স্বপ্নের পদ্মা সেতু: এবার মাওয়া প্রান্তে বসছে স্প্যান

পদ্মা সেতুর জাজিরা প্রান্তে পাঁচটির পর এবার মাওয়া প্রান্তে স্প্যান বসানোর পরিকল্পনা চলছে। তবে, বর্ষা মৌসুমে তীব্র স্রোতের কারণে এ প্রান্তে কাজ করা বেশ কঠিন হবে। তাই পরের স্প্যানগুলো বসতে বাড়তি সময় লাগতে পারে বলে জানিয়েছে সেতু কর্তৃপক্ষ।

 

এদিকে, নদীতে পিলার বসানোর কাজ বিচ্ছিন্নভাবে চললেও একসঙ্গে পরপর ৬টি করে স্প্যান বসানো হবে বলে জানিয়েছেন প্রকল্প পরিচালক। এক বৃত্তে ৫টি ফুলের মতো ফুটে আছে পদ্মা সেতুর ৫ স্প্যান। নদীর জাজিরা প্রান্ত যেন দৃশ্যমান পদ্মা সেতুর স্বপ্ন বুকে ধারণ করে অগ্রয়মান বাংলাদেশের এক অনন্য চেহারা। তবে, ভিন্ন চিত্র মাওয়া প্রান্তে। শুরুতে এ প্রান্তকে ঘিরেই সাজানো হয় পরিকল্পনা। ৬ নম্বর পিলারের কাজও ধরা হয়। তবে, মাওয়া প্রান্তের ২২টি পিলারে মাটির তলদেশের গঠনগত জটিলতায় পাল্টে যায় সব।

 

আপাতত নকশা জটিলতার সমাধান মিলেছে। মাওয়ার ২, ৩, ৪ ও ৫ নম্বর পিলারের কাজের মধ্যে শেষ। এ পিলারগুলোর পাইল ক্যাপও বসানো হয়েছে। চাইলে যে কোনো দিন এ ৪টি পিলারের ওপর ৩টি স্প্যান বসিয়ে দেয়া সম্ভব। এক্ষেত্রে কারিগরি জটিলতায় পরের স্প্যানগুলো বসাতে সময় বেশি লাগবে। কারণ, সেতুর ৪২টি পিলারের প্রতি ৬টিকে একটি মডিউল হিসেবে ধরে পুরো সেতুকে ৭টি ভাগে ভাগ করে চলছে কাজ। সে হিসেবে সর্বশেষ ৭ নম্বর মডিউলের ৫টি স্প্যানের কাজ সম্পন্ন হয়েছে। এখন বিচ্ছিন্নভাবে স্প্যান না বসিয়ে একবারে একটি করে মডিউলের কাজ ধরা হবে।

 

পদ্মা বহুমুখী সেতুর প্রকল্প পরিচালক শফিকুল ইসলাম বলেন, সাতটি মডিউলের কাজ একবারেই শেষ করতে হবে। মাঝখানে বিচ্ছিন্ন ভাবে বসায় দেয়া যাবে না। দুইটি স্প্যানের কাজ শেষ হয়নি এখনো। লোড পরীক্ষা করা হচ্ছে। এটা শেষ হলেই কাজ শুরু করা হবে। ১ নম্বর স্প্যানটি বসানো হয়েছিল যে ৩৭ নম্বর পিলারের ওপর, তার পাশেই ৩৬, ৩৫, ও ৩৪ নম্বর পিলারের কাজও শেষের দিকে। সব মিলে একসঙ্গে কাজ চলছে আরো ১০টি পিলারের। সেতুর আকৃতি ইংরেজি ‘এস’ অক্ষরের মতো বাঁকানো হওয়ায় প্রতিটি স্প্যানের জন্য আলাদা ডিজাইন করতে হয়েছে। ইয়ার্ডে স্থান সঙ্কুলানের কথা বিবেচনা করে চীন থেকে সবগুলো স্প্যানের টুকরো দেশে এসে না পৌঁছায়, যে সব স্প্যানের কাজ শেষ। সেগুলো আগে বসানোর পরিকল্পনা সেতু কর্তৃপক্ষের।

 

সড়ক যোগাযোগ ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘নদীর পরিস্থিতি এবং আবহাওয়ার আচরণ সব কিছু মিলিয়ে কাজ করা হবে। গায়ের জোরে তো এটা সম্ভব নয়। মাওয়ায় সেসব পিলারের নকশা জটিলতা পুরো শেষ হয় নি। সেগুলোতে এখন টেস্ট পাইলের কাজ চলছে। নকশা জটিলতা এবং নানা সমস্যার কথা বিবেচনা করে এতদিন কাজ হয়েছে সেতুর জাজিরা প্রান্তে। এই প্রান্তে ৫টি স্প্যান বসিয়ে দেয়ার পর এখন সবটুকু মনোযোগ মাওয়া প্রান্তের দিকে। তবে, চলতি বর্ষা মৌসুমে তীব্র স্রোতের কারণে এই প্রান্তে কাজের গতি আনা সম্ভব না হলেও মাওয়া প্রান্তে বসানোর লক্ষ্য নিয়ে কাজ করে যাচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা। ফলে এক সঙ্গেই নদীর দুই প্রান্তেই দৃশ্যমান করা সম্ভব হবে পদ্মা সেতুর কাঠামো।

নিউজটি শেয়ার করুন:

সর্বশেষ আপডেট



» গোপালগঞ্জের কাশিয়ানীতে ছয় কোচিং সেন্টার সিলগালা : বেঞ্চ ধ্বংস

» গোপালগঞ্জে বিআরডিবি’র ইউসিসিএ কর্মচারীদের মানবন্ধন ও স্মারকলিপি প্রদান

» সৌদি আরবকে ইইউ’র কালো তালিকা ভুক্ত করায় নাগরিক সমাজের উদ্বেগ

» দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে ফুলচাষে প্রায় ৫০ লাখ মানুষের জীবন-জীবিকা নির্বাহ করে প্রায় ৬০ কোটি টাকাফুল বিক্রি

» যশোরের নাভারন প্রতিবন্ধী স্কুলে পথের আলো সংস্থার মোটর রিক্সা ভ্যান দান

» যশোরের শার্শায় মাদক ব্যবসায়ীর লাশ উদ্ধার

» গলাচিপায় বীজ আলুর মাঠ দিবস পালিত

» ভাষাসৈনিকদের যথাযথ মর্যাদা দেওয়া সময়ের দাবি: ভাষাসৈনিক লায়ন শামসুল হুদা

» বই কিনুন, বই পড়ুন, নিজেকে সমৃদ্ধ করুন: যুবলীগ চেয়ারম্যাম মোহাম্মদ ওমর ফারুক চৌধুরী

» ঝিনাইদহে শুদ্ধসুরে জাতীয় সংগীত পরিবেশন প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত

লাইক দিয়ে সংযুক্ত থাকুন

ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
সহ-সম্পাদক : নুরুজ্জামান কাফি
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com
Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
আজ বুধবার, ২০ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ খ্রিষ্টাব্দ, ৮ই ফাল্গুন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

স্বপ্নের পদ্মা সেতু: এবার মাওয়া প্রান্তে বসছে স্প্যান

ইউটিউবে সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

পদ্মা সেতুর জাজিরা প্রান্তে পাঁচটির পর এবার মাওয়া প্রান্তে স্প্যান বসানোর পরিকল্পনা চলছে। তবে, বর্ষা মৌসুমে তীব্র স্রোতের কারণে এ প্রান্তে কাজ করা বেশ কঠিন হবে। তাই পরের স্প্যানগুলো বসতে বাড়তি সময় লাগতে পারে বলে জানিয়েছে সেতু কর্তৃপক্ষ।

 

এদিকে, নদীতে পিলার বসানোর কাজ বিচ্ছিন্নভাবে চললেও একসঙ্গে পরপর ৬টি করে স্প্যান বসানো হবে বলে জানিয়েছেন প্রকল্প পরিচালক। এক বৃত্তে ৫টি ফুলের মতো ফুটে আছে পদ্মা সেতুর ৫ স্প্যান। নদীর জাজিরা প্রান্ত যেন দৃশ্যমান পদ্মা সেতুর স্বপ্ন বুকে ধারণ করে অগ্রয়মান বাংলাদেশের এক অনন্য চেহারা। তবে, ভিন্ন চিত্র মাওয়া প্রান্তে। শুরুতে এ প্রান্তকে ঘিরেই সাজানো হয় পরিকল্পনা। ৬ নম্বর পিলারের কাজও ধরা হয়। তবে, মাওয়া প্রান্তের ২২টি পিলারে মাটির তলদেশের গঠনগত জটিলতায় পাল্টে যায় সব।

 

আপাতত নকশা জটিলতার সমাধান মিলেছে। মাওয়ার ২, ৩, ৪ ও ৫ নম্বর পিলারের কাজের মধ্যে শেষ। এ পিলারগুলোর পাইল ক্যাপও বসানো হয়েছে। চাইলে যে কোনো দিন এ ৪টি পিলারের ওপর ৩টি স্প্যান বসিয়ে দেয়া সম্ভব। এক্ষেত্রে কারিগরি জটিলতায় পরের স্প্যানগুলো বসাতে সময় বেশি লাগবে। কারণ, সেতুর ৪২টি পিলারের প্রতি ৬টিকে একটি মডিউল হিসেবে ধরে পুরো সেতুকে ৭টি ভাগে ভাগ করে চলছে কাজ। সে হিসেবে সর্বশেষ ৭ নম্বর মডিউলের ৫টি স্প্যানের কাজ সম্পন্ন হয়েছে। এখন বিচ্ছিন্নভাবে স্প্যান না বসিয়ে একবারে একটি করে মডিউলের কাজ ধরা হবে।

 

পদ্মা বহুমুখী সেতুর প্রকল্প পরিচালক শফিকুল ইসলাম বলেন, সাতটি মডিউলের কাজ একবারেই শেষ করতে হবে। মাঝখানে বিচ্ছিন্ন ভাবে বসায় দেয়া যাবে না। দুইটি স্প্যানের কাজ শেষ হয়নি এখনো। লোড পরীক্ষা করা হচ্ছে। এটা শেষ হলেই কাজ শুরু করা হবে। ১ নম্বর স্প্যানটি বসানো হয়েছিল যে ৩৭ নম্বর পিলারের ওপর, তার পাশেই ৩৬, ৩৫, ও ৩৪ নম্বর পিলারের কাজও শেষের দিকে। সব মিলে একসঙ্গে কাজ চলছে আরো ১০টি পিলারের। সেতুর আকৃতি ইংরেজি ‘এস’ অক্ষরের মতো বাঁকানো হওয়ায় প্রতিটি স্প্যানের জন্য আলাদা ডিজাইন করতে হয়েছে। ইয়ার্ডে স্থান সঙ্কুলানের কথা বিবেচনা করে চীন থেকে সবগুলো স্প্যানের টুকরো দেশে এসে না পৌঁছায়, যে সব স্প্যানের কাজ শেষ। সেগুলো আগে বসানোর পরিকল্পনা সেতু কর্তৃপক্ষের।

 

সড়ক যোগাযোগ ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘নদীর পরিস্থিতি এবং আবহাওয়ার আচরণ সব কিছু মিলিয়ে কাজ করা হবে। গায়ের জোরে তো এটা সম্ভব নয়। মাওয়ায় সেসব পিলারের নকশা জটিলতা পুরো শেষ হয় নি। সেগুলোতে এখন টেস্ট পাইলের কাজ চলছে। নকশা জটিলতা এবং নানা সমস্যার কথা বিবেচনা করে এতদিন কাজ হয়েছে সেতুর জাজিরা প্রান্তে। এই প্রান্তে ৫টি স্প্যান বসিয়ে দেয়ার পর এখন সবটুকু মনোযোগ মাওয়া প্রান্তের দিকে। তবে, চলতি বর্ষা মৌসুমে তীব্র স্রোতের কারণে এই প্রান্তে কাজের গতি আনা সম্ভব না হলেও মাওয়া প্রান্তে বসানোর লক্ষ্য নিয়ে কাজ করে যাচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা। ফলে এক সঙ্গেই নদীর দুই প্রান্তেই দৃশ্যমান করা সম্ভব হবে পদ্মা সেতুর কাঠামো।

নিউজটি শেয়ার করুন:

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
সহ-সম্পাদক : নুরুজ্জামান কাফি
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com

© Copyright BY KuakataNews.Com

Design & Developed BY PopularITLimited