মৌলভীবাজারে মফিজ আলীর ১১তম মৃত্যুবার্ষিকী পালিত

মশাহিদ আহমদ, মৌলভীবাজার: বাংলাদেশ ট্রেড ইউনিয়ন সংঘ কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক সহ-সভাপতি, জেলা কমিটির সাবেক সভাপতি, জাতীয় গণতান্ত্রিক ফ্রন্ট-এনডিএফ সাবেক কেন্দ্রীয় নেতা, সাম্রাজ্যবাদ সামন্তবাদ বিরোধী নেতা, ভাষা আন্দোলনের অন্যতম সংগঠক, প্রখ্যাত চা-শ্রমিক নেতা মফিজ আলী-এর ১১-তম মৃত্যুবার্ষিকী পালন করা হয়েছে আজ ১০ অক্টোবর । এ উপলক্ষে বাংলাদেশ ট্রেড ইউনিয়ন সংঘ মৌলভীবাজার জেলা কমিটির উদ্যোগে বিভিন্ন কর্মসূচির মাধ্যমে পালন করা হয়। সকাল ১০ টার সময় বাংলাদেশ ট্রেড ইউনিয়ন সংঘ, জাতীয় গণতান্ত্রিক ফ্রন্ট, বাংলাদেশ কৃষক সংগ্রাম সমিতি, ধ্রুবতারা সাংস্কৃতিক সংসদ, গণতান্ত্রিক মহিলা সমিতি, হোটেল শ্রমিক ইউনিয়ন, চা শ্রমিক সংঘ, রিকশা শ্রমিক ইউনিয়ন ও স’মিল শ্রমিক সংঘসহ বিভিন্ন সংগঠন ও ব্যক্তিবর্গের পক্ষ থেকে কমলগঞ্জ উপজেলার শ্রীসূর্য-ধূপাটিলাস্থ প্রয়াত নেতার সমাধিতে পুস্পস্তবক অর্পণ এবং প্রয়াত নেতার অসমাপ্ত কাজকে অগ্রসর করে নিয়ে যাওয়ার প্রত্যয়ে শপথ গ্রহণ করা হয়।

 

পরে স্থানীয় মাঠে বাংলাদেশ ট্রেড ইউনিয়ন সংঘ মৌলভীবাজার জেলা কমিটির উদ্যোগে এক আলোচনা সভা অনুষ্টিত হয়। সংগঠনের জেলা সভাপতি মোঃ নুরুল মোহাইমীনের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক রজত বিশ্বাসের পরিচালনায় অনুষ্টিত আলোচনা সভায় অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন- জাতীয় গণতান্ত্রিক ফ্রন্ট মৌলভীবাজার জেলা কমিটির সভাপতি কবি শহীদ সাগ্নিক, প্রয়াত নেতার অনুজ রেজাউল করিম, পতনঊষার ইউনিয়ন প্যানেল চেয়ারম্যান নারায়ন মল্লিক সাগর, বিশিষ্ট বাম রাজনীতিবিদ ও সাংবাদিক ডা. আব্দুল হান্নান চিনু, বাংলাদেশ কৃষক সংগ্রাম সমিতি মৌলভীবাজার জেলা কমিটির আহবায়ক ডা. অবনী শর্ম্মা, বাংলাদেশ স’মিল শ্রমিক ফেডারেশন রেজি নং বি-২২০০ এর কেন্দ্রীয় সহ-সাধারণ সম্পাদক রুহুল আমিন, ধ্রুবতারা সাংস্কৃতিক সংসদ মৌলভীবাজার জেলা কমিটির সম্পাদক অমলেশ শর্ম্মা ।

 

আলোচনা সভার শুরুতে প্রয়াত নেতার স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে দাড়িয়ে এক মিনিট নিরবতা পালন করা হয়। বক্তব্য রাখেন-বাংলাদেশ কৃষক সংগ্রাম সমিতি মৌলভীবাজার জেলা কমিটির অন্যতম নেতা রমজান আলী পাখি, গণতাান্ত্রিক মহিলা সমিতি মৌলভীবাজার জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক আম্বিয়া বেগম, হোটেল শ্রমিক ইউনিয়নের জেলা সভাপতি মোঃ মোস্তফা কামাল, রিকশা শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক মোঃ দুলাল মিয়া, চা শ্রমিক সংঘের যুগ্ম-আহবায়ক হরি নারায়ন হাজরা, স’মিল শ্রমিক সংঘ কমলগঞ্জ উপজেলা শাখার সভাপতি মোঃ ফরিদ মিয়া, হোটেল শ্রমিক ইউনিয়ন কুলাউড়া উপজেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক আশিক খান ও শেরপুর আঞ্চলিক কমিটির সহ-সভাপতি মোঃ ইকবাল হোসেন, রিকশা শ্রমিক ইউনিয়ন কুলাউড়া উপজেলা কমিটির সভাপতি মোঃ ইসলাম উদ্দিন আকাশ ও কোদালীপুল আঞ্চলিক কমিটির সভাপতি মোঃ জসিম উদ্দিন প্রমূখ। সভায় বক্তারা প্রয়াত নেতার অসমাপ্ত কাজ শোষণহীণ সমাজ প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে বৃহত্তর আন্দোলন সংগ্রাম গড়ে তোলার দৃপ্ত অঙ্গীকার ব্যক্ত করে বলেন মফিজ আলীর জীবন ও সংগ্রাম নতুন প্রজন্মের কাছে অনুকরণীয়।

 

সংগ্রামী এই জননেতা ১৯২৭ সালের ১০ ডিসেম্বর মৌলভীবাজার জেলার কমলগঞ্জ উপজেলা শ্রীসূর্য-ধূপাটিলা গ্রামে জন্ম গ্রহণ করেন। দীর্ঘ ৬০ বছরের বেশি রাজনৈতিক জীবনে তিনি ছাত্র আন্দোলন, ভাষা আন্দোলন, ৬৯-এর গণ আন্দোলন, চা শ্রমিক আন্দোলন, বালিশিরা কৃষক আন্দোলনসহ বিভিন্ন গণতান্ত্রিক আন্দোলন সংগ্রামে নেতৃত্ব প্রদান করেন। তিনি বৃটিশ আমল, পাকিস্তান আমল ও বাংলাদেশ আমলে মোট ৭ বার কারাবরণ করেন। মার্কসবাদ-লেনিনবাদের আদর্শে বিশ্বাসী সাম্রাজবাদ সামন্তবাদ বিরোধীনেতা মফিজ আলী জননেতা হিসেবে শোষিত নির্যাতিত শ্রমিক কৃষক মেহনতি মানুষের মুক্তির লক্ষ্যে যেমন নিরলস সংগ্রাম করে গেছেন তেমনি তাঁর ক্ষুরধার লেখনীর মাধ্যমে সংশোধনবাদ, সুবিধাবাদীদের মুখোশ উন্মোচন করেছেন। তিনি ইংরেজি ডন, সংবাদ, ইত্তেফাক, সাপ্তাহিক জনতা, লালবার্তা প্রভৃতি পত্রিকায় লেখালেখি করতেন। তিনি গণতন্ত্রের নির্ভীক মূখপত্র সাপ্তাহিক সেবা পত্রিকায় মৃত্যুর পূর্ব পর্যন্ত ধারাবাহিকভাবে লেখেছেন। ২০০৮ সালে ১০ অক্টোবর সংগ্রামী এই জননেতা ৮১ বছর বয়সে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। বক্তারা আরও বলেন বাংলাদেশের শিল্প সেক্টরগুলোর মধ্যে সবচেয়ে কম মজুরি দেওয়া হয় চা-শ্রমিকদের, দৈনিক ১০২ টাকা হিসেবে মাসিক মাত্র ৩০৬০ টাকা। ২০১০ সালে সর্বশেষ চা-সেক্টরে মজুরি বোর্ড কর্তৃক মজুরি ঘোষণার পর এ পর্যন্ত আর কোন মজুরি বোর্ড গঠিত হয়নি।

 

অথচ পাঁচ বছর পর নতুন মজুরি বোর্ড হওয়ার নিয়ম থাকলেও প্রায় ১০ বছর মজুরি বোর্ড গঠন না হয়নি। চা-শ্রমিকের রক্ত ঘাম করা পরিশ্রমে রেকর্ডের পর রেকর্ড চা-উৎপাদন হচ্ছে, স্বাভাবিক কারণে মালিকের মুনাফাও ক্রমাগত বৃদ্ধি পাচ্ছে। কিন্তু মানবেতর জীবনযাপন করা শ্রমিকদের জন্য বাজারদরের সাথে সংগতি রেখে ন্যায্য মজুরির প্রদান করা হয় না। এর কারণ হচ্ছে মালিকগোষ্ঠি ও দালাল শ্রমিক নেতাদের অশুভ আতাত। তদোপরি শ্রমআইন অনুযায়ী মজুরিসহ সাপ্তাহিক ছুটি সকল শ্রমিকের প্রাপ্য হলেও দালাল নেতারা বেআইনী শর্তযুক্ত চুক্তির মাধ্যমে শ্রমিকদের অধিকার হরণ করেছে। একই ভাবে শ্রমআইন ও শ্রমবিধি অনুযায়ী উৎসব বোনাস পাওয়া সকল স্থায়ী শ্রমিকের আইনগত অধিকার হলেও চুক্তিতে কর্মে উপস্থিতির উপর নির্ভর করে উৎসাহ বোনাসকে উৎসব বোনাস হিসেবে চালিয়ে শ্রমিকদের হক কেড়ে নিয়ে মালিকের স্বার্থরক্ষা করা হয়েছে। মজুরি নির্ধারণের ক্ষেত্রে বাজারদরের সাথে সংগতি রেখে ৬ সদস্যের একজন শ্রমিক পরিবারের নি¤œতম মূল মজুরি ২০ হাজার টাকা অপরিহার্য। এর সাথে শিক্ষা, চিকিৎসা, পোষাক, বিনোদন ইত্যাদি খরচ যুক্ত হবে। এই হিসেবে মাসিক ২০ হাজার টাকা মূল মুজরি হিসেবে দৈনিক ৬৭০ টাকা মজুরি হওয়া দরকার।

 

আলোচনা সভা থেকে সাম্রাজ্যবাদী পরিকল্পনায় উপকূলে সার্বক্ষণিক মনিটরিং ব্যবস্থা, চট্টগ্রাম ও মংলা বন্দর ব্যবহার, ফেনী নদী পানি প্রদানসহ ভারতের সাথে সম্পাদিত জাতীয় স্বার্থবিরোধী চুক্তি বাতিল, রূপপুর পারমানবিক বিদ্যুৎ ও রামপাল কয়লা ভিত্তিক বিদ্যুৎ প্রকল্পসহ সাম্রাজ্যবাদী দেশ ও সংস্থা সমূহের সাথে সম্পাদিত জাতীয় ও জনস্বার্থ বিরোধী সকল চুক্তি বাতিল, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনসহ সকল কালাকানুন বাতিল, চাল ডাল, তেল, লবন, পিয়াজসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্যে কমানো, গ্যাস-বিদ্যুতের দফায় দফায় মূল্যবৃদ্ধির পরিকল্পনা প্রত্যাহার, হোটেল-রেস্টুরেন্ট, স’মিল, দর্জি, প্রেসসহ সকল শ্রমিক-কর্মচারিদের জন্য বাজারদরের সাথে সংগতি রেখে ২০ হাজার টাকা মূল মজুরি নির্ধারণ, চা-শ্রমিকদের দৈনিক মজুরি ৬৭০ টাকা ও গণতান্ত্রিক শ্রমআইন প্রণয়ন, ভূমিহীন দরিদ্র কৃষকের হাতে জমি ও কাজ, কৃষি উৎপাদনের খরচ কমানো এবং ফসলের ন্যায্যমূল্য, সার, ডিজেল. কীটনাশকের দাম কমানোর দাবিতে প্রয়াত মফিজ আলীর জীবন থেকে শিক্ষা নিয়ে দুর্বার আন্দোলন গড়ে তোলার আহ্বান জানান।

 

 

সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে শেয়ার করুন

সর্বশেষ আপডেট



» অবশেষে আটক: গাছ কাটা নিয়ে বোল পাল্টালেন সেই নারী (ভিডিওসহ)

» পর্যটন কেন্দ্র কুয়াকাটায় জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস পালিত

» রাস মোল ও গঙ্গাস্নান উৎযাপন উপলক্ষে কলাপাড়ায় প্রস্তুতি মুলক সভা

» নবীগঞ্জের ইনাতগঞ্জে সিএনজি চালক মামুনের হত্যাকারীর ফাঁসির দাবিতে মানববন্ধ

» “নীম পাতার” জাদুকরী উপকারিতা: মালয়েশিয়া হয়ে গেলো বিশেষ অনুষ্ঠান

» চট্টগ্রামে যুবককে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগে পুলিশের এসআই আটক

» সোনার চর হতে পারে পর্যটন স্পট

» নিরাপদ সড়ক দিবস উপলক্ষে দেশের সকল সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ব্যক্তিদের স্মরণে শ্রদ্ধাঞ্জলি প্রদান অনুষ্ঠিত হয়

» বেনাপোল ট্রান্সপোর্ট মালিক সমিতি’র সাধারন সম্পাদককের বাড়িতে বোমা হামলার প্রতিবাদে মানববন্ধন

» প্রাইভেট পড়ানোর সময় ছাত্রীকে একা পেয়ে শিক্ষকের কাণ্ড

লাইক দিয়ে সংযুক্ত থাকুন

ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
সহ-সম্পাদক : নুরুজ্জামান কাফি
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com
Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
আজ বুধবার, ২৩ অক্টোবর ২০১৯ খ্রিষ্টাব্দ, ৭ই কার্তিক ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

মৌলভীবাজারে মফিজ আলীর ১১তম মৃত্যুবার্ষিকী পালিত

ইউটিউবে সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

মশাহিদ আহমদ, মৌলভীবাজার: বাংলাদেশ ট্রেড ইউনিয়ন সংঘ কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক সহ-সভাপতি, জেলা কমিটির সাবেক সভাপতি, জাতীয় গণতান্ত্রিক ফ্রন্ট-এনডিএফ সাবেক কেন্দ্রীয় নেতা, সাম্রাজ্যবাদ সামন্তবাদ বিরোধী নেতা, ভাষা আন্দোলনের অন্যতম সংগঠক, প্রখ্যাত চা-শ্রমিক নেতা মফিজ আলী-এর ১১-তম মৃত্যুবার্ষিকী পালন করা হয়েছে আজ ১০ অক্টোবর । এ উপলক্ষে বাংলাদেশ ট্রেড ইউনিয়ন সংঘ মৌলভীবাজার জেলা কমিটির উদ্যোগে বিভিন্ন কর্মসূচির মাধ্যমে পালন করা হয়। সকাল ১০ টার সময় বাংলাদেশ ট্রেড ইউনিয়ন সংঘ, জাতীয় গণতান্ত্রিক ফ্রন্ট, বাংলাদেশ কৃষক সংগ্রাম সমিতি, ধ্রুবতারা সাংস্কৃতিক সংসদ, গণতান্ত্রিক মহিলা সমিতি, হোটেল শ্রমিক ইউনিয়ন, চা শ্রমিক সংঘ, রিকশা শ্রমিক ইউনিয়ন ও স’মিল শ্রমিক সংঘসহ বিভিন্ন সংগঠন ও ব্যক্তিবর্গের পক্ষ থেকে কমলগঞ্জ উপজেলার শ্রীসূর্য-ধূপাটিলাস্থ প্রয়াত নেতার সমাধিতে পুস্পস্তবক অর্পণ এবং প্রয়াত নেতার অসমাপ্ত কাজকে অগ্রসর করে নিয়ে যাওয়ার প্রত্যয়ে শপথ গ্রহণ করা হয়।

 

পরে স্থানীয় মাঠে বাংলাদেশ ট্রেড ইউনিয়ন সংঘ মৌলভীবাজার জেলা কমিটির উদ্যোগে এক আলোচনা সভা অনুষ্টিত হয়। সংগঠনের জেলা সভাপতি মোঃ নুরুল মোহাইমীনের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক রজত বিশ্বাসের পরিচালনায় অনুষ্টিত আলোচনা সভায় অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন- জাতীয় গণতান্ত্রিক ফ্রন্ট মৌলভীবাজার জেলা কমিটির সভাপতি কবি শহীদ সাগ্নিক, প্রয়াত নেতার অনুজ রেজাউল করিম, পতনঊষার ইউনিয়ন প্যানেল চেয়ারম্যান নারায়ন মল্লিক সাগর, বিশিষ্ট বাম রাজনীতিবিদ ও সাংবাদিক ডা. আব্দুল হান্নান চিনু, বাংলাদেশ কৃষক সংগ্রাম সমিতি মৌলভীবাজার জেলা কমিটির আহবায়ক ডা. অবনী শর্ম্মা, বাংলাদেশ স’মিল শ্রমিক ফেডারেশন রেজি নং বি-২২০০ এর কেন্দ্রীয় সহ-সাধারণ সম্পাদক রুহুল আমিন, ধ্রুবতারা সাংস্কৃতিক সংসদ মৌলভীবাজার জেলা কমিটির সম্পাদক অমলেশ শর্ম্মা ।

 

আলোচনা সভার শুরুতে প্রয়াত নেতার স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে দাড়িয়ে এক মিনিট নিরবতা পালন করা হয়। বক্তব্য রাখেন-বাংলাদেশ কৃষক সংগ্রাম সমিতি মৌলভীবাজার জেলা কমিটির অন্যতম নেতা রমজান আলী পাখি, গণতাান্ত্রিক মহিলা সমিতি মৌলভীবাজার জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক আম্বিয়া বেগম, হোটেল শ্রমিক ইউনিয়নের জেলা সভাপতি মোঃ মোস্তফা কামাল, রিকশা শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক মোঃ দুলাল মিয়া, চা শ্রমিক সংঘের যুগ্ম-আহবায়ক হরি নারায়ন হাজরা, স’মিল শ্রমিক সংঘ কমলগঞ্জ উপজেলা শাখার সভাপতি মোঃ ফরিদ মিয়া, হোটেল শ্রমিক ইউনিয়ন কুলাউড়া উপজেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক আশিক খান ও শেরপুর আঞ্চলিক কমিটির সহ-সভাপতি মোঃ ইকবাল হোসেন, রিকশা শ্রমিক ইউনিয়ন কুলাউড়া উপজেলা কমিটির সভাপতি মোঃ ইসলাম উদ্দিন আকাশ ও কোদালীপুল আঞ্চলিক কমিটির সভাপতি মোঃ জসিম উদ্দিন প্রমূখ। সভায় বক্তারা প্রয়াত নেতার অসমাপ্ত কাজ শোষণহীণ সমাজ প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে বৃহত্তর আন্দোলন সংগ্রাম গড়ে তোলার দৃপ্ত অঙ্গীকার ব্যক্ত করে বলেন মফিজ আলীর জীবন ও সংগ্রাম নতুন প্রজন্মের কাছে অনুকরণীয়।

 

সংগ্রামী এই জননেতা ১৯২৭ সালের ১০ ডিসেম্বর মৌলভীবাজার জেলার কমলগঞ্জ উপজেলা শ্রীসূর্য-ধূপাটিলা গ্রামে জন্ম গ্রহণ করেন। দীর্ঘ ৬০ বছরের বেশি রাজনৈতিক জীবনে তিনি ছাত্র আন্দোলন, ভাষা আন্দোলন, ৬৯-এর গণ আন্দোলন, চা শ্রমিক আন্দোলন, বালিশিরা কৃষক আন্দোলনসহ বিভিন্ন গণতান্ত্রিক আন্দোলন সংগ্রামে নেতৃত্ব প্রদান করেন। তিনি বৃটিশ আমল, পাকিস্তান আমল ও বাংলাদেশ আমলে মোট ৭ বার কারাবরণ করেন। মার্কসবাদ-লেনিনবাদের আদর্শে বিশ্বাসী সাম্রাজবাদ সামন্তবাদ বিরোধীনেতা মফিজ আলী জননেতা হিসেবে শোষিত নির্যাতিত শ্রমিক কৃষক মেহনতি মানুষের মুক্তির লক্ষ্যে যেমন নিরলস সংগ্রাম করে গেছেন তেমনি তাঁর ক্ষুরধার লেখনীর মাধ্যমে সংশোধনবাদ, সুবিধাবাদীদের মুখোশ উন্মোচন করেছেন। তিনি ইংরেজি ডন, সংবাদ, ইত্তেফাক, সাপ্তাহিক জনতা, লালবার্তা প্রভৃতি পত্রিকায় লেখালেখি করতেন। তিনি গণতন্ত্রের নির্ভীক মূখপত্র সাপ্তাহিক সেবা পত্রিকায় মৃত্যুর পূর্ব পর্যন্ত ধারাবাহিকভাবে লেখেছেন। ২০০৮ সালে ১০ অক্টোবর সংগ্রামী এই জননেতা ৮১ বছর বয়সে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। বক্তারা আরও বলেন বাংলাদেশের শিল্প সেক্টরগুলোর মধ্যে সবচেয়ে কম মজুরি দেওয়া হয় চা-শ্রমিকদের, দৈনিক ১০২ টাকা হিসেবে মাসিক মাত্র ৩০৬০ টাকা। ২০১০ সালে সর্বশেষ চা-সেক্টরে মজুরি বোর্ড কর্তৃক মজুরি ঘোষণার পর এ পর্যন্ত আর কোন মজুরি বোর্ড গঠিত হয়নি।

 

অথচ পাঁচ বছর পর নতুন মজুরি বোর্ড হওয়ার নিয়ম থাকলেও প্রায় ১০ বছর মজুরি বোর্ড গঠন না হয়নি। চা-শ্রমিকের রক্ত ঘাম করা পরিশ্রমে রেকর্ডের পর রেকর্ড চা-উৎপাদন হচ্ছে, স্বাভাবিক কারণে মালিকের মুনাফাও ক্রমাগত বৃদ্ধি পাচ্ছে। কিন্তু মানবেতর জীবনযাপন করা শ্রমিকদের জন্য বাজারদরের সাথে সংগতি রেখে ন্যায্য মজুরির প্রদান করা হয় না। এর কারণ হচ্ছে মালিকগোষ্ঠি ও দালাল শ্রমিক নেতাদের অশুভ আতাত। তদোপরি শ্রমআইন অনুযায়ী মজুরিসহ সাপ্তাহিক ছুটি সকল শ্রমিকের প্রাপ্য হলেও দালাল নেতারা বেআইনী শর্তযুক্ত চুক্তির মাধ্যমে শ্রমিকদের অধিকার হরণ করেছে। একই ভাবে শ্রমআইন ও শ্রমবিধি অনুযায়ী উৎসব বোনাস পাওয়া সকল স্থায়ী শ্রমিকের আইনগত অধিকার হলেও চুক্তিতে কর্মে উপস্থিতির উপর নির্ভর করে উৎসাহ বোনাসকে উৎসব বোনাস হিসেবে চালিয়ে শ্রমিকদের হক কেড়ে নিয়ে মালিকের স্বার্থরক্ষা করা হয়েছে। মজুরি নির্ধারণের ক্ষেত্রে বাজারদরের সাথে সংগতি রেখে ৬ সদস্যের একজন শ্রমিক পরিবারের নি¤œতম মূল মজুরি ২০ হাজার টাকা অপরিহার্য। এর সাথে শিক্ষা, চিকিৎসা, পোষাক, বিনোদন ইত্যাদি খরচ যুক্ত হবে। এই হিসেবে মাসিক ২০ হাজার টাকা মূল মুজরি হিসেবে দৈনিক ৬৭০ টাকা মজুরি হওয়া দরকার।

 

আলোচনা সভা থেকে সাম্রাজ্যবাদী পরিকল্পনায় উপকূলে সার্বক্ষণিক মনিটরিং ব্যবস্থা, চট্টগ্রাম ও মংলা বন্দর ব্যবহার, ফেনী নদী পানি প্রদানসহ ভারতের সাথে সম্পাদিত জাতীয় স্বার্থবিরোধী চুক্তি বাতিল, রূপপুর পারমানবিক বিদ্যুৎ ও রামপাল কয়লা ভিত্তিক বিদ্যুৎ প্রকল্পসহ সাম্রাজ্যবাদী দেশ ও সংস্থা সমূহের সাথে সম্পাদিত জাতীয় ও জনস্বার্থ বিরোধী সকল চুক্তি বাতিল, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনসহ সকল কালাকানুন বাতিল, চাল ডাল, তেল, লবন, পিয়াজসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্যে কমানো, গ্যাস-বিদ্যুতের দফায় দফায় মূল্যবৃদ্ধির পরিকল্পনা প্রত্যাহার, হোটেল-রেস্টুরেন্ট, স’মিল, দর্জি, প্রেসসহ সকল শ্রমিক-কর্মচারিদের জন্য বাজারদরের সাথে সংগতি রেখে ২০ হাজার টাকা মূল মজুরি নির্ধারণ, চা-শ্রমিকদের দৈনিক মজুরি ৬৭০ টাকা ও গণতান্ত্রিক শ্রমআইন প্রণয়ন, ভূমিহীন দরিদ্র কৃষকের হাতে জমি ও কাজ, কৃষি উৎপাদনের খরচ কমানো এবং ফসলের ন্যায্যমূল্য, সার, ডিজেল. কীটনাশকের দাম কমানোর দাবিতে প্রয়াত মফিজ আলীর জীবন থেকে শিক্ষা নিয়ে দুর্বার আন্দোলন গড়ে তোলার আহ্বান জানান।

 

 

সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে শেয়ার করুন

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



Click Here

সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



About Us | Privacy Policy | Terms & Conditions | Contact Us | Sitemap
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
সহ-সম্পাদক : নুরুজ্জামান কাফি
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com

© Copyright BY KuakataNews.Com

Design & Developed BY PopularITLimited