পরিবেশ বিপর্যয় ঠেকাতে নদ-নদীর নাব্যতা “সংকট দূর ও জলাধার নির্মান অতীব জরুরী”

রনজিৎ মোদক:-  নদীমাতৃক বাংলাদেশের নদীগুলো আজ তার অস্তিত্ব হারা হয়ে পড়ছে। খাল-বিল-ডোবা নালাসহ জলাধারগুলো প্রভাবশালী মহল বিভিন্ন কৌশলে দখল করে নেয়ায় পরিবেশ দূষণসহ সেচ কাজ ব্যাহত হচ্ছে। এতে করে খাদ্য শস্য উৎপাদন করতে গিয়ে কৃষকরা সেচ কাজে অতিরিক্ত অর্থ ব্যয় করছে। ফসল উৎপাদনে আয়ের সাথে ব্যয়ের হিসাব মিলাতে পারছেনা কৃষকরা। বর্তমান ১৬ কোটি মানুষের ৩ বেলা আহার যোগাতে যে পরিমান ফসলের প্রয়োজন সে পরিমান ফসল উৎপাদন সম্ভব হচ্ছে না। বাধ্য হয়েই প্রতি বছর বিদেশ থেকে কোটি কোটি টাকার খাদ্য শস্য আমদানী করতে হচ্ছে সরকারকে। একদিকে দেশের বিভিন্ন শিল্প-কারখানা বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। বেকার হচ্ছে হাজার হাজার শ্রমিক। পরিবেশ বিপর্যয় ঠেকাতে নদ-নদীর নাব্যতা সংকট দূর ও জলাধার সংস্করনে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের আসু উদ্দ্যেগ নেওয়া প্রয়োজন।

 

তাই এখনই ভাবতে হবে আগামী দিনের কথা। ভবিষ্যতের ভাবনা ভাবাই জ্ঞানী-গুনীর কাজ। দিন দিন যে হারে দ্রব্য মূল্য বৃদ্ধি পাচ্ছে তাতে করে মধ্যবিত্ত পরিবারগুলোর অবস্থান কোথায় দাড়িয়েছে ? তা অবশ্যই অনেকের জানা। জানা হলেই তো শেষ হলো না এর একটা সুন্দর সমাধান প্রয়োজন। নারায়ণগঞ্জ জেলার বিভিন্ন নদীগুলো পুনঃ খনন এবং বিভিন্ন খাল, ডোবা নালাসহ জলাধারগুলো সংস্কার করা প্রয়োজন। নৌপথে মালামাল পরিবহন এবং সেচ কাজের সুবিধার্থে জলাধারগুলো সংস্কার করা জরুরী হয়ে দাড়িয়েছে। দেশে খাদ্য শস্য উৎপাদন বৃদ্ধির লক্ষ্যে বিগত বিএনপি সরকার খাল খনন কর্মসূচি গ্রহন করে। বিভিন্ন নদী-নালা, খাল-বিল ও ডোবা মৎস্য চাষের নামে লিজ প্রদান করে। সেই সুযোগে বিএনপির সুযোগ সন্ধানীরা নদী-নালা, খাল-বিল দখল করে স্থানে স্থানে সুবিধা মাফিক ভবন নির্মাণ করে ব্যবসা-বানিজ্য চালিয়ে কোটি টাকার সম্পদ আত্মসাৎ করে। যার পরিনাম আজ জাতি ভোগ করছে। সেসমস্ত অবৈধ দখলদারদের প্রাসাদ-অট্টালিকা বা মিল-কারখানা উচ্ছেদের উদ্দ্যেগ নেওয়া সত্ত্বেও মাঝপথে এসে অদৃশ্য কারনে তা থেমে রয়েছে।

 

একমাত্র সুদূর প্রসারি পরিকল্পনার অভাবেই সুজলা সুফলা দেশে মানুষ খাদ্য কর্মসংস্থানের অভাবে ভূগছে। সৃষ্টি হচ্ছে বেকার সমস্যা।

 

এখানে উল্লেখ করা যায়, ভারতের একশত তেত্রিশ কোটি মানুষ ও চিনের প্রায় ১৫০ কোটি মানুষ আজ খাদ্য ও শিল্প উৎপাদনে এগিয়ে যাচ্ছে। গান্ধীজি, রবীন্দ্র নাথ যে স্বপ্ন দেখেছেন প্রয়াত প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী সেই স্বপ্নকে বাস্তবায়নে রূপ দিয়ে গেছে। চীনের প্রধানমন্ত্রী চুয়েন লাই চীনকে ধাপে ধাপে এগিয়ে নিয়ে যান। মালেয়াশিয়ার কিংবদন্তী নেতা ডঃ মাহাথির মোহাম্মদ দেশের উন্নয়নের পথকে প্রশস্থ করেছেন দীর্ঘ থেকে দীর্ঘতর। যার ফল আজ তারা ভোগ করছে। আমাদের বাংলাদেশ সুন্দর সুদূরপ্রসারি পরিকল্পনার অভাবেই নানা সমস্যার সৃষ্টি হচ্ছে। এই সমস্যার সমাধানে এখন আমাদের পরিকল্পনা গ্রহন করা উচিত। তন্মধ্যে দেশের জলাধারগুলো উদ্ধার ও সংস্কার একান্ত জরুরি বলে অভিজ্ঞরা মনে করেন। দেশের হাইওয়ে রোডগুলোর দুপাশে বৃক্ষ রোপন এবং জলাধারগুলো অবমুক্ত করে সেখানে মাছ চাষ ও ফসলী জমিতে সেচ ব্যবস্থা করা যেতে পারে। নারায়ণগঞ্জ জেলার ডিএনডি এর ভেতর যেসব জলাধারগুলো রয়েছে। যেগুলো বিগত দিনের রাজনীতি সেবা নামধারীদের কর্মীবাহিনী ভোগ করছে। লালপুর পাকিস্তানি খাদ/ লালপুর পোসার পুকুর পাড়ে স্থানীয় মাস্তানবাহিনী ভোগ দখল করে যাচ্ছে। সিদ্ধিরগঞ্জ সড়কের পাশে সুন্দর জলাধারটি অনেকেই ভোগ করছে।

 

বর্তমান সরকার অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের উদ্যেগে নজিরবিহীন দৃষ্টান্তই জনগনের মনে প্রশান্তির বাতাস বয়ে বেড়াচ্ছে। উদ্দ্যেগ বাস্তবায়িত হলেই দেশ সত্যিকারের সুফল ভোগ করবে বলে সাধারণ মানুষের অভিমত। অবমুক্ত এবং নতুন নতুন জলাধার সৃষ্টির মাধ্যমে ফসল ফলানো বৃদ্ধির লক্ষ্যে এ কাজগুলো করা না হলে, প্রতি বছর বন্যার আঘাত সহ্য করতেই হবে। বন্যার পানিকে সংরক্ষণ করে শুকনো মৌসুমে তা সেচ কাজে ব্যবহার করা উত্তম বলেই অভিজ্ঞ মহল মনে করেন। বাংলাদেশকে সুজলা-সুফলা শস্য শ্যামলা নদীমাতৃক দেশ হিসেবে গড়ে তোলাই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের স্বপ্ন ছিলো। বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সেই স্বপ্নকে বাস্তবায়ন করার লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছেন। সম্প্রতি তিনি বাংলাদেশের নদীর নাব্যতা ফিরিয়ে আনার লক্ষ্যে কাজ করবেন বলে আশা ব্যক্ত করেন। সে আশার বাস্তবায়ন হলে বাংলাদেশ সত্যি সত্যি মধ্য আয়ের দেশে উন্নত হবে বলে বিশেষজ্ঞরা মনে করেন।

নিউজটি শেয়ার করুন:

সর্বশেষ আপডেট



» বাগেরহাটে সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে বার্ষিক পুরস্কার বিতরণ

» যশোরের শার্শায় নবজাতক চুরি হওয়ার ৮ ঘন্টা পর উদ্ধার,মহিলা আটক

» এক নিষ্ঠুর পিতা মনিন্দ্র দাস মৌলভীবাজারে কন্যা শিশুকে নিয়ে নিরুপায় মা

» আগৈলঝাড়ায় মাদক ব্যবসায়ীসহ গ্রেফতার ২

» আগৈলঝাড়ায় ঐতিহ্যবাহী সরকারী গৈলা মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ১২৬ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন

» ভাগ্যবান লোকদের আল্লাহ, নেয়ামত হিসাবে উপহার দেন কন্যা সন্তান

» মৃত্যুশয্যায় বৃদ্ধা মা, পাশে নেই বিসিএস ক্যাডার-বিত্তবান সন্তানেরা

» পদ্মা সেতুর ১ হাজার ৫০ মিটার দৃশ্যমান

» বুলবুলকে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে ‘গার্ড অব অনার’, সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধা

» সিঙ্গাপুরে চিকিৎসাধীন হুসেইন মুহম্মদ এরশাদকে নিয়ে বিদিশার আবেগঘন স্ট্যাটাস

লাইক দিয়ে সংযুক্ত থাকুন

ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
সহ-সম্পাদক : নুরুজ্জামান কাফি
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com
Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
আজ বৃহস্পতিবার, ২৪ জানুয়ারি ২০১৯ খ্রিষ্টাব্দ, ১১ই মাঘ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

পরিবেশ বিপর্যয় ঠেকাতে নদ-নদীর নাব্যতা “সংকট দূর ও জলাধার নির্মান অতীব জরুরী”

ইউটিউবে সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

রনজিৎ মোদক:-  নদীমাতৃক বাংলাদেশের নদীগুলো আজ তার অস্তিত্ব হারা হয়ে পড়ছে। খাল-বিল-ডোবা নালাসহ জলাধারগুলো প্রভাবশালী মহল বিভিন্ন কৌশলে দখল করে নেয়ায় পরিবেশ দূষণসহ সেচ কাজ ব্যাহত হচ্ছে। এতে করে খাদ্য শস্য উৎপাদন করতে গিয়ে কৃষকরা সেচ কাজে অতিরিক্ত অর্থ ব্যয় করছে। ফসল উৎপাদনে আয়ের সাথে ব্যয়ের হিসাব মিলাতে পারছেনা কৃষকরা। বর্তমান ১৬ কোটি মানুষের ৩ বেলা আহার যোগাতে যে পরিমান ফসলের প্রয়োজন সে পরিমান ফসল উৎপাদন সম্ভব হচ্ছে না। বাধ্য হয়েই প্রতি বছর বিদেশ থেকে কোটি কোটি টাকার খাদ্য শস্য আমদানী করতে হচ্ছে সরকারকে। একদিকে দেশের বিভিন্ন শিল্প-কারখানা বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। বেকার হচ্ছে হাজার হাজার শ্রমিক। পরিবেশ বিপর্যয় ঠেকাতে নদ-নদীর নাব্যতা সংকট দূর ও জলাধার সংস্করনে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের আসু উদ্দ্যেগ নেওয়া প্রয়োজন।

 

তাই এখনই ভাবতে হবে আগামী দিনের কথা। ভবিষ্যতের ভাবনা ভাবাই জ্ঞানী-গুনীর কাজ। দিন দিন যে হারে দ্রব্য মূল্য বৃদ্ধি পাচ্ছে তাতে করে মধ্যবিত্ত পরিবারগুলোর অবস্থান কোথায় দাড়িয়েছে ? তা অবশ্যই অনেকের জানা। জানা হলেই তো শেষ হলো না এর একটা সুন্দর সমাধান প্রয়োজন। নারায়ণগঞ্জ জেলার বিভিন্ন নদীগুলো পুনঃ খনন এবং বিভিন্ন খাল, ডোবা নালাসহ জলাধারগুলো সংস্কার করা প্রয়োজন। নৌপথে মালামাল পরিবহন এবং সেচ কাজের সুবিধার্থে জলাধারগুলো সংস্কার করা জরুরী হয়ে দাড়িয়েছে। দেশে খাদ্য শস্য উৎপাদন বৃদ্ধির লক্ষ্যে বিগত বিএনপি সরকার খাল খনন কর্মসূচি গ্রহন করে। বিভিন্ন নদী-নালা, খাল-বিল ও ডোবা মৎস্য চাষের নামে লিজ প্রদান করে। সেই সুযোগে বিএনপির সুযোগ সন্ধানীরা নদী-নালা, খাল-বিল দখল করে স্থানে স্থানে সুবিধা মাফিক ভবন নির্মাণ করে ব্যবসা-বানিজ্য চালিয়ে কোটি টাকার সম্পদ আত্মসাৎ করে। যার পরিনাম আজ জাতি ভোগ করছে। সেসমস্ত অবৈধ দখলদারদের প্রাসাদ-অট্টালিকা বা মিল-কারখানা উচ্ছেদের উদ্দ্যেগ নেওয়া সত্ত্বেও মাঝপথে এসে অদৃশ্য কারনে তা থেমে রয়েছে।

 

একমাত্র সুদূর প্রসারি পরিকল্পনার অভাবেই সুজলা সুফলা দেশে মানুষ খাদ্য কর্মসংস্থানের অভাবে ভূগছে। সৃষ্টি হচ্ছে বেকার সমস্যা।

 

এখানে উল্লেখ করা যায়, ভারতের একশত তেত্রিশ কোটি মানুষ ও চিনের প্রায় ১৫০ কোটি মানুষ আজ খাদ্য ও শিল্প উৎপাদনে এগিয়ে যাচ্ছে। গান্ধীজি, রবীন্দ্র নাথ যে স্বপ্ন দেখেছেন প্রয়াত প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী সেই স্বপ্নকে বাস্তবায়নে রূপ দিয়ে গেছে। চীনের প্রধানমন্ত্রী চুয়েন লাই চীনকে ধাপে ধাপে এগিয়ে নিয়ে যান। মালেয়াশিয়ার কিংবদন্তী নেতা ডঃ মাহাথির মোহাম্মদ দেশের উন্নয়নের পথকে প্রশস্থ করেছেন দীর্ঘ থেকে দীর্ঘতর। যার ফল আজ তারা ভোগ করছে। আমাদের বাংলাদেশ সুন্দর সুদূরপ্রসারি পরিকল্পনার অভাবেই নানা সমস্যার সৃষ্টি হচ্ছে। এই সমস্যার সমাধানে এখন আমাদের পরিকল্পনা গ্রহন করা উচিত। তন্মধ্যে দেশের জলাধারগুলো উদ্ধার ও সংস্কার একান্ত জরুরি বলে অভিজ্ঞরা মনে করেন। দেশের হাইওয়ে রোডগুলোর দুপাশে বৃক্ষ রোপন এবং জলাধারগুলো অবমুক্ত করে সেখানে মাছ চাষ ও ফসলী জমিতে সেচ ব্যবস্থা করা যেতে পারে। নারায়ণগঞ্জ জেলার ডিএনডি এর ভেতর যেসব জলাধারগুলো রয়েছে। যেগুলো বিগত দিনের রাজনীতি সেবা নামধারীদের কর্মীবাহিনী ভোগ করছে। লালপুর পাকিস্তানি খাদ/ লালপুর পোসার পুকুর পাড়ে স্থানীয় মাস্তানবাহিনী ভোগ দখল করে যাচ্ছে। সিদ্ধিরগঞ্জ সড়কের পাশে সুন্দর জলাধারটি অনেকেই ভোগ করছে।

 

বর্তমান সরকার অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের উদ্যেগে নজিরবিহীন দৃষ্টান্তই জনগনের মনে প্রশান্তির বাতাস বয়ে বেড়াচ্ছে। উদ্দ্যেগ বাস্তবায়িত হলেই দেশ সত্যিকারের সুফল ভোগ করবে বলে সাধারণ মানুষের অভিমত। অবমুক্ত এবং নতুন নতুন জলাধার সৃষ্টির মাধ্যমে ফসল ফলানো বৃদ্ধির লক্ষ্যে এ কাজগুলো করা না হলে, প্রতি বছর বন্যার আঘাত সহ্য করতেই হবে। বন্যার পানিকে সংরক্ষণ করে শুকনো মৌসুমে তা সেচ কাজে ব্যবহার করা উত্তম বলেই অভিজ্ঞ মহল মনে করেন। বাংলাদেশকে সুজলা-সুফলা শস্য শ্যামলা নদীমাতৃক দেশ হিসেবে গড়ে তোলাই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের স্বপ্ন ছিলো। বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সেই স্বপ্নকে বাস্তবায়ন করার লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছেন। সম্প্রতি তিনি বাংলাদেশের নদীর নাব্যতা ফিরিয়ে আনার লক্ষ্যে কাজ করবেন বলে আশা ব্যক্ত করেন। সে আশার বাস্তবায়ন হলে বাংলাদেশ সত্যি সত্যি মধ্য আয়ের দেশে উন্নত হবে বলে বিশেষজ্ঞরা মনে করেন।

নিউজটি শেয়ার করুন:

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
সহ-সম্পাদক : নুরুজ্জামান কাফি
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com

© Copyright BY KuakataNews.Com

Design & Developed BY PopularITLimited