বান্দরবানে ব্যাংক কর্মকর্তার স্ত্রীকে আত্মহত্যায় প্ররোচনার অভিযোগে এক যুবক গ্রেফতার

রিমন পালিতঃ বান্দরবান প্রতিনিধিঃ বান্দরবানে ব্যাংক কর্মকর্তার স্ত্রীর সাথে অনৈতিক সম্পর্ক এবং আত্মহত্যায় প্ররোচনার অভিযোগে ইউসুফ নামে এক যুবককে আজ রাত ১২ টার দিকে তার নিজ বাড়ি থেকে আটক করেছে পুলিশ। উল্লেখ্য যে গত ২৩ ফেব্রুয়ারী রুমা সোনালী ব্যাংক কর্মকর্তার স্ত্রী মর্জিনা আক্তার (২২) স্বামী ও শশুর বাড়ির লোকজনদের দায়ী করে একটি সুইসাইড নোট লিখে নিজ বাসায় সিলিং ফ্যানের সাথে ঝুলে আত্মহত্যা করে।

 

এ ঘটনায় ২৪ ফেব্রুয়ারী পুলিশ ব্যাংক কর্মকর্তা ওমর ফারুককে আটক করে। বর্তমানে ওই যুবককে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। ব্যাংক কর্মকর্তা ফারুক বাদী হয়ে যুবকের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন। পরে ১৩ দিন কারাগারে থেকে জামিনে বের হয় সেই ব্যাংক কর্মকর্তা। এদিকে সুইসাইড নোটে স্বামী ও পরিবারের লোকদের দায়ী করলেও স্বামীর অভিযোগ স্ত্রীর প্রেমের খবর জানতে পারায় তার সাথে আর সংসার করতে না চাইলে সে তার প্রেমিককে বিয়ের কথা বললে প্রেমিক বিয়ে করতে অস্বীকৃতি জানালে মর্জিনা আত্মহত্যা করে। জানা গেছে, পাচঁ বছর আগে বনরুপা পাড়ার কামালের মেয়ে মর্জিনা আক্তারকে বিয়ে করেন সোনালী ব্যাংক রুমা শাখার ক্যাশ অফিসার ওমর ফারুক। তিন বছরের একটি শিশু সন্তানসহ নিউ গুলশান এলাকায় ভাড়া বাসায় বসবাস করছিলেন তারা। ৮ মাস আগে হঠাৎ স্বামী জানতে পারে তার স্ত্রীর সাথে অন্য একটি ছেলের সম্পর্ক রয়েছে- বিষয়টি জানতে পেরে স্ত্রীর বাবা, মা ও ভাইকে বিষয়টি জানান ব্যাংক কর্মকর্তা। এমনকি স্ত্রীকে ডিভোর্স দিতে চাইলে ভবিষ্যতে এমন কাজ আর করবে না বলে স্বামীর কাছে ক্ষমা চায়।

 

পরে সমাজে মানসম্মান আর সন্তানের কথা ভেবে আবারও তার সাথে সংসার শুরু করে। কিন্তু কিছু দিন যেতে না যেতে আবারও সেই ছেলের সাথে মেলামেশা শুরু করে মর্জিনা। স্বামী অফিসের কাজে রুমা গেলে স্ত্রী বান্দরবানে নিজের প্রেমিক ইউসুফের সাথে দেখা করত। গত ২৩ ফেব্রুয়ারী বিষয়টি আবারও স্বামীর চোখে ধরা পড়লে আবারও মেয়ের ভাইকে বিষয়টি জানায় ব্যাংক কর্মকর্তা। এবার তাকে ছেড়ে দেয়ার চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত জানান ফারুক এবং মেয়ের ভাই রাকিবও তার বোনকে নিয়ে আসার কথা জানায়। এ নিয়ে তাদের মধ্যে ঝগড়াও হয়। কিন্তু স্বামীর সাথে ছাড়াছাড়ি হয়ে যাওয়ার কথা ভেবে ওই দিন রাতেই মর্জিনা তার প্রেমিক ইউসুফকে বিয়ে করার প্রস্তাব দেয়। ইউসুফ আগে থেকে বিবাহিত হওয়ায় মর্জিনাকে বিয়ে করতে পারবে না বলে জানায়। পরে ওইদিন রাতেই মর্জিনা আত্মহত্যার পথ বেছে নেয় বলে ধারণা করছে তার স্বামী ব্যাংক কর্মকর্তা ওমর ফারুক। তিনি জানান, জেল থেকে বেরিয়ে আমি বিভিন্ন জায়গায় খবর নিয়ে জানতে পারি, আমার স্ত্রীর ওই ছেলের সাথে দীর্ঘ দিনের সম্পর্ক ছিল।

 

আমার অবর্তমানে তারা সবসময় কথা বলত দেখা করত। তাদের সম্পর্কের কথা জানতে পেরে আমি যখন আমার স্ত্রীকে ডিভোর্স দেয়ার কথা বলি। তখন আমার স্ত্রী ঐ ছেলেকে বিয়ের কথা বলে। কিন্তু ঐ ছেলে তাকে বিয়ে করতে অস্বীকৃতি জানালে সে আত্মহত্যার পথ বেছে নেয়। মেয়ের ভাই রাকিব জানায়, আমার বোন একদিন রাতে বাসায় ছিল না বলে তাদের মধ্যে ঝগড়া হয়। বিষয়টি আমাদেরকে বলেছিল। সে কেন আত্মহত্যা করেছে সে বিষয়ে ডায়রিতে সব লিখে গেছে। আমার বোনের সম্পর্কের কথা আমরা জানি না। তবে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক নিহত মর্জিনার বান্ধবী বলেন, আমার বান্ধবীর সাথে ইউসুফ নামের একটা ছেলেকে দেখেছি অনেকবার। তারা বিভিন্ন জায়গায় দেখা করত। তাদের সম্পর্ক কতদিনের সেটা জানি না।

 

এদিকে নিউ গুলশান এলাকায় ব্যাংক কর্মকর্তা ফারুকের প্রতিবেশীদের সাথে কথা বলে জানা যায়, ফারুক ও মর্জিনার সংসারে কখনো ঝগড়া-ঝাটির খবর তারা শুনেননি। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা উপপরিদর্শক এসআই জিয়া বলেন, আত্মহত্যায় প্ররোচনা দেয়ার অভিযোগে নিহত মজিনার স্বামী বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেছেন। আসামীকে গ্রেফতার করেছি। আদালত ৩ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছে। রিমান্ড শেষে সামনের মঙ্গলবার তাকে আবার কারাগারে পাঠানো হবে। ঘটনার সাথে আসামীর সম্পৃক্ততা আছে কিনা সে বিষয়ে এখনো কিছু বলা যাচ্ছে না। তদন্ত চলছে তদন্ত শেষে বিস্তারিত জানা যাবে।

 

 

সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে শেয়ার করুন

সর্বশেষ আপডেট



» আত্রাইয়ে বেগম রোকেয়া দিবস পালিত

» সমুদ্রের মঝে নয়নাভিরাম অপরূপ সৌন্দর্যের হাতছানি।। পাখির কোলাহল আর লাল কাকড়ার লুকোচুরিতে মুখরিত চর বিজয়

» বেনাপোলে শত্রুতা জেরে চাষির ক্ষেতের ফসল আগুনে পুড়ালো দূর্বত্তরা

» বেনাপোল পোর্ট থানা পুলিশের অভিযানে ফেনসিডিলসহ গ্রেপ্তার-১

» কলাপাড়ায় রোকেয়া দিবস উদযাপন।। পাঁচ জয়ীতাকে সম্মাননা ক্রেস্ট প্রদান

» কলাপাড়ায় দুর্নীতি বিরোধী দিবস পালন

» মৌলভীবাজারে আন্তর্জাতিক দুর্ণীতি বিরোধী দিবস- ২০১৯ পালিত

» সবুজ সংকেত পেলেই তবে দিবারাত্রির টেস্ট নিয়ে সিদ্ধান্ত

» বাণিজ্যিক কোর্স পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানে পরিণত করছে

» মাদক মামলায় সম্রাট-আরমানের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র

লাইক দিয়ে সংযুক্ত থাকুন

ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
সহ-সম্পাদক : নুরুজ্জামান কাফি
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com
Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
আজ মঙ্গলবার, ১০ ডিসেম্বর ২০১৯ খ্রিষ্টাব্দ, ২৫শে অগ্রহায়ণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

বান্দরবানে ব্যাংক কর্মকর্তার স্ত্রীকে আত্মহত্যায় প্ররোচনার অভিযোগে এক যুবক গ্রেফতার

ইউটিউবে সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

রিমন পালিতঃ বান্দরবান প্রতিনিধিঃ বান্দরবানে ব্যাংক কর্মকর্তার স্ত্রীর সাথে অনৈতিক সম্পর্ক এবং আত্মহত্যায় প্ররোচনার অভিযোগে ইউসুফ নামে এক যুবককে আজ রাত ১২ টার দিকে তার নিজ বাড়ি থেকে আটক করেছে পুলিশ। উল্লেখ্য যে গত ২৩ ফেব্রুয়ারী রুমা সোনালী ব্যাংক কর্মকর্তার স্ত্রী মর্জিনা আক্তার (২২) স্বামী ও শশুর বাড়ির লোকজনদের দায়ী করে একটি সুইসাইড নোট লিখে নিজ বাসায় সিলিং ফ্যানের সাথে ঝুলে আত্মহত্যা করে।

 

এ ঘটনায় ২৪ ফেব্রুয়ারী পুলিশ ব্যাংক কর্মকর্তা ওমর ফারুককে আটক করে। বর্তমানে ওই যুবককে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। ব্যাংক কর্মকর্তা ফারুক বাদী হয়ে যুবকের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন। পরে ১৩ দিন কারাগারে থেকে জামিনে বের হয় সেই ব্যাংক কর্মকর্তা। এদিকে সুইসাইড নোটে স্বামী ও পরিবারের লোকদের দায়ী করলেও স্বামীর অভিযোগ স্ত্রীর প্রেমের খবর জানতে পারায় তার সাথে আর সংসার করতে না চাইলে সে তার প্রেমিককে বিয়ের কথা বললে প্রেমিক বিয়ে করতে অস্বীকৃতি জানালে মর্জিনা আত্মহত্যা করে। জানা গেছে, পাচঁ বছর আগে বনরুপা পাড়ার কামালের মেয়ে মর্জিনা আক্তারকে বিয়ে করেন সোনালী ব্যাংক রুমা শাখার ক্যাশ অফিসার ওমর ফারুক। তিন বছরের একটি শিশু সন্তানসহ নিউ গুলশান এলাকায় ভাড়া বাসায় বসবাস করছিলেন তারা। ৮ মাস আগে হঠাৎ স্বামী জানতে পারে তার স্ত্রীর সাথে অন্য একটি ছেলের সম্পর্ক রয়েছে- বিষয়টি জানতে পেরে স্ত্রীর বাবা, মা ও ভাইকে বিষয়টি জানান ব্যাংক কর্মকর্তা। এমনকি স্ত্রীকে ডিভোর্স দিতে চাইলে ভবিষ্যতে এমন কাজ আর করবে না বলে স্বামীর কাছে ক্ষমা চায়।

 

পরে সমাজে মানসম্মান আর সন্তানের কথা ভেবে আবারও তার সাথে সংসার শুরু করে। কিন্তু কিছু দিন যেতে না যেতে আবারও সেই ছেলের সাথে মেলামেশা শুরু করে মর্জিনা। স্বামী অফিসের কাজে রুমা গেলে স্ত্রী বান্দরবানে নিজের প্রেমিক ইউসুফের সাথে দেখা করত। গত ২৩ ফেব্রুয়ারী বিষয়টি আবারও স্বামীর চোখে ধরা পড়লে আবারও মেয়ের ভাইকে বিষয়টি জানায় ব্যাংক কর্মকর্তা। এবার তাকে ছেড়ে দেয়ার চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত জানান ফারুক এবং মেয়ের ভাই রাকিবও তার বোনকে নিয়ে আসার কথা জানায়। এ নিয়ে তাদের মধ্যে ঝগড়াও হয়। কিন্তু স্বামীর সাথে ছাড়াছাড়ি হয়ে যাওয়ার কথা ভেবে ওই দিন রাতেই মর্জিনা তার প্রেমিক ইউসুফকে বিয়ে করার প্রস্তাব দেয়। ইউসুফ আগে থেকে বিবাহিত হওয়ায় মর্জিনাকে বিয়ে করতে পারবে না বলে জানায়। পরে ওইদিন রাতেই মর্জিনা আত্মহত্যার পথ বেছে নেয় বলে ধারণা করছে তার স্বামী ব্যাংক কর্মকর্তা ওমর ফারুক। তিনি জানান, জেল থেকে বেরিয়ে আমি বিভিন্ন জায়গায় খবর নিয়ে জানতে পারি, আমার স্ত্রীর ওই ছেলের সাথে দীর্ঘ দিনের সম্পর্ক ছিল।

 

আমার অবর্তমানে তারা সবসময় কথা বলত দেখা করত। তাদের সম্পর্কের কথা জানতে পেরে আমি যখন আমার স্ত্রীকে ডিভোর্স দেয়ার কথা বলি। তখন আমার স্ত্রী ঐ ছেলেকে বিয়ের কথা বলে। কিন্তু ঐ ছেলে তাকে বিয়ে করতে অস্বীকৃতি জানালে সে আত্মহত্যার পথ বেছে নেয়। মেয়ের ভাই রাকিব জানায়, আমার বোন একদিন রাতে বাসায় ছিল না বলে তাদের মধ্যে ঝগড়া হয়। বিষয়টি আমাদেরকে বলেছিল। সে কেন আত্মহত্যা করেছে সে বিষয়ে ডায়রিতে সব লিখে গেছে। আমার বোনের সম্পর্কের কথা আমরা জানি না। তবে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক নিহত মর্জিনার বান্ধবী বলেন, আমার বান্ধবীর সাথে ইউসুফ নামের একটা ছেলেকে দেখেছি অনেকবার। তারা বিভিন্ন জায়গায় দেখা করত। তাদের সম্পর্ক কতদিনের সেটা জানি না।

 

এদিকে নিউ গুলশান এলাকায় ব্যাংক কর্মকর্তা ফারুকের প্রতিবেশীদের সাথে কথা বলে জানা যায়, ফারুক ও মর্জিনার সংসারে কখনো ঝগড়া-ঝাটির খবর তারা শুনেননি। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা উপপরিদর্শক এসআই জিয়া বলেন, আত্মহত্যায় প্ররোচনা দেয়ার অভিযোগে নিহত মজিনার স্বামী বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেছেন। আসামীকে গ্রেফতার করেছি। আদালত ৩ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছে। রিমান্ড শেষে সামনের মঙ্গলবার তাকে আবার কারাগারে পাঠানো হবে। ঘটনার সাথে আসামীর সম্পৃক্ততা আছে কিনা সে বিষয়ে এখনো কিছু বলা যাচ্ছে না। তদন্ত চলছে তদন্ত শেষে বিস্তারিত জানা যাবে।

 

 

সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে শেয়ার করুন

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



Click Here

সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



About Us | Privacy Policy | Terms & Conditions | Contact Us | Sitemap
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
সহ-সম্পাদক : নুরুজ্জামান কাফি
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com

© Copyright BY KuakataNews.Com

Design & Developed BY PopularITLimited