নতুন দা ছুড়ি বানাতে ব্যস্ত কামারীরা- হাতুরির টুং টাং শব্দে মুখরিত সমুদ্র উপকুলের কামার পাড়া

আনোয়ার হোসেন আনু,কুয়াকাটা॥ পটুয়াখালীর কুয়াকাটা সমুদ্র উপকুলসহ পর্যটন উপজেলা কলাপাড়ায় ঈদ-উল-আযহার কোরবানিতে সামনে রেখে নতুন দা,ছুড়ি বানাতে ব্যস্ত সময় পার করছেন কামারীরা। টুং টাং শব্দে মুখরিত উপকুলের হাট বাজারের কামার পাড়া গুলো মুখরিত হয়ে উঠেছে। দিন যতই ঘনিয়ে আসছে ততই বাড়ছে কামারদের ব্যস্ততা। পোড়া কয়লার গন্ধ, হাপরের হাঁসফাঁস, আগুনের শিখা আর হাতুরীর পিটুনীতে তৈরি করা হচ্ছে চকচকে ধারালো দা, বঁটি,চাপাতি, ছুরি,বঁটিসহ মাংস কাটার নানা উপকরণ। শহর থেকে শুরু করে হাট বাজার,গ্রাম সবখানেই কুরবানীর পশু জবাইয়ের উপকরণ বানাতে ভীড় দেখা গেছে কামারের দোকানে। পাশাপাশি পুরানোগুলে নতুন করে শাণ দেওয়ার কাজ। দম ফেলার সুযোগ নেই কামারদের।

 

সরেজমিনে দেখা যায়, কুয়াকাটা,মৎস্যবন্দর আলীপুর-মহিপুর ও কলাপাড়াসহ সমুদ্র উপকুলের বিভিন্ন কামারদের দোকানে কোরবানির পশু কাটা ছেরার জন্য পরিবারের ব্যবহৃত ও অব্যবহৃত সব দা, ছুরি,বটি শাণ দেওয়ার জন্য নিয়ে আসছে কামারদের কাছে। ফলে সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত চলছে কামারদের বিরামহীন ব্যস্ততা। কামারদের দোকানে ক্রেতারা বসে আছেন প্রয়োজনীয় নতুন-পুরানো সামগ্রী নেওয়ার অপেক্ষায়।

 

ক্রেতা মো. আতাহার আলী জানান, অন্য সময়ের চেয়ে দোকানে কর্মচারীদের সংখ্যাও বেড়েছে। আগের বছররের তুলনায় এবছর কোরবানী দেওয়ার জিনিসপত্রের দাম একটু বেশি। কামারপট্টির দোকানী রতন কর্মকার জানান, লোহা পোড়ানোর কয়লা আমাদের প্রধান উপকরণ। বর্তমানে কয়লার দাম অনেক বেড়ে গেছে। ১০ কেজি ওজনের কয়লা কিনতে হয় চারশত টাকা দিয়ে। সাধারনত স্প্রিং লোহা ও কাচা লোহা এই দুই ধরনের লোহা ব্যবহার হয় এসব উপকরন তৈরি করার কাজে। আর কাচা লোহা দিয়ে উপকরণ তৈরি করলে দাম একটু কম। স্প্রিং লোহার তৈরি উপকরণের মান ভালো, দামও একটু বেশি। স্প্রিং লোহা প্রতি কেজি চারশ থেকে ৬শ’ টাকা, সাধারন লোহা ২শ’ থেকে-৩শ’ টাকা। পশুর চামড়া ছাড়ানো ছুড়ি প্রকার ভেদে ১শ’ থেকে ২শ’ টাকা, ধামা, ৫শ’ থেদে ৬শ’ টাকা, দা ১শ’ পঞ্চাশ থেকে ৩শ’ পঞ্চাশ টাকা, বঁটি ২শ’ থেকে ৪শ’ টাকা, চাপাতি ৫শ’ থেকে ১হাজার ৫শ’ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। পুরানো গুলো মেরামতের জন্য কাজের ধরন হিসাবে দাম নেয়া হচ্ছে।

 

বসে নেই ভাসমান দোকানীরাও। ভাসমান দোকানী বঙ্কিম শীল ছোট্ট একটি সাইকেলের আদলে সান দেয়ার যন্ত্র কাঁধে নিয়ে গ্রাম ও পাড়া মহল্লায় ঘুরে ঘুরে পুরানো দা,বঁটি, ছুরি সান দিচ্ছেন। বঙ্কিম শীল জানান, তার মত অনেকেই গ্রামে ও বাসাবাড়ি গিয়ে সান দেওয়ার কাজ করছেন। গৌতম কর্মকার জানান, কোরবানীর ঈদ আসার এক মাস আগেই আমাদের বেচা-কেনা বেড়ে যায়। চায়না কোম্পানীর বিভিন্ন উপকরণ বাজারে আসায় ক্রেতাদের দেশীয় উপকরণ বেচা-কেনা গত বছরের চেয়ে কমে গেছে। এর উপর কর্মচারিদের মজুরী, লোহা ও কয়লার দাম বেড়ে যাওয়ায় লাভ একটু কম। তবে ভালোই বেচা বিক্রি হচ্ছে।

 

সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে শেয়ার করুন

সর্বশেষ আপডেট



» ঝিনাইদহে আন্ত:স্কুল বিজ্ঞান মেলা অনুষ্ঠিত

» কালীগঞ্জে পুঁইশাক ঘুরিয়ে দিয়েছে জাহাঙ্গীর হোসেনের ভাগ্যের চাকা

» নাচোলে লটারির টিকিট বিক্রির অপরাধে ১৩ জনের কারাদন্ড

» যুবলীগের সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনী গণসংযোগ ও সভা অনুষ্ঠিত

» যশোরের প্রাইভেট কার থেকে ৯৪ টি স্বর্ণের উদ্ধার আটক -৩

» জেলা ও উপজেলা প্রশাসনে কর্মরত কর্মচারীদের পদবী পরিবর্তনের দাবীতে কর্মবিরতি

» গোপালগঞ্জ বশেমুরবিপ্রবিতে শিক্ষকদের লাঞ্ছনা, নিগ্রহ ও হুমকির প্রতিবাদে শিক্ষকদের মানববন্ধন

» গোপালগঞ্জ বশেমুরবিপ্রবি ইটিই বিভাগের শিক্ষার্থীদের আমরণ অনশন : দুই শিক্ষার্থী অসুস্থ

» রাণীনগরে ১০ বীরাঙ্গনাকে সংবর্ধনা

» রাণীনগরের আনোয়ার সফলতা পেয়েছেন “স্কোয়াশ” সবজি চাষে

লাইক দিয়ে সংযুক্ত থাকুন

ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
সহ-সম্পাদক : নুরুজ্জামান কাফি
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com
Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
আজ মঙ্গলবার, ২১ জানুয়ারি ২০২০ খ্রিষ্টাব্দ, ৭ই মাঘ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

নতুন দা ছুড়ি বানাতে ব্যস্ত কামারীরা- হাতুরির টুং টাং শব্দে মুখরিত সমুদ্র উপকুলের কামার পাড়া

ইউটিউবে সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

আনোয়ার হোসেন আনু,কুয়াকাটা॥ পটুয়াখালীর কুয়াকাটা সমুদ্র উপকুলসহ পর্যটন উপজেলা কলাপাড়ায় ঈদ-উল-আযহার কোরবানিতে সামনে রেখে নতুন দা,ছুড়ি বানাতে ব্যস্ত সময় পার করছেন কামারীরা। টুং টাং শব্দে মুখরিত উপকুলের হাট বাজারের কামার পাড়া গুলো মুখরিত হয়ে উঠেছে। দিন যতই ঘনিয়ে আসছে ততই বাড়ছে কামারদের ব্যস্ততা। পোড়া কয়লার গন্ধ, হাপরের হাঁসফাঁস, আগুনের শিখা আর হাতুরীর পিটুনীতে তৈরি করা হচ্ছে চকচকে ধারালো দা, বঁটি,চাপাতি, ছুরি,বঁটিসহ মাংস কাটার নানা উপকরণ। শহর থেকে শুরু করে হাট বাজার,গ্রাম সবখানেই কুরবানীর পশু জবাইয়ের উপকরণ বানাতে ভীড় দেখা গেছে কামারের দোকানে। পাশাপাশি পুরানোগুলে নতুন করে শাণ দেওয়ার কাজ। দম ফেলার সুযোগ নেই কামারদের।

 

সরেজমিনে দেখা যায়, কুয়াকাটা,মৎস্যবন্দর আলীপুর-মহিপুর ও কলাপাড়াসহ সমুদ্র উপকুলের বিভিন্ন কামারদের দোকানে কোরবানির পশু কাটা ছেরার জন্য পরিবারের ব্যবহৃত ও অব্যবহৃত সব দা, ছুরি,বটি শাণ দেওয়ার জন্য নিয়ে আসছে কামারদের কাছে। ফলে সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত চলছে কামারদের বিরামহীন ব্যস্ততা। কামারদের দোকানে ক্রেতারা বসে আছেন প্রয়োজনীয় নতুন-পুরানো সামগ্রী নেওয়ার অপেক্ষায়।

 

ক্রেতা মো. আতাহার আলী জানান, অন্য সময়ের চেয়ে দোকানে কর্মচারীদের সংখ্যাও বেড়েছে। আগের বছররের তুলনায় এবছর কোরবানী দেওয়ার জিনিসপত্রের দাম একটু বেশি। কামারপট্টির দোকানী রতন কর্মকার জানান, লোহা পোড়ানোর কয়লা আমাদের প্রধান উপকরণ। বর্তমানে কয়লার দাম অনেক বেড়ে গেছে। ১০ কেজি ওজনের কয়লা কিনতে হয় চারশত টাকা দিয়ে। সাধারনত স্প্রিং লোহা ও কাচা লোহা এই দুই ধরনের লোহা ব্যবহার হয় এসব উপকরন তৈরি করার কাজে। আর কাচা লোহা দিয়ে উপকরণ তৈরি করলে দাম একটু কম। স্প্রিং লোহার তৈরি উপকরণের মান ভালো, দামও একটু বেশি। স্প্রিং লোহা প্রতি কেজি চারশ থেকে ৬শ’ টাকা, সাধারন লোহা ২শ’ থেকে-৩শ’ টাকা। পশুর চামড়া ছাড়ানো ছুড়ি প্রকার ভেদে ১শ’ থেকে ২শ’ টাকা, ধামা, ৫শ’ থেদে ৬শ’ টাকা, দা ১শ’ পঞ্চাশ থেকে ৩শ’ পঞ্চাশ টাকা, বঁটি ২শ’ থেকে ৪শ’ টাকা, চাপাতি ৫শ’ থেকে ১হাজার ৫শ’ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। পুরানো গুলো মেরামতের জন্য কাজের ধরন হিসাবে দাম নেয়া হচ্ছে।

 

বসে নেই ভাসমান দোকানীরাও। ভাসমান দোকানী বঙ্কিম শীল ছোট্ট একটি সাইকেলের আদলে সান দেয়ার যন্ত্র কাঁধে নিয়ে গ্রাম ও পাড়া মহল্লায় ঘুরে ঘুরে পুরানো দা,বঁটি, ছুরি সান দিচ্ছেন। বঙ্কিম শীল জানান, তার মত অনেকেই গ্রামে ও বাসাবাড়ি গিয়ে সান দেওয়ার কাজ করছেন। গৌতম কর্মকার জানান, কোরবানীর ঈদ আসার এক মাস আগেই আমাদের বেচা-কেনা বেড়ে যায়। চায়না কোম্পানীর বিভিন্ন উপকরণ বাজারে আসায় ক্রেতাদের দেশীয় উপকরণ বেচা-কেনা গত বছরের চেয়ে কমে গেছে। এর উপর কর্মচারিদের মজুরী, লোহা ও কয়লার দাম বেড়ে যাওয়ায় লাভ একটু কম। তবে ভালোই বেচা বিক্রি হচ্ছে।

 

সংবাদটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে শেয়ার করুন

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



Click Here

সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



About Us | Privacy Policy | Terms & Conditions | Contact Us | Sitemap
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
সহ-সম্পাদক : নুরুজ্জামান কাফি
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com

© Copyright BY KuakataNews.Com

Design & Developed BY PopularITLimited