সমুদ্রের মঝে নয়নাভিরাম অপরূপ সৌন্দর্যের হাতছানি।। পাখির কোলাহল আর লাল কাকড়ার লুকোচুরিতে মুখরিত চর বিজয়

উত্তম কুমার হাওলাদার.কলাপাড়া(পটুয়াখালী)প্রতিনিধি,১০ ডিসেম্বর।। চারদিকে সাগরের অথৈ জলরাশি। পশ্চিম দিকে হাজারো অতিথি পাখি আর পান কৌড়ির কিচির মিচির কলতানে মুখরিত। পূর্ব দিকে লাল কাকড়ার অবিরাম লুকোচুরি খেলা। নিচে শুধু ধু ধু বালুচর। চারপাশে জেলেদের মাছ ধরার দৃশ্য। সমুদ্রের মাঝে সূর্যের আলোর চিকচিক দৃশ্যের সাথে ঢেউয়ের খেলা। নেই কোন বসতি, নেই কোন গাছপালা। নেই কোন মানুষের কোলহল। রয়েছে এই একই স্থানে দাড়িয়ে সূর্যদয়-সূর্সাস্তের অবলোকনের দৃশ্য। এ যেন সমুদ্রের মঝে নয়নাভিরাম অপরূপ সৌন্দর্যের হাতছানি। এ দৃশ্য প্রকৃতির খেলায় বঙ্গোপসাগরের বুক চিরে জেগে ওঠা কুয়াকাটার চর বিজয়ের।

২০১৭ সালের ৪ ডিসেম্বর পর্যটন কেন্দ্র কুয়াকাটা থেকে পূর্ব দক্ষিন দিকে গভীর সমুদ্রে এ চরের সন্ধান পায় ট্যুরিজম ব্যবসায়িরা। প্রায় ১০ কিলোমিটার দৈর্ঘ্য ও দেড় কিলোমিটার প্রস্থ এ চরটি। তখন পটুয়াখালী জেলা প্রশাসন দেশি-বিদেশি পর্যটকদের কাছে চরটিকে আরো আকর্ষণীয় করে তুলতে ম্যানগ্রোভ প্রজাতির বাগান সৃজনের জন্য বিভিন্ন প্রজাতির প্রায় ২ হাজার চারা রোপন করেন। জাতীয় পতাকা ও সাইনবোর্ড টানিয়ে চরের নামকরণ করেন ‘চর বিজয়’। তবে জেলেসহ স্থানীয়দের কাছে এ চরটি হাইরের চর নামেও পরিচিত। কুয়াকাটা সৈকত থেকে ট্যুরিস্ট বোট নিয়ে মাত্র দেড় ঘণ্টায় পৌঁছানো যায় এ চরটিতে।

এদিকে পর্যটকদের আকৃষ্ট করতে নানা আয়োজনের মধ্যে দিয়ে ৪ ডিসেম্বর বুধবার চরবিজয়’র ৩য় বার্ষিকী পালন করে স্থানীয় ট্যুরিজাম ব্যবসায়িরা। পর্যটকদের সুবিধার্থে ওই চরে বিশুদ্ধ খাবার পানির জন্য একটি টিউবওয়েল স্থাপন ও একটি টয়লেট নির্মাণ করেন তারা। এছাড়া চরটিতে কয়েক’শ বৃক্ষ চারা রোপন করেন। এসময় কুয়াকাটার পৌর মেয়র আব্দুল বারেক মোল্লা সহ প্রায় শতাধিক পর্যটক ও স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন। জেলেরা জানান, বর্ষা মৌসুমের ছয় মাস চরটি সাগরের পানিতে হাটু পরিমাণ ঢাকা থাকে। আবার শীত মৌসুমে উঁকি দেয়। প্রান্তিক জেলেরা তখন মাছ ধরতে সাগরে যায় এবং মাঝেমাঝে ওই চরটিতে অবস্থান নেয়। এছাড়াও ছোট ছোট ডেরা তৈরি করে শুঁটকি করার জন্য দুই তিন মাস এ চরে অবস্থান নেয় অনেক জেলেরা।

 

চর বিজয় ঘুরে আসা ঢাকার বাসিন্দা সিমা আক্তার বলেন, চর বিজয়ের নাম শুনে আমরা সেখানে যাই। অনেক আনন্দ করি। জেলেদের জাল দিয়ে চরে মাছশিকার ছিল বেশি আনন্দময়। সূর্যাস্ত ও সূর্যোদয়ের সময় চরটিতে অপরূপ দৃশ্য আর ঢেউ’র শব্দ, অগণিত অতিথি পাখির কিচির মিচির ও লাল কাঁকড়াদের বর্ণিল আলপনা অসাধারন লেগেছে। অপর এক পর্যটক আক্তার হোসেন জানান, গভীর সাগরে জেগে আছে মনোমুগ্ধকর দ্বীপ চর বিজয়। চারদিকে সাগরের অথৈ পানি। চরে নেমেই কিছু সময়ের জন্য হারিয়ে যাই। প্রকৃতির নান্দনিক সৌন্দর্য আমাকে মুগ্ধ করেছে। চর বিজয়ের নামকরণকারীদের একজন ট্যুরিজম ব্যবসায়ি হোসাইন আমির বলেন, সমুদ্রের মাঝে জেগে ওঠা চরটি ২০১৭ সালের ৪ ডিসেম্বর বিজয়ের এই মাসে আবিষ্কার হয়েছে। তাই এ চরটির নামকরন করা হয় চর বিজয়। ফটো সাংবাদিক আরিফুর রহমান বলেন, এ চরটি নয়নাভিরাম অপরূপ সৌন্দর্যের হাতছানি। সম্ভাবনাময় এই চরটি ইতোমধ্যে কুয়াকাটায় আগত পর্যটকদের দৃষ্টি কেড়েছে। দিন দিন বাড়ছে পর্যটকের সংখ্যা।

 

কুয়াকাটা ট্যুরিষ্ট পুলিশের কুয়াকাটা পৌর মেয়র আ.বারেক মোল্লা বলেন, এ চরটিতে শৌচাগার, পিকনিক স্পট, সুপেয় পানির ব্যবস্থাসহ ব্যাপক উন্নয়ন মূলক কাজ করা প্রয়োজন। কিন্তু পৌরসভার বাইরে হওয়ায় এসব কাজ করা যাচ্ছেনা। তবে এ বিষয়ে পটুয়াখালী জেলা প্রশাসনসহ উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষন করছি। কলাপাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মুনিবুর রহমান জানান, চর বিজয় অতিথি পাখিদের অভয়রন্য একটি দ্বীপ। এটি রক্ষায় উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে বিভিন্ন পদক্ষেপ রয়েছে বলে তিনি সাংবাদিকদের জানিয়েছেন।

 

 

সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে শেয়ার করুন

সর্বশেষ আপডেট



» ই-পাসপোর্ট কার্যক্রমের উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

» সংবাদ প্রকাশের পর: রাজাপুর-বেকুটিয়া সড়কের ১৭ কোটি টাকার কাজ

» ঝালকাঠিতে সাংবাদিক নির্যাতনে প্রতিবাদে মানববন্ধন

» অফিসবাজার সমাজকল্যাণ তহবিল এর উদ্যাগে ফ্রি চক্ষু ক্যাম্প

» দিনাজপুরের খানসামায় তরুণ উদ্যোক্তাদের উদ্যোগে শীর্তাতদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ

» ইব্রাহীম খলীলের লিভার ক্যান্সার, চিকিৎসার জন্য সাহায্যের আবেদন

» জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় ৯ম বর্ষে পদার্পণ জাবি প্রেসক্লাব

» পটুয়াখালীর দশমিনায় মা সমাবেশ

» নওগাঁয় প্রয়াত আব্দুল জলিলের ৮১তম জন্মবার্ষিকী পালিত

» প্রবাসীর টাকা মেরে সন্তানসহ স্ত্রী উধাও, একাধিক পরকিয়া

লাইক দিয়ে সংযুক্ত থাকুন

ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
সহ-সম্পাদক : নুরুজ্জামান কাফি
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com
Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
আজ বুধবার, ২২ জানুয়ারি ২০২০ খ্রিষ্টাব্দ, ৮ই মাঘ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

সমুদ্রের মঝে নয়নাভিরাম অপরূপ সৌন্দর্যের হাতছানি।। পাখির কোলাহল আর লাল কাকড়ার লুকোচুরিতে মুখরিত চর বিজয়

ইউটিউবে সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

উত্তম কুমার হাওলাদার.কলাপাড়া(পটুয়াখালী)প্রতিনিধি,১০ ডিসেম্বর।। চারদিকে সাগরের অথৈ জলরাশি। পশ্চিম দিকে হাজারো অতিথি পাখি আর পান কৌড়ির কিচির মিচির কলতানে মুখরিত। পূর্ব দিকে লাল কাকড়ার অবিরাম লুকোচুরি খেলা। নিচে শুধু ধু ধু বালুচর। চারপাশে জেলেদের মাছ ধরার দৃশ্য। সমুদ্রের মাঝে সূর্যের আলোর চিকচিক দৃশ্যের সাথে ঢেউয়ের খেলা। নেই কোন বসতি, নেই কোন গাছপালা। নেই কোন মানুষের কোলহল। রয়েছে এই একই স্থানে দাড়িয়ে সূর্যদয়-সূর্সাস্তের অবলোকনের দৃশ্য। এ যেন সমুদ্রের মঝে নয়নাভিরাম অপরূপ সৌন্দর্যের হাতছানি। এ দৃশ্য প্রকৃতির খেলায় বঙ্গোপসাগরের বুক চিরে জেগে ওঠা কুয়াকাটার চর বিজয়ের।

২০১৭ সালের ৪ ডিসেম্বর পর্যটন কেন্দ্র কুয়াকাটা থেকে পূর্ব দক্ষিন দিকে গভীর সমুদ্রে এ চরের সন্ধান পায় ট্যুরিজম ব্যবসায়িরা। প্রায় ১০ কিলোমিটার দৈর্ঘ্য ও দেড় কিলোমিটার প্রস্থ এ চরটি। তখন পটুয়াখালী জেলা প্রশাসন দেশি-বিদেশি পর্যটকদের কাছে চরটিকে আরো আকর্ষণীয় করে তুলতে ম্যানগ্রোভ প্রজাতির বাগান সৃজনের জন্য বিভিন্ন প্রজাতির প্রায় ২ হাজার চারা রোপন করেন। জাতীয় পতাকা ও সাইনবোর্ড টানিয়ে চরের নামকরণ করেন ‘চর বিজয়’। তবে জেলেসহ স্থানীয়দের কাছে এ চরটি হাইরের চর নামেও পরিচিত। কুয়াকাটা সৈকত থেকে ট্যুরিস্ট বোট নিয়ে মাত্র দেড় ঘণ্টায় পৌঁছানো যায় এ চরটিতে।

এদিকে পর্যটকদের আকৃষ্ট করতে নানা আয়োজনের মধ্যে দিয়ে ৪ ডিসেম্বর বুধবার চরবিজয়’র ৩য় বার্ষিকী পালন করে স্থানীয় ট্যুরিজাম ব্যবসায়িরা। পর্যটকদের সুবিধার্থে ওই চরে বিশুদ্ধ খাবার পানির জন্য একটি টিউবওয়েল স্থাপন ও একটি টয়লেট নির্মাণ করেন তারা। এছাড়া চরটিতে কয়েক’শ বৃক্ষ চারা রোপন করেন। এসময় কুয়াকাটার পৌর মেয়র আব্দুল বারেক মোল্লা সহ প্রায় শতাধিক পর্যটক ও স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন। জেলেরা জানান, বর্ষা মৌসুমের ছয় মাস চরটি সাগরের পানিতে হাটু পরিমাণ ঢাকা থাকে। আবার শীত মৌসুমে উঁকি দেয়। প্রান্তিক জেলেরা তখন মাছ ধরতে সাগরে যায় এবং মাঝেমাঝে ওই চরটিতে অবস্থান নেয়। এছাড়াও ছোট ছোট ডেরা তৈরি করে শুঁটকি করার জন্য দুই তিন মাস এ চরে অবস্থান নেয় অনেক জেলেরা।

 

চর বিজয় ঘুরে আসা ঢাকার বাসিন্দা সিমা আক্তার বলেন, চর বিজয়ের নাম শুনে আমরা সেখানে যাই। অনেক আনন্দ করি। জেলেদের জাল দিয়ে চরে মাছশিকার ছিল বেশি আনন্দময়। সূর্যাস্ত ও সূর্যোদয়ের সময় চরটিতে অপরূপ দৃশ্য আর ঢেউ’র শব্দ, অগণিত অতিথি পাখির কিচির মিচির ও লাল কাঁকড়াদের বর্ণিল আলপনা অসাধারন লেগেছে। অপর এক পর্যটক আক্তার হোসেন জানান, গভীর সাগরে জেগে আছে মনোমুগ্ধকর দ্বীপ চর বিজয়। চারদিকে সাগরের অথৈ পানি। চরে নেমেই কিছু সময়ের জন্য হারিয়ে যাই। প্রকৃতির নান্দনিক সৌন্দর্য আমাকে মুগ্ধ করেছে। চর বিজয়ের নামকরণকারীদের একজন ট্যুরিজম ব্যবসায়ি হোসাইন আমির বলেন, সমুদ্রের মাঝে জেগে ওঠা চরটি ২০১৭ সালের ৪ ডিসেম্বর বিজয়ের এই মাসে আবিষ্কার হয়েছে। তাই এ চরটির নামকরন করা হয় চর বিজয়। ফটো সাংবাদিক আরিফুর রহমান বলেন, এ চরটি নয়নাভিরাম অপরূপ সৌন্দর্যের হাতছানি। সম্ভাবনাময় এই চরটি ইতোমধ্যে কুয়াকাটায় আগত পর্যটকদের দৃষ্টি কেড়েছে। দিন দিন বাড়ছে পর্যটকের সংখ্যা।

 

কুয়াকাটা ট্যুরিষ্ট পুলিশের কুয়াকাটা পৌর মেয়র আ.বারেক মোল্লা বলেন, এ চরটিতে শৌচাগার, পিকনিক স্পট, সুপেয় পানির ব্যবস্থাসহ ব্যাপক উন্নয়ন মূলক কাজ করা প্রয়োজন। কিন্তু পৌরসভার বাইরে হওয়ায় এসব কাজ করা যাচ্ছেনা। তবে এ বিষয়ে পটুয়াখালী জেলা প্রশাসনসহ উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষন করছি। কলাপাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মুনিবুর রহমান জানান, চর বিজয় অতিথি পাখিদের অভয়রন্য একটি দ্বীপ। এটি রক্ষায় উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে বিভিন্ন পদক্ষেপ রয়েছে বলে তিনি সাংবাদিকদের জানিয়েছেন।

 

 

সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে শেয়ার করুন

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



Click Here

সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



About Us | Privacy Policy | Terms & Conditions | Contact Us | Sitemap
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
সহ-সম্পাদক : নুরুজ্জামান কাফি
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com

© Copyright BY KuakataNews.Com

Design & Developed BY PopularITLimited