সম্মাননা ক্রেষ্ট হাতে পেয়ে খুশিতে কেঁদে দিলেন আওয়ামীলীগ প্রবীন নেতা রনধীর দত্ত

Spread the love

উত্তম কুমার হাওলাদার,কলাপাড়া(পটুয়াখালী)প্রতিনিধি, ২৪ জুন।। রনধীর দত্ত। বয়স ৮০ বছর। মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন সময় তার ভূমিকা ছিল অপরীসিম। তিনি সব সময় যোদ্ধাদের খোঁজ খবর রাখতেন। যোদ্ধাদের বিভিন্ন রকমের সহযোগীতা করতেন। এছাড়া ৭১ থেকে পটুয়াখারীর কলাপাড়া উপজেলা আওয়ামীলীগের দুরর্দিনের কান্ডারি ছিলেন তিনি। কিন্তু আজ তিনি অবহেলিত। বর্তমানে তিনি বর্ধক্য রোগে ভুগছেন। রবিবার আওয়ামীলীগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর দিন আওয়ালীগের প্রতিষ্ঠাকালীন প্রচার সম্পাদক থাকায় তাকে ক্রেষ্ট দিয়ে সম্মাননা জানান উপজেলা আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দ। সম্মাননার ক্রেষ্ট হাতে পেয়ে খুশিতে কেদেঁ দিলেন তিনি। তার সাথে কথা হলে প্রবীন এই নেতা রনধীর দত্ত বলেন, ৭৫ পরবর্তি সময়ে আওয়ামীলীগের কোন অফিস ছিলনা কলাপাড়ায়।

 

সুতাপট্রির তার দোকানই ছিল আওয়ামীলীগের মিনি অফিস। তখন তার রাজনিতি সহযোদ্ধা ছিলেন ডা.কাসেম, হাসেম মির সাহেব, ইসমাইল তালুকদার, আনোয়ার উল ইসলাম, ননী সেন, রব মিয়া, হাবলু বিশ্বাস, নাজিম মিরা, মাহাতাব মৃধা, খালেক মিরা, মোতালেব খলিফা, জামাল বেপারিসহ আরো অনেক নেতা। তৎকালীন সময় তারা সবাই তাকে বানিয়েছিলেন উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি। সব সভা সমাবেশের সিদ্ধান্ত হত তার দোকান থেকেই। সৈরাচার বিরোধী আন্দোলনে অনেক বার তিনি লাঞ্চিতসহ মারধরের স্বীকার হয়েছি। আজ আমাকে সম্মাননা জানান জানিয়েছে। আমি আওয়ামীলীগের নেতা কর্মীকে ধন্যাবাদ জানাই।

 

তিনি আরো বলেন, ৭ ই মার্চ বঙ্গপিতা নির্দেশ দিয়েছিলেন প্রত্যেক গ্রামে প্রত্যেক মহল্লায় সংগ্রাম কমিটি গঠন করার। তৎকালীন আওয়ামীলীগ সভাপতি ছিলেন ডা.কাসেম ও সাধারন সম্পাদক ছিলেন ইসমাইল তালুকদার। তাদের নিয়ে এই প্রবীন নেতা গঠন করে ছিলাম সংগ্রাম কমিটি। ৮০’র দশকে কলাপাড়া উপজেলা আওয়ামীলীগের দপ্তর ও প্রচার সম্পাদক দায়িত্ব পালন করি। এর পর ৯০ থেকে ৯৬ সাল পর্যন্ত উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতির হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছি। বর্তমানে উপদেস্টা মন্ডলির সদস্য। আজীবন আন্দোলন সংগ্রামের মধ্য দিয়ে নিজেকে আওয়ামীলীগের কর্মী বলে গর্ববোধ করেন তিনি। সে বরিশাল বিএম কলেজ থেকে বিএ পাশ করেন। এর পর কলাপাড়ার স্থানীয় আওয়ামীলীগের রাজনীতির সাথে জরিয়ে পরেন। পরিবারিক সূত্রে জানা গেছে, তার পিতা গঙ্গা সাগর দত্ত। বর্তমানে এক ছেলে, তিন মেয়ে ও স্ত্রী নিয়ে বসবাস। ছেলে মেয়েদের সু-শিক্ষায় শিক্ষিত করে তুললেও তাদের ভাগ্যে জোটেনি চাকুরী। কিন্তু দুর্ভাগ্যের বিষয় হলো আওয়ামীলীগ ক্ষমতার দশ বছরেও কোন নেতা খবর নেইনি এই প্রবীন নেতার।

 

শেষ বয়সে প্রধানমন্ত্রীর কাছে একটাই দাবি তিনি যেন মৃত্যুর আগে মুক্তিযোদ্ধা সনদ পান। সবশেষে তিনি মুজিবকন্যা শেখ হাসিনার দীর্ঘায়ু কামনা করেন। প্রবীন নেতা রনধীর দত্ত’র ছেলে দেবরাজ দত্ত জানান, আমার বাবার রাজনীতির শেষ বয়সে উপজেলা আওয়ামীলীগ আজ যে সম্মান দিয়েছে এতেই আমরা খুশি। উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক ও উপজেলা চেয়ারম্যান এস এম রাকিবুল আহসান জানান, রন দা অত্যান্ত ভাল মনের মানুষ। সে প্রতিষ্ঠাকালীন আওয়ামীলীগের দপ্তর ও প্রচার সম্পাদক ছিলেন। আওয়ামীলীগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর দিন তার হতে সম্মাননা দিয়েছি। প্রতিবছরই এভাবে দলের প্রবীন ও ত্যাগী নেতাদের মূল্যায়িত করা হবে।

 

 

নিউজটি শেয়ার করুন:

সর্বশেষ আপডেট



» ৭৮ কোটি ৩০ লক্ষ বার দেখা হয়েছে যেই গান ভিডিও সহ

» গাইবান্ধায় বন্যা পরিস্থিতি ভয়াবহ, ৫ লাখ মানুষ পানিবন্দি

» তুরস্কে বাস উল্টে বাংলাদেশিসহ ১৭ জনের মৃত্যু

» খালেদা জিয়ার কারামুক্তিতে বাধা সরকার: মির্জা ফখরুল

» নেত্রকোনায় ব্যাগের ভেতর শিশুর কাটা মাথা, গণপিটুনিতে যুবক নিহত

» প্রেমের টানে আমেরিকান নারী এখন লক্ষ্মীপুরে

» জাতীয় পার্টির নতুন চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্বভার গ্রহণ করেছেন জিএম কাদের

» পটুয়াখালীর গলাচিপায় জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ পালিত

» যশোরের শার্শা উপজেলায় জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ পালিত

» রাংঙ্গাবালী উপজেলায় বর্জ্রপাতে এক জনের মৃত্যু

লাইক দিয়ে সংযুক্ত থাকুন

ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
সহ-সম্পাদক : নুরুজ্জামান কাফি
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com
Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
আজ শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০১৯ খ্রিষ্টাব্দ, ৪ঠা শ্রাবণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

সম্মাননা ক্রেষ্ট হাতে পেয়ে খুশিতে কেঁদে দিলেন আওয়ামীলীগ প্রবীন নেতা রনধীর দত্ত

ইউটিউবে সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:
Spread the love

উত্তম কুমার হাওলাদার,কলাপাড়া(পটুয়াখালী)প্রতিনিধি, ২৪ জুন।। রনধীর দত্ত। বয়স ৮০ বছর। মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন সময় তার ভূমিকা ছিল অপরীসিম। তিনি সব সময় যোদ্ধাদের খোঁজ খবর রাখতেন। যোদ্ধাদের বিভিন্ন রকমের সহযোগীতা করতেন। এছাড়া ৭১ থেকে পটুয়াখারীর কলাপাড়া উপজেলা আওয়ামীলীগের দুরর্দিনের কান্ডারি ছিলেন তিনি। কিন্তু আজ তিনি অবহেলিত। বর্তমানে তিনি বর্ধক্য রোগে ভুগছেন। রবিবার আওয়ামীলীগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর দিন আওয়ালীগের প্রতিষ্ঠাকালীন প্রচার সম্পাদক থাকায় তাকে ক্রেষ্ট দিয়ে সম্মাননা জানান উপজেলা আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দ। সম্মাননার ক্রেষ্ট হাতে পেয়ে খুশিতে কেদেঁ দিলেন তিনি। তার সাথে কথা হলে প্রবীন এই নেতা রনধীর দত্ত বলেন, ৭৫ পরবর্তি সময়ে আওয়ামীলীগের কোন অফিস ছিলনা কলাপাড়ায়।

 

সুতাপট্রির তার দোকানই ছিল আওয়ামীলীগের মিনি অফিস। তখন তার রাজনিতি সহযোদ্ধা ছিলেন ডা.কাসেম, হাসেম মির সাহেব, ইসমাইল তালুকদার, আনোয়ার উল ইসলাম, ননী সেন, রব মিয়া, হাবলু বিশ্বাস, নাজিম মিরা, মাহাতাব মৃধা, খালেক মিরা, মোতালেব খলিফা, জামাল বেপারিসহ আরো অনেক নেতা। তৎকালীন সময় তারা সবাই তাকে বানিয়েছিলেন উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি। সব সভা সমাবেশের সিদ্ধান্ত হত তার দোকান থেকেই। সৈরাচার বিরোধী আন্দোলনে অনেক বার তিনি লাঞ্চিতসহ মারধরের স্বীকার হয়েছি। আজ আমাকে সম্মাননা জানান জানিয়েছে। আমি আওয়ামীলীগের নেতা কর্মীকে ধন্যাবাদ জানাই।

 

তিনি আরো বলেন, ৭ ই মার্চ বঙ্গপিতা নির্দেশ দিয়েছিলেন প্রত্যেক গ্রামে প্রত্যেক মহল্লায় সংগ্রাম কমিটি গঠন করার। তৎকালীন আওয়ামীলীগ সভাপতি ছিলেন ডা.কাসেম ও সাধারন সম্পাদক ছিলেন ইসমাইল তালুকদার। তাদের নিয়ে এই প্রবীন নেতা গঠন করে ছিলাম সংগ্রাম কমিটি। ৮০’র দশকে কলাপাড়া উপজেলা আওয়ামীলীগের দপ্তর ও প্রচার সম্পাদক দায়িত্ব পালন করি। এর পর ৯০ থেকে ৯৬ সাল পর্যন্ত উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতির হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছি। বর্তমানে উপদেস্টা মন্ডলির সদস্য। আজীবন আন্দোলন সংগ্রামের মধ্য দিয়ে নিজেকে আওয়ামীলীগের কর্মী বলে গর্ববোধ করেন তিনি। সে বরিশাল বিএম কলেজ থেকে বিএ পাশ করেন। এর পর কলাপাড়ার স্থানীয় আওয়ামীলীগের রাজনীতির সাথে জরিয়ে পরেন। পরিবারিক সূত্রে জানা গেছে, তার পিতা গঙ্গা সাগর দত্ত। বর্তমানে এক ছেলে, তিন মেয়ে ও স্ত্রী নিয়ে বসবাস। ছেলে মেয়েদের সু-শিক্ষায় শিক্ষিত করে তুললেও তাদের ভাগ্যে জোটেনি চাকুরী। কিন্তু দুর্ভাগ্যের বিষয় হলো আওয়ামীলীগ ক্ষমতার দশ বছরেও কোন নেতা খবর নেইনি এই প্রবীন নেতার।

 

শেষ বয়সে প্রধানমন্ত্রীর কাছে একটাই দাবি তিনি যেন মৃত্যুর আগে মুক্তিযোদ্ধা সনদ পান। সবশেষে তিনি মুজিবকন্যা শেখ হাসিনার দীর্ঘায়ু কামনা করেন। প্রবীন নেতা রনধীর দত্ত’র ছেলে দেবরাজ দত্ত জানান, আমার বাবার রাজনীতির শেষ বয়সে উপজেলা আওয়ামীলীগ আজ যে সম্মান দিয়েছে এতেই আমরা খুশি। উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক ও উপজেলা চেয়ারম্যান এস এম রাকিবুল আহসান জানান, রন দা অত্যান্ত ভাল মনের মানুষ। সে প্রতিষ্ঠাকালীন আওয়ামীলীগের দপ্তর ও প্রচার সম্পাদক ছিলেন। আওয়ামীলীগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর দিন তার হতে সম্মাননা দিয়েছি। প্রতিবছরই এভাবে দলের প্রবীন ও ত্যাগী নেতাদের মূল্যায়িত করা হবে।

 

 

নিউজটি শেয়ার করুন:

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



Click Here

সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



About Us | Privacy Policy | Terms & Conditions | Contact Us | Sitemap
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
সহ-সম্পাদক : নুরুজ্জামান কাফি
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com

© Copyright BY KuakataNews.Com

Design & Developed BY PopularITLimited