ভেদরগঞ্জের মহিষারে অতি দরিদ্র কর্মসংস্থান প্রকল্পের টাকা আত্মসাতের পায়তারা

Spread the love

শরীয়তপুর প্রতিনিধি: শরীয়তপুরের ভেদরগঞ্জ উপজেলা মহিষার ইউনিয়নের ২০১৮-২০১৯ অর্থ বছরের ২য় পর্যায় অতি দরিদ্রের জন্য কর্মসংস্থান প্রকল্পের অর্থ ইউপি সদস্য ও চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে আত্মসাতের পায়তারা করছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এদিকে সঠিক ভাবে কাজ না করায় এলাকাবাসী তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেছে।

 

ভেদরগঞ্জ উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিসসূত্রে জানা যায়, ভেদরগঞ্জ উপজেলার মহিষার ইউনিয়নে ৬ টি প্রকল্প বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। এ ৬ টি প্রকল্পে সর্বমোট ২০২ জন অতিদরিদ্র শ্রমিক কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা রয়েছে। সরকারি বিধি অনুযায়ী জনপ্রতি শ্রমিকের মজুরি ২০০ টাকা হলেও ৪০০/৫০০ টাকার কমে কোন শ্রমিক পাওয়া যায় না। এদিকে গত ১৯ মে রবিবার সরেজমিন ঘুরে ৬ টি প্রকল্পের মধ্যে ৪ টি প্রকল্পে মাত্র ২৬ জন শ্রমিককে কাজ করতে দেখা যায়।

 

প্রকল্পগুলো হলো ১ নং ওয়ার্ড উত্তর মহিষার আলী মৃধার বাড়ি পাকা সড়ক হইতে শংকর মন্ডলের বাড়ি পর্যন্ত মাটির রাস্তা পুন:নির্মাণ বরাদ্দ শ্রমিক সংখ্যা ৩৩ জন সেখানে কোন শ্রমিককে কাজ করতে দেখা যায়নি। ৩ নং ওয়ার্ড মধ্য মহিষার মানিক দাসের জমি হইতে রতন ছৈয়ালের জমি পর্যন্ত মাটির রাস্তা পুন:নির্মাণের জন্য ৩৭ জন শ্রমিক বারদ্ধ থাকলেও দেখা যায় মাত্র ৫ জন। ৪ নং ওয়ার্ড মধ্য মহিষার সবুজ হাওলাদারের বাড়ি হতে বারেক সরদারের বাড়ি পর্যন্ত মাটির রাস্তা পুন:নির্মাণের জন্য ৩৩ শ্রমিক শ্রমিক বারদ্ধ থাকলেও দেখা যায় ৬ জন। ৫ নং ওয়ার্ড পুটিজুরি আতাই হাওলাদারের জমি হইতে পুটিজুরি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় পর্যন্ত মাটির রাস্তা পুন:নির্মাণের জন্য ৩৩ জন শ্রমিক বরাদ্ধ রয়েছে।

 

তবে সেখানে কোন শ্রমিককে কাজ করতে দেখা যায়নি। এলাকাবাসীরা জানান, ১ সপ্তাহ যাবৎ কোন শ্রমিক এই প্রকল্পে কাজ করতে দেখা যায়নি। ৮ নং ওয়ার্ড ইসলামপুর গফুর ছৈয়ালের বাড়ি হতে হাসেম বেপারীর বাড়ি পর্যন্ত মাটির রাস্তার নির্মাণের জন্য ৩৩ জন শ্রমিক বরাদ্ধ থাকলেও কাজ করতে দেখা যায় মাত্র ৮ জন। ৯ নং ওয়ার্ড জাজিয়াহার কাবিল খার বাড়ি হতে হারুন ছৈয়ালের বাড়ি পর্যন্ত মাটির রাস্তা পুন:নির্মাণের জন্য ৩৩জন শ্রমিক বরাদ্ধ থাকলেও কাজ করতে দেখা যায় মাত্র ৭ জন। দুইশত টাকা হারে ২০২ জন শ্রমিকের প্রতিদিন মজুরি ৪০,৪০০ টাকা।

 

পাঁচশত টাকা হারে ২৬ জন শ্রমিকের মজুরি ১৩,০০০ টাকা। প্রতিদিন আত্মসাৎ হচ্ছে ২৭,৪০০ টাকা। ৪০ কার্যদিবসে আত্মসাৎ হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে ১০,৯৬,০০০ টাকা। এদিকে নাম প্রকাশ না করার শর্তে ইউনিয়ন পরিষদের কয়েকজন সদস্য বলেন, চেয়ারম্যান হাজী নুরুল ইসলাম শিকদার যেভাবে বলে, সেভাবেই চলে। আমরা অসহায়। আমাদের কিছু করার নেই।
বলেন, এদিকে সঠিক ভাবে কাজ না করায় এলাকাবাসী তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেছে।

 

এ ব্যাপারে ভেদেরগঞ্জ উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মো. হুমায়ুন কবির বলেন, যদি কোন প্রকল্পের সভাপতি শ্রমিক কম খাটিয়ে প্রকল্পের কাজের বিঘœ ঘটায় তার বিরুদ্ধে প্রকল্পের বিধি মোতাবেক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। এদিকে মহিষার ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হাজী নুরুল ইসলাম শিকদারের বক্তব্যের জন্য বারবার চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায় নি।

 

 

নিউজটি শেয়ার করুন:

সর্বশেষ আপডেট



» মৌলভীবাজারের মনু নদীর পানি কমতে শুরু করেছে

» মৌলভীবাজারে আধুনিক চক্ষু হাসপাতালের শুভ উদ্বোধন

» কুয়াকাটায় পর্যটকদের হয়রানী বন্ধে সচেতনতামুলক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত

» কলাপাড়ায় জমকলো অনুষ্ঠানে ফুটবল টুর্নামেন্ট লীগের উদ্বোধন

» রোহিঙ্গা সংকট সমাধান না হলে অস্থিতিশীল হবে এশিয়া: রাষ্ট্রপতি

» শরীয়তপুরে আগুনে পুরে নিহত ১

» বাজেট প্রত্যাখ্যান ড. কামালের, কর্মসূচি দিচ্ছে ঐক্যফ্রন্ট

» ঈদযাত্রায় দুর্ঘটনায় নিহত ২৯৮, আহত ৮৬০ : যাত্রী কল্যাণ সমিতি

» তৃণমূলের টানে রাজনীতিতে সক্রিয় হতে চান বিদিশা

» আষাঢ়ের প্রথম দিনেই স্বস্তির বৃষ্টি

লাইক দিয়ে সংযুক্ত থাকুন








ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
সহ-সম্পাদক : নুরুজ্জামান কাফি
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com
Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
আজ রবিবার, ১৬ জুন ২০১৯ খ্রিষ্টাব্দ, ২রা আষাঢ় ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

ভেদরগঞ্জের মহিষারে অতি দরিদ্র কর্মসংস্থান প্রকল্পের টাকা আত্মসাতের পায়তারা

ইউটিউবে সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:
Spread the love

শরীয়তপুর প্রতিনিধি: শরীয়তপুরের ভেদরগঞ্জ উপজেলা মহিষার ইউনিয়নের ২০১৮-২০১৯ অর্থ বছরের ২য় পর্যায় অতি দরিদ্রের জন্য কর্মসংস্থান প্রকল্পের অর্থ ইউপি সদস্য ও চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে আত্মসাতের পায়তারা করছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এদিকে সঠিক ভাবে কাজ না করায় এলাকাবাসী তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেছে।

 

ভেদরগঞ্জ উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিসসূত্রে জানা যায়, ভেদরগঞ্জ উপজেলার মহিষার ইউনিয়নে ৬ টি প্রকল্প বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। এ ৬ টি প্রকল্পে সর্বমোট ২০২ জন অতিদরিদ্র শ্রমিক কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা রয়েছে। সরকারি বিধি অনুযায়ী জনপ্রতি শ্রমিকের মজুরি ২০০ টাকা হলেও ৪০০/৫০০ টাকার কমে কোন শ্রমিক পাওয়া যায় না। এদিকে গত ১৯ মে রবিবার সরেজমিন ঘুরে ৬ টি প্রকল্পের মধ্যে ৪ টি প্রকল্পে মাত্র ২৬ জন শ্রমিককে কাজ করতে দেখা যায়।

 

প্রকল্পগুলো হলো ১ নং ওয়ার্ড উত্তর মহিষার আলী মৃধার বাড়ি পাকা সড়ক হইতে শংকর মন্ডলের বাড়ি পর্যন্ত মাটির রাস্তা পুন:নির্মাণ বরাদ্দ শ্রমিক সংখ্যা ৩৩ জন সেখানে কোন শ্রমিককে কাজ করতে দেখা যায়নি। ৩ নং ওয়ার্ড মধ্য মহিষার মানিক দাসের জমি হইতে রতন ছৈয়ালের জমি পর্যন্ত মাটির রাস্তা পুন:নির্মাণের জন্য ৩৭ জন শ্রমিক বারদ্ধ থাকলেও দেখা যায় মাত্র ৫ জন। ৪ নং ওয়ার্ড মধ্য মহিষার সবুজ হাওলাদারের বাড়ি হতে বারেক সরদারের বাড়ি পর্যন্ত মাটির রাস্তা পুন:নির্মাণের জন্য ৩৩ শ্রমিক শ্রমিক বারদ্ধ থাকলেও দেখা যায় ৬ জন। ৫ নং ওয়ার্ড পুটিজুরি আতাই হাওলাদারের জমি হইতে পুটিজুরি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় পর্যন্ত মাটির রাস্তা পুন:নির্মাণের জন্য ৩৩ জন শ্রমিক বরাদ্ধ রয়েছে।

 

তবে সেখানে কোন শ্রমিককে কাজ করতে দেখা যায়নি। এলাকাবাসীরা জানান, ১ সপ্তাহ যাবৎ কোন শ্রমিক এই প্রকল্পে কাজ করতে দেখা যায়নি। ৮ নং ওয়ার্ড ইসলামপুর গফুর ছৈয়ালের বাড়ি হতে হাসেম বেপারীর বাড়ি পর্যন্ত মাটির রাস্তার নির্মাণের জন্য ৩৩ জন শ্রমিক বরাদ্ধ থাকলেও কাজ করতে দেখা যায় মাত্র ৮ জন। ৯ নং ওয়ার্ড জাজিয়াহার কাবিল খার বাড়ি হতে হারুন ছৈয়ালের বাড়ি পর্যন্ত মাটির রাস্তা পুন:নির্মাণের জন্য ৩৩জন শ্রমিক বরাদ্ধ থাকলেও কাজ করতে দেখা যায় মাত্র ৭ জন। দুইশত টাকা হারে ২০২ জন শ্রমিকের প্রতিদিন মজুরি ৪০,৪০০ টাকা।

 

পাঁচশত টাকা হারে ২৬ জন শ্রমিকের মজুরি ১৩,০০০ টাকা। প্রতিদিন আত্মসাৎ হচ্ছে ২৭,৪০০ টাকা। ৪০ কার্যদিবসে আত্মসাৎ হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে ১০,৯৬,০০০ টাকা। এদিকে নাম প্রকাশ না করার শর্তে ইউনিয়ন পরিষদের কয়েকজন সদস্য বলেন, চেয়ারম্যান হাজী নুরুল ইসলাম শিকদার যেভাবে বলে, সেভাবেই চলে। আমরা অসহায়। আমাদের কিছু করার নেই।
বলেন, এদিকে সঠিক ভাবে কাজ না করায় এলাকাবাসী তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেছে।

 

এ ব্যাপারে ভেদেরগঞ্জ উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মো. হুমায়ুন কবির বলেন, যদি কোন প্রকল্পের সভাপতি শ্রমিক কম খাটিয়ে প্রকল্পের কাজের বিঘœ ঘটায় তার বিরুদ্ধে প্রকল্পের বিধি মোতাবেক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। এদিকে মহিষার ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হাজী নুরুল ইসলাম শিকদারের বক্তব্যের জন্য বারবার চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায় নি।

 

 

নিউজটি শেয়ার করুন:

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



Click Here



সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



About Us | Privacy Policy | Terms & Conditions | Contact Us | Sitemap
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
সহ-সম্পাদক : নুরুজ্জামান কাফি
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com

© Copyright BY KuakataNews.Com

Design & Developed BY PopularITLimited