ঝিনাইদহের নদী গুলো এখন “দখল দূষনে মরা খাল-১৫ নদীতে চাষাবাদ”

Spread the love

জাহিদুর রহমান তারিক, ঝিনাইদহ: নদী দখল ও জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবে হারিয়ে যাচ্ছে ঝিনাইদহের ১৫টি নদী। এক সময়ের খরশ্রোত নদীগুলো এখন মরা খাল। দেখে বোঝার উপায় নেই এখানে নদী ছিল। তাই নদীবক্ষে চলছে চাষাবাদ। সংস্কার না করায় তলদেশ ও নদীর দু’পাড় ভরাট করে তৈরী করা হচ্ছে বাড়ি ঘর ও দোকানপাট। প্রভাবশালীদের নদী দখলের মহোৎসব কোন ভাবেই বন্ধ হচ্ছে না। তথ্য নিয়ে জানা গেছে, নবগঙ্গা, কালী, কুমার, ডাকুয়া, চিত্রা, বেগবতী (ব্যাঙ), কপোতাক্ষ, ফটকি, ভৈরবসহ ১৫ নদ-নদী এরই মধ্যে অনেকটাই অস্তিত্ব সংকটে ভুগছে।

 

ঝিনাইদহ সদর উপজেলার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে নবগঙ্গা, বেগবতী ও ফটকি নদী। এর মধ্যে শহরের ভিতর দিয়ে প্রবাহিত নবগঙ্গা। এ নদীর জায়গা দখল করে নির্মাণ করা হয়েছে বড় বড় ভবন। নদীর জায়গা দখল করে নির্মাণ করা হচ্ছে বিলাসবহুল রিসোর্স সেন্টার। কেও কেও করছেন শখের বাগান। একইভাবে শহরের চাকলাপাড়ায় নদীর জায়গা দখল করে বাড়ি নির্মাণ করে ভাড়া দেওয়া হচ্ছে। হরিণাকুন্ডু উপজেলার ভাতুড়িয়া গ্রামের ভিতর দিয়ে প্রবাহিত নবগঙ্গা নদীতে ইরি ধানের আবাদ করা হচ্ছে। ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধের গৌরময় স্মৃতি বিজড়িত ঝিনাইদহ সদর উপজেলার যশোর-ঝিনাইদহ মহাসড়কের পাশে অবস্থিত বিষয়খালী বাজার। এ বাজার গড়ে উঠেছে বেগবতি নদীর পাশে।

 

ঐতিহাসিকভাবে এ নদীর বিশেষ গুরুত্ব রয়েছে। কালের বিবর্তনে এখন এ নদী মরা খালে পরিণত হয়েছে। নদীর জায়গা দখল করে মার্কেট, বাড়ি নির্মাণ করা হয়েছে। নদী বক্ষে চলছে ধান চাষ। একইভাবে সদর উপজেলার হাজিডাঙ্গার ভিতর দিয়ে বয়ে যাওয়া চিত্রা নদীতেও ধান চাষ করা হচ্ছে। সদরের সাধুহাটী ইউনিয়নের বংকিরা, হাজরা, গান্না, গোবিন্দুপুর, কোটচাঁদপুরের ধোপাবিলা, লক্ষিপুর, ওয়াড়িয়া ও শিরনগর, গ্রামের পাশ দিয়ে প্রবাহিত চিত্রা নদীর অর্ধৈক জায়গা এলাকার প্রভাবশালীরা ৯৯বছরের লীজের কথা বলে দখল করে পুকুর করেছেন এবং চাষাবাদ করা হচ্ছে। এই নদীর কালীগঞ্জ অংশেও নদীর জায়গা দখল করে দোকান ও বাড়ি নির্মাণ করা হয়েছে।

 

এছাড়া মহেশপুর উপজেলার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে কপোতাক্ষ, ভৈরবা, ইছামতী, কোদলা ও বেতনা। কোদলা নদীর জায়গা দখল করে বড় বড় পুকুর তৈরি করা হয়েছে এবং ধান চাষ করা হচ্ছে। কালীগঞ্জ ও কোটচাঁদপুর উপজেলার ওপর দিয়ে গেছে বুড়া ভৈরব নদ ও বেগবতী (ব্যাঙ) নদ-নদীর জায়গা দখল করেছেন এলাকার ৫৩ দখলদার। তারা মার্কেট, বাড়িসহ বিভিন্ন ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান নির্মাণ করেছেন। দুই পাড়ের জায়গা দখল করে ফসল উৎপাদন করা হচ্ছে। শৈলকুপা উপজেলার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে গড়াই, কালী নদী ও কুমার নদ। বর্তমানে নদী বক্ষ থেকে মাটি ও অবৈধভাবে বালু উত্তোলনে হিড়িক পড়ে গেছে। এ নদীর দুই ধারের জায়গা দখল করে বাড়ি, মার্কেট ও বিভিন্ন স্থানে ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান গড়ে তোলা হয়েছে।

 

এমনকি নদীর ভিতর থেকে মাটি কেটে ভাটায় বিক্রি করা হচ্ছে এবং অবৈধভাবে তোলা হচ্ছে বালু। কুমার নদের শৈলকুপা অংশের বারইপাড়া এলাকা, কবিরপুর, বিজুলিয়া, ফাদিলপুর অংশসহ বিভিন্ন স্থানে জেগে উঠেছে বড় বড় চর। এসব জেগে ওঠা চরে চলছে কলাই, মসুর, পিয়াজসহ বিভিন্ন ফসলের চাষাবাদ। খননের অভাবে জেগে ওঠা চরে চরানো হচ্ছে গবাদি পশু।ঝিনাইদহ জেলার ওপর দিয়ে প্রবাহিত অধিকাংশ নদ-নদী শুকিয়ে যাওয়ার কারণে চলছে দখলবাজি। যে যার মতো নদী ব্যবহার করছেন ইচ্ছে মতো। এ ক্ষেত্রে সরকার বা জেলা প্রশাসনের কোনো তদারকি নেই বলে অভিযোগ করা হচ্ছে। এ ব্যাপারে ঝিনাইদহ জেলা প্রশাসক সরোজ কুমার নাথ সংবাদ মাধ্যমকে জানান, নদীর জায়গা দখল হয়েছে বলে শুনেছি। বিষয়টি আমি উচ্চ পর্যায়ে জানিয়েছি। নির্দেশ আসলে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

 

নিউজটি শেয়ার করুন:

সর্বশেষ আপডেট



» কক্সবাজারে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ২

» আমি কিছু করিনি: আকুতি জানিয়েও রেহাই পায়নি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার শিশুটি (ভিডিও)

» এখনো চলছে সেই ঘাতক জাবালে নূর পরিবহন

» রাজধানীর প্রগতি সরণিতে সু-প্রভাতের সেই বাসের নিবন্ধন বাতিল

» রাজধানীর মতিঝিলের ব্যাংক কলোনি ও এলিফ্যান্ট রোডে আগুন

» নিউজিল্যান্ডে সব নারীর হিজাব পরার ঘোষণা!

» না’গঞ্জে র‌্যালী ও কেক কাটার মধ্য দিয়ে তাঁতীলীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত

» জাটকা সংরক্ষণ উপলক্ষে দশমিনায় সচেতনামূলক সভা

» অতি দরিদ্র ২৫ পরিবারের মাঝে গরুর ঘর নির্মানের জন্য টিন বিতরণ

» উপকূলীয় গোলপাতার ঐতিহ্য হারিয়ে যাচ্ছে

লাইক দিয়ে সংযুক্ত থাকুন

ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
সহ-সম্পাদক : নুরুজ্জামান কাফি
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com
Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
আজ বুধবার, ২০ মার্চ ২০১৯ খ্রিষ্টাব্দ, ৬ই চৈত্র ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

ঝিনাইদহের নদী গুলো এখন “দখল দূষনে মরা খাল-১৫ নদীতে চাষাবাদ”

ইউটিউবে সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:
Spread the love

জাহিদুর রহমান তারিক, ঝিনাইদহ: নদী দখল ও জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবে হারিয়ে যাচ্ছে ঝিনাইদহের ১৫টি নদী। এক সময়ের খরশ্রোত নদীগুলো এখন মরা খাল। দেখে বোঝার উপায় নেই এখানে নদী ছিল। তাই নদীবক্ষে চলছে চাষাবাদ। সংস্কার না করায় তলদেশ ও নদীর দু’পাড় ভরাট করে তৈরী করা হচ্ছে বাড়ি ঘর ও দোকানপাট। প্রভাবশালীদের নদী দখলের মহোৎসব কোন ভাবেই বন্ধ হচ্ছে না। তথ্য নিয়ে জানা গেছে, নবগঙ্গা, কালী, কুমার, ডাকুয়া, চিত্রা, বেগবতী (ব্যাঙ), কপোতাক্ষ, ফটকি, ভৈরবসহ ১৫ নদ-নদী এরই মধ্যে অনেকটাই অস্তিত্ব সংকটে ভুগছে।

 

ঝিনাইদহ সদর উপজেলার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে নবগঙ্গা, বেগবতী ও ফটকি নদী। এর মধ্যে শহরের ভিতর দিয়ে প্রবাহিত নবগঙ্গা। এ নদীর জায়গা দখল করে নির্মাণ করা হয়েছে বড় বড় ভবন। নদীর জায়গা দখল করে নির্মাণ করা হচ্ছে বিলাসবহুল রিসোর্স সেন্টার। কেও কেও করছেন শখের বাগান। একইভাবে শহরের চাকলাপাড়ায় নদীর জায়গা দখল করে বাড়ি নির্মাণ করে ভাড়া দেওয়া হচ্ছে। হরিণাকুন্ডু উপজেলার ভাতুড়িয়া গ্রামের ভিতর দিয়ে প্রবাহিত নবগঙ্গা নদীতে ইরি ধানের আবাদ করা হচ্ছে। ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধের গৌরময় স্মৃতি বিজড়িত ঝিনাইদহ সদর উপজেলার যশোর-ঝিনাইদহ মহাসড়কের পাশে অবস্থিত বিষয়খালী বাজার। এ বাজার গড়ে উঠেছে বেগবতি নদীর পাশে।

 

ঐতিহাসিকভাবে এ নদীর বিশেষ গুরুত্ব রয়েছে। কালের বিবর্তনে এখন এ নদী মরা খালে পরিণত হয়েছে। নদীর জায়গা দখল করে মার্কেট, বাড়ি নির্মাণ করা হয়েছে। নদী বক্ষে চলছে ধান চাষ। একইভাবে সদর উপজেলার হাজিডাঙ্গার ভিতর দিয়ে বয়ে যাওয়া চিত্রা নদীতেও ধান চাষ করা হচ্ছে। সদরের সাধুহাটী ইউনিয়নের বংকিরা, হাজরা, গান্না, গোবিন্দুপুর, কোটচাঁদপুরের ধোপাবিলা, লক্ষিপুর, ওয়াড়িয়া ও শিরনগর, গ্রামের পাশ দিয়ে প্রবাহিত চিত্রা নদীর অর্ধৈক জায়গা এলাকার প্রভাবশালীরা ৯৯বছরের লীজের কথা বলে দখল করে পুকুর করেছেন এবং চাষাবাদ করা হচ্ছে। এই নদীর কালীগঞ্জ অংশেও নদীর জায়গা দখল করে দোকান ও বাড়ি নির্মাণ করা হয়েছে।

 

এছাড়া মহেশপুর উপজেলার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে কপোতাক্ষ, ভৈরবা, ইছামতী, কোদলা ও বেতনা। কোদলা নদীর জায়গা দখল করে বড় বড় পুকুর তৈরি করা হয়েছে এবং ধান চাষ করা হচ্ছে। কালীগঞ্জ ও কোটচাঁদপুর উপজেলার ওপর দিয়ে গেছে বুড়া ভৈরব নদ ও বেগবতী (ব্যাঙ) নদ-নদীর জায়গা দখল করেছেন এলাকার ৫৩ দখলদার। তারা মার্কেট, বাড়িসহ বিভিন্ন ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান নির্মাণ করেছেন। দুই পাড়ের জায়গা দখল করে ফসল উৎপাদন করা হচ্ছে। শৈলকুপা উপজেলার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে গড়াই, কালী নদী ও কুমার নদ। বর্তমানে নদী বক্ষ থেকে মাটি ও অবৈধভাবে বালু উত্তোলনে হিড়িক পড়ে গেছে। এ নদীর দুই ধারের জায়গা দখল করে বাড়ি, মার্কেট ও বিভিন্ন স্থানে ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান গড়ে তোলা হয়েছে।

 

এমনকি নদীর ভিতর থেকে মাটি কেটে ভাটায় বিক্রি করা হচ্ছে এবং অবৈধভাবে তোলা হচ্ছে বালু। কুমার নদের শৈলকুপা অংশের বারইপাড়া এলাকা, কবিরপুর, বিজুলিয়া, ফাদিলপুর অংশসহ বিভিন্ন স্থানে জেগে উঠেছে বড় বড় চর। এসব জেগে ওঠা চরে চলছে কলাই, মসুর, পিয়াজসহ বিভিন্ন ফসলের চাষাবাদ। খননের অভাবে জেগে ওঠা চরে চরানো হচ্ছে গবাদি পশু।ঝিনাইদহ জেলার ওপর দিয়ে প্রবাহিত অধিকাংশ নদ-নদী শুকিয়ে যাওয়ার কারণে চলছে দখলবাজি। যে যার মতো নদী ব্যবহার করছেন ইচ্ছে মতো। এ ক্ষেত্রে সরকার বা জেলা প্রশাসনের কোনো তদারকি নেই বলে অভিযোগ করা হচ্ছে। এ ব্যাপারে ঝিনাইদহ জেলা প্রশাসক সরোজ কুমার নাথ সংবাদ মাধ্যমকে জানান, নদীর জায়গা দখল হয়েছে বলে শুনেছি। বিষয়টি আমি উচ্চ পর্যায়ে জানিয়েছি। নির্দেশ আসলে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

 

নিউজটি শেয়ার করুন:

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
সহ-সম্পাদক : নুরুজ্জামান কাফি
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com

© Copyright BY KuakataNews.Com

Design & Developed BY PopularITLimited