গলাচিপায় সার ডিলারদের সিন্ডিকেটের দৌরাত্ম !!

সঞ্জিব দাস, গলাচিপা (পটুয়াখালী): পটুয়াখালীর গলাচিপা উপজেলায় ডিলারদের সারের কৃত্রিম সংকট সৃষ্টির কারনে হাজার হাজার হত দরিদ্র প্রান্তিক কৃষকরা ন্যায্যমূল্যে সার পাওয়া থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। বিভিন্ন ডিলারদের কাছ থেকে ঘুরে ঘুরে ভোগান্তির মধ্য দিয়ে কৃষকদের বেশী দামে কিনতে হচ্ছে সার। বর্তমান সরকারের “কৃষক বাঁচাও দেশ বাঁচাও” এই শ্লোগানকে মিথ্যে করে ডিলারা প্রান্তিক কৃষকদের সাথে প্রতারণা করে যাচ্ছেন প্রতিনিয়ত। কৃষি বান্ধব সরকার সাধারণ দরিদ্র কৃষকদের কথা চিন্তা করে ভর্তুকী মূল্যে সার দিচ্ছেন।

 

অন্যদিকে এ উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের সার ডিলারদের অনিয়মে দিশেহারা প্রান্তিক কৃষককুল। সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে প্রতি বস্তা সারের মূল্য ১০০০ থেকে ১১০০ টাকা যা সরকার কর্তৃক নির্ধারিত ৮০০টাকা, ড্যাপ সার বিক্রি হচ্ছে প্রতি বস্তা ১৪০০ টাকা থেকে ১৫৫০ টাকা যা সরকার কর্তৃক নির্ধারিত ১২৫০ টাকা, এমওপি সার বিক্রি হচ্ছে প্রতি বস্তা ৮৫০ টাকা থেকে ৯০০ টাকা যা সরকার কর্তৃক নির্ধারিত ৭৫০ টাকা। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কৃষক জানান, খুচরা সার বস্তা প্রতি সরকারি দামের চেয়ে ২০০ থেকে ৩০০ টাকা বেশী নেন সার ডিলাররা। দাম বেশী না দিলে বলে সার নেই। আমরা গরীব মানুষ আমাদের ঠেকিয়ে ডিলাররা বেশী দাম নিচ্ছেন। এ ছাড়া প্রান্তিক কৃষকরা সংশ্লিষ্ট ইউনিয়নে সার না পেয়ে গলাচিপা পৌরশহর ও ভোলা সদরে যান সার ক্রয় করতে।

 

সেখানেও ১০০ থেকে ১৫০ টাকা বেশী নেন বলে জানান ওই কৃষক। এ ব্যাপারে প্রান্তিক কৃষকরা প্রধান মন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেন। বাস্তবে উপজেলার সমস্ত সার ডিলাররাই সারের কৃত্রিম সংকট তৈরি করে কৃষকদের কাছ থেকে বেশি দামে সার বিক্রি করছেন বলে বিভিন্ন অভিযোগ রয়েছে। এ ব্যাপারে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা এ আর এম সাইফুল্লাহকে জানান, বাহির থেকে সার আমদানির কথা আমি উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার মাধ্যমে সভা করে রেজুলেশন করেছি এবং অনুমতি দিয়েছি। সারের দাম বেশী নেওয়ার ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি বলেন, কৃষকরা আমার কাছে লিখিত অভিযোগ করলে ব্যাবস্থা নেব।

 

নিউজটি শেয়ার করুন:

সর্বশেষ আপডেট



» কুয়াকাটায় যথাযথ মর্যাদায় মাতৃভাষা দিবস পালিত হয়েছে

» দশমিনায় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত

» দশমিনায় প্রানী সম্পদ অধিদপ্তরে ভাষা দিবসে জাতীয় পতাকা উত্তোলন হয়নি

» যশোরের বেনাপোলে ফেন্সিডিলসহ মহিলা ব্যবসায়ী আটক

» আন্তজার্তিক মাতৃভাষা দিবসে বেনাপোল নোম্যান্সল্যান্ডে দুই বাংলার মিলন মেলা

» বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়িতে ভাষা শহীদদেও প্রতি শ্রদ্ধা

» বান্দরবানের রুমায় বিষ পানে পাড়া প্রধানের আত্মহত্যা

» গলাচিপায় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ও শহীদ দিবস পালিত

» পর্যটন কেন্দ্র কুয়াকাটা সৈকতে পতাকা বিক্রেতা মো.গিয়াস উদ্দিন

» আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ও শহীদ দিবস উপলক্ষ্যে শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পন ও আলোচনা সভা

লাইক দিয়ে সংযুক্ত থাকুন

ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
সহ-সম্পাদক : নুরুজ্জামান কাফি
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com
Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
আজ শুক্রবার, ২২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ খ্রিষ্টাব্দ, ১০ই ফাল্গুন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

গলাচিপায় সার ডিলারদের সিন্ডিকেটের দৌরাত্ম !!

ইউটিউবে সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

সঞ্জিব দাস, গলাচিপা (পটুয়াখালী): পটুয়াখালীর গলাচিপা উপজেলায় ডিলারদের সারের কৃত্রিম সংকট সৃষ্টির কারনে হাজার হাজার হত দরিদ্র প্রান্তিক কৃষকরা ন্যায্যমূল্যে সার পাওয়া থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। বিভিন্ন ডিলারদের কাছ থেকে ঘুরে ঘুরে ভোগান্তির মধ্য দিয়ে কৃষকদের বেশী দামে কিনতে হচ্ছে সার। বর্তমান সরকারের “কৃষক বাঁচাও দেশ বাঁচাও” এই শ্লোগানকে মিথ্যে করে ডিলারা প্রান্তিক কৃষকদের সাথে প্রতারণা করে যাচ্ছেন প্রতিনিয়ত। কৃষি বান্ধব সরকার সাধারণ দরিদ্র কৃষকদের কথা চিন্তা করে ভর্তুকী মূল্যে সার দিচ্ছেন।

 

অন্যদিকে এ উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের সার ডিলারদের অনিয়মে দিশেহারা প্রান্তিক কৃষককুল। সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে প্রতি বস্তা সারের মূল্য ১০০০ থেকে ১১০০ টাকা যা সরকার কর্তৃক নির্ধারিত ৮০০টাকা, ড্যাপ সার বিক্রি হচ্ছে প্রতি বস্তা ১৪০০ টাকা থেকে ১৫৫০ টাকা যা সরকার কর্তৃক নির্ধারিত ১২৫০ টাকা, এমওপি সার বিক্রি হচ্ছে প্রতি বস্তা ৮৫০ টাকা থেকে ৯০০ টাকা যা সরকার কর্তৃক নির্ধারিত ৭৫০ টাকা। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কৃষক জানান, খুচরা সার বস্তা প্রতি সরকারি দামের চেয়ে ২০০ থেকে ৩০০ টাকা বেশী নেন সার ডিলাররা। দাম বেশী না দিলে বলে সার নেই। আমরা গরীব মানুষ আমাদের ঠেকিয়ে ডিলাররা বেশী দাম নিচ্ছেন। এ ছাড়া প্রান্তিক কৃষকরা সংশ্লিষ্ট ইউনিয়নে সার না পেয়ে গলাচিপা পৌরশহর ও ভোলা সদরে যান সার ক্রয় করতে।

 

সেখানেও ১০০ থেকে ১৫০ টাকা বেশী নেন বলে জানান ওই কৃষক। এ ব্যাপারে প্রান্তিক কৃষকরা প্রধান মন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেন। বাস্তবে উপজেলার সমস্ত সার ডিলাররাই সারের কৃত্রিম সংকট তৈরি করে কৃষকদের কাছ থেকে বেশি দামে সার বিক্রি করছেন বলে বিভিন্ন অভিযোগ রয়েছে। এ ব্যাপারে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা এ আর এম সাইফুল্লাহকে জানান, বাহির থেকে সার আমদানির কথা আমি উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার মাধ্যমে সভা করে রেজুলেশন করেছি এবং অনুমতি দিয়েছি। সারের দাম বেশী নেওয়ার ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি বলেন, কৃষকরা আমার কাছে লিখিত অভিযোগ করলে ব্যাবস্থা নেব।

 

নিউজটি শেয়ার করুন:

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
সহ-সম্পাদক : নুরুজ্জামান কাফি
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com

© Copyright BY KuakataNews.Com

Design & Developed BY PopularITLimited