বরগুনার আমতলীতে বন্যা নিয়ন্ত্রন বাঁধের মাটি যাচ্ছে ইটভাটায়

Spread the love

শাহ্ আলী,বরগুনা: বরগুনার আমতলী উপজেলার সদর ইউনিয়নের কড়াইবুনিয়া গ্রাম সংলগ্ন পাউবোর বন্যা নিয়ন্ত্রন বাঁধের মাটি কেঁটে ইট ভাটায় নিয়ে যাচ্ছে ভাটার মালিক। পাউবো কর্তৃপক্ষ নিষেধ উপেক্ষা করে মাটি কাঁটায় হুমকির মুখে পরেছে ওই এলাকার ২৫ হাজার মানুষ।

 

জানাগেছে, উপজেলার আমতলী সদর ইউনিয়নের কড়াইবুনিয়া গ্রাম সংলগ্ন পাউবোর ৪৩/১এ পোল্ডারের বন্যা নিয়ন্ত্রন বাঁধের পাশে উপজেলার খেকুয়ানী গ্রামের তোফাজ্জেল হোসেন হাওলাদার ও গোলাম ফারুক হাওলাদার গত ৫ বছর পূর্বে এমএসবি নামে একটি ঝিকঝ্যাঁক ইট ভাটা নির্মাণ করেন। এ বছরের শুরুতেই সে ভাটায় ইট তৈরীতে ভাটা সংলগ্ন পাউবোর বন্যা নিয়ন্ত্রন বাঁধের ঢাল থেকে ৮/১০ ফুট গভীর গর্ত করে মাটি কেঁটে ভাটায় নিয়ে যাচ্ছে। পাউবো বাঁধের ঢাল থেকে মাটি কাঁটায় বাঁধ ভেঙ্গে নিচে পরে যাওয়ার কারনে বাঁধটি অত্যন্ত ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে। বাঁধটির এ অবস্থার কারনে ওই এলাকার ২৫ হাজার মানুষের কাছে ইটভাটা এখন মরন ফাঁদ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

 

স্থানীয়দের অভিযোগ ইটভাটার মালিক তোফাজ্জেল হোসেন ও গোলাম ফারুক বন্যা নিয়ন্ত্রন বাঁধের মাটি কেঁটে ইটভাটায় নিয়ে যাওয়ায় বন্যা নিয়ন্ত্রন বাঁধ হুমকির মধ্যে রয়েছে। এছাড়া ফসলি জমি ও লোকালয়ে ইটভাটা করায় ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হচ্ছে। এ বিষয়ে ভুক্তভোগী এলাকাবাসী পরিবেশ অধিদপ্তর ও প্রশাসনকে জানালেও তারা কোন কার্যকারী ব্যবস্থা গ্রহন করেনি। পরিবেশের উপর বিরূপ প্রভাব পরলেও পরিবেশ অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা নীরব ভূমিকা পালন করায় জনমনে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। তোফাজ্জেল হোসেন ও গোলাম ফারুক প্রতি বছর প্রশাসনের তোয়াক্কা না করে এভাবে ইট ভাটার ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছেন।

 

ইটভাটা সংলগ্ন স্থানীয় বাসিন্দা আবু বকর আকন ও সিরাজ শিকদার জানান ইটভাটার মালিক বন্যা নিয়ন্ত্রন বাঁধের মাটি কেঁটে ইটভাটায় নিয়ে যাচ্ছে। এতে এ এলাকার মানুষ চরম হুমকির মধ্যে পরেছে। ইট ভাটা মালিক পক্ষকে বহুবার বলা সত্ত্বেও তারা আমলে নিচ্ছে না। তারা উল্টো আমাদের ভয়ভীতি দেখাচ্ছেন। সরেজমিনে গিয়ে দেখাগেছে, কড়াইবুনিয়া এমএসবি ঝিকঝ্যাঁক পদ্ধতির ইটভাটা ফসলি জমি ও লোকালয়ে নির্মাণ করায় ধান ক্ষেতের ব্যাপক ক্ষতি ও স্থানীয় মানুষের বসবাসের অনুপোযোগী হয়ে পরেছে। বন্যা নিয়ন্ত্রন বাঁধের ঢাল থেকে ভ্যেকু মেশিন দিয়ে ৮/১০ ফুট গভীর গর্ত করে মাটি কাঁটায় ভেরীবাঁধটি ভেঙ্গে নিচে পরে গেছে। সে মাটি ১০ জন শ্রমিক ইট ভাটার নিয়ে যাচ্ছে।

 

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ইট ভাটার এক শ্রমিক জানান মালিকের নির্দেশে বাঁধের মাটি কেঁটে নিয়ে যাচ্ছি। আমতলী পাউবোর কার্যসহকারী আলমগীর হোসেন বলেন এমএসবি ইট ভাটা কর্তৃপক্ষকে বন্যা নিয়ন্ত্রন বাঁধের মাটি কাঁটতে নিষেধ করা হলেও তা তারা মানছেন না। এমএসবি ইট ভাটার মালিক তোফাজ্জেল হোসেন হাওলাদার মুঠোফোনে বলেন বেড়ী বাঁধের ঢাল কেঁটে ভাটায় মাটি নেয়ার কথা স্বীকার করেন। তিনি আরও বলেন ওই বাঁধের কাঁটা অংশ ভরাট করে দেয়া হবে। পাউবোর বরগুনা নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ মশিউর রহমান জানান এখনই লোক পাঠিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন:

সর্বশেষ আপডেট



» কক্সবাজারের টেকনাফে ৩ রোহিঙ্গা নারীর পেটে মিলল ৩ হাজার ইয়াবা

» ধানের ন্যায্য মূল্য পেয়ে ডিসিকে জড়িয়ে ধরলেন কৃষক

» জাকাতের টাকায় কপালে সিঁদুর উঠল পূর্ণিমার

» বগুড়া-৬: খালেদা জিয়াসহ ৫ জনকে মনোনয়ন বিএনপির

» মৌলভীবাজারে আশার আলো এর উদ্যাগে কারাবন্দীদের মাঝে ঈদ সামগ্রী বিতরণ

» কমলগঞ্জে ভোক্তা অধিকার আইনে ৪ প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা

» কৃষকদের ধানের ন্যায্য মূল্যের দাবীতে জেলা বিএনপি’র স্বারকলিপি

» নবীগঞ্জে নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুতের দাবিতে রাস্তা অবরোধ, ৭ দিনের আল্টিমেটাম

» ধানের ন্যয্যমূল্য নিশ্চিতের দাবিতে না’গঞ্জ মহানগর বিএনপির স্মারকলিপি

» কোরআন অনুবাদ করতে গিয়ে মুসলমান হলেন ধর্ম যাজক

লাইক দিয়ে সংযুক্ত থাকুন



ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
সহ-সম্পাদক : নুরুজ্জামান কাফি
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com
Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
আজ বুধবার, ২২ মে ২০১৯ খ্রিষ্টাব্দ, ৮ই জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

বরগুনার আমতলীতে বন্যা নিয়ন্ত্রন বাঁধের মাটি যাচ্ছে ইটভাটায়

ইউটিউবে সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:
Spread the love

শাহ্ আলী,বরগুনা: বরগুনার আমতলী উপজেলার সদর ইউনিয়নের কড়াইবুনিয়া গ্রাম সংলগ্ন পাউবোর বন্যা নিয়ন্ত্রন বাঁধের মাটি কেঁটে ইট ভাটায় নিয়ে যাচ্ছে ভাটার মালিক। পাউবো কর্তৃপক্ষ নিষেধ উপেক্ষা করে মাটি কাঁটায় হুমকির মুখে পরেছে ওই এলাকার ২৫ হাজার মানুষ।

 

জানাগেছে, উপজেলার আমতলী সদর ইউনিয়নের কড়াইবুনিয়া গ্রাম সংলগ্ন পাউবোর ৪৩/১এ পোল্ডারের বন্যা নিয়ন্ত্রন বাঁধের পাশে উপজেলার খেকুয়ানী গ্রামের তোফাজ্জেল হোসেন হাওলাদার ও গোলাম ফারুক হাওলাদার গত ৫ বছর পূর্বে এমএসবি নামে একটি ঝিকঝ্যাঁক ইট ভাটা নির্মাণ করেন। এ বছরের শুরুতেই সে ভাটায় ইট তৈরীতে ভাটা সংলগ্ন পাউবোর বন্যা নিয়ন্ত্রন বাঁধের ঢাল থেকে ৮/১০ ফুট গভীর গর্ত করে মাটি কেঁটে ভাটায় নিয়ে যাচ্ছে। পাউবো বাঁধের ঢাল থেকে মাটি কাঁটায় বাঁধ ভেঙ্গে নিচে পরে যাওয়ার কারনে বাঁধটি অত্যন্ত ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে। বাঁধটির এ অবস্থার কারনে ওই এলাকার ২৫ হাজার মানুষের কাছে ইটভাটা এখন মরন ফাঁদ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

 

স্থানীয়দের অভিযোগ ইটভাটার মালিক তোফাজ্জেল হোসেন ও গোলাম ফারুক বন্যা নিয়ন্ত্রন বাঁধের মাটি কেঁটে ইটভাটায় নিয়ে যাওয়ায় বন্যা নিয়ন্ত্রন বাঁধ হুমকির মধ্যে রয়েছে। এছাড়া ফসলি জমি ও লোকালয়ে ইটভাটা করায় ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হচ্ছে। এ বিষয়ে ভুক্তভোগী এলাকাবাসী পরিবেশ অধিদপ্তর ও প্রশাসনকে জানালেও তারা কোন কার্যকারী ব্যবস্থা গ্রহন করেনি। পরিবেশের উপর বিরূপ প্রভাব পরলেও পরিবেশ অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা নীরব ভূমিকা পালন করায় জনমনে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। তোফাজ্জেল হোসেন ও গোলাম ফারুক প্রতি বছর প্রশাসনের তোয়াক্কা না করে এভাবে ইট ভাটার ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছেন।

 

ইটভাটা সংলগ্ন স্থানীয় বাসিন্দা আবু বকর আকন ও সিরাজ শিকদার জানান ইটভাটার মালিক বন্যা নিয়ন্ত্রন বাঁধের মাটি কেঁটে ইটভাটায় নিয়ে যাচ্ছে। এতে এ এলাকার মানুষ চরম হুমকির মধ্যে পরেছে। ইট ভাটা মালিক পক্ষকে বহুবার বলা সত্ত্বেও তারা আমলে নিচ্ছে না। তারা উল্টো আমাদের ভয়ভীতি দেখাচ্ছেন। সরেজমিনে গিয়ে দেখাগেছে, কড়াইবুনিয়া এমএসবি ঝিকঝ্যাঁক পদ্ধতির ইটভাটা ফসলি জমি ও লোকালয়ে নির্মাণ করায় ধান ক্ষেতের ব্যাপক ক্ষতি ও স্থানীয় মানুষের বসবাসের অনুপোযোগী হয়ে পরেছে। বন্যা নিয়ন্ত্রন বাঁধের ঢাল থেকে ভ্যেকু মেশিন দিয়ে ৮/১০ ফুট গভীর গর্ত করে মাটি কাঁটায় ভেরীবাঁধটি ভেঙ্গে নিচে পরে গেছে। সে মাটি ১০ জন শ্রমিক ইট ভাটার নিয়ে যাচ্ছে।

 

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ইট ভাটার এক শ্রমিক জানান মালিকের নির্দেশে বাঁধের মাটি কেঁটে নিয়ে যাচ্ছি। আমতলী পাউবোর কার্যসহকারী আলমগীর হোসেন বলেন এমএসবি ইট ভাটা কর্তৃপক্ষকে বন্যা নিয়ন্ত্রন বাঁধের মাটি কাঁটতে নিষেধ করা হলেও তা তারা মানছেন না। এমএসবি ইট ভাটার মালিক তোফাজ্জেল হোসেন হাওলাদার মুঠোফোনে বলেন বেড়ী বাঁধের ঢাল কেঁটে ভাটায় মাটি নেয়ার কথা স্বীকার করেন। তিনি আরও বলেন ওই বাঁধের কাঁটা অংশ ভরাট করে দেয়া হবে। পাউবোর বরগুনা নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ মশিউর রহমান জানান এখনই লোক পাঠিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন:

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ





সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



About Us | Privacy Policy | Terms & Conditions | Contact Us | Sitemap
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
সহ-সম্পাদক : নুরুজ্জামান কাফি
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com

© Copyright BY KuakataNews.Com

Design & Developed BY PopularITLimited