কুলাউড়ায় রহস্যে গেড়া রনির মৃত্যু

মশাহিদ আহমদ, মৌলভীবাজার: মৌলভীবাজার কুলাউড়া উপজেলার টিলাগাঁও বাজারের ফরহাদ ট্রেডার্সের কর্মচারী রনি শর্মার মৃত্যু রহস্যজনক। দোকান মালিক ফরহাদ তার অবৈধ হুন্ডি ব্যবসা ও রনির শেয়ারের অংশ ধামাচাপা দিতে গিয়ে তাকে নির্মম ভাবে পিটিয়ে হত্যা করেছে বলে তার পরিবার অভিযোগ। রনির মৃত্যুর পূর্বেও ঘটনা ও তার শারিরিক আঘাতের চিহ্ন দেখে তার মৃর্ত্যুর বিষয় অস্বাভাবিক মনে হয়েছে তার পরিবারের নিকট।

 

এই মৃত্যুকে স্বাবাভিক ভাবে মেনে নিতে পারছে না পরিবার-সহ এলাকাবাসী। এ ঘটনায় রনির পিতা রঞ্জিত শর্মা গত ৮আগষ্ট মৌলভীবাজার ম্যাজিট্রেট আদালতে ফরহাদ ট্রেডার্সের মালিক ফারহাদুল হক(৪৫) তার ভাই এমদাদুল হক(৩৫) লিটন হক(৩৩) ফরহাদের স্ত্রী শারমিন হকের বিরুদ্ধে একটি হত্যা মামালা দায়ের করেন। এলাকাবাসী ও মৃত রনি শর্মা পরিবার সূত্রে জানাযায়, রনি শর্মা দীর্ঘ আট বছর ধরে ফরহাদ ট্রেডার্সে চাকুরী করত। প্রথম চার বছর ভালো ভাবে চললেও পরবর্তীতে তাকে দোকানের পাটনার্র করার প্রলোভন দিয়ে ধাপে ধাপে ৫লাখ ৪৫হাজার টাকা হাতিয়ে নেয়। বিভিন্ন চল চাতুরীর মাধ্যমে থাকে জিম্মি করে রাখে। একদিন দোকান থেকে ২৫হাজার টাকা চুরি হয়ে গিয়েছে বলে তাকে মারধর করে। এই টাকার জন্য রনিকে দায়ী করে বাড়ি থেকে টাকা আনাতে বাধ্য করে।

 

একবার হুন্ডির ব্যবসায় ১লাখ ২৫হাজার টাকা ছিনতাই হয়ে গেলে রনি শর্মাকে এই টাকা দেওয়ার জন্য বাধ্য করে। তার নির্যাতনে রনি শর্মার পিতা কয়েকবার থাকে দোকান থেকে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে ফরহাদ থাকে দোকানের হিসাব নিকাশ ও বাকী টাকার অযুহাত দেখিয়ে রনিকে আটকিয়ে রাখে। সম্প্রতি ফরহাদের নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে তার ব্যবসার পাটর্না লাভ সহ টাকা ফেরৎ চাওয়ায় এবং অবৈধ ব্যবসা সহ হুন্ডির ব্যবসার তথ্য ফাঁস হয়ে যাওয়ার ভয়ে রনিকে পরিকল্পিত ভাবে শারিরীক নির্যাতন করে হত্যা করা হয়েছে। উল্লেখ্য গত ২আগষ্ট শুক্রবার কুলাউড়া উপজেলার টিলাগাঁও বাজারের ফরহাদ ট্রেডার্সের কর্মচারী রনি শর্মাকে মুমুর্ষ অবস্থায় কুলাউড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায় কিছু লোকেরা। এ সময় কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষনা করেন। এ সময় রনির মাথার পিছনে গভীর ক্ষত হাতের আঙ্গুল গুলো ছিলো থেতলানো। নাক মুখ দিয়ে রক্ত ঝরছিলো। এ ঘটনায় কুলাউড়া থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের হয়। রনির পিতা রঞ্জিত শর্মা জানান, র্দীঘ আট বছর যাবৎ তার ছেলে ফরহাদের দোকানে চাকুরী করছিলো।

 

প্রথম চার বছর সাড়ে চার হাজার টাকা বেতন দিলেও পরবর্তীতে থাকে দোকানের শেয়ার করবে বলে ধাপে ধাপে জমি বিক্রি করে সাড়ে ৫লাখ টাকা দেন। টাকা দেওয়ার সময় স্বাক্ষ্যী ছিলো এলাকার আব্দুল জলিল ও রনিকে ফরহাদের দোকানে চাকুরীতে নিয়ে দিয়েছিল অধীর চন্দ্র দেবনাথ। ফরহাদের ট্রেডার্স ব্যবসার পাশা পাশি বিভিন্ন ব্যাংকি ব্যবসা শুরু করে। এই ব্যবসার আড়ালে সে অবৈধ হুন্ডির ব্যবসা চালিয়ে যায়। বিভিন্ন সময় টাকা চুরি হয়ে যাওয়ার অযুহাত দেখিয়ে তার ছেলেকে শারিরীক নির্যাতন করত। তিনি এই সমস্থ কারনে দোকান থেকে সরিয়ে নেওয়ার জন্য চেষ্টা করেছিলেন। কিন্তু ফরহাদ তার ছেলেকে ছেড়ে দিতে চায়নি। এ কারণে তিনি ফরহাদের উপর মামলা করার প্রস্তুতি নিয়ে ছিলেন। সেই সময় আব্দুল জলিল. অধীর চন্দ্র দেবনাথ থাকে বুঝিয়ে মামলা থেকে বিরত করান।

 

নিহত রনি শর্মার ভাই পার্থ শর্মা অভিযোগ করে বলেন, দোকানের মালিক ফরহাদ প্রায় দিন দোকানে টাকার ঘার্তি দেখিয়ে তাকে শারিরীক ভাবে নির্যাতন করত। মৃত্যুও দিন রনির মাথায় আঘাতে চিহ্ন ছিলো। নাক দিয়ে রক্ত বাহির হচ্ছিলো। দু হাতের আঙ্গুল থেতলানো ছিলো। এ মৃত্যুর সঠিক তদন্তের দাবী জানান পার্থ শর্মা। পাশের বাড়ির হাফিজুল নেছা(৪৫) জানান, রনি খুব শান্ত প্রকৃতির ছেলে। তার উপর দোকান মালিক শারিরীক নির্যাতন ও শরিলে আঘাতের চিহ্ন তার মৃত্যুর ঘটনা স্বাভাবিক নয়। এটা একটি পরিকল্পিত হত্যা।

 

ঐ দিন শিওর ক্যাশ থেকে টাকা তুলতে আশা আলী আমজদ উচ্চ বিদ্যালয় এন্ড কলেজের একাদশ শ্রেণীর শিক্ষার্থী নিশা বলেন, আমি উপবৃত্তির টাকা তুলতে দোকানে গিয়েছি। তখন রনি ভাই মাথা টেবিলের উপর রেখে চেয়ারে বসে আছেন। এই সময় হাতের আঙ্গুল দিয়ে রক্ত ঝড়ছে দেখেছি। আর বলেছেন উনি মোবাইলের বাটন টিপতে পারবেন না। এই কথা শুনার পর আমরা চলে আসি।

 

 

সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে শেয়ার করুন

সর্বশেষ আপডেট



» এস এ গেমস আর্চারিতে দশে দশ বাংলাদেশ

» দশমিনায় দূর্নীতি বিরোধী মানববন্ধন ও সভা অনুষ্ঠিত

» জরাজীর্ণ বসতঘরে জীবন-যাপন দশমিনায় মিনারা’র

» যশোরের বেনাপোলে আন্তর্জাতিক দুর্নীতি বিরোধী দিসব-২০১৯ উদযাপন

» যুদ্ধাপরাধীদের রাজনীতিতে পুনর্বাসনকারীদের বিচারের আওতায় আনার দাবিতে সমাবেশ ও মানববন্ধন

» বিপিএলের শুভ উদ্বোধন ঘোষণা করলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

» জমকালো আয়োজনে অনুষ্ঠিত হলো জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার

» ডাকসু ভিপি নুরের পদত্যাগ চায় ছাত্রলীগের ২৩ নেতা

» গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে রুম্পার কথিত প্রেমিককে

» প্রধানমন্ত্রী আজ জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার প্রদান করবেন

লাইক দিয়ে সংযুক্ত থাকুন

ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
সহ-সম্পাদক : নুরুজ্জামান কাফি
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com
Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
আজ মঙ্গলবার, ১০ ডিসেম্বর ২০১৯ খ্রিষ্টাব্দ, ২৫শে অগ্রহায়ণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

কুলাউড়ায় রহস্যে গেড়া রনির মৃত্যু

ইউটিউবে সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

মশাহিদ আহমদ, মৌলভীবাজার: মৌলভীবাজার কুলাউড়া উপজেলার টিলাগাঁও বাজারের ফরহাদ ট্রেডার্সের কর্মচারী রনি শর্মার মৃত্যু রহস্যজনক। দোকান মালিক ফরহাদ তার অবৈধ হুন্ডি ব্যবসা ও রনির শেয়ারের অংশ ধামাচাপা দিতে গিয়ে তাকে নির্মম ভাবে পিটিয়ে হত্যা করেছে বলে তার পরিবার অভিযোগ। রনির মৃত্যুর পূর্বেও ঘটনা ও তার শারিরিক আঘাতের চিহ্ন দেখে তার মৃর্ত্যুর বিষয় অস্বাভাবিক মনে হয়েছে তার পরিবারের নিকট।

 

এই মৃত্যুকে স্বাবাভিক ভাবে মেনে নিতে পারছে না পরিবার-সহ এলাকাবাসী। এ ঘটনায় রনির পিতা রঞ্জিত শর্মা গত ৮আগষ্ট মৌলভীবাজার ম্যাজিট্রেট আদালতে ফরহাদ ট্রেডার্সের মালিক ফারহাদুল হক(৪৫) তার ভাই এমদাদুল হক(৩৫) লিটন হক(৩৩) ফরহাদের স্ত্রী শারমিন হকের বিরুদ্ধে একটি হত্যা মামালা দায়ের করেন। এলাকাবাসী ও মৃত রনি শর্মা পরিবার সূত্রে জানাযায়, রনি শর্মা দীর্ঘ আট বছর ধরে ফরহাদ ট্রেডার্সে চাকুরী করত। প্রথম চার বছর ভালো ভাবে চললেও পরবর্তীতে তাকে দোকানের পাটনার্র করার প্রলোভন দিয়ে ধাপে ধাপে ৫লাখ ৪৫হাজার টাকা হাতিয়ে নেয়। বিভিন্ন চল চাতুরীর মাধ্যমে থাকে জিম্মি করে রাখে। একদিন দোকান থেকে ২৫হাজার টাকা চুরি হয়ে গিয়েছে বলে তাকে মারধর করে। এই টাকার জন্য রনিকে দায়ী করে বাড়ি থেকে টাকা আনাতে বাধ্য করে।

 

একবার হুন্ডির ব্যবসায় ১লাখ ২৫হাজার টাকা ছিনতাই হয়ে গেলে রনি শর্মাকে এই টাকা দেওয়ার জন্য বাধ্য করে। তার নির্যাতনে রনি শর্মার পিতা কয়েকবার থাকে দোকান থেকে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে ফরহাদ থাকে দোকানের হিসাব নিকাশ ও বাকী টাকার অযুহাত দেখিয়ে রনিকে আটকিয়ে রাখে। সম্প্রতি ফরহাদের নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে তার ব্যবসার পাটর্না লাভ সহ টাকা ফেরৎ চাওয়ায় এবং অবৈধ ব্যবসা সহ হুন্ডির ব্যবসার তথ্য ফাঁস হয়ে যাওয়ার ভয়ে রনিকে পরিকল্পিত ভাবে শারিরীক নির্যাতন করে হত্যা করা হয়েছে। উল্লেখ্য গত ২আগষ্ট শুক্রবার কুলাউড়া উপজেলার টিলাগাঁও বাজারের ফরহাদ ট্রেডার্সের কর্মচারী রনি শর্মাকে মুমুর্ষ অবস্থায় কুলাউড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায় কিছু লোকেরা। এ সময় কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষনা করেন। এ সময় রনির মাথার পিছনে গভীর ক্ষত হাতের আঙ্গুল গুলো ছিলো থেতলানো। নাক মুখ দিয়ে রক্ত ঝরছিলো। এ ঘটনায় কুলাউড়া থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের হয়। রনির পিতা রঞ্জিত শর্মা জানান, র্দীঘ আট বছর যাবৎ তার ছেলে ফরহাদের দোকানে চাকুরী করছিলো।

 

প্রথম চার বছর সাড়ে চার হাজার টাকা বেতন দিলেও পরবর্তীতে থাকে দোকানের শেয়ার করবে বলে ধাপে ধাপে জমি বিক্রি করে সাড়ে ৫লাখ টাকা দেন। টাকা দেওয়ার সময় স্বাক্ষ্যী ছিলো এলাকার আব্দুল জলিল ও রনিকে ফরহাদের দোকানে চাকুরীতে নিয়ে দিয়েছিল অধীর চন্দ্র দেবনাথ। ফরহাদের ট্রেডার্স ব্যবসার পাশা পাশি বিভিন্ন ব্যাংকি ব্যবসা শুরু করে। এই ব্যবসার আড়ালে সে অবৈধ হুন্ডির ব্যবসা চালিয়ে যায়। বিভিন্ন সময় টাকা চুরি হয়ে যাওয়ার অযুহাত দেখিয়ে তার ছেলেকে শারিরীক নির্যাতন করত। তিনি এই সমস্থ কারনে দোকান থেকে সরিয়ে নেওয়ার জন্য চেষ্টা করেছিলেন। কিন্তু ফরহাদ তার ছেলেকে ছেড়ে দিতে চায়নি। এ কারণে তিনি ফরহাদের উপর মামলা করার প্রস্তুতি নিয়ে ছিলেন। সেই সময় আব্দুল জলিল. অধীর চন্দ্র দেবনাথ থাকে বুঝিয়ে মামলা থেকে বিরত করান।

 

নিহত রনি শর্মার ভাই পার্থ শর্মা অভিযোগ করে বলেন, দোকানের মালিক ফরহাদ প্রায় দিন দোকানে টাকার ঘার্তি দেখিয়ে তাকে শারিরীক ভাবে নির্যাতন করত। মৃত্যুও দিন রনির মাথায় আঘাতে চিহ্ন ছিলো। নাক দিয়ে রক্ত বাহির হচ্ছিলো। দু হাতের আঙ্গুল থেতলানো ছিলো। এ মৃত্যুর সঠিক তদন্তের দাবী জানান পার্থ শর্মা। পাশের বাড়ির হাফিজুল নেছা(৪৫) জানান, রনি খুব শান্ত প্রকৃতির ছেলে। তার উপর দোকান মালিক শারিরীক নির্যাতন ও শরিলে আঘাতের চিহ্ন তার মৃত্যুর ঘটনা স্বাভাবিক নয়। এটা একটি পরিকল্পিত হত্যা।

 

ঐ দিন শিওর ক্যাশ থেকে টাকা তুলতে আশা আলী আমজদ উচ্চ বিদ্যালয় এন্ড কলেজের একাদশ শ্রেণীর শিক্ষার্থী নিশা বলেন, আমি উপবৃত্তির টাকা তুলতে দোকানে গিয়েছি। তখন রনি ভাই মাথা টেবিলের উপর রেখে চেয়ারে বসে আছেন। এই সময় হাতের আঙ্গুল দিয়ে রক্ত ঝড়ছে দেখেছি। আর বলেছেন উনি মোবাইলের বাটন টিপতে পারবেন না। এই কথা শুনার পর আমরা চলে আসি।

 

 

সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে শেয়ার করুন

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



Click Here

সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



About Us | Privacy Policy | Terms & Conditions | Contact Us | Sitemap
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
সহ-সম্পাদক : নুরুজ্জামান কাফি
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com

© Copyright BY KuakataNews.Com

Design & Developed BY PopularITLimited