বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ ও শ্রদ্ধা নিবেদনের মাধ্যমে বঙ্গবন্ধু গবেষণা পরিষদের শোকাবহ আগস্টের মাসব্যাপি কর্মসূচি শুরু

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৩তম শাহাদাৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস- ২০১৮ উপলক্ষে বঙ্গবন্ধু গবেষণা পরিষদের মাসব্যাপি বিভিন্ন কর্মসূচি ১ আগস্ট থেকে শুরু হয়। ১ আগস্ট সকাল ৮টায় বঙ্গবন্ধু গবেষণা পরিষদের কেন্দ্রীয় সভাপতি লায়ন মোঃ গনি মিয়া বাবুল এর নেতৃত্বে ৩২ ধানমন্ডিস্থ বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুস্পস্তবক অর্পণ, শ্রদ্ধা নিবেদন, ফাতেহা পাঠ ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। পরে বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘর প্রাঙ্গণে সমাবেশ ও ‘বঙ্গবন্ধু, মুক্তিযুদ্ধ ও বাংলাদেশ’ শীর্ষক আলোচনাসভার আয়োজন করা হয়। বঙ্গবন্ধু গবেষণা পরিষদের কেন্দ্রীয় সভাপতি লায়ন মোঃ গনি মিয়া বাবুল এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিলের চেয়ারম্যান বিচারপতি মোহাম্মদ মমতাজ উদ্দিন আহমেদ ও বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, সংসদ সদস্য কবি কাজী রোজী।

 

অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, সংগঠনের সহ-সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ নুরুল ইসলাম তালুকদার, প্রচার সম্পাদক এডভোকেট খান চমন-ই-এলাহী, প্রকাশনা সম্পাদক মোঃ কামাল হোসেন খান, নির্বাহী সদস্য মোঃ মাসুদ আলম, সদস্য ড. জাহিদুল ইসলাম সিদ্দিকী, মোঃ আরিফুল ইসলাম, কবি মায়ারাজ, শাহিন শোভন, মোঃ রাজিবুল ইসলাম রাজিব, মোঃ নাঈম হোসেন, আনোয়ার হোসেন আনু প্রমুখ। প্রধান অতিথির বক্তব্যে বিচারপতি মোহাম্মদ মমতাজ উদ্দিন আহমেদ বলেন, আগস্ট বাঙালি জাতির জন্যে অত্যন্ত শোকাবহ একটি মাস। এই মাসে জাতির ইতিহাসে কলঙ্কিত এক অধ্যায়ের সুচনা হয়েছিল। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট নৃশংসভাবে সপরিবারে হত্যা করা হয়েছিল জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে। স্বাধীনতা বিরোধীরা এই হত্যার মাধ্যমে বাংলাদেশের স্বাধীনতা-সার্বভৌমকে হত্যা করতে চেয়েছিল। তারা চেয়েছিল মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে ও বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে হত্যা করতে।

 

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে কবি কাজী রোজী এমপি বলেন, আগস্ট মাসের শোককে শক্তিতে পরিণত করে বাঙালি জাতি বর্তমান সরকারের নেতৃত্বে দুর্বার গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে। তিনি জননেত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করতে সকলকে সচেষ্ট থাকার আহ্বান জানান। সভাপতির বক্তব্যে লায়ন মোঃ গনি মিয়া বাবুল বলেন, একাত্তরের পরাজিত শত্রুরাই ১৯৭৫ সালের ১৫ই আগস্ট জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যার মাধ্যমে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে চিরতরে হত্যা করতে চেয়েছিল। পৃথিবীর ইতিহাসে এমন নিষ্ঠুর শোকের ঘটনা আর দিতীয়টি নেই। বঙ্গবন্ধু হত্যার পর ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ দিয়ে এই হত্যাকান্ডের বিচারের পথ পর্যন্ত রুদ্ধ করা হয়েছিল। ১৯৯৬ সালে বঙ্গবন্ধুর কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর সেই অধ্যাদেশ বাতিল ও বিচার শুরু হয়।

 

দীর্ঘ বিচার প্রক্রিয়া শেষে ২০১০ সালে বঙ্গবন্ধু হত্যা বিচারের চুড়ান্ত রায় এবং পাঁচ ঘাতকের ফাঁসি কার্যকরের মাধ্যমে জাতি কলঙ্কমুক্ত হয়েছে। তবে বাকি ঘাতকদের ফাঁসি দ্রুত কার্যকর হবে জাতি তা প্রত্যাশা করে। তিনি দেশের সর্বস্তরে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়ন করতে সকলকে সচেষ্ট থাকার আহ্বান জানান। বঙ্গবন্ধু স্বপ্নের সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠা করতে আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জননেত্রেী শেখ হাসিনা ও তার মনোনীতদের ভোট প্রদান করে জয়যুক্ত করার জন্যে তিনি আহ্বান জানান।

নিউজটি শেয়ার করুন:

সর্বশেষ আপডেট



» জাতীয় পার্টির মনোনয়নপত্র কিনলেন হিরো আলম

» খালেদার জন্য ৩ আসনে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ

» বিএনপির হাল ধরতে আসছেন ডা. জোবাইদা রহমান!

» মহাজোটের শরিক হিসেবেই নির্বাচনে অংশ নেবে জাপা

» নির্বাচন ৩০ ডিসেম্বর, পুনঃতফসিল ঘোষণা

» আগৈলঝাড়ায় যথাযোগ্য মর্যাদায় যুবলীগের ৪৬তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত

» কলাপাড়ায় যুবলীগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত

» পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী আগামী ২১ নভেম্বর

» ঐক্যফ্রন্ট ও জোটকে ৮০ আসন দিতে চায় বিএনপি

» মাশরাফির মনোনয়নে নড়াইলে আনন্দ

লাইক দিয়ে সংযুক্ত থাকুন

ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
Email: info@kuakatanews.com
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com
Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
আজ মঙ্গলবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৮ খ্রিষ্টাব্দ, ২৯শে কার্তিক ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ ও শ্রদ্ধা নিবেদনের মাধ্যমে বঙ্গবন্ধু গবেষণা পরিষদের শোকাবহ আগস্টের মাসব্যাপি কর্মসূচি শুরু

ইউটিউবে সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৩তম শাহাদাৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস- ২০১৮ উপলক্ষে বঙ্গবন্ধু গবেষণা পরিষদের মাসব্যাপি বিভিন্ন কর্মসূচি ১ আগস্ট থেকে শুরু হয়। ১ আগস্ট সকাল ৮টায় বঙ্গবন্ধু গবেষণা পরিষদের কেন্দ্রীয় সভাপতি লায়ন মোঃ গনি মিয়া বাবুল এর নেতৃত্বে ৩২ ধানমন্ডিস্থ বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুস্পস্তবক অর্পণ, শ্রদ্ধা নিবেদন, ফাতেহা পাঠ ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। পরে বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘর প্রাঙ্গণে সমাবেশ ও ‘বঙ্গবন্ধু, মুক্তিযুদ্ধ ও বাংলাদেশ’ শীর্ষক আলোচনাসভার আয়োজন করা হয়। বঙ্গবন্ধু গবেষণা পরিষদের কেন্দ্রীয় সভাপতি লায়ন মোঃ গনি মিয়া বাবুল এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিলের চেয়ারম্যান বিচারপতি মোহাম্মদ মমতাজ উদ্দিন আহমেদ ও বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, সংসদ সদস্য কবি কাজী রোজী।

 

অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, সংগঠনের সহ-সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ নুরুল ইসলাম তালুকদার, প্রচার সম্পাদক এডভোকেট খান চমন-ই-এলাহী, প্রকাশনা সম্পাদক মোঃ কামাল হোসেন খান, নির্বাহী সদস্য মোঃ মাসুদ আলম, সদস্য ড. জাহিদুল ইসলাম সিদ্দিকী, মোঃ আরিফুল ইসলাম, কবি মায়ারাজ, শাহিন শোভন, মোঃ রাজিবুল ইসলাম রাজিব, মোঃ নাঈম হোসেন, আনোয়ার হোসেন আনু প্রমুখ। প্রধান অতিথির বক্তব্যে বিচারপতি মোহাম্মদ মমতাজ উদ্দিন আহমেদ বলেন, আগস্ট বাঙালি জাতির জন্যে অত্যন্ত শোকাবহ একটি মাস। এই মাসে জাতির ইতিহাসে কলঙ্কিত এক অধ্যায়ের সুচনা হয়েছিল। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট নৃশংসভাবে সপরিবারে হত্যা করা হয়েছিল জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে। স্বাধীনতা বিরোধীরা এই হত্যার মাধ্যমে বাংলাদেশের স্বাধীনতা-সার্বভৌমকে হত্যা করতে চেয়েছিল। তারা চেয়েছিল মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে ও বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে হত্যা করতে।

 

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে কবি কাজী রোজী এমপি বলেন, আগস্ট মাসের শোককে শক্তিতে পরিণত করে বাঙালি জাতি বর্তমান সরকারের নেতৃত্বে দুর্বার গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে। তিনি জননেত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করতে সকলকে সচেষ্ট থাকার আহ্বান জানান। সভাপতির বক্তব্যে লায়ন মোঃ গনি মিয়া বাবুল বলেন, একাত্তরের পরাজিত শত্রুরাই ১৯৭৫ সালের ১৫ই আগস্ট জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যার মাধ্যমে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে চিরতরে হত্যা করতে চেয়েছিল। পৃথিবীর ইতিহাসে এমন নিষ্ঠুর শোকের ঘটনা আর দিতীয়টি নেই। বঙ্গবন্ধু হত্যার পর ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ দিয়ে এই হত্যাকান্ডের বিচারের পথ পর্যন্ত রুদ্ধ করা হয়েছিল। ১৯৯৬ সালে বঙ্গবন্ধুর কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর সেই অধ্যাদেশ বাতিল ও বিচার শুরু হয়।

 

দীর্ঘ বিচার প্রক্রিয়া শেষে ২০১০ সালে বঙ্গবন্ধু হত্যা বিচারের চুড়ান্ত রায় এবং পাঁচ ঘাতকের ফাঁসি কার্যকরের মাধ্যমে জাতি কলঙ্কমুক্ত হয়েছে। তবে বাকি ঘাতকদের ফাঁসি দ্রুত কার্যকর হবে জাতি তা প্রত্যাশা করে। তিনি দেশের সর্বস্তরে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়ন করতে সকলকে সচেষ্ট থাকার আহ্বান জানান। বঙ্গবন্ধু স্বপ্নের সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠা করতে আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জননেত্রেী শেখ হাসিনা ও তার মনোনীতদের ভোট প্রদান করে জয়যুক্ত করার জন্যে তিনি আহ্বান জানান।

নিউজটি শেয়ার করুন:

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
Email: info@kuakatanews.com
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com

© Copyright BY KuakataNews.Com

Design & Developed BY PopularITLimited