বাঙ্গালীকে কেউ দাবাইয়্যা রাখতে পারবে না, তাই-তো আজ বাংলাদেশ মধ্যম আয়ের দেশ: যুবলীগ চেয়ারম্যান

Spread the love

বাংলাদেশের মহান স্থপতি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৮ তম জন্মদিন উপলক্ষে বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির উদ্যোগে আজ শুক্রবার বিকাল ৪ টায় যুবলীগ কেন্দ্রীয় কার্যালয় ২৫, বঙ্গবন্ধু এভিনিউ, ঢাকা-তে আলোচনা সভা ও মিলাদ মাহফিল যুবলীগ চেয়ারম্যান মোহাম্মদ ওমর ফারুক চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়।

 

সভাপতির স্বাগত বক্তব্যে যুবলীগ চেয়ারম্যান মোহাম্মদ ওমর ফারুক চৌধুরী বলেন, ১৭ই মার্চ বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন, স্বাধীন বাংলাদেশ নামক একটি রাষ্ট্রের সূচনার জন্মদিন। বাংলার মাটিতে বঙ্গবন্ধুর মৃত্যু নাই। জাতির পিতা অবিনশ্বর, অপরাজেয়, চির জাগরুক। তিনি বঙ্গালীর চেতনার বাতিঘর। আর তার দেখানো পথে রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশের অগ্রযাত্রা আজ অপ্রতিরোধ্য। বাংলাদেশ যতই এগিয়ে যাবে, বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন আর অর্জন। আমাদের জতির জন্য হয়ে উঠবে-উত্তরোত্তর ততোই প্রাসঙ্গিক। কারণ বাংলাদেশের যে রুপকল্প তিনি একেছিলেন, সেটাই বাস্তবায়নের পথে আজ বাংলাদেশ।

 

মুক্তির অমর কবিতা- ৭ই মার্চের ভাষনে বলেছিলেন- বাঙ্গালীকে কেউ দাবাইয়্যা রাখতে পারবে না। তাই-তো আজ বাংলাদেশ মধ্যম আয়ের দেশ। তাই-তো আজ কোরবানীর পর নাড়ী ভূড়ি রপ্তানী হয়েছে ৩১ কোটি টাকা। তাই-তো আজ ১লা ফাল্গুন আর ২১ শে ফ্রেব্রুয়ারী ৯০০ কোটি টাকার ফুল বিক্রি হয়। পাটখড়ি, পাটকাঠির ছাই চারকোল রপ্তানী হচ্ছে অষ্ট্রেলিয়া, কানাডা, জাপান, তুরষ্ক, দক্ষিণ কোরিয়া, জার্মানিতে। এই পাটখড়ির ছাই থেকে কার্বন পেপার কম্পিউটার ফটোকপিয়ারের কালি, আতসবাজি, ফেসওয়াসের উপকরণ, মোবাইলের ব্যাটারি, প্রসাধন পন্য, দাঁত পরিষ্কারের ঔষধ ইত্যাদি পন্য তৈরি হয় বিদেশে। এটি এখন গ্রিন ইন্ডাষ্ট্রি হিসাবে আক্ষায়িত হয়েছে। এবার বৈদেশিক মুদ্রা আয় হয়েছে ১ হাজার ৫০০ কোটি টাকা। বাংলাদেশ এখন আর তলা বিহীন ঝুড়ি নয়। বরং এই ঝুড়ি এখন পরিপূর্ণ হয়ে উপচে পড়ছে।

 

এখন আর দূর্ভিক্ষ হয়না। মঙ্গা শব্দটিও নির্বাসিত। ৭১ এর তুলনায় জনসংখ্যা বেড়েছে দ্বীগুন এরও বেশী। বাংলাদেশের অর্থনিতী এখন জিডিপির ভিত্তিতে বিশ্বে ৪৫ তম এবং ক্রয়ক্ষমতার ভিত্তিতে ৩৩ তম স্থান অধিকার করেছে। মানুষের জীবন যাত্রার এক পরিবর্তন ঘটে গেছে। মানুষ এখন আর কোথাও অলস বসে থাকেনা। প্রত্যেকেই কোন না কোন কর্মে লিপ্ত। দেশব্যাপি এ যেন এক অন্যরকম কর্মযজ্ঞ শুরু হয়ে গেছে। এখন খালি পায়ে মানুষ দেখা যায়না। খালি গায়েও মানুষ দেখা যায়না। দেখা যায়না খালি পেটেও। বাংলাদেশ এখন খাদ্য আমদানীর দেশ নয়, খাদ্য রপ্তানীর দেশ, ফলমুল রপ্তানীর দেশ। ধান উৎপাদন দ্বিগুনেরও বেশী। গম তিন গুন, সবজি পাঁচ গুন আর ভুট্টা উৎপাদন বেড়েছে দশ গুন। বর্তমানে দেশে বছরে দুটি ফলন হচ্ছে। যার ফলে আজকে আঠারো কোটি জনসংখ্যার ভাতের যোগান দিতে এক কেজি চাল ও আমদানী করতে হয়না। বাংলাদেশ এখন চাল রপ্তানীকারক দেশ। চাল উৎপাদনে বিশ্বের ৪র্থ, মাছে ৩য়, মাংসে ৪র্থ।

 

আর বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমান সৎ মানুষের জন্য রাজনীতিকে কঠিন করেছিলেন (চড়ষরঃরপং উরভভরপঁষঃ ভড়ৎ ঢ়ড়ষরঃরপরধহ)। আর এরশাদ সভ্য সমাজে সৎ ভাবে বেচে থাকা কঠিন করেছেন। আর বেগম খালেদা জিয়া এ দু’য়ের সমন্বয় করে অপরাজনীতির প্রবক্তা হয়েছিলেন। মিথ্যাচর, মূর্খতা আর বেয়াদবী এই তিন গুনের সমন্বয় সাধন করে দেশ পরিচালনা করেছেন। আর রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনা দিয়েছেন বিশ্ব শান্তির দর্শন “জনগনের ক্ষমতায়ন”। কারণ বিড়াল কেশর ফেললেই বাগ হতে পারেনা। স্বামীর কোলে ছড়ে নেতা হওয়া আর দুঃসময়ের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করে নেতা হওয়ার মধ্যে বিরাট পার্থক্য। রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনা পিতার কোলে ছড়ে নেতা হননি। একটার পর একটা দুঃসময় পাড়ি দিয়ে, সকল চ্যালেঞ্জ, সাহসের সঙ্গে মোকাবেলা করে নেতা হয়েছেন। তাইতো আজ বাংলাদেশের মানচিত্র পাল্টে গেছে জলে ও স্থলে। এ সময় আরোও বক্তব্য রাখেন যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক-মোঃ হারুনুর রশীদ, প্রেসিডিয়াম সদস্য-শহীদ সেরনিয়াবাত, মজিবুর রহমান চৌধুরী, মোঃ ফারুক হোসেন, মাহাবুবুর রহমান হিরন, আব্দুস সাত্তার মাসুদ, এ্যাডভোকেট বেলাল হোসাইন, মোঃ আতাউর রহমান, অধ্যাপক এবিএম আমজাদ হোসেন, ইঞ্জি: নিখিল গুহ, আনোয়ারুল ইসলাম, যুগ্ম সম্পাদক-মহিউদ্দিন আহাম্মেদ মহি, সুব্রত পাল, সাংগঠনিক সম্পাদক-আসাদুল হক আসাদ, দপ্তর সম্পাদক-কাজী আনিসুর রহমান, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ শাখার ভারপ্রাপ্ত সভাপতি-সোহরাব হোসেন স্বপন, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক-রেজাউল করিম রেজা, এছাড়াও কেন্দ্রীয়, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ ও উত্তর শাখার নেতৃবৃন্দ।

 

আজ শুক্রবার সকাল ৭.০০ টায় ধানমন্ডি ৩২ নম্বরে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে যুবলীগ চেয়ারম্যান মোহাম্মদ ওমর ফারুক চৌধুরীর নেতৃত্বে কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ, ঢাকা মহানগর উত্তর, দক্ষিণ শাখা পুষ্পস্তবক অর্পন করেন এবং সকাল ১০.০০টায় গোপালগঞ্জের টুঙ্গীপাড়ায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর মাজারে যুবলীগ প্রেসিডিয়াম সদস্য শাহজাহান ভূইয়া মাখন এর নেতৃত্বে পুষ্পস্তবক অর্পন এবং ফাতেহা পাঠ করা হয়। এ সময় আরোও উপস্থিত ছিলেন শেখ ফজরে ফাহিম, ব্যরিষ্টার শেখ ফজলে নাঈম, রবিউল ইসলাম প্রমূখ।

নিউজটি শেয়ার করুন:

সর্বশেষ আপডেট



» রোহিঙ্গাদের কারণে বনাঞ্চলের ক্ষতি হচ্ছে: প্রধানমন্ত্রী

» নুসরাত হত্যা: ১৬ আসামিকে আদালতে হাজির

» নিখোঁজের ১১ দিন পর ময়মনসিংহ থেকে সোহেল তাজের ভাগ্নে উদ্ধার

» বান্দরবানে ভিটামিন এ প্লাস ক্যাম্পেইন উপলক্ষে সাংবাদিক ওরিয়েন্টেশন কর্মশালা অনুষ্ঠিত

» ভারতের বিহার প্রদেশে খালি পেটে লিচু খাওয়ার পর ১০৩ শিশুর মৃত্যু

» বড়লেখায় ভোক্তা অধিকার আইনে ৪ প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা

» শনিবার ৪ লাখ শিশুকে খাওয়ানো হবে ভিটামিন এ প্লাস

» আগৈলঝাড়ায় ১১শ’ পিস ইয়াবাসহ মাদক কারবারি গ্রেপ্তার

» বিশালতা : মোঃ জুমান হোসেন

» ধলাই নদীর বাঁধ ভাঙ্গনে বিলীন হয়ে যাচ্ছে বসত-ভিটাসহ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান

লাইক দিয়ে সংযুক্ত থাকুন





ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
সহ-সম্পাদক : নুরুজ্জামান কাফি
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com
Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
আজ বৃহস্পতিবার, ২০ জুন ২০১৯ খ্রিষ্টাব্দ, ৬ই আষাঢ় ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

বাঙ্গালীকে কেউ দাবাইয়্যা রাখতে পারবে না, তাই-তো আজ বাংলাদেশ মধ্যম আয়ের দেশ: যুবলীগ চেয়ারম্যান

ইউটিউবে সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:
Spread the love

বাংলাদেশের মহান স্থপতি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৮ তম জন্মদিন উপলক্ষে বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির উদ্যোগে আজ শুক্রবার বিকাল ৪ টায় যুবলীগ কেন্দ্রীয় কার্যালয় ২৫, বঙ্গবন্ধু এভিনিউ, ঢাকা-তে আলোচনা সভা ও মিলাদ মাহফিল যুবলীগ চেয়ারম্যান মোহাম্মদ ওমর ফারুক চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়।

 

সভাপতির স্বাগত বক্তব্যে যুবলীগ চেয়ারম্যান মোহাম্মদ ওমর ফারুক চৌধুরী বলেন, ১৭ই মার্চ বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন, স্বাধীন বাংলাদেশ নামক একটি রাষ্ট্রের সূচনার জন্মদিন। বাংলার মাটিতে বঙ্গবন্ধুর মৃত্যু নাই। জাতির পিতা অবিনশ্বর, অপরাজেয়, চির জাগরুক। তিনি বঙ্গালীর চেতনার বাতিঘর। আর তার দেখানো পথে রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশের অগ্রযাত্রা আজ অপ্রতিরোধ্য। বাংলাদেশ যতই এগিয়ে যাবে, বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন আর অর্জন। আমাদের জতির জন্য হয়ে উঠবে-উত্তরোত্তর ততোই প্রাসঙ্গিক। কারণ বাংলাদেশের যে রুপকল্প তিনি একেছিলেন, সেটাই বাস্তবায়নের পথে আজ বাংলাদেশ।

 

মুক্তির অমর কবিতা- ৭ই মার্চের ভাষনে বলেছিলেন- বাঙ্গালীকে কেউ দাবাইয়্যা রাখতে পারবে না। তাই-তো আজ বাংলাদেশ মধ্যম আয়ের দেশ। তাই-তো আজ কোরবানীর পর নাড়ী ভূড়ি রপ্তানী হয়েছে ৩১ কোটি টাকা। তাই-তো আজ ১লা ফাল্গুন আর ২১ শে ফ্রেব্রুয়ারী ৯০০ কোটি টাকার ফুল বিক্রি হয়। পাটখড়ি, পাটকাঠির ছাই চারকোল রপ্তানী হচ্ছে অষ্ট্রেলিয়া, কানাডা, জাপান, তুরষ্ক, দক্ষিণ কোরিয়া, জার্মানিতে। এই পাটখড়ির ছাই থেকে কার্বন পেপার কম্পিউটার ফটোকপিয়ারের কালি, আতসবাজি, ফেসওয়াসের উপকরণ, মোবাইলের ব্যাটারি, প্রসাধন পন্য, দাঁত পরিষ্কারের ঔষধ ইত্যাদি পন্য তৈরি হয় বিদেশে। এটি এখন গ্রিন ইন্ডাষ্ট্রি হিসাবে আক্ষায়িত হয়েছে। এবার বৈদেশিক মুদ্রা আয় হয়েছে ১ হাজার ৫০০ কোটি টাকা। বাংলাদেশ এখন আর তলা বিহীন ঝুড়ি নয়। বরং এই ঝুড়ি এখন পরিপূর্ণ হয়ে উপচে পড়ছে।

 

এখন আর দূর্ভিক্ষ হয়না। মঙ্গা শব্দটিও নির্বাসিত। ৭১ এর তুলনায় জনসংখ্যা বেড়েছে দ্বীগুন এরও বেশী। বাংলাদেশের অর্থনিতী এখন জিডিপির ভিত্তিতে বিশ্বে ৪৫ তম এবং ক্রয়ক্ষমতার ভিত্তিতে ৩৩ তম স্থান অধিকার করেছে। মানুষের জীবন যাত্রার এক পরিবর্তন ঘটে গেছে। মানুষ এখন আর কোথাও অলস বসে থাকেনা। প্রত্যেকেই কোন না কোন কর্মে লিপ্ত। দেশব্যাপি এ যেন এক অন্যরকম কর্মযজ্ঞ শুরু হয়ে গেছে। এখন খালি পায়ে মানুষ দেখা যায়না। খালি গায়েও মানুষ দেখা যায়না। দেখা যায়না খালি পেটেও। বাংলাদেশ এখন খাদ্য আমদানীর দেশ নয়, খাদ্য রপ্তানীর দেশ, ফলমুল রপ্তানীর দেশ। ধান উৎপাদন দ্বিগুনেরও বেশী। গম তিন গুন, সবজি পাঁচ গুন আর ভুট্টা উৎপাদন বেড়েছে দশ গুন। বর্তমানে দেশে বছরে দুটি ফলন হচ্ছে। যার ফলে আজকে আঠারো কোটি জনসংখ্যার ভাতের যোগান দিতে এক কেজি চাল ও আমদানী করতে হয়না। বাংলাদেশ এখন চাল রপ্তানীকারক দেশ। চাল উৎপাদনে বিশ্বের ৪র্থ, মাছে ৩য়, মাংসে ৪র্থ।

 

আর বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমান সৎ মানুষের জন্য রাজনীতিকে কঠিন করেছিলেন (চড়ষরঃরপং উরভভরপঁষঃ ভড়ৎ ঢ়ড়ষরঃরপরধহ)। আর এরশাদ সভ্য সমাজে সৎ ভাবে বেচে থাকা কঠিন করেছেন। আর বেগম খালেদা জিয়া এ দু’য়ের সমন্বয় করে অপরাজনীতির প্রবক্তা হয়েছিলেন। মিথ্যাচর, মূর্খতা আর বেয়াদবী এই তিন গুনের সমন্বয় সাধন করে দেশ পরিচালনা করেছেন। আর রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনা দিয়েছেন বিশ্ব শান্তির দর্শন “জনগনের ক্ষমতায়ন”। কারণ বিড়াল কেশর ফেললেই বাগ হতে পারেনা। স্বামীর কোলে ছড়ে নেতা হওয়া আর দুঃসময়ের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করে নেতা হওয়ার মধ্যে বিরাট পার্থক্য। রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনা পিতার কোলে ছড়ে নেতা হননি। একটার পর একটা দুঃসময় পাড়ি দিয়ে, সকল চ্যালেঞ্জ, সাহসের সঙ্গে মোকাবেলা করে নেতা হয়েছেন। তাইতো আজ বাংলাদেশের মানচিত্র পাল্টে গেছে জলে ও স্থলে। এ সময় আরোও বক্তব্য রাখেন যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক-মোঃ হারুনুর রশীদ, প্রেসিডিয়াম সদস্য-শহীদ সেরনিয়াবাত, মজিবুর রহমান চৌধুরী, মোঃ ফারুক হোসেন, মাহাবুবুর রহমান হিরন, আব্দুস সাত্তার মাসুদ, এ্যাডভোকেট বেলাল হোসাইন, মোঃ আতাউর রহমান, অধ্যাপক এবিএম আমজাদ হোসেন, ইঞ্জি: নিখিল গুহ, আনোয়ারুল ইসলাম, যুগ্ম সম্পাদক-মহিউদ্দিন আহাম্মেদ মহি, সুব্রত পাল, সাংগঠনিক সম্পাদক-আসাদুল হক আসাদ, দপ্তর সম্পাদক-কাজী আনিসুর রহমান, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ শাখার ভারপ্রাপ্ত সভাপতি-সোহরাব হোসেন স্বপন, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক-রেজাউল করিম রেজা, এছাড়াও কেন্দ্রীয়, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ ও উত্তর শাখার নেতৃবৃন্দ।

 

আজ শুক্রবার সকাল ৭.০০ টায় ধানমন্ডি ৩২ নম্বরে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে যুবলীগ চেয়ারম্যান মোহাম্মদ ওমর ফারুক চৌধুরীর নেতৃত্বে কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ, ঢাকা মহানগর উত্তর, দক্ষিণ শাখা পুষ্পস্তবক অর্পন করেন এবং সকাল ১০.০০টায় গোপালগঞ্জের টুঙ্গীপাড়ায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর মাজারে যুবলীগ প্রেসিডিয়াম সদস্য শাহজাহান ভূইয়া মাখন এর নেতৃত্বে পুষ্পস্তবক অর্পন এবং ফাতেহা পাঠ করা হয়। এ সময় আরোও উপস্থিত ছিলেন শেখ ফজরে ফাহিম, ব্যরিষ্টার শেখ ফজলে নাঈম, রবিউল ইসলাম প্রমূখ।

নিউজটি শেয়ার করুন:

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



Click Here



সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



About Us | Privacy Policy | Terms & Conditions | Contact Us | Sitemap
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
সহ-সম্পাদক : নুরুজ্জামান কাফি
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com

© Copyright BY KuakataNews.Com

Design & Developed BY PopularITLimited