কলাপাড়ায় হাঁস পালন করে মাহবুবের ভাগ্য বদল

উত্তম কুমার হাওলাদার,কলাপাড়া(পটুয়াখালী)প্রতিনিধি: পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় হাঁস পালনে সফলতা পেয়েছেন শিক্ষিত যুবক মাহবুব আলম। লেখাপড়ার পাশাপাশি সে মাত্র নয় মাস আগে হাঁস পালন শুরু করেন।

 

উপজেলার মহিপুর ইউনিয়নের নিজ শিববাড়িয়া গ্রামের ছোট পরিসরে রুটিন মাফিক স্বল্প শ্রমে নিজ বাড়িতে গড়ে তোলেন হাঁসের খামার। বর্তমানে তার খামারে প্রায় ৪০০টি হাঁস রয়েছে। নিয়মিত পরিচর্যায় ফলে ক্রমশই বদলে যেতে থাকে তার ভাগ্যের চাকা। প্রত্যেকটি হাঁসই ডিম দিচ্ছে। আর সেই ডিম বিক্রি করে যে টাকা আয় হয় তা দিয়েই চলে লেখাপড়াসহ সংসারের ভরনপোষন। তার এ সফলতা দেখে এলাকার অনেক বেকার যুবক হাঁস পালন শুরু করে দিয়েছে।

মাহবুব আলমের হাঁসের খামার ঘুরে জানা গেছে, উপজেলার মহিপুর ইউনিয়নের নিজ শিববাড়িয়া গ্রামের শাহালম হাওলাদারের পুত্র মাহবুব আলম পটুয়াখালী সরকারি কলেজের মাষ্টার্সে অধ্যয়নরত। সে প্রথমে রাজশাহী থেকে জিনডিং জাতের ১০০ বাচ্চা হাঁস ক্রয় করে নিয়ে আসে। পাঁচ মাসের মাথায় হাঁসগুলো ডিম দেয়া শুরু করে। শিক্ষিত ওই যুবক লাভের মুখ দেখতে পেয়ে তিনি একই জাতের আরও ১০০ হাঁসা ও ২০০ হাঁসি ক্রয় করেন।

 

সে বর্তমানে প্রতিদিন গড়ে ১৮০ টি ডিম বাজারে বিক্রি করে। মাহবুব আলম জানান, নয় মাস আগে অনলাইনে একটি প্রতিবেদন দেখে আগ্রহ হয় হাঁস পালনের। চাচাতো ভাই মাসুদ রানার সহযোগিতায় নিজ বাড়ির পুকুর পাড়ে তৈরী করেন হাঁসের খামার। প্রথমে রাজশাহী থেকে জিনডিং জাতের ১০০ বাচ্চা হাঁস ২৮০০ টাকায় ক্রয় করে শুরু করেন লালন-পালন। তবে কোন ব্যাংক অথবা এনজিও থেকে ঋন নিতে পারলে আরও বড় পরিসরে হাঁসের খামার করবেন বলে তিনি জানিয়েছেন।

 

প্রতিবেশী যুবক মো.আল-আমিন জানান, মাহবুব হাঁসের খামার থেকে অভাবনীয় সফলতা অর্জন করেছে। তার দেখাদেখি আমারও একটি হাঁসের খামার করার ইচ্ছা রয়েছে। আরেক প্রতিবেশী রুহুল আমিন জানান, ইতিমধ্যে আমিও জিনডিং জাতের ১০০ হাঁসের অর্ডার দিয়েছি। উপজেলা প্রানিসম্পদ কর্মকর্তা ডাক্তর মো.হাবিবুর রহমান জানান, মাহবুব আমাদের সাথে প্রতিনিয়ত যোগাযোগ রেখেছে। সে পরামর্শ অনুযায়ী হাঁস পালন করছে। তার হাঁস পালন দেখে এ উপজেলার অনেক যুবকই হাঁস পালনে আগ্রহী হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন:

সর্বশেষ আপডেট



» বাতিল হচ্ছে এমসিকিউ? বিপদে শিক্ষার্থীরা

» রাজধানীর চকবাজারে আগুন: নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৬৯

» আগুন নেভাতে বিমান বাহিনীর দুই হেলিকপ্টার

» আজ অমর একুশে ভাষা শহীদদের প্রতি জাতির বিনম্র শ্রদ্ধা

» রাজধানীর চকবাজার এলাকায় ভয়াবহ আগুন

» নিজ পরিচয়ে সারাবিশ্বে ও স্বদেশের উজ্জ্বল নক্ষত্র, শ্রেষ্ঠ রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনা

» একুশে স্মৃতি সংসদ সম্মাননা পেলেন: লায়ন গনি মিয়া বাবুল

» কলাপাড়ায় ছুরিকাঘাতে কলেজ শিক্ষিকা গুরুতর জখম

» চাঁদপুরে গ্রাম আদালতের অগ্রগতি ও চ্যালেন্জসমূহ নিয়ে জেলা প্রশাসকের ভিডিও কনফারেন্স

» গোপালগঞ্জের কাশিয়ানীতে ছয় কোচিং সেন্টার সিলগালা : বেঞ্চ ধ্বংস

লাইক দিয়ে সংযুক্ত থাকুন

ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
সহ-সম্পাদক : নুরুজ্জামান কাফি
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com
Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
আজ বৃহস্পতিবার, ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ খ্রিষ্টাব্দ, ৯ই ফাল্গুন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

কলাপাড়ায় হাঁস পালন করে মাহবুবের ভাগ্য বদল

ইউটিউবে সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

উত্তম কুমার হাওলাদার,কলাপাড়া(পটুয়াখালী)প্রতিনিধি: পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় হাঁস পালনে সফলতা পেয়েছেন শিক্ষিত যুবক মাহবুব আলম। লেখাপড়ার পাশাপাশি সে মাত্র নয় মাস আগে হাঁস পালন শুরু করেন।

 

উপজেলার মহিপুর ইউনিয়নের নিজ শিববাড়িয়া গ্রামের ছোট পরিসরে রুটিন মাফিক স্বল্প শ্রমে নিজ বাড়িতে গড়ে তোলেন হাঁসের খামার। বর্তমানে তার খামারে প্রায় ৪০০টি হাঁস রয়েছে। নিয়মিত পরিচর্যায় ফলে ক্রমশই বদলে যেতে থাকে তার ভাগ্যের চাকা। প্রত্যেকটি হাঁসই ডিম দিচ্ছে। আর সেই ডিম বিক্রি করে যে টাকা আয় হয় তা দিয়েই চলে লেখাপড়াসহ সংসারের ভরনপোষন। তার এ সফলতা দেখে এলাকার অনেক বেকার যুবক হাঁস পালন শুরু করে দিয়েছে।

মাহবুব আলমের হাঁসের খামার ঘুরে জানা গেছে, উপজেলার মহিপুর ইউনিয়নের নিজ শিববাড়িয়া গ্রামের শাহালম হাওলাদারের পুত্র মাহবুব আলম পটুয়াখালী সরকারি কলেজের মাষ্টার্সে অধ্যয়নরত। সে প্রথমে রাজশাহী থেকে জিনডিং জাতের ১০০ বাচ্চা হাঁস ক্রয় করে নিয়ে আসে। পাঁচ মাসের মাথায় হাঁসগুলো ডিম দেয়া শুরু করে। শিক্ষিত ওই যুবক লাভের মুখ দেখতে পেয়ে তিনি একই জাতের আরও ১০০ হাঁসা ও ২০০ হাঁসি ক্রয় করেন।

 

সে বর্তমানে প্রতিদিন গড়ে ১৮০ টি ডিম বাজারে বিক্রি করে। মাহবুব আলম জানান, নয় মাস আগে অনলাইনে একটি প্রতিবেদন দেখে আগ্রহ হয় হাঁস পালনের। চাচাতো ভাই মাসুদ রানার সহযোগিতায় নিজ বাড়ির পুকুর পাড়ে তৈরী করেন হাঁসের খামার। প্রথমে রাজশাহী থেকে জিনডিং জাতের ১০০ বাচ্চা হাঁস ২৮০০ টাকায় ক্রয় করে শুরু করেন লালন-পালন। তবে কোন ব্যাংক অথবা এনজিও থেকে ঋন নিতে পারলে আরও বড় পরিসরে হাঁসের খামার করবেন বলে তিনি জানিয়েছেন।

 

প্রতিবেশী যুবক মো.আল-আমিন জানান, মাহবুব হাঁসের খামার থেকে অভাবনীয় সফলতা অর্জন করেছে। তার দেখাদেখি আমারও একটি হাঁসের খামার করার ইচ্ছা রয়েছে। আরেক প্রতিবেশী রুহুল আমিন জানান, ইতিমধ্যে আমিও জিনডিং জাতের ১০০ হাঁসের অর্ডার দিয়েছি। উপজেলা প্রানিসম্পদ কর্মকর্তা ডাক্তর মো.হাবিবুর রহমান জানান, মাহবুব আমাদের সাথে প্রতিনিয়ত যোগাযোগ রেখেছে। সে পরামর্শ অনুযায়ী হাঁস পালন করছে। তার হাঁস পালন দেখে এ উপজেলার অনেক যুবকই হাঁস পালনে আগ্রহী হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন:

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
সহ-সম্পাদক : নুরুজ্জামান কাফি
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com

© Copyright BY KuakataNews.Com

Design & Developed BY PopularITLimited