ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে রেললাইন পুনর্বাসন কাজ উদ্ভোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা- ভারতের নরেন্দ্র মোদী

মশাহিদ আহমদ, মৌলভীবাজার: বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে যোগাযোগ ব্যবস্থা সহজ করতে ও ব্যবসা বানিজ্য বাড়াতে নির্মাণ করা হচ্ছে কুলাউড়া-শাহবাজপুর ডুয়েলগেজ রেলপথ। কুলাউড়া রেলওয়ে জংশন ষ্টেশনের বিশাল ডিজিটাল পর্দায় ভিডিও কনফারেন্সের সোমবার আজ ১০ সেপ্টেম্বও বিকাল সোয়া ৫টায় আনুষ্ঠানিকভাবে গণভবন থেকে রেল লাইন পুণ:নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। উক্ত অনুষ্ঠানে ভিডিও কনফারেন্সে অংশ নেন, ত্রিপুরার মূখ্যমন্ত্রী ও পশ্চিমবঙ্গের মূখ্যমন্ত্রী।

 

এ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন- বাংলাদেশ রেলওয়ের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাসহ মৌলভীবাজার জেলার রাজনৈতিকদলের নেতৃবৃন্দ ও জেলা প্রশাসন ও কুলাউড়া, জুড়ী ও বড়লেখা উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তাবৃন্দ। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানকে কেন্দ্র করে কুলাউড়ায় উৎসবের আমেজ বিরাজ করছে। মৌলভীবাজারের কুলাউড়া-শাহবাজপুর রেলপথটি ১৯১০ সাল থেকে চালু ছিল। এ রেলপথটি আবার চালু করতে প্রকল্প হাতে নেয় বাংলাদেশ রেলওয়ে। ৫৩ কিলোমিটার ডুয়েলগেজ রেলপথটি নির্মাণে মোট ব্যয় ধরা হয়েছে ৬৭৮ কোটি ৫০ লাখ টাকা। এটি বাস্তবায়িত হবে ভারতীয় ঋণে। পরে ২০১৫ সালের ২৬ মে মিটারগেজের পরিবর্তে ডুয়েলগেজে রূপান্তরের জন্য প্রস্তাবটি অনুমোদন দেয় একনেক। এ রেলপথ রেলওয়ের নিজস্ব জমিতে নির্মিত হবে। ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান হিসেবে কাজ করছে ভারতের কালিন্দি কোম্পানী। প্রকল্পের আওতায় নির্মাণ করা হবে ৫৯টি ছোট-বড় সেতু ও ছয়টি স্টেশন (জুড়ী, দক্ষিণভাগ, কাঁঠালতলী, বড়লেখা, মুড়াউল ও শাহবাজপুর)। ২০১৫ সালে কুলাউড়া-শাহবাজপুর রেলপথ অংশের পুনর্বাসনে ভারতীয় প্রতিষ্ঠান বালাজি রেলরোড সিস্টেমস লিমিটেডকে পরামর্শক নিয়োগ দেয় রেলপথ মন্ত্রণালয়।

 

বাংলাদেশ রেলওয়ের মহাপরিচালক আমজাদ হোসেন জানান, ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যের সঙ্গে বাংলাদেশের যোগাযোগ সহজ হবে। রেলপথের মাধ্যমে সেভেন সিস্টার্সের যাতায়াত সহজ করতে সরকারের এ উদ্যোগের সুফল ভোগ করবে দেশের জনগণ। বাংলাদেশের রফতানি পণ্যের চাহিদাও বেড়ে যাবে ভারতের ত্রিপুরা, আসামসহ সেভেন সিস্টার অঞ্চলে। জানা যায়, তৎকালীন ব্রিটিশ আমলে ১৮৮৫ সালে আসাম-বেঙ্গল রেলওয়ের অংশ হিসেবে কুলাউড়া-শাহবাজপুর রেললাইন চালু হয়েছিল। বড়লেখা উপজেলার লাতু সীমান্তের শাহবাজপুর দিয়ে কুলাউড়া রেলওয়ে জংশন এসে গাড়ির ইঞ্জিন শালটিং করে সিলেট স্টেশনে পৌছাতো এ ট্রেনটি। কুলাউড়া-শাহবাজপুর লাইনে চলাচলকারী ট্রেনটি এলাকাবাসীর কাছে ‘লাতুর ট্রেন’ নামে পরিচিত ছিল। সেই সময় দু’দেশের যাত্রী পরিবহন ছাড়াও মালামাল বহনে এই রেল লাইনটি ছিলো সবচেয়ে সুবিধা জনক। কিন্তুু সরকারের আর্থিক ক্ষতি সাধন এবং চলাচলের অনুপোযোগী হয়ে পড়ায় তা সংস্কার না করেই রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ ২০০২ সালের ৭ জুলাই লাইনটি বন্ধ করে দেয়। এরপর লাইনটি চালু করার জন্য নানা কর্মসূচির মাধ্যমে আন্দোলন অব্যাহত রেখেছেন স্থানীয় বাসিন্দারা। ২০০৮ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মৌলভীবাজার-১ (বড়লেখা-জুড়ী) আসনে মহাজোটের প্রার্থী মো. শাহাব উদ্দিন (বর্তমানে জাতীয় সংসদের হুইপ) অন্যতম প্রতিশ্রুতি ছিল বিজয়ী হলে কুলাউড়া-শাহবাজপুর ট্রেনলাইন চালু করবেন।

 

পরে তিনি নির্বাচনে জয়লাভ করলে লাইনটি চালুর জন্য ঐকান্তিক প্রচেষ্টা চালান। একাধিকবার সংসদে দাবি উত্থাপন করেন। এর প্রেক্ষিতে ২০১৩ সালের ৯ নভেম্বর বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বড়লেখা সফরকালে বড়লেখা ডিগ্রি কলেজ মাঠে আয়োজিত জনসভায় তার বক্তব্যে রেললাইন চালুর ঘোষণা দেন। পরে ২০১৫ সালের ২৬ মে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় ৬৭৮ কোটি টাকা ব্যয়ে কুলাউড়া-শাহবাজপুর রেলপথ পুনর্বাসন প্রকল্প অনুমোদন হয়। এরমধ্যে বাংলাদেশ সরকার দিবে ১২২ কোটি ৫২ লাখ টাকা এবং ভারত সরকার ৫৫৫ কোটি ৯৯ লাখ টাকা। ৪৪ দশমিক ৭৭ কিলোমিটারের পুরোটাই ডুয়েল গেজ লাইন নির্মাণ করা হবে। এরমধ্যে সাত দশমিক ৭৭ কিলোমিটার লুপ লাইনের কাজ হবে। ওই বছরের ৬ জুন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ মোদি বাংলাদেশ সফরে আসলে পরদিন ৭ জুন ঢাকায় দু’দেশের প্রধানমন্ত্রী যৌথভাবে অন্যান্য প্রকল্পের সঙ্গে কুলাউড়া-শাহবাজপুর রেললাইন প্রকল্পেরও আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন।

নিউজটি শেয়ার করুন:
image_print

সর্বশেষ আপডেট



» এসআই শাফিউলকে নিয়ে আপত্তির স্ট্যাটাসের ‘অনিক’ ভিপি রিয়াদের চাচাতো ভাই!!

» আশুরা উপলক্ষে সৈয়দপুর দাফন কমিটির ওয়াজ ও দোয়া মাহফিল

» কাশিপুরে চাদাঁবাজ আওয়ালগংদের হামলায় ব্যাংকার পরিবারের ৪ জন আহত

» জলবায়ু ও সমুদ্রের বৈরী আচরণে ধ্বংস হচ্ছে কুয়াকাটার প্রকৃতি বিলুপ্তির পথে জাতীয় উদ্যান

» গোপালগঞ্জে শিল্প ও বানিজ্য মেলার উদ্বোধন

» গোপালগঞ্জে বিদেশী পিস্তল ও গুলিসহ কুক্ষাত মাদক সম্রাট আটক

» গোপালগঞ্জে ট্রাকচাপায় প্রভাষক নিহত ১ : আহত ৩

» গোপালগঞ্জে ওসির বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মলনে সোস্যাল মিডিয়ায় সমালোচনার ঝড়

» ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলাকারীদের ফাঁসির দাবিতে মানববন্ধন

» বাগেরহাটে দুটি বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ১, আহত ১৫

লাইক দিয়ে সংযুক্ত থাকুন

 



ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
Email: info@kuakatanews.com
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com
Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
আজ রবিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮ খ্রিষ্টাব্দ, ৮ই আশ্বিন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে রেললাইন পুনর্বাসন কাজ উদ্ভোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা- ভারতের নরেন্দ্র মোদী

মশাহিদ আহমদ, মৌলভীবাজার: বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে যোগাযোগ ব্যবস্থা সহজ করতে ও ব্যবসা বানিজ্য বাড়াতে নির্মাণ করা হচ্ছে কুলাউড়া-শাহবাজপুর ডুয়েলগেজ রেলপথ। কুলাউড়া রেলওয়ে জংশন ষ্টেশনের বিশাল ডিজিটাল পর্দায় ভিডিও কনফারেন্সের সোমবার আজ ১০ সেপ্টেম্বও বিকাল সোয়া ৫টায় আনুষ্ঠানিকভাবে গণভবন থেকে রেল লাইন পুণ:নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। উক্ত অনুষ্ঠানে ভিডিও কনফারেন্সে অংশ নেন, ত্রিপুরার মূখ্যমন্ত্রী ও পশ্চিমবঙ্গের মূখ্যমন্ত্রী।

 

এ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন- বাংলাদেশ রেলওয়ের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাসহ মৌলভীবাজার জেলার রাজনৈতিকদলের নেতৃবৃন্দ ও জেলা প্রশাসন ও কুলাউড়া, জুড়ী ও বড়লেখা উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তাবৃন্দ। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানকে কেন্দ্র করে কুলাউড়ায় উৎসবের আমেজ বিরাজ করছে। মৌলভীবাজারের কুলাউড়া-শাহবাজপুর রেলপথটি ১৯১০ সাল থেকে চালু ছিল। এ রেলপথটি আবার চালু করতে প্রকল্প হাতে নেয় বাংলাদেশ রেলওয়ে। ৫৩ কিলোমিটার ডুয়েলগেজ রেলপথটি নির্মাণে মোট ব্যয় ধরা হয়েছে ৬৭৮ কোটি ৫০ লাখ টাকা। এটি বাস্তবায়িত হবে ভারতীয় ঋণে। পরে ২০১৫ সালের ২৬ মে মিটারগেজের পরিবর্তে ডুয়েলগেজে রূপান্তরের জন্য প্রস্তাবটি অনুমোদন দেয় একনেক। এ রেলপথ রেলওয়ের নিজস্ব জমিতে নির্মিত হবে। ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান হিসেবে কাজ করছে ভারতের কালিন্দি কোম্পানী। প্রকল্পের আওতায় নির্মাণ করা হবে ৫৯টি ছোট-বড় সেতু ও ছয়টি স্টেশন (জুড়ী, দক্ষিণভাগ, কাঁঠালতলী, বড়লেখা, মুড়াউল ও শাহবাজপুর)। ২০১৫ সালে কুলাউড়া-শাহবাজপুর রেলপথ অংশের পুনর্বাসনে ভারতীয় প্রতিষ্ঠান বালাজি রেলরোড সিস্টেমস লিমিটেডকে পরামর্শক নিয়োগ দেয় রেলপথ মন্ত্রণালয়।

 

বাংলাদেশ রেলওয়ের মহাপরিচালক আমজাদ হোসেন জানান, ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যের সঙ্গে বাংলাদেশের যোগাযোগ সহজ হবে। রেলপথের মাধ্যমে সেভেন সিস্টার্সের যাতায়াত সহজ করতে সরকারের এ উদ্যোগের সুফল ভোগ করবে দেশের জনগণ। বাংলাদেশের রফতানি পণ্যের চাহিদাও বেড়ে যাবে ভারতের ত্রিপুরা, আসামসহ সেভেন সিস্টার অঞ্চলে। জানা যায়, তৎকালীন ব্রিটিশ আমলে ১৮৮৫ সালে আসাম-বেঙ্গল রেলওয়ের অংশ হিসেবে কুলাউড়া-শাহবাজপুর রেললাইন চালু হয়েছিল। বড়লেখা উপজেলার লাতু সীমান্তের শাহবাজপুর দিয়ে কুলাউড়া রেলওয়ে জংশন এসে গাড়ির ইঞ্জিন শালটিং করে সিলেট স্টেশনে পৌছাতো এ ট্রেনটি। কুলাউড়া-শাহবাজপুর লাইনে চলাচলকারী ট্রেনটি এলাকাবাসীর কাছে ‘লাতুর ট্রেন’ নামে পরিচিত ছিল। সেই সময় দু’দেশের যাত্রী পরিবহন ছাড়াও মালামাল বহনে এই রেল লাইনটি ছিলো সবচেয়ে সুবিধা জনক। কিন্তুু সরকারের আর্থিক ক্ষতি সাধন এবং চলাচলের অনুপোযোগী হয়ে পড়ায় তা সংস্কার না করেই রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ ২০০২ সালের ৭ জুলাই লাইনটি বন্ধ করে দেয়। এরপর লাইনটি চালু করার জন্য নানা কর্মসূচির মাধ্যমে আন্দোলন অব্যাহত রেখেছেন স্থানীয় বাসিন্দারা। ২০০৮ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মৌলভীবাজার-১ (বড়লেখা-জুড়ী) আসনে মহাজোটের প্রার্থী মো. শাহাব উদ্দিন (বর্তমানে জাতীয় সংসদের হুইপ) অন্যতম প্রতিশ্রুতি ছিল বিজয়ী হলে কুলাউড়া-শাহবাজপুর ট্রেনলাইন চালু করবেন।

 

পরে তিনি নির্বাচনে জয়লাভ করলে লাইনটি চালুর জন্য ঐকান্তিক প্রচেষ্টা চালান। একাধিকবার সংসদে দাবি উত্থাপন করেন। এর প্রেক্ষিতে ২০১৩ সালের ৯ নভেম্বর বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বড়লেখা সফরকালে বড়লেখা ডিগ্রি কলেজ মাঠে আয়োজিত জনসভায় তার বক্তব্যে রেললাইন চালুর ঘোষণা দেন। পরে ২০১৫ সালের ২৬ মে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় ৬৭৮ কোটি টাকা ব্যয়ে কুলাউড়া-শাহবাজপুর রেলপথ পুনর্বাসন প্রকল্প অনুমোদন হয়। এরমধ্যে বাংলাদেশ সরকার দিবে ১২২ কোটি ৫২ লাখ টাকা এবং ভারত সরকার ৫৫৫ কোটি ৯৯ লাখ টাকা। ৪৪ দশমিক ৭৭ কিলোমিটারের পুরোটাই ডুয়েল গেজ লাইন নির্মাণ করা হবে। এরমধ্যে সাত দশমিক ৭৭ কিলোমিটার লুপ লাইনের কাজ হবে। ওই বছরের ৬ জুন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ মোদি বাংলাদেশ সফরে আসলে পরদিন ৭ জুন ঢাকায় দু’দেশের প্রধানমন্ত্রী যৌথভাবে অন্যান্য প্রকল্পের সঙ্গে কুলাউড়া-শাহবাজপুর রেললাইন প্রকল্পেরও আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন।

নিউজটি শেয়ার করুন:
image_print

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
Email: info@kuakatanews.com
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com

© Copyright BY KuakataNews.Com

Design & Developed BY PopularITLimited