শীতকালীন সবজিতে ব্যবহার হচ্ছে ক্ষতিকারক কীটনাশক

ঝিনাইদহে আগাম শীতকালীন সবজি ক্ষেতে পরিচর্যায় ব্যস্ত চাষিরা। অনেকেই বিক্রি করেছেন ক্ষেতের সবজি, দামও পেয়েছেন ভালো। তবে অনেকেই আবার সবজি পরিপক্ব করতে ক্ষেতে ব্যবহার করছেন নানা ধরনের কীটনাশক যা স্বাস্থ্যের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ বলছেন চিকিৎসকরা। কৃষি বিভাগের তথ্য মতে চলতি মৌসুমে এখন পর্যন্ত জেলায় শীতকালীন সবজির আবাদ হয়েছে প্রায় ৪ হাজার হেক্টর জমিতে। সাধারণত শীত মৌসুমের শুরুতে লোভনীয় এসব সবজির চাহিদা বেশি থাকায় দামও মেলে বেশি। বর্তমান সময়ে বিভিন্ন এলাকার মাঠে মাঠে বেড়ে উঠছে এসব বাঁধাকপি, ফুলকপি, লাউ, শিমসহ বিভিন্ন রকমের সবজি।

 

ইতোমধ্যেই অনেক চাষিই সবজি বিক্রি করে ভালো দাম পেয়েছেন। বাজারে শিম পাইকারি বিক্রি করছেন গড়ে ৫৫ টাকা কেজি, বাঁধাকপি ও ফুল কপি ২৫ থেকে ৩০ টাকা কেজি, লাউ প্রতি পিস ৩০ টাকা দরে। এজন্য আগাম শীত কালীন সবজি ক্ষেত পরিচর্যায় ব্যস্ত সময় পার করছেন বিভিন্ন এলাকার চাষিরা। কেউবা জমির মাটি পরিষ্কার করছেন কেউবা দমন করছেন ক্ষেতের আগাছা। অনেকেই আবার বেশি লাভের আশায় ক্ষেতে ব্যবহার করছেন মাত্রাতিরিক্ত কীটনাশক। যা ফলকে অসময়ে পরিপুষ্ট করছে, রাখছে সতেজ। সদর উপজেলার প্রতাপপুর গ্রামের কৃষক মোস্তফা কামাল জানান, ফুল ফুটেছে এবং সেটি বড় হচ্ছে। এ অবস্থায় ছত্রাক ও পোকার আক্রমণ ঠেকাতে ফুলে ঔষধ স্প্রে করলে ফুল বেশি বড় হবে ও পোকার আক্রমণ হবে না। তাই কীটনাশক ব্যবহার করছি।

 

অন্যান্য এলাকার চাষিরা জানান, ক্ষেতে সাধারণত সবজি পরিপুষ্ট রাখতে প্রোকেলেম, রেডোমিন গোল্ড, এমিস্টারটপসহ নানা ধরনের ঔষধ ৭ থেকে ১০ দিন অন্তর ব্যবহার করা হয়। সবজিতে কীটনাশক ব্যবহার করা ঠিক না এটা কৃষি বিভাগ আমাদের বলে না। তারা কখনো আসেনা খবরও নেয় না। ফলে দোকান থেকে এনে আমরা ব্যবহার করি। কৃষি কর্মকর্তারা আমাদের নির্দেশনা দিলে কীটনাশক ব্যবহারে সর্তক হতাম। ভিল সার্জন অফিসের মেডিকেল অফিসার ডা. প্রসেনজিৎ বিশ্বাস পার্থ জানান, লোভনীয় এসব সবজি খাওয়ার ক্ষেত্রে আমাদের সতর্ক থাকতে হবে। সঠিক মাত্রায় সিদ্ধ করে না খেলে পেটের পিড়া, ডায়রিয়া এমনকি ক্যানসারের মতো রোগ হতে পারে।

 

আমরা যদি ৬০ থেকে ১০০ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রায় সবজি সিদ্ধ করে খায় তাহলে বিষক্রিয়া অনেকাংশেই কমে যায়। তবে ক্ষেতে কীটনাশক ব্যবহারের ক্ষেত্রে কৃষক ভাইদের অবশ্যই সচেতন থাকতে হবে যেন সেটি মাত্রাতিরিক্ত না হয়। কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক জি এম আব্দুর রউফ জানান, সবজি উৎপাদনে কিছু কীটনাশক প্রয়োজন আছে। তবে চাষিদের নিরাপদ সবজি উৎপাদনে আমরা উৎসাহিত করছি। আমাদের প্লান আছে একটি নিরাপদ সবজি কর্নার স্থাপন করা যাতে সেখান বিষমুক্ত সবজি বিক্রি হয়।

 

 

সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে শেয়ার করুন

সর্বশেষ আপডেট



» ঝিনাইদহে আন্ত:স্কুল বিজ্ঞান মেলা অনুষ্ঠিত

» কালীগঞ্জে পুঁইশাক ঘুরিয়ে দিয়েছে জাহাঙ্গীর হোসেনের ভাগ্যের চাকা

» নাচোলে লটারির টিকিট বিক্রির অপরাধে ১৩ জনের কারাদন্ড

» যুবলীগের সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনী গণসংযোগ ও সভা অনুষ্ঠিত

» যশোরের প্রাইভেট কার থেকে ৯৪ টি স্বর্ণের উদ্ধার আটক -৩

» জেলা ও উপজেলা প্রশাসনে কর্মরত কর্মচারীদের পদবী পরিবর্তনের দাবীতে কর্মবিরতি

» গোপালগঞ্জ বশেমুরবিপ্রবিতে শিক্ষকদের লাঞ্ছনা, নিগ্রহ ও হুমকির প্রতিবাদে শিক্ষকদের মানববন্ধন

» গোপালগঞ্জ বশেমুরবিপ্রবি ইটিই বিভাগের শিক্ষার্থীদের আমরণ অনশন : দুই শিক্ষার্থী অসুস্থ

» রাণীনগরে ১০ বীরাঙ্গনাকে সংবর্ধনা

» রাণীনগরের আনোয়ার সফলতা পেয়েছেন “স্কোয়াশ” সবজি চাষে

লাইক দিয়ে সংযুক্ত থাকুন

ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
সহ-সম্পাদক : নুরুজ্জামান কাফি
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com
Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
আজ মঙ্গলবার, ২১ জানুয়ারি ২০২০ খ্রিষ্টাব্দ, ৭ই মাঘ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

শীতকালীন সবজিতে ব্যবহার হচ্ছে ক্ষতিকারক কীটনাশক

ইউটিউবে সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

ঝিনাইদহে আগাম শীতকালীন সবজি ক্ষেতে পরিচর্যায় ব্যস্ত চাষিরা। অনেকেই বিক্রি করেছেন ক্ষেতের সবজি, দামও পেয়েছেন ভালো। তবে অনেকেই আবার সবজি পরিপক্ব করতে ক্ষেতে ব্যবহার করছেন নানা ধরনের কীটনাশক যা স্বাস্থ্যের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ বলছেন চিকিৎসকরা। কৃষি বিভাগের তথ্য মতে চলতি মৌসুমে এখন পর্যন্ত জেলায় শীতকালীন সবজির আবাদ হয়েছে প্রায় ৪ হাজার হেক্টর জমিতে। সাধারণত শীত মৌসুমের শুরুতে লোভনীয় এসব সবজির চাহিদা বেশি থাকায় দামও মেলে বেশি। বর্তমান সময়ে বিভিন্ন এলাকার মাঠে মাঠে বেড়ে উঠছে এসব বাঁধাকপি, ফুলকপি, লাউ, শিমসহ বিভিন্ন রকমের সবজি।

 

ইতোমধ্যেই অনেক চাষিই সবজি বিক্রি করে ভালো দাম পেয়েছেন। বাজারে শিম পাইকারি বিক্রি করছেন গড়ে ৫৫ টাকা কেজি, বাঁধাকপি ও ফুল কপি ২৫ থেকে ৩০ টাকা কেজি, লাউ প্রতি পিস ৩০ টাকা দরে। এজন্য আগাম শীত কালীন সবজি ক্ষেত পরিচর্যায় ব্যস্ত সময় পার করছেন বিভিন্ন এলাকার চাষিরা। কেউবা জমির মাটি পরিষ্কার করছেন কেউবা দমন করছেন ক্ষেতের আগাছা। অনেকেই আবার বেশি লাভের আশায় ক্ষেতে ব্যবহার করছেন মাত্রাতিরিক্ত কীটনাশক। যা ফলকে অসময়ে পরিপুষ্ট করছে, রাখছে সতেজ। সদর উপজেলার প্রতাপপুর গ্রামের কৃষক মোস্তফা কামাল জানান, ফুল ফুটেছে এবং সেটি বড় হচ্ছে। এ অবস্থায় ছত্রাক ও পোকার আক্রমণ ঠেকাতে ফুলে ঔষধ স্প্রে করলে ফুল বেশি বড় হবে ও পোকার আক্রমণ হবে না। তাই কীটনাশক ব্যবহার করছি।

 

অন্যান্য এলাকার চাষিরা জানান, ক্ষেতে সাধারণত সবজি পরিপুষ্ট রাখতে প্রোকেলেম, রেডোমিন গোল্ড, এমিস্টারটপসহ নানা ধরনের ঔষধ ৭ থেকে ১০ দিন অন্তর ব্যবহার করা হয়। সবজিতে কীটনাশক ব্যবহার করা ঠিক না এটা কৃষি বিভাগ আমাদের বলে না। তারা কখনো আসেনা খবরও নেয় না। ফলে দোকান থেকে এনে আমরা ব্যবহার করি। কৃষি কর্মকর্তারা আমাদের নির্দেশনা দিলে কীটনাশক ব্যবহারে সর্তক হতাম। ভিল সার্জন অফিসের মেডিকেল অফিসার ডা. প্রসেনজিৎ বিশ্বাস পার্থ জানান, লোভনীয় এসব সবজি খাওয়ার ক্ষেত্রে আমাদের সতর্ক থাকতে হবে। সঠিক মাত্রায় সিদ্ধ করে না খেলে পেটের পিড়া, ডায়রিয়া এমনকি ক্যানসারের মতো রোগ হতে পারে।

 

আমরা যদি ৬০ থেকে ১০০ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রায় সবজি সিদ্ধ করে খায় তাহলে বিষক্রিয়া অনেকাংশেই কমে যায়। তবে ক্ষেতে কীটনাশক ব্যবহারের ক্ষেত্রে কৃষক ভাইদের অবশ্যই সচেতন থাকতে হবে যেন সেটি মাত্রাতিরিক্ত না হয়। কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক জি এম আব্দুর রউফ জানান, সবজি উৎপাদনে কিছু কীটনাশক প্রয়োজন আছে। তবে চাষিদের নিরাপদ সবজি উৎপাদনে আমরা উৎসাহিত করছি। আমাদের প্লান আছে একটি নিরাপদ সবজি কর্নার স্থাপন করা যাতে সেখান বিষমুক্ত সবজি বিক্রি হয়।

 

 

সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে শেয়ার করুন

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



Click Here

সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



About Us | Privacy Policy | Terms & Conditions | Contact Us | Sitemap
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
সহ-সম্পাদক : নুরুজ্জামান কাফি
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com

© Copyright BY KuakataNews.Com

Design & Developed BY PopularITLimited