দশমিনায় আমনের বাম্পার ফলন শঙ্কায় ন্যায্য দাম নিয়ে

সঞ্জয় ব্যানার্জী, দশমিনা (পটুয়াখালী) সংবাদদাতা।। পটুয়াখালীর দশমিনা উপজেলায় চলতি বছর আমন ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে দাম নিয়ে শঙ্কিত। চলতি মৌসুমে লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি জমিতে আমন ধানের চাষ হয়েছে। ক্ষেতে পাকা ধান দেখে বাম্পার ফলন আশা করছেন উপজেলার কৃষকরা। সেই সঙ্গে শঙ্কায়ও রয়েছেন ন্যায্য দাম নিয়ে। উপজেলার বাঁশবাড়িয়া ইউনিয়নের বাঁশবাড়িয়া, দক্ষিন দাসপাড়া, গছানী ও বহরমপুর ইউনিয়ানের বগুড়া গ্রামে ঘুরে দেখা গেছে মাঠভরা পাকা আমন ধান। চাষিদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, তারা আশা করছেন আমন ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে তবে ন্যায্য দাম নিয়ে চিন্তায় রয়েছে। তবে বাম্পার ফলন আশা করলেও গতবারের বাস্তব অভিজ্ঞতার কারণে এ বছরও ধানের দাম নিয়ে শঙ্কিত রয়েছেন কৃষকরা।

 

তাদের দাবি, ধানের সঠিক দাম পেতে এখন থেকেই সরকারি তৎপরতা শুরু করা হোক। কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, এ বছর উপজেলার ৭টি ইউনিয়নে ২১ হাজার ১শ” হেক্টর জমিতে রোপা আমন চাষ হয়েছে। মাঠ ঘুরেও এমন চিত্রই পাওয়া গেছে। তবে অসময়ের বন্যায় বেশ কিছু জমির ফসল ডুবে গেলেও সেগুলো নিয়ে চিন্তিত নয় কৃষিবিভাগ। তাদের দাবি, বন্যায় নীচু জমির ধান ডুবে গেলেও বন্যার স্থায়িত্ব কম থাকায় তেমন একটা ক্ষতি হয়নি আমনের। এ ব্যাপারে বগুড়া গ্রামের কৃষক মোঃ ইউনুছ তালুকদার(৪৫), নশা মিয়া(৫৫), আলতাব হোসেন(৫৩) জানান, তারা সবাই বর্গা চাষি। প্রতি বছর ৪-৫একর জমি চাষ করছেন তারা। কীটনাশক, সার, সেচের পানি, শ্রমিকের মজুরি, মজুদ, সংরক্ষণ ও বাজারজাতের ক্রমবর্ধমান খরচের পর ধানের ৫শ’ থেকে ৬শ”টাকায় চলতি বাজার তাদের মনে ভয় ধরিয়ে দিচ্ছে।

 

গত মাসের শেষ থেকে শুরু হয়েছে ধানা কাটা। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোঃ বনি আমিন খান বলেন, এ বছর আমাদের আমন ধানের যে লক্ষ্যমাত্রা ছিল তা ছাড়িয়ে গেছে। ধানের দাম প্রসঙ্গে তিনি আরও বলেন, কৃষকরা যদি ধানের ন্যায্যমূল্য পায় তবে ধানের উৎপাদন প্রতিবছর এভাবেই লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে যাবে।

 

 

সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে শেয়ার করুন

সর্বশেষ আপডেট



» ঝিনাইদহের শৈলকুপায় কৃতি শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা প্রদান

» মহেশপুর সীমান্ত থেকে আরো ৬ জনকে আটক করেছে বিজিবি

» ঝিনাইদহে প্রধানমন্ত্রীর অনুদানের চেক বিতরণ

» মহান বিজয় দিবসে জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা

» বৌভাতের রাতে গহনা ও নগদ অর্থ নিয়ে পালালেন নববধূ

» বিজয়ের রাতে …নির্মল-বাবু’র সাথে …।

» অতিথি পাখির কলকাকলিতে মুখরিত কদমবিল

» আগাম জামিন পেলেন ফখরুলসহ বিএনপির ১২ নেতা

» দেশে ফেরার পর সু চিকে রাজসিক অভ্যর্থনা

» কুয়াকাটায় ৫ লিটার চোলাই মদ সহ যুবক গ্রেফতার

লাইক দিয়ে সংযুক্ত থাকুন

ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
সহ-সম্পাদক : নুরুজ্জামান কাফি
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com
Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
আজ সোমবার, ১৬ ডিসেম্বর ২০১৯ খ্রিষ্টাব্দ, ১লা পৌষ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

দশমিনায় আমনের বাম্পার ফলন শঙ্কায় ন্যায্য দাম নিয়ে

ইউটিউবে সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

সঞ্জয় ব্যানার্জী, দশমিনা (পটুয়াখালী) সংবাদদাতা।। পটুয়াখালীর দশমিনা উপজেলায় চলতি বছর আমন ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে দাম নিয়ে শঙ্কিত। চলতি মৌসুমে লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি জমিতে আমন ধানের চাষ হয়েছে। ক্ষেতে পাকা ধান দেখে বাম্পার ফলন আশা করছেন উপজেলার কৃষকরা। সেই সঙ্গে শঙ্কায়ও রয়েছেন ন্যায্য দাম নিয়ে। উপজেলার বাঁশবাড়িয়া ইউনিয়নের বাঁশবাড়িয়া, দক্ষিন দাসপাড়া, গছানী ও বহরমপুর ইউনিয়ানের বগুড়া গ্রামে ঘুরে দেখা গেছে মাঠভরা পাকা আমন ধান। চাষিদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, তারা আশা করছেন আমন ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে তবে ন্যায্য দাম নিয়ে চিন্তায় রয়েছে। তবে বাম্পার ফলন আশা করলেও গতবারের বাস্তব অভিজ্ঞতার কারণে এ বছরও ধানের দাম নিয়ে শঙ্কিত রয়েছেন কৃষকরা।

 

তাদের দাবি, ধানের সঠিক দাম পেতে এখন থেকেই সরকারি তৎপরতা শুরু করা হোক। কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, এ বছর উপজেলার ৭টি ইউনিয়নে ২১ হাজার ১শ” হেক্টর জমিতে রোপা আমন চাষ হয়েছে। মাঠ ঘুরেও এমন চিত্রই পাওয়া গেছে। তবে অসময়ের বন্যায় বেশ কিছু জমির ফসল ডুবে গেলেও সেগুলো নিয়ে চিন্তিত নয় কৃষিবিভাগ। তাদের দাবি, বন্যায় নীচু জমির ধান ডুবে গেলেও বন্যার স্থায়িত্ব কম থাকায় তেমন একটা ক্ষতি হয়নি আমনের। এ ব্যাপারে বগুড়া গ্রামের কৃষক মোঃ ইউনুছ তালুকদার(৪৫), নশা মিয়া(৫৫), আলতাব হোসেন(৫৩) জানান, তারা সবাই বর্গা চাষি। প্রতি বছর ৪-৫একর জমি চাষ করছেন তারা। কীটনাশক, সার, সেচের পানি, শ্রমিকের মজুরি, মজুদ, সংরক্ষণ ও বাজারজাতের ক্রমবর্ধমান খরচের পর ধানের ৫শ’ থেকে ৬শ”টাকায় চলতি বাজার তাদের মনে ভয় ধরিয়ে দিচ্ছে।

 

গত মাসের শেষ থেকে শুরু হয়েছে ধানা কাটা। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোঃ বনি আমিন খান বলেন, এ বছর আমাদের আমন ধানের যে লক্ষ্যমাত্রা ছিল তা ছাড়িয়ে গেছে। ধানের দাম প্রসঙ্গে তিনি আরও বলেন, কৃষকরা যদি ধানের ন্যায্যমূল্য পায় তবে ধানের উৎপাদন প্রতিবছর এভাবেই লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে যাবে।

 

 

সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে শেয়ার করুন

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



Click Here

সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



About Us | Privacy Policy | Terms & Conditions | Contact Us | Sitemap
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
সহ-সম্পাদক : নুরুজ্জামান কাফি
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com

© Copyright BY KuakataNews.Com

Design & Developed BY PopularITLimited