ফের আবরারের ছোট ভাইয়ের আবেগঘন স্ট্যাটাস

নির্মম নির্যাতনে নিহত বুয়েট শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদের ব্যবহৃত জিনিসপত্র তার হলের রুম থেকে বুধবার নিয়ে গেছে তার পরিবার। আবরার শেরে বাংলা হলে উঠেছিলেন ২০১৮ সালের ৩১ মার্চে। এ উপলক্ষে তার ছোট ভাই আবরার ফাইয়াজ শেষবারের মতো বুয়েটের শেরে বাংলা হলে তার কক্ষে গিয়েছিলো। এর আগে ভাইয়ের স্মৃতিচারণা করে ফেসবুকে একটি পোস্ট দেন আবরার ফাইয়াজ।

 

পাঠকদের জন্য হুবহু তুলে ধরা হলো-

“৩১শে মার্চ ২০১৮
প্রথম ক্লাস ছিল সেইদিন আবার সেইদিনই হলে উঠতে হবে।।। রুম বরাদ্দ ছিল ২০৭ কিন্তু রুমে রাজনৈতিক দলের লোক থাকায় প্রভোস্ট বলেন ভুল করেও ওই দিকে যাবা না,,,ভাইয়া ক্লাসে ছিল বলে আমাদের বলে ৫ তলায় জিনিসপত্র রাখতে,,, এখনো মনে আছে যেই মামা পায়ের ব্যাথায় হাটতে পর্যন্ত পারে না সে কিনা হাসি মুখে অত ভারি বাক্স নিয়ে উপরে উঠলো কিন্তু নিচে এসে দেখলাম ভাইয়ার থাকার জায়গা হয়েছে মসজিদে,,, আবার দুইজন মিলে নামিয়ে আনলাম,,দৌড়ে গিয়ে আগে তোষক বিছিয়ে রাখলাম ফ্যান এর নিচে, জানালার পাশে যাতে ভাইয়ার সুবিধা হয়।।সেইবার যখন চলে আসি তখন ভাইয়া কে দেখে মনে হয়েছিল অনেক খারাপ লাগছে বাট আমরাও খুশি মনে চলে আসি।।।।মনে আছে বন্ধুরা বলছিল সব ছবি তুলে নিয়ে আসিস কিন্তু লজ্জায় কিছুই তা হয় নি।। ।কেউ যখন জিজ্ঞেস করত তোমার ভাই কি করে অনেক গর্ব করে বলতাম বুয়েটে ইইই পড়ে।।।।।(এখন অবশ্য লজ্জা আর ঘৃণা লাগে এই ব্যাপার গুলা নিয়ে) কালের পরিক্রমায় আজ (৩০শে অক্টোবর ২০১৯)

 

আজকে আবার শেষ বারের মত যাবো ভাইয়ার রুমে,,, আগে অনেকবার গেলেও পার্থক্য এইবার ভাইয়া আর এই পৃথিবী তে নেই।।।মাত্র ১৯ মাস এর ব্যবধানে আবার আনতে যাচ্ছি যা একদিন রেখে আসছিলাম কিন্তু এখন সবই ভাইয়ের স্মৃতি হিসেবে।।।এই হলে একসময় ভাইয়ের সাথে কত ঘুরছি ভাইয়া বলত আমাদের হলের মতো হল বাংলাদেশ এ আর নেই।সারারাত না ঘুমালেও আমি যেতে চাইলে কখনো আসতে নিষেধ করত না,,,নিজে না থাকলেও বলত চাবি ওইখানে রেখে আসছি।।মাঝে মাঝে ভাইয়া ঘুমিয়ে থাকলে আমি পাশে চেয়ার বসে থাকতাম,,,হঠাৎ খেয়াল করলে বলত “কিরে তুই কখন আসলি,, “।।তখন তো আর জানতাম না মাথার উপরেই আছে সবচেয়ে নিকৃষ্ট কিছু মানুষরুপী জীব,,যারা একদিন…..।।। আজ আর কেউ নেই যে ” ওই ভাবে” বলবে কিছু লাগলে আমাকে বলবি আব্বু আম্মু কে বলার দরকার নেই,,আর কেউ ঘাড়ে হাত দিয়ে রাস্তা পার হবে না,,,

 

কষ্ট শুধুই এইগুলা ভেবে যে না জানি কতটা কষ্ট পাইছে যখন আস্তে আস্তে বুঝতে পারছে আর আমাদের সাথে দেখা হবে না,,,হয়ত ওদের আঘাত থেকেও বেশি কষ্ট পেয়েছে বাবা-মা’র কথা ভেবে,,,কিন্তু যদি একবার বলতে পারতাম তুই শান্তিতে থাকলে আমাদের কাছে না থাকলেও আমরা খুশি,আমাদের চিন্তা তোকে করতে হবে না।।।হয়ত একসময় বলছে আল্লাহ তুমি ওদের দেখে রেখো তাই হয়ত এত কিছুর পরও এতটা স্বাভাবিক থাকতে পেরেছি।।।

 

আল্লাহর কাছেও খালি একটাই চাওয়া এখন,, ও যেন শান্তিতে থাকে,,,দুনিয়ায় কিছু না পেলেও আখিরাতে যেন সব পায়,,,সত্যি বলতে নিজের কাছের কেউ যখন যায় তখনই বুঝা যায় এই দুনিয়া কতটা ক্ষণিকের।।।

 

*একটা সময় আস্তে আস্তে হয়তো সব ভুলে যাব তাই এগুলা লিখে রাখা,,,ভাইয়ার সাথে বড় হওয়াটা তো আর হইলো না।। আল্লাহ ভরসা।”

 

 

সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে শেয়ার করুন

সর্বশেষ আপডেট



» ফেসবুক লাইভে: আমি রাঙ্গার মেয়ে, বাবাকে নিয়ে কিছু কথা বলতে চাই (ভিডিও)

» ডামুড্যার সিড্যায় ৩৬ নং মধ্য সিড্যা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীদের বিদায় অনুষ্ঠান

» যাতায়াতের একমাত্র রাস্থা বন্ধ বিপাকে ১৩ পরিবার

» বাগেরহাটে কাড়াপাড়া প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পঞ্চম শ্রেণীর বিদায় অনুষ্ঠান

» বরিশালের মেয়ে নায়লা নাঈমের জীবনী আসছে একুশে বইমেলা ২০২০ এ

» জাতীয় মানবাধিকার সমিতির তিতাস উপজেলার কমিটি ঘোষণা

» আগামী রবিবার ১৭ নভেম্বর প্রাথমিক ও ইবতেদায়ি পরীক্ষা শুরু

» দারাজে ১১.১১ ক্যাম্পেইনে প্রথম ঘণ্টায় সাড়ে ৮ কোটি টাকার পণ্য বিক্রি

» মা গুলতেকিনের দ্বিতীয় বিয়ে নিয়ে যা বললেন নুহাশ

» বিয়ে করছেন মিয়া খলিফা!

লাইক দিয়ে সংযুক্ত থাকুন

ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
সহ-সম্পাদক : নুরুজ্জামান কাফি
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com
Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
আজ রবিবার, ১৭ নভেম্বর ২০১৯ খ্রিষ্টাব্দ, ২রা অগ্রহায়ণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

ফের আবরারের ছোট ভাইয়ের আবেগঘন স্ট্যাটাস

ইউটিউবে সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

নির্মম নির্যাতনে নিহত বুয়েট শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদের ব্যবহৃত জিনিসপত্র তার হলের রুম থেকে বুধবার নিয়ে গেছে তার পরিবার। আবরার শেরে বাংলা হলে উঠেছিলেন ২০১৮ সালের ৩১ মার্চে। এ উপলক্ষে তার ছোট ভাই আবরার ফাইয়াজ শেষবারের মতো বুয়েটের শেরে বাংলা হলে তার কক্ষে গিয়েছিলো। এর আগে ভাইয়ের স্মৃতিচারণা করে ফেসবুকে একটি পোস্ট দেন আবরার ফাইয়াজ।

 

পাঠকদের জন্য হুবহু তুলে ধরা হলো-

“৩১শে মার্চ ২০১৮
প্রথম ক্লাস ছিল সেইদিন আবার সেইদিনই হলে উঠতে হবে।।। রুম বরাদ্দ ছিল ২০৭ কিন্তু রুমে রাজনৈতিক দলের লোক থাকায় প্রভোস্ট বলেন ভুল করেও ওই দিকে যাবা না,,,ভাইয়া ক্লাসে ছিল বলে আমাদের বলে ৫ তলায় জিনিসপত্র রাখতে,,, এখনো মনে আছে যেই মামা পায়ের ব্যাথায় হাটতে পর্যন্ত পারে না সে কিনা হাসি মুখে অত ভারি বাক্স নিয়ে উপরে উঠলো কিন্তু নিচে এসে দেখলাম ভাইয়ার থাকার জায়গা হয়েছে মসজিদে,,, আবার দুইজন মিলে নামিয়ে আনলাম,,দৌড়ে গিয়ে আগে তোষক বিছিয়ে রাখলাম ফ্যান এর নিচে, জানালার পাশে যাতে ভাইয়ার সুবিধা হয়।।সেইবার যখন চলে আসি তখন ভাইয়া কে দেখে মনে হয়েছিল অনেক খারাপ লাগছে বাট আমরাও খুশি মনে চলে আসি।।।।মনে আছে বন্ধুরা বলছিল সব ছবি তুলে নিয়ে আসিস কিন্তু লজ্জায় কিছুই তা হয় নি।। ।কেউ যখন জিজ্ঞেস করত তোমার ভাই কি করে অনেক গর্ব করে বলতাম বুয়েটে ইইই পড়ে।।।।।(এখন অবশ্য লজ্জা আর ঘৃণা লাগে এই ব্যাপার গুলা নিয়ে) কালের পরিক্রমায় আজ (৩০শে অক্টোবর ২০১৯)

 

আজকে আবার শেষ বারের মত যাবো ভাইয়ার রুমে,,, আগে অনেকবার গেলেও পার্থক্য এইবার ভাইয়া আর এই পৃথিবী তে নেই।।।মাত্র ১৯ মাস এর ব্যবধানে আবার আনতে যাচ্ছি যা একদিন রেখে আসছিলাম কিন্তু এখন সবই ভাইয়ের স্মৃতি হিসেবে।।।এই হলে একসময় ভাইয়ের সাথে কত ঘুরছি ভাইয়া বলত আমাদের হলের মতো হল বাংলাদেশ এ আর নেই।সারারাত না ঘুমালেও আমি যেতে চাইলে কখনো আসতে নিষেধ করত না,,,নিজে না থাকলেও বলত চাবি ওইখানে রেখে আসছি।।মাঝে মাঝে ভাইয়া ঘুমিয়ে থাকলে আমি পাশে চেয়ার বসে থাকতাম,,,হঠাৎ খেয়াল করলে বলত “কিরে তুই কখন আসলি,, “।।তখন তো আর জানতাম না মাথার উপরেই আছে সবচেয়ে নিকৃষ্ট কিছু মানুষরুপী জীব,,যারা একদিন…..।।। আজ আর কেউ নেই যে ” ওই ভাবে” বলবে কিছু লাগলে আমাকে বলবি আব্বু আম্মু কে বলার দরকার নেই,,আর কেউ ঘাড়ে হাত দিয়ে রাস্তা পার হবে না,,,

 

কষ্ট শুধুই এইগুলা ভেবে যে না জানি কতটা কষ্ট পাইছে যখন আস্তে আস্তে বুঝতে পারছে আর আমাদের সাথে দেখা হবে না,,,হয়ত ওদের আঘাত থেকেও বেশি কষ্ট পেয়েছে বাবা-মা’র কথা ভেবে,,,কিন্তু যদি একবার বলতে পারতাম তুই শান্তিতে থাকলে আমাদের কাছে না থাকলেও আমরা খুশি,আমাদের চিন্তা তোকে করতে হবে না।।।হয়ত একসময় বলছে আল্লাহ তুমি ওদের দেখে রেখো তাই হয়ত এত কিছুর পরও এতটা স্বাভাবিক থাকতে পেরেছি।।।

 

আল্লাহর কাছেও খালি একটাই চাওয়া এখন,, ও যেন শান্তিতে থাকে,,,দুনিয়ায় কিছু না পেলেও আখিরাতে যেন সব পায়,,,সত্যি বলতে নিজের কাছের কেউ যখন যায় তখনই বুঝা যায় এই দুনিয়া কতটা ক্ষণিকের।।।

 

*একটা সময় আস্তে আস্তে হয়তো সব ভুলে যাব তাই এগুলা লিখে রাখা,,,ভাইয়ার সাথে বড় হওয়াটা তো আর হইলো না।। আল্লাহ ভরসা।”

 

 

সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে শেয়ার করুন

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



Click Here

সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



About Us | Privacy Policy | Terms & Conditions | Contact Us | Sitemap
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
সহ-সম্পাদক : নুরুজ্জামান কাফি
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com

© Copyright BY KuakataNews.Com

Design & Developed BY PopularITLimited