নিষেধ উপেক্ষা করে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে দশমিনার নদীতে মাছ শিকারে

সঞ্জয় ব্যানার্জী, দশমিনা (পটুয়াখালী) সংবাদদাতা।। পটুয়াখালী জেলার দশমিনার তেঁতুলিয়া নদীতে সরকারি নিষেধ উপেক্ষা করে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে মাছ শিকার করছে উপজেলার জেলেরা। ইলিশের প্রজনন মৌসুম নিরাপদ করতে চলতি মাসের ৩০তারিখ প্রযন্ত ২২ দিন মা ইলিশ শিকার, বহন, আহরন ও মজুত নিষিদ্ধ করেছে সরকার। এ সময় সারা দেশের মতো এ উপজেলার জেলেদের বিরত থাকার জন্য ভিজিএফ সহায়তা মাথাপিছু ২০ কেজি চাল দেয়া হয়। ভিজিএফ কর্মসূচির আওতায় এ চাল বিতরণ করা হলেও ব্যাংক ও এনজিও থেকে নেয়া ঋণের টাকা পরিশোধ করা জেলেদের ওপর ভয়াবহ বোঝা হয়ে দাড়িয়েছে। অসহায় জেলেরা ইলিশ শিকার নিষিদ্ধ সময়ে তাদের ঋণের কিস্তি আদায় বন্ধ রাখার দাবি জানিয়েছেন।

 

সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, ইলিশ শিকার নিষিদ্ধ সময়ে জেলেরা তেঁতুলিয়া নদীতে না নামতে পারলেও ঋণের কিস্তি থেকে রেহাই নেই জেলেদের। আর কিস্তি পরিশোধের জন্য বাধ্য হয়েই অনেক জেলে নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে মাছ শিকারে যাচ্ছেন জেলেরা। এতে সরকারের উদ্দেশ্য অনেকটাই ব্যর্থতায় পর্যবসিত হয়। সফল হচ্ছেনা মা ইলিশ শিকার সরকারের নিষেধদ্ধা। অবরোধের ২২ দিন ব্যাংক ও এনজিও থেকে নেয়া ঋণের কিস্তি আদায় বন্ধ রাখার দাবি জানিয়েছেন উপজেলার ভুক্তভোগী জেলেরা। উপজেলার বাশঁবাড়িয়া গ্রামের শাহআলম খা, ঢনঢনিয়া গ্রামের লাল মিয়াসহ একাধিক জেলে জানান, বিভিন্ন ব্যাংক ও এনজিও থেকে তারা ঋণ নেন। ঋণের টাকা দিয়ে জাল ও নৌকা তৈরি করেছে। মাছ বিক্রি করে ওই ঋণের টাকা পরিশোধ করা হয়। অবরোধের সময় জেলেরা চরম বেকার থাকেন।

 

উপজেলার ১০হাজার ১৭১জন জেলের মধ্যে অধিকাংশ জেলে পরিবারের সদস্যদের নিয়ে অর্ধাহারে-অনাহারে মানবেতর জীবনযাপন করেন। একদিকে অনাহারে অন্য দিকে ব্যাংক ও এনজিওর নেয়া ঋণের কিস্তি পরিশোধের চাপ এ দু’মিলিয়ে ভয়াবহ পরিস্থিতিতে দিন কাটাতে হয় তাদের। কিস্তি পরিশোধ করতে না পারলে চলে মানসিক নির্যাতন। তাই বাধ্য হয়ে জেলেরা মাছ শিকারে যায় নদীতে। দক্ষিন দাসপাড়া গ্রামের জেলে জাকির বলেন, সময় মত কিস্তি দিতে না পারলে আর ঋণ পাবো না। সুদ ও কিস্তির কারণে সংসারে অশাস্তি লেগে আছে। কাজেই অনিচ্ছায় হলেও বিকল্প কোনো পথ না থাকায় সরকারি আইন উপেক্ষা করে চরম ঝুঁকি নিয়ে নদীতে মাছ শিকারে নামেন। আর সেই মাছ বিক্রি করে ঋণের কিস্তি পরিশোধ করে থাকি।
স্থানীয়রা জানান, সরকারের উচিত এ সময়টায় জেলেদের কিস্তি পরিশোধের শর্ত শিথিল করে দেয়া। তারা যেনো কোনো হয়রানি ছাড়া ঋণ পান তার ব্যবস্থা করা।

 

বাঁশবাড়িয়া ইউপি চেয়ারম্যান আলতাব হোসেন আকন বলেন, অবরোধের ২২দিন জেলেদের ব্যাংক ও এনজিও থেকে নেয়া ঋন আদায় বন্ধ রাখা । এ সময় জেলেরা যাতে অভাবের তাড়নায় বাধ্য হয়ে মাছ শিকারে না নামেন সে দিকে সবার নজর রাখা উচিত। ক্ষুদ্র মৎস্যজীবী সমিতির উপজেলা সভাপতি মহাসিন জোমাদ্দার বলেন, অবরোধের দিগুলো উপজেলার জেলেই ধারদেনা, বসত বাড়ির গাছ বিক্রি ও দিনমজুরের কাজ করে সংসার চালান ও কিস্তির টাকা পরিশোধ করেন। তাই ব্যাংক ও এনজিও ঋণের কিস্তি আদায় বন্ধ রাখা উচিত। এ ব্যাপারে স্থানীয় এনজিও সমন্নয়কারী পিএম বাদল বলেন, যদি কেউ স্বেচ্ছায় ঋণের কিস্তি দেয় তারটাই নেয়া হবে। কারো সমস্যা হলে এ সময়ে কিস্তি বন্ধ রাখা হবে।

 

উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মাহাবুব আলম ঝান্টা জানান, ব্যাংক ও এনজিও থেকে জেলেদের নেয়া ঋণের টাকা পরিশোধের বিষয় তাদের কোনো হাত নেই। তবে মানবিক কারণে অবরোধের সময় ঋণের কিস্তি আদায় শিথিলযোগ্য করা হলে জেলেরা খুব উপকৃত হবেন। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শুভ্রা দাস এর সরকারি মোবাইলে (০১৭৩৩৩৩৪১৫১) ফোন দিলে রিসিভ না করার কারনে যোগাযোগ সম্ভব হয়নি।

 

 

সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে শেয়ার করুন

সর্বশেষ আপডেট



» ঝিনাইদহের স্থানীয় সকল রুটে বাস চলাচল বন্ধ, চরম ভোগান্তীতে যাত্রীরা

» ঝিনাইদহে আলোচিত স্কুলছাত্র সিফাত হত্যাকারীদের ফাঁসির দাবীতে মানববন্ধন

» হরিণাকুন্ডুতে ৯মামলার আসামি পুলিশের সাথে বন্দুকযুদ্ধে সন্ত্রাসী নিহত

» ইভটিজিংয়ের সাথে আমার পুত্র জড়িত নয় এমনটাই দাবী কওে পিতার সংবাদ সম্মেলন

» গলাচিপায় ৪ জন আহত হওয়ায়! থানায় ১১ জনের বিরুদ্ধে মামলা

» সাপাহারে তিলনা ইউনিয়ন আ’লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক হিসাবে সাংবাদিক হাফিজুলকে দেখতে চায় তিলনাবাসী

» আগৈলঝাড়া থানার উদ্যোগে বাল্য বিয়ে ও ইভটিজিং প্রতিরোধে সচেতনতা বিষয়ক আলোচনা সভা

» ঘুমের ওষুধ খেয়ে গুরুতর অসুস্থ হয়ে আইসিইউতে ভর্তি এমপি নুসরাত

» ইজিবাইকে দিনরাত কাটানো বাবা-মেয়েকে ঘর দিলেন ডিসি

» মাত্র ১৯ বছরেই ৩ হাজার ৩২৩ জন পুরুষের সঙ্গে

লাইক দিয়ে সংযুক্ত থাকুন

ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
সহ-সম্পাদক : নুরুজ্জামান কাফি
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com
Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
আজ মঙ্গলবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৯ খ্রিষ্টাব্দ, ৪ঠা অগ্রহায়ণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

নিষেধ উপেক্ষা করে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে দশমিনার নদীতে মাছ শিকারে

ইউটিউবে সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

সঞ্জয় ব্যানার্জী, দশমিনা (পটুয়াখালী) সংবাদদাতা।। পটুয়াখালী জেলার দশমিনার তেঁতুলিয়া নদীতে সরকারি নিষেধ উপেক্ষা করে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে মাছ শিকার করছে উপজেলার জেলেরা। ইলিশের প্রজনন মৌসুম নিরাপদ করতে চলতি মাসের ৩০তারিখ প্রযন্ত ২২ দিন মা ইলিশ শিকার, বহন, আহরন ও মজুত নিষিদ্ধ করেছে সরকার। এ সময় সারা দেশের মতো এ উপজেলার জেলেদের বিরত থাকার জন্য ভিজিএফ সহায়তা মাথাপিছু ২০ কেজি চাল দেয়া হয়। ভিজিএফ কর্মসূচির আওতায় এ চাল বিতরণ করা হলেও ব্যাংক ও এনজিও থেকে নেয়া ঋণের টাকা পরিশোধ করা জেলেদের ওপর ভয়াবহ বোঝা হয়ে দাড়িয়েছে। অসহায় জেলেরা ইলিশ শিকার নিষিদ্ধ সময়ে তাদের ঋণের কিস্তি আদায় বন্ধ রাখার দাবি জানিয়েছেন।

 

সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, ইলিশ শিকার নিষিদ্ধ সময়ে জেলেরা তেঁতুলিয়া নদীতে না নামতে পারলেও ঋণের কিস্তি থেকে রেহাই নেই জেলেদের। আর কিস্তি পরিশোধের জন্য বাধ্য হয়েই অনেক জেলে নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে মাছ শিকারে যাচ্ছেন জেলেরা। এতে সরকারের উদ্দেশ্য অনেকটাই ব্যর্থতায় পর্যবসিত হয়। সফল হচ্ছেনা মা ইলিশ শিকার সরকারের নিষেধদ্ধা। অবরোধের ২২ দিন ব্যাংক ও এনজিও থেকে নেয়া ঋণের কিস্তি আদায় বন্ধ রাখার দাবি জানিয়েছেন উপজেলার ভুক্তভোগী জেলেরা। উপজেলার বাশঁবাড়িয়া গ্রামের শাহআলম খা, ঢনঢনিয়া গ্রামের লাল মিয়াসহ একাধিক জেলে জানান, বিভিন্ন ব্যাংক ও এনজিও থেকে তারা ঋণ নেন। ঋণের টাকা দিয়ে জাল ও নৌকা তৈরি করেছে। মাছ বিক্রি করে ওই ঋণের টাকা পরিশোধ করা হয়। অবরোধের সময় জেলেরা চরম বেকার থাকেন।

 

উপজেলার ১০হাজার ১৭১জন জেলের মধ্যে অধিকাংশ জেলে পরিবারের সদস্যদের নিয়ে অর্ধাহারে-অনাহারে মানবেতর জীবনযাপন করেন। একদিকে অনাহারে অন্য দিকে ব্যাংক ও এনজিওর নেয়া ঋণের কিস্তি পরিশোধের চাপ এ দু’মিলিয়ে ভয়াবহ পরিস্থিতিতে দিন কাটাতে হয় তাদের। কিস্তি পরিশোধ করতে না পারলে চলে মানসিক নির্যাতন। তাই বাধ্য হয়ে জেলেরা মাছ শিকারে যায় নদীতে। দক্ষিন দাসপাড়া গ্রামের জেলে জাকির বলেন, সময় মত কিস্তি দিতে না পারলে আর ঋণ পাবো না। সুদ ও কিস্তির কারণে সংসারে অশাস্তি লেগে আছে। কাজেই অনিচ্ছায় হলেও বিকল্প কোনো পথ না থাকায় সরকারি আইন উপেক্ষা করে চরম ঝুঁকি নিয়ে নদীতে মাছ শিকারে নামেন। আর সেই মাছ বিক্রি করে ঋণের কিস্তি পরিশোধ করে থাকি।
স্থানীয়রা জানান, সরকারের উচিত এ সময়টায় জেলেদের কিস্তি পরিশোধের শর্ত শিথিল করে দেয়া। তারা যেনো কোনো হয়রানি ছাড়া ঋণ পান তার ব্যবস্থা করা।

 

বাঁশবাড়িয়া ইউপি চেয়ারম্যান আলতাব হোসেন আকন বলেন, অবরোধের ২২দিন জেলেদের ব্যাংক ও এনজিও থেকে নেয়া ঋন আদায় বন্ধ রাখা । এ সময় জেলেরা যাতে অভাবের তাড়নায় বাধ্য হয়ে মাছ শিকারে না নামেন সে দিকে সবার নজর রাখা উচিত। ক্ষুদ্র মৎস্যজীবী সমিতির উপজেলা সভাপতি মহাসিন জোমাদ্দার বলেন, অবরোধের দিগুলো উপজেলার জেলেই ধারদেনা, বসত বাড়ির গাছ বিক্রি ও দিনমজুরের কাজ করে সংসার চালান ও কিস্তির টাকা পরিশোধ করেন। তাই ব্যাংক ও এনজিও ঋণের কিস্তি আদায় বন্ধ রাখা উচিত। এ ব্যাপারে স্থানীয় এনজিও সমন্নয়কারী পিএম বাদল বলেন, যদি কেউ স্বেচ্ছায় ঋণের কিস্তি দেয় তারটাই নেয়া হবে। কারো সমস্যা হলে এ সময়ে কিস্তি বন্ধ রাখা হবে।

 

উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মাহাবুব আলম ঝান্টা জানান, ব্যাংক ও এনজিও থেকে জেলেদের নেয়া ঋণের টাকা পরিশোধের বিষয় তাদের কোনো হাত নেই। তবে মানবিক কারণে অবরোধের সময় ঋণের কিস্তি আদায় শিথিলযোগ্য করা হলে জেলেরা খুব উপকৃত হবেন। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শুভ্রা দাস এর সরকারি মোবাইলে (০১৭৩৩৩৩৪১৫১) ফোন দিলে রিসিভ না করার কারনে যোগাযোগ সম্ভব হয়নি।

 

 

সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে শেয়ার করুন

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



Click Here

সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



About Us | Privacy Policy | Terms & Conditions | Contact Us | Sitemap
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
সহ-সম্পাদক : নুরুজ্জামান কাফি
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com

© Copyright BY KuakataNews.Com

Design & Developed BY PopularITLimited