকরেটর ব্যবসায়ী শহিদুল ইসলামের ছেলে অহিদুল পূর্ণিমাকে উত্যক্ত করতো। এ নিয়ে এলাকায় শালিস দরবারও হয়েছিল। কিন্তু এর পরেই ক্ষিপ্ত হয় অহিদুল। প্রতিশোধের নেশায় ওতপেতে থাকে। গত ২২ মার্চ সন্ধ্যায় পূর্ণিমার এক ছোট বোনকে নিয়ে বাদুরা হাট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা আসমা বেগমের বাদুরা বাজারের বাসা থেকে আমখোলা ইউনিয়নের ছৈলাবুনিয়া গ্রামের মাসি বাড়ি যাচ্ছিল।

 

এসময় অহিদুল তার সঙ্গীদের সহায়তায় ওই কিশোরীকে পথ থেকে তুলে অপহরণ করে অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে যায়। এ প্রসঙ্গে গলাচিপা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আখতার মোর্শেদ বলেন, ‘আমরা অপহৃত স্কুল ছাত্রী ও আসামী অহিদুলকে গ্রেফতারের জোর চেষ্টা চালাচ্ছি। কিন্তু আসামি ঘন ঘন স্থান পরিবর্তন করায় একটু সমস্যা হচ্ছে। আশাকরি কয়েক ঘণ্টার মধ্যে আমরা সফল হবো।’

 

নিউজটি শেয়ার করুন:

সর্বশেষ আপডেট



» কক্সবাজারের টেকনাফে ৩ রোহিঙ্গা নারীর পেটে মিলল ৩ হাজার ইয়াবা

» ধানের ন্যায্য মূল্য পেয়ে ডিসিকে জড়িয়ে ধরলেন কৃষক

» জাকাতের টাকায় কপালে সিঁদুর উঠল পূর্ণিমার

» বগুড়া-৬: খালেদা জিয়াসহ ৫ জনকে মনোনয়ন বিএনপির

» মৌলভীবাজারে আশার আলো এর উদ্যাগে কারাবন্দীদের মাঝে ঈদ সামগ্রী বিতরণ

» কমলগঞ্জে ভোক্তা অধিকার আইনে ৪ প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা

» কৃষকদের ধানের ন্যায্য মূল্যের দাবীতে জেলা বিএনপি’র স্বারকলিপি

» নবীগঞ্জে নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুতের দাবিতে রাস্তা অবরোধ, ৭ দিনের আল্টিমেটাম

» ধানের ন্যয্যমূল্য নিশ্চিতের দাবিতে না’গঞ্জ মহানগর বিএনপির স্মারকলিপি

» কোরআন অনুবাদ করতে গিয়ে মুসলমান হলেন ধর্ম যাজক

লাইক দিয়ে সংযুক্ত থাকুন



ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
সহ-সম্পাদক : নুরুজ্জামান কাফি
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com
Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
আজ বুধবার, ২২ মে ২০১৯ খ্রিষ্টাব্দ, ৮ই জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

গলাচিপায় স্কুল ছাত্রী পূর্ণিমা অপহরণের ১৩ দিনেও উদ্ধার না হওয়ায় বাকরুদ্ধ পরিবার

ইউটিউবে সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:
Spread the love

সঞ্জিব দাস, গলাচিপা (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি : গলাচিপায় অপহরণের তেরো দিনেও সপ্তম শ্রেণির স্কুল ছাত্রী পূর্ণিমার সন্ধান না পেয়ে বাকরুদ্ধ হয়ে গেছেন মা শেফালী রাণী ও বাবা নিঠুর চন্দ্র গাইন দম্পতি। এ দম্পতি এখন প্রায় বাকরুদ্ধ; দিশে হারা হয়ে বিভিন্ন জায়গায় ধরণা দিচ্ছেন মেয়েকে ফিরে পাওয়ার আশা। প্রিয় সন্তানের জন্য অপেক্ষায় চেয়ে আছেন পথ চেয়ে। পূর্ণিমা নিখোঁজ হওয়ার পর মা শেফালী রাণী জানতে পারেন উপজেলার আমখোলা ইউনিয়নের বাদুরা বাজারে প্রতিবেশি অহিদুলই অপহরণ করেছে পূর্ণিমাকে।

 

এ ঘটঁনায় গত ১ এপ্রিল গলাচিপা থানায় একটি মামলা হলে অহিদুলের পরিবারের লোকজনও এলাকা থেকে গা ঢাকা দিয়েছে। এদিকে মামলা তুলে নিতে বাদিকে (অঞ্জু রাণীকে) চাপ সৃষ্টি করছে পলাতক অহিদুল ও তার পরিবারের লোকজন। এদিকে অহিদুল দ্রুত অবস্থান পরিবর্তন করায় পুলিশ আসামীদের ধরতে বেগ পাচ্ছে বলে জানাগেছে। সরেজমিনে বাদুরা গ্রামে গেলে পুলিশ ও পূর্ণিমার পরিবারের লোকদের সাথে কথা বলে এসব তথ্য জানাগেছে। এ ঘটনায় পূর্ণিমার মাসি অঞ্জু রাণী বাদি হয়ে অহিদুলকে (২১) প্রধান আসামী করে তার বাবা শহিদুল ও মা পারুল বেগমসহ ছয়জনকে আসামী করে ১ এপ্রিল গলাচিপা থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

 

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা গলাচিপা থানার উপপরিদর্শক(এসআই) মো. আবু জাফর সিদ্দিকি বলেন, গলাচিপা উপজেলার আমখোলা ইউনিয়নের বাদুরা বাজারে হিন্দু ধর্মের সপ্তম শ্রেণির ছাত্রী পূর্ণিমাকে অপহরণ করে পালিয়ে আছে। থানায় মামলা হওয়ার পর থেকে আমরা একাধিক জায়গায় অভিযান চালিয়েছি। কিন্তু আসামীরা দ্রুত স্থান পরিবর্তন করায় গ্রেফতার করতে এখন পর্যন্ত সক্ষম হয়নি। তবে আশা করি দু’এক দিনের মধ্যে পূর্ণিমাকে উদ্ধার করা সম্ভব হবে।’ বাদীকে মামলা তুলে নেয়ার হুমকি প্রদানের ঘটনা স্বাীকার করে বলেন, ‘সবার আগে পূর্ণিমাকে উদ্ধারকে গুরুত্ব দিয়ে কাজ করছি।’

 

এদিকে পূর্ণিমার মা শেফালী রাণী বলেন, ‘আমার মাইয়া আমারে আইন্না (এনে) দেন। মায় (মেয়ে) আমার কি অবস্থায় আছে আমি জানি না। আমার মাইয়া (মেয়ে) আমার কাছে না দিয়ে অহিদুরের বাড়ির লোকজন উলডা (উল্টো) বিভিন্ন সময় মামলা তুইল্লা (তুলে) নিতে হুমকি দিচ্ছে। আমি এর বিচার চাই।’

 

উল্লেখ্য, গলাচিপা উপজেলার আমখোলা ইউনিয়নের বাদুরা বাজারের পূর্ণিমা তার মাসির (খালা) বাড়ি থেকে পড়াশোনা করতো। বিভিন্ন সময় একই বাজারের ডেকরেটর ব্যবসায়ী শহিদুল ইসলামের ছেলে অহিদুল পূর্ণিমাকে উত্যক্ত করতো। এ নিয়ে এলাকায় শালিস দরবারও হয়েছিল। কিন্তু এর পরেই ক্ষিপ্ত হয় অহিদুল। প্রতিশোধের নেশায় ওতপেতে থাকে। গত ২২ মার্চ সন্ধ্যায় পূর্ণিমার এক ছোট বোনকে নিয়ে বাদুরা হাট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা আসমা বেগমের বাদুরা বাজারের বাসা থেকে আমখোলা ইউনিয়নের ছৈলাবুনিয়া গ্রামের মাসি বাড়ি যাচ্ছিল।

 

এসময় অহিদুল তার সঙ্গীদের সহায়তায় ওই কিশোরীকে পথ থেকে তুলে অপহরণ করে অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে যায়। এ প্রসঙ্গে গলাচিপা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আখতার মোর্শেদ বলেন, ‘আমরা অপহৃত স্কুল ছাত্রী ও আসামী অহিদুলকে গ্রেফতারের জোর চেষ্টা চালাচ্ছি। কিন্তু আসামি ঘন ঘন স্থান পরিবর্তন করায় একটু সমস্যা হচ্ছে। আশাকরি কয়েক ঘণ্টার মধ্যে আমরা সফল হবো।’

 

নিউজটি শেয়ার করুন:

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ





সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



About Us | Privacy Policy | Terms & Conditions | Contact Us | Sitemap
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
সহ-সম্পাদক : নুরুজ্জামান কাফি
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com

© Copyright BY KuakataNews.Com

Design & Developed BY PopularITLimited