ফুলবাড়ীতে ড্রেজার মেশিন দিয়ে চলছে অবৈধ্য বালু উত্তোলন নিরব ভুমিকায় প্রশাসন

Spread the love

মোঃ রজব আলী, ফুলবাড়ী দিনাজপুর: দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে ছোট্র যমুনা নদি থেকে বিভিন্ন এলাকায় অবৈধ্য ভাবে ড্রেজার মেশিন বসিয়ে বালু উত্তোলন করলেও নিরব ভুমিকায় রয়েছে উপজেলা প্রশাসন। এদিকে নদির বিভিন্ন এলাকায় বালু ব্যবসায়ীরা ইচ্ছামত বালু উত্তোলন করায়, নদি গর্ভে বিলিন হয়ে যাচ্ছে নদির গ্রামরক্ষা বাধসহ ফসলী জমি। সুধু তাই নয়, বালু ব্যবসায়ীদের ইচ্ছামত বালুর দাম নেয়ায় তাদের নিকট জিম্মি হয়ে পড়েছে, বালু বহনকারী ট্রাক্টর মালিক-শ্রমিকসহ সাধারন মানুষ।

 

উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্য্যলয় সুত্রে জানা গেছে, ফুলবাড়ী উপজেলার শিবনগর ইউনিয়নের ছোট যমুনা নদির রাজারামপুর মৌজার বেলতলী ঘাট ও গোপলপুর ঘাট বালুমহল হিসেবে ইজারা প্রদান করা হয়েছে। কিন্তু উপজেলার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা যায়, বালুমহল ইজারাদার ইমরুল হুদা চৌধুরী ইনু, বেলতলী ও গোপলপুর ঘাট ছাড়াও, উপজেলা শিবনগর ইউনিয়নের গঙ্গাপ্রসাদ ঘাট, মৎসর বীল থেকে ড্রেজার মেশিন বসিয়ে দিধারছে বালু উত্তোলন করছে। এছাড়া উপজেলার খয়েরবাড়ী ইউনিয়নের মহদিপুর ঘাট, জমিদারপাড়া ঘাট, দৌলতপুর ইউনিয়নের বারাইপাড়া ঘাট, জানিপুর ঘাটে সাব-ইজারাদার নিয়োগ করে ড্রেজার মেশিন বসিয়ে ইচ্ছামত বালু উত্তোলন করছে। বারাইপাড়া ঘাটের বালু উত্তোলনকারী বাবলু মিয়া বলেন প্রতিমাসে ৪০ হাজার টাকা চুক্তিতে, বালুমহল ইজারাদার ইনুর নিকট থেকে তিনি বারাইপাড়া ঘাট সাব-ইজারা নিয়েছেন, একই কথা বলেন মহদিপুর ঘাটের বালু উত্তোলনকারী মুরাদ হোসেন । জমিদারপাড়া ঘাটের বালু উত্তোলনকারী মতিয়ার রহমান বলেন, জমিদার পাড়া ঘাট থেকে বালু উত্তোলনের জন্য প্রতিমাসে ৩০ হাজার টাকা করে দিতে হয় বালুমহলের ইজারাদার ইমরুল হুদা চৌধুরী ইনুকে।

 

এই বিষয়ে জানতে চাইরে বালুমহল ইজারাদার ইমরুল হুদা চৌধুরী বলেন, মাত্র দুটি ঘাট থেকে বালু উত্তোলন করে ইজারা মূল্য পরিশোধ করা কঠিন, তাই তিনি ওইঘাট গুলো সাব-ইজারা প্রদান করেছেন। এদিকে ড্রেজার মেশিন দিয়ে বালু উত্তোলন করায় নদি গর্ভে ভেঙ্গে পড়েছে বন্যার হাত থেকে গ্রামরক্ষার বাধসহ ফসলী জমি। জাফরপুর গ্রামের বাসীন্দা প্রভাষক হামিদুল হক বলেন, বালু উত্তোলনের কারনে গত বছরে বন্যায় তাঁর প্রায় এক একর ফসলী জমি নদিতে বিলিন হয়ে পড়েছে, এই বিষয়ে তিনি উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর লিখিত অভিযোগ করেও কোন প্রতিকার পাননি। একই কথা বলেন খয়েরবাড়ী জমিদার পাড়া গ্রামের আফছার আলী। খয়েরবাড়ী ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি এনামুল হক বলেন জমিদার পাড়া ঘাটে যে ভাবে বন্যার হাত থেকে গ্রামরক্ষা বাঁধটি কেটে নিয়ে যাওয়া হয়েছে তাতে আগামী বন্যায় গ্রামের বাড়ী-ঘর ও মাঠের ফসল সবেই নদিতে বিলিন হয়ে যাবে। রাজারামপুর গ্রামের আবু বক্কর বলেন, বালু উত্তোলনের ফলে তার এক বিঘা জমি ইতোমধ্যে নদিতে চলে গেছে, এখন যে ভাবে বালু উত্তোলন করা হচ্ছে, তাতে আগামী বন্যায় তার পাশের জমিটিও নদিতে চলে যাবে।

 

এদিকে বালু ব্যবসায়ীরা তাদের ইচ্চামত বালুর দাম নিদ্ধারণ করে, জিম্মি করে ফেলেছে বালু বহনকারী ট্রাক্টর মালিক শ্রমিকদের। ট্রাক্টর মালিক সমিতির সাধারন সম্পাদক মকলেছার রহমান সরকার নবাব বলেন গত কয়েক দিন পুর্বেও ৩৫০ টাকায় এক ট্রাক্টর বালু ঘাট থেকে নেয়া হলেও, এখন বালুর ইজারাদার এক ট্রাক্টর বালুর দাম নিদ্ধারন করেছে ৭০০ টাকা, এতেকরে তাঁরা উন্নায়মুলক প্রকল্পে বালু সরবরাহ করতে পারছেনা। ট্রাক্টর মালিক শ্রমিক ইউনিয়নের উপদেষ্ঠা অধ্যক্ষ মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, বালু ইজারাদারের দৌরাত্বে জিম্মি হয়ে পড়েছে ট্রাক্টর মালিক ও শ্রমিকরা, বালু ইজরাদার এক মাস পরপর বালুর দাম বৃদ্ধি করছে, এতে উন্নায়ন মুলক কাজের ব্যায় বাড়ছে। এলজিইডির ঠিকাদার মনোজ মল্লিক বলেন বালুর দাম হঠাৎ বৃদ্ধি করায় তার ঠিকাদারী কাজ বন্ধ হয়ে পড়েছে, তিনি বলেন টেন্ডারে যে বালুর যে দাম ধরা রয়েছে বালু মহল ইজারাদার তার থেকে অনেকগুন বেশি দাম চাওয়ায় তিনি বালু নিতে পারছেনা।

 

ইজারা ছাড়া উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় অবৈধ্য ভাবে ড্রেজার মেশিন বসিয়ে বালু উত্তোলন ও বালুমহল ইজারাদারের দৌরাত্বর বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার আব্দুস সালাম এর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, অ্ল্প সময়ের মধ্যে অবৈধ্য বালু উত্তোলন বন্ধ করা হবে। এদিকে গ্রামবাসীরা বলেন কয়েক বছর থেকে বালুর ইজারাদার তার ইচ্ছামত বালু উত্তোলন করলেও কোন ব্যবস্থা গ্রহন করেনি উপজেলা প্রশাসন। এই বিষয়ে দিনাজপুর জেলা প্রশাসক মাহমুদুল আলম এর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, কেই অবৈধ্য ভাবে বালু উত্তোলন করতে পারবেনা। তিনি অল্পসময়ের মধ্যে অবৈধ্য বালু উত্তোলনকারীদের বিরুদ্ধে অভিযান করবেন বলে জানান।

 

 

নিউজটি শেয়ার করুন:

সর্বশেষ আপডেট



» তেজগাঁওয়ের ফু-ওয়াং ক্লাবে চলছে অভিযান

» কপাল খুলে গেল ১২শ’ বেসরকারি শিক্ষকের

» সংস্কার হতেনা হতেই দশমিনায় গুরুত্বপূর্ন সড়কের বেহাল দশা

» মাদক সেবন কারিদেরকে দশমিনায় পূর্নবাসন

» ভিসি নাসিরের পদত্যাগ দাবিতে ৬ষ্ঠ দিনেও আন্দোলনে শিক্ষার্থীরা: উত্তাল বশেমুরবিপ্রবি ক্যাম্পাস

» বড়লেখায় ভোক্তা অধিকার আইনে  ৩ প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা

» ডেমোক্রেসি ইন্টারন্যাশনালের উদ্যোগে গোল টেবিল বৈঠক

» ঝালকাঠিতে নারীকে কুপিয়ে হত্যার দায়ে ২ ডাকাতের ফাঁসি, ৩ জনের যাবজ্জীবন

» জলবায়ু পরিবর্তন জনিত কারন: দখল ও দূষনের কারনে অস্তিত্ব হারাচ্ছে শিববাড়িয়া নদী

» মৌলভীবাজারের মেয়ে আলেয়া মান্নান পিংকি বাংলাদেশ বিমানের প্রধান ক্যাপ্টেন

লাইক দিয়ে সংযুক্ত থাকুন

ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
সহ-সম্পাদক : নুরুজ্জামান কাফি
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com
Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
আজ সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯ খ্রিষ্টাব্দ, ৮ই আশ্বিন ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

ফুলবাড়ীতে ড্রেজার মেশিন দিয়ে চলছে অবৈধ্য বালু উত্তোলন নিরব ভুমিকায় প্রশাসন

ইউটিউবে সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:
Spread the love

মোঃ রজব আলী, ফুলবাড়ী দিনাজপুর: দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে ছোট্র যমুনা নদি থেকে বিভিন্ন এলাকায় অবৈধ্য ভাবে ড্রেজার মেশিন বসিয়ে বালু উত্তোলন করলেও নিরব ভুমিকায় রয়েছে উপজেলা প্রশাসন। এদিকে নদির বিভিন্ন এলাকায় বালু ব্যবসায়ীরা ইচ্ছামত বালু উত্তোলন করায়, নদি গর্ভে বিলিন হয়ে যাচ্ছে নদির গ্রামরক্ষা বাধসহ ফসলী জমি। সুধু তাই নয়, বালু ব্যবসায়ীদের ইচ্ছামত বালুর দাম নেয়ায় তাদের নিকট জিম্মি হয়ে পড়েছে, বালু বহনকারী ট্রাক্টর মালিক-শ্রমিকসহ সাধারন মানুষ।

 

উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্য্যলয় সুত্রে জানা গেছে, ফুলবাড়ী উপজেলার শিবনগর ইউনিয়নের ছোট যমুনা নদির রাজারামপুর মৌজার বেলতলী ঘাট ও গোপলপুর ঘাট বালুমহল হিসেবে ইজারা প্রদান করা হয়েছে। কিন্তু উপজেলার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা যায়, বালুমহল ইজারাদার ইমরুল হুদা চৌধুরী ইনু, বেলতলী ও গোপলপুর ঘাট ছাড়াও, উপজেলা শিবনগর ইউনিয়নের গঙ্গাপ্রসাদ ঘাট, মৎসর বীল থেকে ড্রেজার মেশিন বসিয়ে দিধারছে বালু উত্তোলন করছে। এছাড়া উপজেলার খয়েরবাড়ী ইউনিয়নের মহদিপুর ঘাট, জমিদারপাড়া ঘাট, দৌলতপুর ইউনিয়নের বারাইপাড়া ঘাট, জানিপুর ঘাটে সাব-ইজারাদার নিয়োগ করে ড্রেজার মেশিন বসিয়ে ইচ্ছামত বালু উত্তোলন করছে। বারাইপাড়া ঘাটের বালু উত্তোলনকারী বাবলু মিয়া বলেন প্রতিমাসে ৪০ হাজার টাকা চুক্তিতে, বালুমহল ইজারাদার ইনুর নিকট থেকে তিনি বারাইপাড়া ঘাট সাব-ইজারা নিয়েছেন, একই কথা বলেন মহদিপুর ঘাটের বালু উত্তোলনকারী মুরাদ হোসেন । জমিদারপাড়া ঘাটের বালু উত্তোলনকারী মতিয়ার রহমান বলেন, জমিদার পাড়া ঘাট থেকে বালু উত্তোলনের জন্য প্রতিমাসে ৩০ হাজার টাকা করে দিতে হয় বালুমহলের ইজারাদার ইমরুল হুদা চৌধুরী ইনুকে।

 

এই বিষয়ে জানতে চাইরে বালুমহল ইজারাদার ইমরুল হুদা চৌধুরী বলেন, মাত্র দুটি ঘাট থেকে বালু উত্তোলন করে ইজারা মূল্য পরিশোধ করা কঠিন, তাই তিনি ওইঘাট গুলো সাব-ইজারা প্রদান করেছেন। এদিকে ড্রেজার মেশিন দিয়ে বালু উত্তোলন করায় নদি গর্ভে ভেঙ্গে পড়েছে বন্যার হাত থেকে গ্রামরক্ষার বাধসহ ফসলী জমি। জাফরপুর গ্রামের বাসীন্দা প্রভাষক হামিদুল হক বলেন, বালু উত্তোলনের কারনে গত বছরে বন্যায় তাঁর প্রায় এক একর ফসলী জমি নদিতে বিলিন হয়ে পড়েছে, এই বিষয়ে তিনি উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর লিখিত অভিযোগ করেও কোন প্রতিকার পাননি। একই কথা বলেন খয়েরবাড়ী জমিদার পাড়া গ্রামের আফছার আলী। খয়েরবাড়ী ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি এনামুল হক বলেন জমিদার পাড়া ঘাটে যে ভাবে বন্যার হাত থেকে গ্রামরক্ষা বাঁধটি কেটে নিয়ে যাওয়া হয়েছে তাতে আগামী বন্যায় গ্রামের বাড়ী-ঘর ও মাঠের ফসল সবেই নদিতে বিলিন হয়ে যাবে। রাজারামপুর গ্রামের আবু বক্কর বলেন, বালু উত্তোলনের ফলে তার এক বিঘা জমি ইতোমধ্যে নদিতে চলে গেছে, এখন যে ভাবে বালু উত্তোলন করা হচ্ছে, তাতে আগামী বন্যায় তার পাশের জমিটিও নদিতে চলে যাবে।

 

এদিকে বালু ব্যবসায়ীরা তাদের ইচ্চামত বালুর দাম নিদ্ধারণ করে, জিম্মি করে ফেলেছে বালু বহনকারী ট্রাক্টর মালিক শ্রমিকদের। ট্রাক্টর মালিক সমিতির সাধারন সম্পাদক মকলেছার রহমান সরকার নবাব বলেন গত কয়েক দিন পুর্বেও ৩৫০ টাকায় এক ট্রাক্টর বালু ঘাট থেকে নেয়া হলেও, এখন বালুর ইজারাদার এক ট্রাক্টর বালুর দাম নিদ্ধারন করেছে ৭০০ টাকা, এতেকরে তাঁরা উন্নায়মুলক প্রকল্পে বালু সরবরাহ করতে পারছেনা। ট্রাক্টর মালিক শ্রমিক ইউনিয়নের উপদেষ্ঠা অধ্যক্ষ মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, বালু ইজারাদারের দৌরাত্বে জিম্মি হয়ে পড়েছে ট্রাক্টর মালিক ও শ্রমিকরা, বালু ইজরাদার এক মাস পরপর বালুর দাম বৃদ্ধি করছে, এতে উন্নায়ন মুলক কাজের ব্যায় বাড়ছে। এলজিইডির ঠিকাদার মনোজ মল্লিক বলেন বালুর দাম হঠাৎ বৃদ্ধি করায় তার ঠিকাদারী কাজ বন্ধ হয়ে পড়েছে, তিনি বলেন টেন্ডারে যে বালুর যে দাম ধরা রয়েছে বালু মহল ইজারাদার তার থেকে অনেকগুন বেশি দাম চাওয়ায় তিনি বালু নিতে পারছেনা।

 

ইজারা ছাড়া উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় অবৈধ্য ভাবে ড্রেজার মেশিন বসিয়ে বালু উত্তোলন ও বালুমহল ইজারাদারের দৌরাত্বর বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার আব্দুস সালাম এর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, অ্ল্প সময়ের মধ্যে অবৈধ্য বালু উত্তোলন বন্ধ করা হবে। এদিকে গ্রামবাসীরা বলেন কয়েক বছর থেকে বালুর ইজারাদার তার ইচ্ছামত বালু উত্তোলন করলেও কোন ব্যবস্থা গ্রহন করেনি উপজেলা প্রশাসন। এই বিষয়ে দিনাজপুর জেলা প্রশাসক মাহমুদুল আলম এর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, কেই অবৈধ্য ভাবে বালু উত্তোলন করতে পারবেনা। তিনি অল্পসময়ের মধ্যে অবৈধ্য বালু উত্তোলনকারীদের বিরুদ্ধে অভিযান করবেন বলে জানান।

 

 

নিউজটি শেয়ার করুন:

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



Click Here

সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



About Us | Privacy Policy | Terms & Conditions | Contact Us | Sitemap
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
সহ-সম্পাদক : নুরুজ্জামান কাফি
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com

© Copyright BY KuakataNews.Com

Design & Developed BY PopularITLimited