গুগল সার্চে কাশ্মীরি মেয়ে খোঁজায় শীর্ষে যে দেশ!

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : গত কয়েকদিনে ভারতে গুগল সার্চে সব কিছু ছাপিয়ে উঠেছে কাশ্মীর। আরও স্পষ্ট করে বললে কাশ্মীরি মেয়ে। ভারতে গুগল সার্চের সবচেয়ে বেশি খোঁজা হয়েছে ‘কাশ্মীরি গার্ল’ শব্দটি। এরপরই ‘ম্যারি কাশ্মীরি গার্ল’ সার্চ হয়েছে।ভারতের সংবিধান থেকে ৩৭০ ধারা বাতিলের পর দেশটির ক্ষমতাসীন দল ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) অনেক নেতার মুখে কাশ্মীরি মেয়ে বিয়ে করার কথা শোনা গেছে। এদিকে গুগলে কাশ্মীরি মেয়ে খুঁজতে শুরু করেছে অনেকে। আর এই তালিকায় শীর্ষে আছে পশ্চিমবঙ্গের বাঙালিরাই। খবর ভারতীয় গণমাধ্যম টাইমস অব ইন্ডিয়ার।

 

গণমাধ্যমটিতে প্রকাশিত এ সংক্রান্ত এক প্রতিবেদনে বলা হয়, ৩৭০ ধারা বাতিলের পরই কাশ্মীর সম্পর্কে ভারতীয়দের ধারণা বদলাচ্ছে। গুগল কাশ্মীরি মেয়ে খোঁজার ধারাও বদলাচ্ছে। প্রতিবেদনটিতে বলা হয়, গুগলে ‘ম্যারি কাশ্মীরি গার্ল’ লিখে সার্চ দেয়ার ধরন বদলাচ্ছে। এতদিন কাশ্মীরি মেয়ে খোঁজার তালিকায় শীর্ষে ছিল দিল্লি। তবে রাজধানীকে টপকে গেছে পশ্চিমবঙ্গ। এতে আরও উল্লেখ করা হয়, এই তিন শব্দ লিখে গুগলে সার্চ করায় পশ্চিমবঙ্গের পর দিল্লি দ্বিতীয়, তেলেঙ্গানা তৃতীয়, কর্ণাটক চতুর্থ এবং মহারাষ্ট্র পঞ্চম অবস্থানে আছে। অন্যদিকে ‘কাশ্মীরি গার্লস’ লিখে গুগলে সবচেয়ে বেশি সার্চ করেছে কেরালা। এই দুই শব্দ লিখে গুগলে সার্চ করার তালিকায় ঝাড়খণ্ড দ্বিতীয় এবং হিমাচল প্রদেশ তৃতীয় স্থানে আছে। ভারতের সংবিধান থেকে ৩৭০ ধারা বাতিলের পরপরই গুগলে ‘কাশ্মীরি গার্ল পিক’ লিখে সার্চ করার মাত্র বেড়ে যায়। এছাড়া কাশ্মীর ও লাদাখে জমি কেনার বিষয় জানতে চেয়েও গুগলে সার্চ করেছেন অনেকেই।

 

প্রসঙ্গত, মঙ্গলবার কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা প্রত্যাহার উদযাপন অনুষ্ঠানে উত্তরপ্রদেশের মুজফফরনগরের বিজেপি এমপি বলেন, ‘এবার আমাদের দলের কর্মীরা সুন্দরী কাশ্মীরি নারীদের বিয়ে করতে পারবেন। ফর্সা টুকটুকে কাশ্মীরি মেয়েদের বিয়ে করতে পারবেন। আর কোনও বাধা রইল না। তিনি আরও বলেন, ‘কর্মীরা খুবই উত্তেজিত এবং যারা অবিবাহিত তারা তো এবার ওখানে বিয়েও করতে পারবে। এখন আর কোনও সমস্যা নেই। এর আগে ওখানে নারীদের উপর অত্যাচার হতো। যদি ওখানকার কোনও মেয়ে উত্তরপ্রদেশের কোনও ছেলেকে বিয়ে করতো তাহলে নাগরিকত্ব বাতিল হয়ে যেত। ভারত ও কাশ্মীরের নাগরিকত্ব আলাদা ছিল। আর এখানকার মুসলিম পুরুষদেরও আনন্দ করা উচিত। ওখানে বিয়ে করুন। ফর্সা কাশ্মীরী মেয়েদের। আনন্দ করা উচিত। সবার আনন্দ করা উচিত, সে হিন্দু হোক কি মুসলিম। এ নিয়ে সারা দেশের আনন্দ করা উচিত।

 

এ ব্যাপারে ওই বিধায়ককে প্রশ্ন করা হলে ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসকে তিনি বলেন, এখন কোনও সমস্যা ছাড়াই যে কেউ কাশ্মীরি নারীদের বিয়ে করতে পারবেন। এটাই সত্যি। এটা কাশ্মীরের মানুষের স্বাধীনতা। এখন কাশ্মীর স্বাধীনতা পেয়েছে। ওই বিধায়ক আরও বলেছেন, ‘মোদিজি আপনি আমাদের স্বপ্ন পূরণ করেছেন। সর্বত্র মানুষ ঢাক বাজিয়ে আনন্দ করছে। সে লাদাখ হোক কিংবা লেহ। গতকাল আমি একজনকে ফোন করে জানতে চাই ওখানে কোনও বাড়ি আছে কিনা। বিধায়ক বলেন, ‘আমি কাশ্মীরে বাড়ি কিনতে চাই। ওখানে সবকিছুই সুন্দর, ওই জায়গাটা, ওখানকার পুরুষ এবং নারীরা। সব কিছু।

 

 

সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে শেয়ার করুন

সর্বশেষ আপডেট



» ফেসবুক লাইভে: আমি রাঙ্গার মেয়ে, বাবাকে নিয়ে কিছু কথা বলতে চাই (ভিডিও)

» ডামুড্যার সিড্যায় ৩৬ নং মধ্য সিড্যা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীদের বিদায় অনুষ্ঠান

» যাতায়াতের একমাত্র রাস্থা বন্ধ বিপাকে ১৩ পরিবার

» বাগেরহাটে কাড়াপাড়া প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পঞ্চম শ্রেণীর বিদায় অনুষ্ঠান

» বরিশালের মেয়ে নায়লা নাঈমের জীবনী আসছে একুশে বইমেলা ২০২০ এ

» জাতীয় মানবাধিকার সমিতির তিতাস উপজেলার কমিটি ঘোষণা

» আগামী রবিবার ১৭ নভেম্বর প্রাথমিক ও ইবতেদায়ি পরীক্ষা শুরু

» দারাজে ১১.১১ ক্যাম্পেইনে প্রথম ঘণ্টায় সাড়ে ৮ কোটি টাকার পণ্য বিক্রি

» মা গুলতেকিনের দ্বিতীয় বিয়ে নিয়ে যা বললেন নুহাশ

» বিয়ে করছেন মিয়া খলিফা!

লাইক দিয়ে সংযুক্ত থাকুন

ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
সহ-সম্পাদক : নুরুজ্জামান কাফি
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com
Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
আজ শুক্রবার, ১৫ নভেম্বর ২০১৯ খ্রিষ্টাব্দ, ৩০শে কার্তিক ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

গুগল সার্চে কাশ্মীরি মেয়ে খোঁজায় শীর্ষে যে দেশ!

ইউটিউবে সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : গত কয়েকদিনে ভারতে গুগল সার্চে সব কিছু ছাপিয়ে উঠেছে কাশ্মীর। আরও স্পষ্ট করে বললে কাশ্মীরি মেয়ে। ভারতে গুগল সার্চের সবচেয়ে বেশি খোঁজা হয়েছে ‘কাশ্মীরি গার্ল’ শব্দটি। এরপরই ‘ম্যারি কাশ্মীরি গার্ল’ সার্চ হয়েছে।ভারতের সংবিধান থেকে ৩৭০ ধারা বাতিলের পর দেশটির ক্ষমতাসীন দল ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) অনেক নেতার মুখে কাশ্মীরি মেয়ে বিয়ে করার কথা শোনা গেছে। এদিকে গুগলে কাশ্মীরি মেয়ে খুঁজতে শুরু করেছে অনেকে। আর এই তালিকায় শীর্ষে আছে পশ্চিমবঙ্গের বাঙালিরাই। খবর ভারতীয় গণমাধ্যম টাইমস অব ইন্ডিয়ার।

 

গণমাধ্যমটিতে প্রকাশিত এ সংক্রান্ত এক প্রতিবেদনে বলা হয়, ৩৭০ ধারা বাতিলের পরই কাশ্মীর সম্পর্কে ভারতীয়দের ধারণা বদলাচ্ছে। গুগল কাশ্মীরি মেয়ে খোঁজার ধারাও বদলাচ্ছে। প্রতিবেদনটিতে বলা হয়, গুগলে ‘ম্যারি কাশ্মীরি গার্ল’ লিখে সার্চ দেয়ার ধরন বদলাচ্ছে। এতদিন কাশ্মীরি মেয়ে খোঁজার তালিকায় শীর্ষে ছিল দিল্লি। তবে রাজধানীকে টপকে গেছে পশ্চিমবঙ্গ। এতে আরও উল্লেখ করা হয়, এই তিন শব্দ লিখে গুগলে সার্চ করায় পশ্চিমবঙ্গের পর দিল্লি দ্বিতীয়, তেলেঙ্গানা তৃতীয়, কর্ণাটক চতুর্থ এবং মহারাষ্ট্র পঞ্চম অবস্থানে আছে। অন্যদিকে ‘কাশ্মীরি গার্লস’ লিখে গুগলে সবচেয়ে বেশি সার্চ করেছে কেরালা। এই দুই শব্দ লিখে গুগলে সার্চ করার তালিকায় ঝাড়খণ্ড দ্বিতীয় এবং হিমাচল প্রদেশ তৃতীয় স্থানে আছে। ভারতের সংবিধান থেকে ৩৭০ ধারা বাতিলের পরপরই গুগলে ‘কাশ্মীরি গার্ল পিক’ লিখে সার্চ করার মাত্র বেড়ে যায়। এছাড়া কাশ্মীর ও লাদাখে জমি কেনার বিষয় জানতে চেয়েও গুগলে সার্চ করেছেন অনেকেই।

 

প্রসঙ্গত, মঙ্গলবার কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা প্রত্যাহার উদযাপন অনুষ্ঠানে উত্তরপ্রদেশের মুজফফরনগরের বিজেপি এমপি বলেন, ‘এবার আমাদের দলের কর্মীরা সুন্দরী কাশ্মীরি নারীদের বিয়ে করতে পারবেন। ফর্সা টুকটুকে কাশ্মীরি মেয়েদের বিয়ে করতে পারবেন। আর কোনও বাধা রইল না। তিনি আরও বলেন, ‘কর্মীরা খুবই উত্তেজিত এবং যারা অবিবাহিত তারা তো এবার ওখানে বিয়েও করতে পারবে। এখন আর কোনও সমস্যা নেই। এর আগে ওখানে নারীদের উপর অত্যাচার হতো। যদি ওখানকার কোনও মেয়ে উত্তরপ্রদেশের কোনও ছেলেকে বিয়ে করতো তাহলে নাগরিকত্ব বাতিল হয়ে যেত। ভারত ও কাশ্মীরের নাগরিকত্ব আলাদা ছিল। আর এখানকার মুসলিম পুরুষদেরও আনন্দ করা উচিত। ওখানে বিয়ে করুন। ফর্সা কাশ্মীরী মেয়েদের। আনন্দ করা উচিত। সবার আনন্দ করা উচিত, সে হিন্দু হোক কি মুসলিম। এ নিয়ে সারা দেশের আনন্দ করা উচিত।

 

এ ব্যাপারে ওই বিধায়ককে প্রশ্ন করা হলে ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসকে তিনি বলেন, এখন কোনও সমস্যা ছাড়াই যে কেউ কাশ্মীরি নারীদের বিয়ে করতে পারবেন। এটাই সত্যি। এটা কাশ্মীরের মানুষের স্বাধীনতা। এখন কাশ্মীর স্বাধীনতা পেয়েছে। ওই বিধায়ক আরও বলেছেন, ‘মোদিজি আপনি আমাদের স্বপ্ন পূরণ করেছেন। সর্বত্র মানুষ ঢাক বাজিয়ে আনন্দ করছে। সে লাদাখ হোক কিংবা লেহ। গতকাল আমি একজনকে ফোন করে জানতে চাই ওখানে কোনও বাড়ি আছে কিনা। বিধায়ক বলেন, ‘আমি কাশ্মীরে বাড়ি কিনতে চাই। ওখানে সবকিছুই সুন্দর, ওই জায়গাটা, ওখানকার পুরুষ এবং নারীরা। সব কিছু।

 

 

সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে শেয়ার করুন

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



Click Here

সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



About Us | Privacy Policy | Terms & Conditions | Contact Us | Sitemap
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
সহ-সম্পাদক : নুরুজ্জামান কাফি
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com

© Copyright BY KuakataNews.Com

Design & Developed BY PopularITLimited