রাখাইন সম্প্রদায়ের প্রবারনা উৎসব পালিত সাগর পাড়ে রাখাইনদের পাড়ায় পাড়ায় আনন্দ

Spread the love

উত্তম কুমার হাওলাদার, কলাপাড়া(পটুয়াখালী)প্রতিনিধি:  সমুদ্র উপকূলীয় পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় আদিবাসী বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বী রাখাইন সম্প্রদায়ের অন্যতম ধর্মীয় উৎসব শুভ প্রবারণা পূর্নিমা পালিত হয়েছে। প্রবারণা শব্দের অর্থ আত্মনিবেদন। আর ফানুসকে বৌদ্ধধর্মের ভাষায় বলা হয় আকাশ বাতি। মূলত প্রবারণা পূর্ণিমায় আকাশে বাতি বা ফানুস ওড়ানোর মধ্যদিয়ে গৌতম বুদ্ধের অহিংসার বাণী ছড়িয়ে দেয়ার সঙ্গে সঙ্গে সুখশান্তি আর কল্যাণ কামনা করেন বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের মানুষ।

 

শান্তির সেই বারতা বিশ্বের সবার কাছে পৌঁছে দেয়ার প্রত্যয়ে পর্যটন কেন্দ্র কুয়াকাটার কেরানীপাড়ায় বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা থেকে গভীর রাত পর্যন্ত অর্ধশতাধিক ফানুস ওড়ানো হয়। এছাড়া প্রবারণা উৎসবকে ঘিরে পাড়ায় পাড়ায় উপসনালয় গুলোতে সকালে বিকেলে প্রার্থনা, পিঠা তৈরী উৎসব আয়োজন করে। সাগরপাড়ের উপজেলার কুয়াকাটা, আমখোলাপাড়া, কেরানীপাড়া, কালাচানপাড়া, বৌলতলীপাড়া, হাড়িপাড়া, বেতকাটাপাড়া, নাচনাপাড়, নতুনপাড়াসহ ২০ টি পাড়ায় রাখাইন জনগোষ্ঠী ২৪ অক্টোবর, বুধবার রাত থেকে তিনদিন ব্যাপী এ উৎসব পালন করেন।

 

স্থানীয় আদিবাসী বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বী সূত্রে জানা গেছে, বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব এ প্রবারনা পূর্নিমা উৎসব। এই দিন গৌতম বুদ্ধ ধর্ম প্রচার শুরু করেন। ধর্ম চক্র প্রবর্তন করেন এই দিনে , ধর্ম প্রচারের উদ্দেশ্যে গৃহত্যাগ করেন এই দিনে, এই দিনে গৌতম বুদ্ধ স্বর্গে যান। এসব কারনে এই দিনটি বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের কাছে অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ন। প্রতি বছর পূর্ণিমার এ তিথিতে রাতে আকাশে ফানুস ওড়ানো হয়। আর আনন্দে মাতোয়ারা থাকে রাখাইন নারী-পুরুষ, শিশু-কিশোর থেকে সবাই। তাদের এ উৎসবে শামিল ঘটে ভিন্ন ধর্মের মানুষদেরও। আগত পর্যটকরা ফানুস ওড়ানো উপভোগ করে গভীর রাত পর্যন্ত। আবার অনেকেই ফানুস ওড়ানোর দৃশ্য সরাসরি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যেমে পোষ্ট করেছেন।

 

কুয়াকাটার কেরানীপাড়ার রাখাইন তরুনী নিসো জানান, আমাদের ধর্মের এ উৎসব সব চেয়ে বড়। এ উপলক্ষে বিভিন্ন ধরনের পিঠে-পুলি বানানো হয়েছে। এছাড়া নতুন পোশাক পড়ে উপসনালয় পুজা করেছি। কুয়াকাটা যুবলীগের আহব্বায়ক শেখ ইসাহাক আলী জানান, ধর্ম যার যার উৎসব সবার। তাদের এ উৎসবে বিভিন্ন শ্রেনী পেশার মানুষ আংশ নিয়েছে। কুয়াকাটা শ্রীমঙ্গল বৌদ্ধ বিহার ভিক্ষু য়েনুত্রা মহাথেরো জানান, নানা অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে শুভ প্রবারণা পূর্নিমা উৎসব পালন করা হয়েছে। তিনদিন ব্যাপী প্রবারণা পূর্ণিমায় আকাশে ওড়ানো হয়েছে ফানুস।

 

এছাড়া প্রতিটি পাড়ার মন্দিরে মন্দিরে পূজার্চনা সহ বাড়িতে বাড়িতে পিঠা পুলির বানানোর হয়েছে। তবে বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব বলে তিনি জানান। উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা সুমন চন্দ্র দেবনাথ সাংবাদিকদের জানান, এ বছর প্রবারণা পুর্ণিমা উপলক্ষ্যে উপজেলার ২০ টি রাখাইন বৌদ্ধবিহারে ৫০০ কেজি চাল বরাদ্দ দেয়া হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন:

সর্বশেষ আপডেট



» এক সাথে পথ চলা’ প্রতিপাদ্যে ঝিনাইদহে বিশ্ব ডাউন সিনড্রোম দিবস পালিত 

» ঝিনাইদহে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের ৪৪ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত

» ঝিনাইদহে অনাথ ভবঘুরে এতিম শিশুদের ইচ্ছা পুরণে এক ব্যতিক্রমধর্মী অনুষ্ঠান

» শৈলকুপায় উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ভোটের মাঠে কে এই সুন্দরী প্রার্থী? 

» নোয়াখালী কোম্পানীগঞ্জে ৩৫ভরি স্বর্ণ, ১২ লক্ষ টাকা নিয়ে আমেরিকা প্রবাসীর স্ত্রী উধাও

» রাজধানীর নিউমার্কেট এলাকায় অ্যাপার্টমেন্টে আগুন

» দখল হয়ে যাচ্ছে তিন যুগ আগের দশমিনার নির্মিত বীজাগার

» খুন করে স্বামীর লাশের পাশেই রাত কাটালেন স্ত্রী!

» নিউজিল্যান্ডে নিহতদের স্মরণসভায় জনতার ঢল

» সাতক্ষীরার তালায় শিয়াল মারা ফাঁদে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে স্কুলছাত্রের মৃত্যু

লাইক দিয়ে সংযুক্ত থাকুন

ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
সহ-সম্পাদক : নুরুজ্জামান কাফি
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com
Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
আজ শনিবার, ২৩ মার্চ ২০১৯ খ্রিষ্টাব্দ, ৯ই চৈত্র ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

রাখাইন সম্প্রদায়ের প্রবারনা উৎসব পালিত সাগর পাড়ে রাখাইনদের পাড়ায় পাড়ায় আনন্দ

ইউটিউবে সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:
Spread the love

উত্তম কুমার হাওলাদার, কলাপাড়া(পটুয়াখালী)প্রতিনিধি:  সমুদ্র উপকূলীয় পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় আদিবাসী বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বী রাখাইন সম্প্রদায়ের অন্যতম ধর্মীয় উৎসব শুভ প্রবারণা পূর্নিমা পালিত হয়েছে। প্রবারণা শব্দের অর্থ আত্মনিবেদন। আর ফানুসকে বৌদ্ধধর্মের ভাষায় বলা হয় আকাশ বাতি। মূলত প্রবারণা পূর্ণিমায় আকাশে বাতি বা ফানুস ওড়ানোর মধ্যদিয়ে গৌতম বুদ্ধের অহিংসার বাণী ছড়িয়ে দেয়ার সঙ্গে সঙ্গে সুখশান্তি আর কল্যাণ কামনা করেন বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের মানুষ।

 

শান্তির সেই বারতা বিশ্বের সবার কাছে পৌঁছে দেয়ার প্রত্যয়ে পর্যটন কেন্দ্র কুয়াকাটার কেরানীপাড়ায় বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা থেকে গভীর রাত পর্যন্ত অর্ধশতাধিক ফানুস ওড়ানো হয়। এছাড়া প্রবারণা উৎসবকে ঘিরে পাড়ায় পাড়ায় উপসনালয় গুলোতে সকালে বিকেলে প্রার্থনা, পিঠা তৈরী উৎসব আয়োজন করে। সাগরপাড়ের উপজেলার কুয়াকাটা, আমখোলাপাড়া, কেরানীপাড়া, কালাচানপাড়া, বৌলতলীপাড়া, হাড়িপাড়া, বেতকাটাপাড়া, নাচনাপাড়, নতুনপাড়াসহ ২০ টি পাড়ায় রাখাইন জনগোষ্ঠী ২৪ অক্টোবর, বুধবার রাত থেকে তিনদিন ব্যাপী এ উৎসব পালন করেন।

 

স্থানীয় আদিবাসী বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বী সূত্রে জানা গেছে, বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব এ প্রবারনা পূর্নিমা উৎসব। এই দিন গৌতম বুদ্ধ ধর্ম প্রচার শুরু করেন। ধর্ম চক্র প্রবর্তন করেন এই দিনে , ধর্ম প্রচারের উদ্দেশ্যে গৃহত্যাগ করেন এই দিনে, এই দিনে গৌতম বুদ্ধ স্বর্গে যান। এসব কারনে এই দিনটি বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের কাছে অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ন। প্রতি বছর পূর্ণিমার এ তিথিতে রাতে আকাশে ফানুস ওড়ানো হয়। আর আনন্দে মাতোয়ারা থাকে রাখাইন নারী-পুরুষ, শিশু-কিশোর থেকে সবাই। তাদের এ উৎসবে শামিল ঘটে ভিন্ন ধর্মের মানুষদেরও। আগত পর্যটকরা ফানুস ওড়ানো উপভোগ করে গভীর রাত পর্যন্ত। আবার অনেকেই ফানুস ওড়ানোর দৃশ্য সরাসরি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যেমে পোষ্ট করেছেন।

 

কুয়াকাটার কেরানীপাড়ার রাখাইন তরুনী নিসো জানান, আমাদের ধর্মের এ উৎসব সব চেয়ে বড়। এ উপলক্ষে বিভিন্ন ধরনের পিঠে-পুলি বানানো হয়েছে। এছাড়া নতুন পোশাক পড়ে উপসনালয় পুজা করেছি। কুয়াকাটা যুবলীগের আহব্বায়ক শেখ ইসাহাক আলী জানান, ধর্ম যার যার উৎসব সবার। তাদের এ উৎসবে বিভিন্ন শ্রেনী পেশার মানুষ আংশ নিয়েছে। কুয়াকাটা শ্রীমঙ্গল বৌদ্ধ বিহার ভিক্ষু য়েনুত্রা মহাথেরো জানান, নানা অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে শুভ প্রবারণা পূর্নিমা উৎসব পালন করা হয়েছে। তিনদিন ব্যাপী প্রবারণা পূর্ণিমায় আকাশে ওড়ানো হয়েছে ফানুস।

 

এছাড়া প্রতিটি পাড়ার মন্দিরে মন্দিরে পূজার্চনা সহ বাড়িতে বাড়িতে পিঠা পুলির বানানোর হয়েছে। তবে বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব বলে তিনি জানান। উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা সুমন চন্দ্র দেবনাথ সাংবাদিকদের জানান, এ বছর প্রবারণা পুর্ণিমা উপলক্ষ্যে উপজেলার ২০ টি রাখাইন বৌদ্ধবিহারে ৫০০ কেজি চাল বরাদ্দ দেয়া হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন:

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
সহ-সম্পাদক : নুরুজ্জামান কাফি
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com

© Copyright BY KuakataNews.Com

Design & Developed BY PopularITLimited