মহাজনী ঋনে বন্ধী উপকূলের জেলেরা

উত্তম কুমার হাওলাদার.কলাপাড়া(পটুয়াখালী)প্রতিনিধি।। ইলিশ শিকারে জেলেরা গভীর সমুদ্রে যাত্রা শুরু করেছে। কেউ সাগরে জাল ফেলছে। কেউ ট্রলার নিয়ে যাত্রা করছে।

 

কেউ সমুদ্র যাওয়ার জন্য জাল বুননের কাজে ব্যাস্ত রয়েছে। আবার কেউ কেউ আড়ৎ গুলো ধুয়ে মুছে পরিস্কার পরিচ্ছন্ন করছেন। এমন দৃশ্য এখন পটুয়াখালীর কলাপাড়া উপজেলার মৎস্য বন্দর মহিপুর-আলীপুর কুয়াকাটাসহ বিভিন্ন আড়ৎ ঘাটে। তবে মৌসুমের শুরুতে জালে আশানুরুপ ইলিশ ধরা না পরায় অনেক জেলে পরিবার চলছে হতাশা। এদিকে মহাজনের ঋনের ফাঁদে আটকে পড়েছে উপকূলের শত শত জেলে। তবে সাগরে জেলেদের জালে প্রচুর ইলিশ ধরা পরবে এমন আশায় বুক বেঁধে বসে আছে অনেক জেলে।

 

বেসরকারি একটি সংস্থা এক জরিপে জানা গেছে, কলাপাড়ায় ৪০টি জেলে গ্রামে ২ হাজার ৫৩৩ টি জেলে পরিবারে ২৭ হাজার ৮৪০ জন সদস্য রয়েছে। জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে ইলিশের প্রজনন ও বংশবিস্তার নানাভাবে বাঁধাগ্রস্ত হওয়ার কারণে সমুদ্র উপকূলীয় নদ-নদীতে কমছে ইলিশের পরিমাণ এমনটিই ধারণা বিশেষজ্ঞদের।

 

স্থানীয় জেলেদের সূত্রে জানা গেছে, জালে দু-একটি ইলিশ ধরা পড়লেও তা চড়া দামে কিনতে হচ্ছে ক্রেতাদের। যে কারণে নি¤œবিত্ত ও মধ্যবিত্তের নাগালের বাইরে ইলিশে। এছাড়া জাটকা নিধন, জলবায়ু পরিবর্তন ও অনাবৃষ্টির কারণে সাগর-নদীতে মাছের আকাল দেখা দেয়ায় জেলেদের জীবনে নেমে এসেছে হতাশা। মৎস্যবন্দর মহিপুরÑআলীপুর একাধিক ট্রলার মালিক জানান, তারা প্রত্যেকে মহাজনের কাছ থেকে লক্ষ লক্ষ টাকা দাদন নিয়ে ইলিশ শিকারের জন্য সাগরে নেমেছেন। কিন্তু ইলিশের মৌসুম শুরু হলেও তাদের জালে ধরা পড়ছে না মাছ। এখন দাদনের টাকা পরিশোধ করা নিয়ে তারা হয়ে পড়েছেন দুশ্চিন্তাগ্রস্থ।

 

জাহাঙ্গির হাওলাদার জানান, মহাজন, ব্যাংক আর বিভিন্ন এনজিওর কাছ থেকে ঋন নিয়েছেন। এখন ঋণের জালে আটকা পড়েছেন। হঠাৎ করে নদীতে মাছের আকাল দেখা দেয়ায় দিশেহারা হয়ে পড়েছেন তিনি। মহিপুরের শাহানা মৎস্য আড়তের মালিক ইলিয়াস রেজা বলেন, আড়তে আশানুরুপ মাছ আসছেনা। ফি বছর এমন সময় প্রতিদিন দেড় থেকে দুই লক্ষ টাকার মাছ বেচাকেনা করতাম। এবছর করছি পাচঁ থেকে দশ হাজার টাকার বেচাকেনা।

 

মহিপুর মুদি দোকানদার আইয়ুব আলী জানান, তার দোকান থেকে যে সকল জেলেরা বাকিতে তৈলসহ অন্যান্য মালামাল নিয়ে সাগরে মাছ শিকারে গিয়াছেন তারা ফিরে একটি টাকাও পরিশোধ করতে পারেনি। ফলে দোকানদাররাও পড়েছেন বিপাকে। এখন আর বাকিতে মালামাল দেয়ার সাধ্য তাদের নেই। কলাপাড়া মৎস্য কর্মকর্তা কামরুল ইসলাম বলেন, জুলাইয়ের শেষের দিকে অথবা আগস্টের প্রথম দিকে ইলিশের ডিমের পরিপক্কতা আসবে। আশা করছি তখন ইলিশ উপকূলের দিকে আসতে শুরু করবে। সে সময় জেলেদের জালে প্রচুর ইলিশ ধরা পড়বে।

নিউজটি শেয়ার করুন:
image_print

সর্বশেষ আপডেট



» ফতুল্লায় ছিচকে সন্ত্রাসী ও মাদক ব্যবসায়ীর অত্যাচারে অতিষ্ঠ এলাকাবাসী

» গোপালগঞ্জে ১৭টি দেশীয় অস্ত্র ও মোটরসাইকেলসহ গ্রেপ্তার ৪

» কলাপাড়ায় এক বছরের জন্য মহিপুর থানা ও কুয়াকাটা পৌর ছাত্রলীগের দু’টি নতুন কমিটির অনুমোদন

» নৌকা মার্কায় ভোট চাইলেন মেট্রো ওয়াশিংটন আওয়ামীলীগের সাবেক সভাপতি আলাউদ্দিন আহম্মেদ

» বেনাপোলের পাঠবাড়ি দুইদিন ব্যাপি নির্জন উৎসব সমাপ্ত

» বাগেরহাটে মোরেলগঞ্জে রবি’র বিক্রয় প্রতিনিধিকে মারপিট করে টাকা মোবাইল ছিনতাই

» সাপাহারে উন্নয়ন মেলা উপলক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত

» সাপাহারে মীনা দিবস উদযাপন উপলক্ষে আলোচনা সভা, র‌্যালী ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান

» কারাবন্দি খালেদা জিয়ার চিকিৎসা নিয়ে রিটের শুনানি মঙ্গলবার

» লন্ডনে  বিএনপি ও স্বেচ্ছাসেবক দলের বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সভা

লাইক দিয়ে সংযুক্ত থাকুন

 



ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
Email: info@kuakatanews.com
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com
Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
আজ মঙ্গলবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮ খ্রিষ্টাব্দ, ১০ই আশ্বিন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

মহাজনী ঋনে বন্ধী উপকূলের জেলেরা

উত্তম কুমার হাওলাদার.কলাপাড়া(পটুয়াখালী)প্রতিনিধি।। ইলিশ শিকারে জেলেরা গভীর সমুদ্রে যাত্রা শুরু করেছে। কেউ সাগরে জাল ফেলছে। কেউ ট্রলার নিয়ে যাত্রা করছে।

 

কেউ সমুদ্র যাওয়ার জন্য জাল বুননের কাজে ব্যাস্ত রয়েছে। আবার কেউ কেউ আড়ৎ গুলো ধুয়ে মুছে পরিস্কার পরিচ্ছন্ন করছেন। এমন দৃশ্য এখন পটুয়াখালীর কলাপাড়া উপজেলার মৎস্য বন্দর মহিপুর-আলীপুর কুয়াকাটাসহ বিভিন্ন আড়ৎ ঘাটে। তবে মৌসুমের শুরুতে জালে আশানুরুপ ইলিশ ধরা না পরায় অনেক জেলে পরিবার চলছে হতাশা। এদিকে মহাজনের ঋনের ফাঁদে আটকে পড়েছে উপকূলের শত শত জেলে। তবে সাগরে জেলেদের জালে প্রচুর ইলিশ ধরা পরবে এমন আশায় বুক বেঁধে বসে আছে অনেক জেলে।

 

বেসরকারি একটি সংস্থা এক জরিপে জানা গেছে, কলাপাড়ায় ৪০টি জেলে গ্রামে ২ হাজার ৫৩৩ টি জেলে পরিবারে ২৭ হাজার ৮৪০ জন সদস্য রয়েছে। জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে ইলিশের প্রজনন ও বংশবিস্তার নানাভাবে বাঁধাগ্রস্ত হওয়ার কারণে সমুদ্র উপকূলীয় নদ-নদীতে কমছে ইলিশের পরিমাণ এমনটিই ধারণা বিশেষজ্ঞদের।

 

স্থানীয় জেলেদের সূত্রে জানা গেছে, জালে দু-একটি ইলিশ ধরা পড়লেও তা চড়া দামে কিনতে হচ্ছে ক্রেতাদের। যে কারণে নি¤œবিত্ত ও মধ্যবিত্তের নাগালের বাইরে ইলিশে। এছাড়া জাটকা নিধন, জলবায়ু পরিবর্তন ও অনাবৃষ্টির কারণে সাগর-নদীতে মাছের আকাল দেখা দেয়ায় জেলেদের জীবনে নেমে এসেছে হতাশা। মৎস্যবন্দর মহিপুরÑআলীপুর একাধিক ট্রলার মালিক জানান, তারা প্রত্যেকে মহাজনের কাছ থেকে লক্ষ লক্ষ টাকা দাদন নিয়ে ইলিশ শিকারের জন্য সাগরে নেমেছেন। কিন্তু ইলিশের মৌসুম শুরু হলেও তাদের জালে ধরা পড়ছে না মাছ। এখন দাদনের টাকা পরিশোধ করা নিয়ে তারা হয়ে পড়েছেন দুশ্চিন্তাগ্রস্থ।

 

জাহাঙ্গির হাওলাদার জানান, মহাজন, ব্যাংক আর বিভিন্ন এনজিওর কাছ থেকে ঋন নিয়েছেন। এখন ঋণের জালে আটকা পড়েছেন। হঠাৎ করে নদীতে মাছের আকাল দেখা দেয়ায় দিশেহারা হয়ে পড়েছেন তিনি। মহিপুরের শাহানা মৎস্য আড়তের মালিক ইলিয়াস রেজা বলেন, আড়তে আশানুরুপ মাছ আসছেনা। ফি বছর এমন সময় প্রতিদিন দেড় থেকে দুই লক্ষ টাকার মাছ বেচাকেনা করতাম। এবছর করছি পাচঁ থেকে দশ হাজার টাকার বেচাকেনা।

 

মহিপুর মুদি দোকানদার আইয়ুব আলী জানান, তার দোকান থেকে যে সকল জেলেরা বাকিতে তৈলসহ অন্যান্য মালামাল নিয়ে সাগরে মাছ শিকারে গিয়াছেন তারা ফিরে একটি টাকাও পরিশোধ করতে পারেনি। ফলে দোকানদাররাও পড়েছেন বিপাকে। এখন আর বাকিতে মালামাল দেয়ার সাধ্য তাদের নেই। কলাপাড়া মৎস্য কর্মকর্তা কামরুল ইসলাম বলেন, জুলাইয়ের শেষের দিকে অথবা আগস্টের প্রথম দিকে ইলিশের ডিমের পরিপক্কতা আসবে। আশা করছি তখন ইলিশ উপকূলের দিকে আসতে শুরু করবে। সে সময় জেলেদের জালে প্রচুর ইলিশ ধরা পড়বে।

নিউজটি শেয়ার করুন:
image_print

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
Email: info@kuakatanews.com
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com

© Copyright BY KuakataNews.Com

Design & Developed BY PopularITLimited