বাংলাদেশ সমুদ্রের তলদেশ থেকে এখন মহাকাশে : প্রধানমন্ত্রী

সমুদ্র ও স্থল সীমা বিজয়ের কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, সমুদ্রের তলদেশ থেকে মহাকাশ পর্যন্ত এখন বাংলাদেশ পৌঁছে গেছে। এ উন্নয়নের যাত্রা যেন থেমে না যায় সেদিকে দৃষ্টি রাখতে হবে।  সকলের মেধা, দক্ষতা ও যোগ্যতা দেশ গড়ার কাজে লাগাতে হবে।

 

সোমবার সকালে রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে জনপ্রশাসন মন্ত্রনালয় আয়োজিত জাতীয় জনপ্রশাসন পদক প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। জাতিসংঘের নির্দেশনা অনুযায়ী সিভিল সার্ভিস ডে উপলক্ষে জনপ্রশাসন মন্ত্রনালয় প্রতিবছর এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্য দেন জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ইসমত আরা সাদেক।

 

জনপ্রশাসনের কর্মকর্তাদের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী বলেন, দেশের উন্নয়নে সরকারি কর্মচারীদের মেধা, যোগ্যতাকে কাজে লাগাতে হবে। পাশাপাশি উদ্ভাবনী শক্তিকেও কাজে লাগানোর জন্য উৎসাহিত করতে হবে। সরকারি চাকরি বলে যা খুশি তাই করবেন না। লাল ফিতা/সাদা ফিতার দৌরাত্ম্য প্রশাসনে যেন না থাকে। প্রশাসনে এমনভাবে কাজ করবেন যেন আপনাদের সন্তানরা এদেশে ভালোভাবে বসবাস করতে পারে। আমাদের সময় শেষ। আগামী ডিসেম্বরে নির্বাচন। জনগণ ভোট দিলে আছি, না দিলে নেই। এ জন্য কোনো আক্ষেপ নেই। তবে দেশটাকে উন্নয়নের মহাসড়কে তুলে দিয়েছি সেটা যেন অব্যাহত থাকে।

 

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু আমাদের এ দেশ দিয়ে গেছেন বলেই আপনারা রাষ্ট্রের উচ্চ পদে আসীন হচ্ছেন। পাকিস্তান আমলে প্রশাসনে বাঙালিদের কী অবস্থা ছিল তা দেখেছেন। আজ প্রশিক্ষণ ও ডিগ্রির জন্য আপনাদের অনেক সময় বিদেশ পাঠানো হয়। ডিগ্রি নিজের জন্য নয়, দেশের মানুষের কল্যাণে কাজে লাগাবেন। মানুষের জীবনমানের যেন উন্নয়ন হয় সে কাজে লাগাবেন। শেখ হাসিনা বলেন, ‘বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর দেশের উন্নয়নের জন্য আত্মনিয়োগ করেছিলেন বঙ্গবন্ধু। দেশ অনেক দূর এগিয়েছিল। কিন্তু ১৯৭৫ এর ১৫ আগস্ট সব শেষ করে দিয়েছে। এর পর যারা ক্ষমতায় এসেছেন তারা নিজেদের ভাগ্য বদলে কাজ করেছেন। ফলে দেশের উন্নয়ন হয়নি। সরকারি কর্মকর্তাদের মধ্যে যারা কাজ করতে চেয়েছেন তাদেরও কাজ করতে দেয়া হয়নি।

 

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘সরকারি কর্মকর্তাদের কর্মস্পৃহা বৃদ্ধির জন্য এবং কাজের প্রতি আগ্রহ সৃষ্টির জন্যই এ উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। এ পদক শুধু কর্মকর্তাদের উৎসাহই দিচ্ছে না বরং এ পদক্ষেপ প্রশাসনে সেবার মানও বৃদ্ধি করেছে। এই পদক প্রদান কর্মকর্তাদের মধ্য উৎসাহ সৃষ্টি করেছে।’ এ সময় পদকপ্রাপ্তদের অভিনন্দন জানান প্রধানমন্ত্রী। উল্লেখ্য, ২৩ জুন আন্তর্জাতিক পাবলিক সার্ভিস ডে। বিশ্বব্যাপী সিভিল সার্ভিস সদস্যদের জন্যই এ দিবস। সিভিল সার্ভিস হোক সেবামুখী ও জনমুখীএ প্রত্যাশায় জাতিসংঘের উদ্যোগে সারা বিশ্বে দিবসটি উদযাপিত হচ্ছে।

নিউজটি শেয়ার করুন:

সর্বশেষ আপডেট



» গোপালগঞ্জের কাশিয়ানীতে ছয় কোচিং সেন্টার সিলগালা : বেঞ্চ ধ্বংস

» গোপালগঞ্জে বিআরডিবি’র ইউসিসিএ কর্মচারীদের মানবন্ধন ও স্মারকলিপি প্রদান

» সৌদি আরবকে ইইউ’র কালো তালিকা ভুক্ত করায় নাগরিক সমাজের উদ্বেগ

» দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে ফুলচাষে প্রায় ৫০ লাখ মানুষের জীবন-জীবিকা নির্বাহ করে প্রায় ৬০ কোটি টাকাফুল বিক্রি

» যশোরের নাভারন প্রতিবন্ধী স্কুলে পথের আলো সংস্থার মোটর রিক্সা ভ্যান দান

» যশোরের শার্শায় মাদক ব্যবসায়ীর লাশ উদ্ধার

» গলাচিপায় বীজ আলুর মাঠ দিবস পালিত

» ভাষাসৈনিকদের যথাযথ মর্যাদা দেওয়া সময়ের দাবি: ভাষাসৈনিক লায়ন শামসুল হুদা

» বই কিনুন, বই পড়ুন, নিজেকে সমৃদ্ধ করুন: যুবলীগ চেয়ারম্যাম মোহাম্মদ ওমর ফারুক চৌধুরী

» ঝিনাইদহে শুদ্ধসুরে জাতীয় সংগীত পরিবেশন প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত

লাইক দিয়ে সংযুক্ত থাকুন

ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
সহ-সম্পাদক : নুরুজ্জামান কাফি
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com
Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
আজ বুধবার, ২০ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ খ্রিষ্টাব্দ, ৮ই ফাল্গুন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

বাংলাদেশ সমুদ্রের তলদেশ থেকে এখন মহাকাশে : প্রধানমন্ত্রী

ইউটিউবে সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

সমুদ্র ও স্থল সীমা বিজয়ের কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, সমুদ্রের তলদেশ থেকে মহাকাশ পর্যন্ত এখন বাংলাদেশ পৌঁছে গেছে। এ উন্নয়নের যাত্রা যেন থেমে না যায় সেদিকে দৃষ্টি রাখতে হবে।  সকলের মেধা, দক্ষতা ও যোগ্যতা দেশ গড়ার কাজে লাগাতে হবে।

 

সোমবার সকালে রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে জনপ্রশাসন মন্ত্রনালয় আয়োজিত জাতীয় জনপ্রশাসন পদক প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। জাতিসংঘের নির্দেশনা অনুযায়ী সিভিল সার্ভিস ডে উপলক্ষে জনপ্রশাসন মন্ত্রনালয় প্রতিবছর এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্য দেন জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ইসমত আরা সাদেক।

 

জনপ্রশাসনের কর্মকর্তাদের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী বলেন, দেশের উন্নয়নে সরকারি কর্মচারীদের মেধা, যোগ্যতাকে কাজে লাগাতে হবে। পাশাপাশি উদ্ভাবনী শক্তিকেও কাজে লাগানোর জন্য উৎসাহিত করতে হবে। সরকারি চাকরি বলে যা খুশি তাই করবেন না। লাল ফিতা/সাদা ফিতার দৌরাত্ম্য প্রশাসনে যেন না থাকে। প্রশাসনে এমনভাবে কাজ করবেন যেন আপনাদের সন্তানরা এদেশে ভালোভাবে বসবাস করতে পারে। আমাদের সময় শেষ। আগামী ডিসেম্বরে নির্বাচন। জনগণ ভোট দিলে আছি, না দিলে নেই। এ জন্য কোনো আক্ষেপ নেই। তবে দেশটাকে উন্নয়নের মহাসড়কে তুলে দিয়েছি সেটা যেন অব্যাহত থাকে।

 

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু আমাদের এ দেশ দিয়ে গেছেন বলেই আপনারা রাষ্ট্রের উচ্চ পদে আসীন হচ্ছেন। পাকিস্তান আমলে প্রশাসনে বাঙালিদের কী অবস্থা ছিল তা দেখেছেন। আজ প্রশিক্ষণ ও ডিগ্রির জন্য আপনাদের অনেক সময় বিদেশ পাঠানো হয়। ডিগ্রি নিজের জন্য নয়, দেশের মানুষের কল্যাণে কাজে লাগাবেন। মানুষের জীবনমানের যেন উন্নয়ন হয় সে কাজে লাগাবেন। শেখ হাসিনা বলেন, ‘বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর দেশের উন্নয়নের জন্য আত্মনিয়োগ করেছিলেন বঙ্গবন্ধু। দেশ অনেক দূর এগিয়েছিল। কিন্তু ১৯৭৫ এর ১৫ আগস্ট সব শেষ করে দিয়েছে। এর পর যারা ক্ষমতায় এসেছেন তারা নিজেদের ভাগ্য বদলে কাজ করেছেন। ফলে দেশের উন্নয়ন হয়নি। সরকারি কর্মকর্তাদের মধ্যে যারা কাজ করতে চেয়েছেন তাদেরও কাজ করতে দেয়া হয়নি।

 

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘সরকারি কর্মকর্তাদের কর্মস্পৃহা বৃদ্ধির জন্য এবং কাজের প্রতি আগ্রহ সৃষ্টির জন্যই এ উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। এ পদক শুধু কর্মকর্তাদের উৎসাহই দিচ্ছে না বরং এ পদক্ষেপ প্রশাসনে সেবার মানও বৃদ্ধি করেছে। এই পদক প্রদান কর্মকর্তাদের মধ্য উৎসাহ সৃষ্টি করেছে।’ এ সময় পদকপ্রাপ্তদের অভিনন্দন জানান প্রধানমন্ত্রী। উল্লেখ্য, ২৩ জুন আন্তর্জাতিক পাবলিক সার্ভিস ডে। বিশ্বব্যাপী সিভিল সার্ভিস সদস্যদের জন্যই এ দিবস। সিভিল সার্ভিস হোক সেবামুখী ও জনমুখীএ প্রত্যাশায় জাতিসংঘের উদ্যোগে সারা বিশ্বে দিবসটি উদযাপিত হচ্ছে।

নিউজটি শেয়ার করুন:

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
সহ-সম্পাদক : নুরুজ্জামান কাফি
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com

© Copyright BY KuakataNews.Com

Design & Developed BY PopularITLimited