এবার প্রতিবন্ধী শিশু মৌসুমীর পাশে এসপি মিজান

তিন বছর আগে একটি মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় বাম পায়ে মারাত্বক আঘাত পায় ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌরশহরের পুনিয়াউট এলাকার সুবিধাবঞ্চিত শিশু মৌসুমী (০৯)। দুর্ঘটনার পর থেকেই স্বাভাবিকভাবে হাঁটাচলা করতে পরে না সে।সমবয়সীরা যখন দলবেঁধে মাঠে খেলতে যায় তখন মৌসুমীর মন ডুকরে কাঁদে। তবে এবার হয়তো হাঁটাচলার পাশাপাশি দৌঁড়াতেও পারবে মৌসুমী। কেননা তাকে সুস্থ করার দায়িত্ব নিজ কাঁধে তুলে নিয়েছেন ব্রাহ্মণবাড়িয়ার পুলিশ সুপার মো. মিজানুর রহমান।

 

এসপি মিজানুর রহমানের নামটা দেশের অধিকাংশ মানুষের কাছেই এখন বেশ পরিচিত। ব্রাহ্মণবাড়িয়া সরকারি শিশু পরিবারের ‘অনাথ’ হাবিবা আক্তারের অভিভাবকত্ব গ্রহণ ও তার রাজকীয় বিয়ের আয়োজন করে দেশজুড়ে ব্যপক আলোচিত হন এসপি মিজানুর রহমান। পুলিশিংয়ের পাশাপাশি সামাজিক নানা কর্মকাণ্ডে নিজেকে যুক্ত রাখেন তিনি। ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় গণপরিবহনকে প্রতিবন্ধীবান্ধব করতে পরিবহনগুলোতে প্রতিবন্ধীদের জন্য আসন সংরক্ষণের একটি কর্মসূচিও হাতে নিয়েছেন তিনি। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, গত ২০১৫ সালের ৭ জুন ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলায় যোগাদন করেন এসপি মিজানুর রহমান। যোগদানের পর ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে মাদকের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করেন তিনি। সাধারণ মানুষকেও তার যুদ্ধে অংশ নেয়ার জন্য উদ্বুদ্ধ করেন।

 

মাদক নির্মূলে অনেকটাই সফল জেলা পুলিশের এ শীর্ষ কর্মকর্তা পুলিশিং নয়, মানুষ হিসেবে মানুষের জন্য কিছু করার মাঝেই যেন বেশি তৃপ্তি পান। তার ব্যক্তিগত সহায়তায় জেলা শহরে বেশ কিছু সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের পাঠশালা গড়ে উঠেছে। নিজের কাজ থেকে একটু ফুরসত পেলেই এসব শিশুদের সঙ্গে সময় কাটান তিনি। তবে এসপি মিজানুর রহমানের বেশিরভাগ কাজই প্রতিবন্ধীদেরকে নিয়ে। ভালো কিছু করার জন্য প্রতিবন্ধীদের অনুপ্রেরণা দেন তিনি। এসপি মিজানুর রহমানের সহযোগিতায় প্রতিবন্ধীদের নিয়ে গড়া ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ড্রিম ফর ডিজঅ্যাবিলিটি ফাউন্ডেশনের নেতৃত্বে একটি প্রতিবন্ধী দল ভারতের দিল্লিতে ক্রিকেট সিরিজে অংশ নেয়। ওই সিরিজে ২-১ ব্যবধানে চ্যাম্পিয়নও হয় বাংলাদেশ প্রতিবন্ধী ক্রিকেট দল।

 

প্রতিবন্ধী শিশু মৌসুমীকে সুস্থ্য করার জন্য চেষ্টা করে যাচ্ছেন এসপি মিজানুর রহমান। আলোর পথে আনন্দ পাঠশালার শিক্ষার্থী মৌসুমীর কৃত্রিম পা লাগানোর ব্যাপারে চিকিৎসকদের সঙ্গে কথা বলেছেন। দেশের চিকিৎসায় মৌসুমী সুস্থ না হলে প্রয়োজনে তাকে বিদেশে নিয়ে যাওয়া হবে বলে জানিয়েছেন এসপি মিজানুর রহমান। আলোর পথে আনন্দ পাঠশালার সভাপতি হযরত আলী জানান, পরিবারের অভাব-অনটনের কারণে মৌসুমীর পরিবার তার সুচিকিৎসা করাতে পারছিলেন না। মৌসুমী নিজেও ভিক্ষাবৃত্তি করতো। পরে আমরা তাকে আনন্দ পাঠশালায় নিয়ে আসি। পাঠাশালায় মৌসুমীকে দেখে এসপি স্যার তাকে সুস্থ করে তোলার দায়িত্ব নেন।

 

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার পুলিশ সুপার (এসপি) মো. মিজানুর রহমান বলেন, প্রতিবন্ধী বা বিশেষ শিশু আল্লাহ্ প্রদত্ত উপহার। তারা আমাদের সমাজেরই একটি অংশ। তবে এসব প্রতিবন্ধীদের অনেকেই অবহেলার চোখে দেখেন। গণপরিবহনে সুস্থ মানুষ আসনে বসে থাকেন অথচ প্রতিবন্ধীদের দাঁড়িয়ে থাকতে হয়। এটিও এক ধরণের অপরাধ। আমরা ব্রাহ্মণবাড়িয়াকে একটি প্রতিবন্ধীবান্ধব শহর হিসেবে গড়ে তুলতে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। শিশু মৌসুমীকে সুস্থ করে তোলার জন্য আমরা চিকিৎসকদের সঙ্গে কথা বলেছি। প্রয়োজনে তাকে বিদেশেও পাঠানো হবে। তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশ পুলিশে অনেক ভালো সদস্য আছেন। তারা প্রতিনিয়ত ভালো কাজ করে যাচ্ছেন।

নিউজটি শেয়ার করুন:

সর্বশেষ আপডেট



» কুয়াকাটায় যথাযথ মর্যাদায় মাতৃভাষা দিবস পালিত হয়েছে

» দশমিনায় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত

» দশমিনায় প্রানী সম্পদ অধিদপ্তরে ভাষা দিবসে জাতীয় পতাকা উত্তোলন হয়নি

» যশোরের বেনাপোলে ফেন্সিডিলসহ মহিলা ব্যবসায়ী আটক

» আন্তজার্তিক মাতৃভাষা দিবসে বেনাপোল নোম্যান্সল্যান্ডে দুই বাংলার মিলন মেলা

» বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়িতে ভাষা শহীদদেও প্রতি শ্রদ্ধা

» বান্দরবানের রুমায় বিষ পানে পাড়া প্রধানের আত্মহত্যা

» গলাচিপায় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ও শহীদ দিবস পালিত

» পর্যটন কেন্দ্র কুয়াকাটা সৈকতে পতাকা বিক্রেতা মো.গিয়াস উদ্দিন

» আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ও শহীদ দিবস উপলক্ষ্যে শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পন ও আলোচনা সভা

লাইক দিয়ে সংযুক্ত থাকুন

ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
সহ-সম্পাদক : নুরুজ্জামান কাফি
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com
Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
আজ শুক্রবার, ২২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ খ্রিষ্টাব্দ, ১০ই ফাল্গুন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

এবার প্রতিবন্ধী শিশু মৌসুমীর পাশে এসপি মিজান

ইউটিউবে সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

তিন বছর আগে একটি মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় বাম পায়ে মারাত্বক আঘাত পায় ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌরশহরের পুনিয়াউট এলাকার সুবিধাবঞ্চিত শিশু মৌসুমী (০৯)। দুর্ঘটনার পর থেকেই স্বাভাবিকভাবে হাঁটাচলা করতে পরে না সে।সমবয়সীরা যখন দলবেঁধে মাঠে খেলতে যায় তখন মৌসুমীর মন ডুকরে কাঁদে। তবে এবার হয়তো হাঁটাচলার পাশাপাশি দৌঁড়াতেও পারবে মৌসুমী। কেননা তাকে সুস্থ করার দায়িত্ব নিজ কাঁধে তুলে নিয়েছেন ব্রাহ্মণবাড়িয়ার পুলিশ সুপার মো. মিজানুর রহমান।

 

এসপি মিজানুর রহমানের নামটা দেশের অধিকাংশ মানুষের কাছেই এখন বেশ পরিচিত। ব্রাহ্মণবাড়িয়া সরকারি শিশু পরিবারের ‘অনাথ’ হাবিবা আক্তারের অভিভাবকত্ব গ্রহণ ও তার রাজকীয় বিয়ের আয়োজন করে দেশজুড়ে ব্যপক আলোচিত হন এসপি মিজানুর রহমান। পুলিশিংয়ের পাশাপাশি সামাজিক নানা কর্মকাণ্ডে নিজেকে যুক্ত রাখেন তিনি। ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় গণপরিবহনকে প্রতিবন্ধীবান্ধব করতে পরিবহনগুলোতে প্রতিবন্ধীদের জন্য আসন সংরক্ষণের একটি কর্মসূচিও হাতে নিয়েছেন তিনি। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, গত ২০১৫ সালের ৭ জুন ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলায় যোগাদন করেন এসপি মিজানুর রহমান। যোগদানের পর ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে মাদকের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করেন তিনি। সাধারণ মানুষকেও তার যুদ্ধে অংশ নেয়ার জন্য উদ্বুদ্ধ করেন।

 

মাদক নির্মূলে অনেকটাই সফল জেলা পুলিশের এ শীর্ষ কর্মকর্তা পুলিশিং নয়, মানুষ হিসেবে মানুষের জন্য কিছু করার মাঝেই যেন বেশি তৃপ্তি পান। তার ব্যক্তিগত সহায়তায় জেলা শহরে বেশ কিছু সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের পাঠশালা গড়ে উঠেছে। নিজের কাজ থেকে একটু ফুরসত পেলেই এসব শিশুদের সঙ্গে সময় কাটান তিনি। তবে এসপি মিজানুর রহমানের বেশিরভাগ কাজই প্রতিবন্ধীদেরকে নিয়ে। ভালো কিছু করার জন্য প্রতিবন্ধীদের অনুপ্রেরণা দেন তিনি। এসপি মিজানুর রহমানের সহযোগিতায় প্রতিবন্ধীদের নিয়ে গড়া ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ড্রিম ফর ডিজঅ্যাবিলিটি ফাউন্ডেশনের নেতৃত্বে একটি প্রতিবন্ধী দল ভারতের দিল্লিতে ক্রিকেট সিরিজে অংশ নেয়। ওই সিরিজে ২-১ ব্যবধানে চ্যাম্পিয়নও হয় বাংলাদেশ প্রতিবন্ধী ক্রিকেট দল।

 

প্রতিবন্ধী শিশু মৌসুমীকে সুস্থ্য করার জন্য চেষ্টা করে যাচ্ছেন এসপি মিজানুর রহমান। আলোর পথে আনন্দ পাঠশালার শিক্ষার্থী মৌসুমীর কৃত্রিম পা লাগানোর ব্যাপারে চিকিৎসকদের সঙ্গে কথা বলেছেন। দেশের চিকিৎসায় মৌসুমী সুস্থ না হলে প্রয়োজনে তাকে বিদেশে নিয়ে যাওয়া হবে বলে জানিয়েছেন এসপি মিজানুর রহমান। আলোর পথে আনন্দ পাঠশালার সভাপতি হযরত আলী জানান, পরিবারের অভাব-অনটনের কারণে মৌসুমীর পরিবার তার সুচিকিৎসা করাতে পারছিলেন না। মৌসুমী নিজেও ভিক্ষাবৃত্তি করতো। পরে আমরা তাকে আনন্দ পাঠশালায় নিয়ে আসি। পাঠাশালায় মৌসুমীকে দেখে এসপি স্যার তাকে সুস্থ করে তোলার দায়িত্ব নেন।

 

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার পুলিশ সুপার (এসপি) মো. মিজানুর রহমান বলেন, প্রতিবন্ধী বা বিশেষ শিশু আল্লাহ্ প্রদত্ত উপহার। তারা আমাদের সমাজেরই একটি অংশ। তবে এসব প্রতিবন্ধীদের অনেকেই অবহেলার চোখে দেখেন। গণপরিবহনে সুস্থ মানুষ আসনে বসে থাকেন অথচ প্রতিবন্ধীদের দাঁড়িয়ে থাকতে হয়। এটিও এক ধরণের অপরাধ। আমরা ব্রাহ্মণবাড়িয়াকে একটি প্রতিবন্ধীবান্ধব শহর হিসেবে গড়ে তুলতে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। শিশু মৌসুমীকে সুস্থ করে তোলার জন্য আমরা চিকিৎসকদের সঙ্গে কথা বলেছি। প্রয়োজনে তাকে বিদেশেও পাঠানো হবে। তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশ পুলিশে অনেক ভালো সদস্য আছেন। তারা প্রতিনিয়ত ভালো কাজ করে যাচ্ছেন।

নিউজটি শেয়ার করুন:

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
সহ-সম্পাদক : নুরুজ্জামান কাফি
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com

© Copyright BY KuakataNews.Com

Design & Developed BY PopularITLimited