কলাপাড়া হাসপাতালে সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে সাধারণ মানুষ, সেবা মিলছে ল্যাবগুলোতে

Spread the love

এস এম আলমগীর হোসেন: কলাপাড়া হাসপাতাল। প্রায় ২ লক্ষ মানুষের শেষ ভরসা। তার উপরে রয়েছেরপার্শ্ববর্তী উপজেলা আমতলী ও তালতলী থেকেও ছুটে আসে এ হাসপাতালে। অথচ এ হাসপাতাল থেকে সরকারি কোন সুযোগ সুবিধা পাচ্ছে না রোগীরা। এতে বঞ্চিত হচ্ছে সরকারি সুযোগ-সুবিধা থেকে। টাকার বিনিময় রোগীদের ভিজিটের মাধ্যমে রোগী দেখা হয় কতিপয় ডাক্তারদের বাণিজ্য কেন্দ্রে (ল্যাব-ক্লিনিক)গুলোতে। যেন দেখার কেউ নেই। কলাপাড়া হাসপাতালে প্রতিদিনই দূর-দূরান্ত থেকে স্বাস্থ্য সেবা নিতে আসেন সাধারণ রোগীরা। কিন্তু অফিস টাইমে ডাক্তার পাড়ছে না।

 

অফিস টাইমে কিছু ডাক্তার পেলেও সিরিয়ালে থাকতে থাকতেই অফিসের টাইম শেষ হয়ে যায়। অফিসে টাইম শেষ হওয়ায় রোগীদের যেতে হয় তাদের নির্দিষ্ট বাণিজ্য কেন্দ্র। হাসপাতালে গিয়ে সাধারন রোগীদের সাথে বললে কর্মরত ডাক্তারের বিভিন্ন অনিয়ম উঠে আসে। ল্যাবে বাণিজ্য, হাসপাতালে না থাকার অভিযোগ এসেছে অনেকের মুখ থেকে। পার্শ্ববর্তী আমতলী উপজেলা, মহিপুর থানা, চাকমাইয়া নীলগঞ্জ ধুলাসার ও টিয়াখালী ইউনিয়নের কয়েকজন রোগীদের জানান, কলাপাড়া হাসপাতালে ডাক্তার পাচ্ছে না। বারিন্দায় অপেক্ষা করছে ডাক্তারের জন্য। অথচ ডাক্তার আসার কথা সকাল ১০ টার মধ্যে। কিন্তু ডাক্তার আসে বেলা ১১ টার পর। ১১ টার পর আসলেও তারা ব্যস্ত তাদের অফিসের কাজ কিংবা উপরে ভর্তি রোগীদের নিয়ে।

 

রোগীরা আরও বলেন, ডাক্তারগণ অফিস টাইম আগেই উপরে ভর্তি রোগীদের রাউন্ড দেওয়ার কথা। কিন্তু এখন দেখি উল্টো। তারা অফিস চলাকালীন সময় এগারোটায় ডাক্তার আসে না। ১১ টার পর আসলেও তাও ভর্তি রোগী এবং অফিসে কাজ নিয়ে ব্যস্ত থাকেন। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ১১ টার পর ডাক্তার আসে তারপর উপরে ফেসবুক বা ভর্তি’র কাগজপত্র নিয়ে তারা সময় পার করছে। তারপর চেম্বারে আসে। রোগীদের নাম খাতায় এন্টি করা শুরু করেন। এন্টি করতে করতে শেষ হয়ে যায় অফিসের টাইম। তারপর স্লিপটি তাদের হাতে দিয়েই চলে যান নির্দিষ্ট ল্যাবে। চলে গভীর রাত পর্যন্ত বাণিজ্য।

 

রোগীদের ৩০০ টাকা ভিজিট তার, উপর টেস্ট বাণিজ্য তো আছিই। ভর্তি থাকা রোগীরা এও বলেন, ভর্তি হওয়ার পর থেকেই ডাক্তার দেখা পাচ্ছে না। অনেক রোগীদের সমস্যা হলে নিজেরাই ডাক্তারের চেম্বারে কিংবা তাদের ল্যাব যেতে হয়। তাও ঘন্টার পর ঘন্টা বসে থাকতে হয়। এ ব্যাপারে স্বাস্থ্য প্রশাসক ডা: চিন্ময় হাওলাদার বলেন, হাসপাতালে বর্তমানে ডাক্তার সংকট আছে। আমি চেষ্টা করে যাচ্ছি কিভাবে ডাক্তার আনা যায় এবং অনেক সময় দুই একজন ডাক্তার থাকার কারণেই রোগীদের সামলাইতে সমস্যা হচ্ছে। কর্মরত ডাক্তার অনেক সময় নাইট ডিউটি করে থাকে। তার জন্য চেম্বারে আসতে দেরি হয়।

 

নিউজটি শেয়ার করুন:

সর্বশেষ আপডেট



» মৌলভীবাজারের মনু নদীর পানি কমতে শুরু করেছে

» মৌলভীবাজারে আধুনিক চক্ষু হাসপাতালের শুভ উদ্বোধন

» কুয়াকাটায় পর্যটকদের হয়রানী বন্ধে সচেতনতামুলক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত

» কলাপাড়ায় জমকলো অনুষ্ঠানে ফুটবল টুর্নামেন্ট লীগের উদ্বোধন

» রোহিঙ্গা সংকট সমাধান না হলে অস্থিতিশীল হবে এশিয়া: রাষ্ট্রপতি

» শরীয়তপুরে আগুনে পুরে নিহত ১

» বাজেট প্রত্যাখ্যান ড. কামালের, কর্মসূচি দিচ্ছে ঐক্যফ্রন্ট

» ঈদযাত্রায় দুর্ঘটনায় নিহত ২৯৮, আহত ৮৬০ : যাত্রী কল্যাণ সমিতি

» তৃণমূলের টানে রাজনীতিতে সক্রিয় হতে চান বিদিশা

» আষাঢ়ের প্রথম দিনেই স্বস্তির বৃষ্টি

লাইক দিয়ে সংযুক্ত থাকুন








ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
সহ-সম্পাদক : নুরুজ্জামান কাফি
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com
Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
আজ রবিবার, ১৬ জুন ২০১৯ খ্রিষ্টাব্দ, ২রা আষাঢ় ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

কলাপাড়া হাসপাতালে সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে সাধারণ মানুষ, সেবা মিলছে ল্যাবগুলোতে

ইউটিউবে সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:
Spread the love

এস এম আলমগীর হোসেন: কলাপাড়া হাসপাতাল। প্রায় ২ লক্ষ মানুষের শেষ ভরসা। তার উপরে রয়েছেরপার্শ্ববর্তী উপজেলা আমতলী ও তালতলী থেকেও ছুটে আসে এ হাসপাতালে। অথচ এ হাসপাতাল থেকে সরকারি কোন সুযোগ সুবিধা পাচ্ছে না রোগীরা। এতে বঞ্চিত হচ্ছে সরকারি সুযোগ-সুবিধা থেকে। টাকার বিনিময় রোগীদের ভিজিটের মাধ্যমে রোগী দেখা হয় কতিপয় ডাক্তারদের বাণিজ্য কেন্দ্রে (ল্যাব-ক্লিনিক)গুলোতে। যেন দেখার কেউ নেই। কলাপাড়া হাসপাতালে প্রতিদিনই দূর-দূরান্ত থেকে স্বাস্থ্য সেবা নিতে আসেন সাধারণ রোগীরা। কিন্তু অফিস টাইমে ডাক্তার পাড়ছে না।

 

অফিস টাইমে কিছু ডাক্তার পেলেও সিরিয়ালে থাকতে থাকতেই অফিসের টাইম শেষ হয়ে যায়। অফিসে টাইম শেষ হওয়ায় রোগীদের যেতে হয় তাদের নির্দিষ্ট বাণিজ্য কেন্দ্র। হাসপাতালে গিয়ে সাধারন রোগীদের সাথে বললে কর্মরত ডাক্তারের বিভিন্ন অনিয়ম উঠে আসে। ল্যাবে বাণিজ্য, হাসপাতালে না থাকার অভিযোগ এসেছে অনেকের মুখ থেকে। পার্শ্ববর্তী আমতলী উপজেলা, মহিপুর থানা, চাকমাইয়া নীলগঞ্জ ধুলাসার ও টিয়াখালী ইউনিয়নের কয়েকজন রোগীদের জানান, কলাপাড়া হাসপাতালে ডাক্তার পাচ্ছে না। বারিন্দায় অপেক্ষা করছে ডাক্তারের জন্য। অথচ ডাক্তার আসার কথা সকাল ১০ টার মধ্যে। কিন্তু ডাক্তার আসে বেলা ১১ টার পর। ১১ টার পর আসলেও তারা ব্যস্ত তাদের অফিসের কাজ কিংবা উপরে ভর্তি রোগীদের নিয়ে।

 

রোগীরা আরও বলেন, ডাক্তারগণ অফিস টাইম আগেই উপরে ভর্তি রোগীদের রাউন্ড দেওয়ার কথা। কিন্তু এখন দেখি উল্টো। তারা অফিস চলাকালীন সময় এগারোটায় ডাক্তার আসে না। ১১ টার পর আসলেও তাও ভর্তি রোগী এবং অফিসে কাজ নিয়ে ব্যস্ত থাকেন। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ১১ টার পর ডাক্তার আসে তারপর উপরে ফেসবুক বা ভর্তি’র কাগজপত্র নিয়ে তারা সময় পার করছে। তারপর চেম্বারে আসে। রোগীদের নাম খাতায় এন্টি করা শুরু করেন। এন্টি করতে করতে শেষ হয়ে যায় অফিসের টাইম। তারপর স্লিপটি তাদের হাতে দিয়েই চলে যান নির্দিষ্ট ল্যাবে। চলে গভীর রাত পর্যন্ত বাণিজ্য।

 

রোগীদের ৩০০ টাকা ভিজিট তার, উপর টেস্ট বাণিজ্য তো আছিই। ভর্তি থাকা রোগীরা এও বলেন, ভর্তি হওয়ার পর থেকেই ডাক্তার দেখা পাচ্ছে না। অনেক রোগীদের সমস্যা হলে নিজেরাই ডাক্তারের চেম্বারে কিংবা তাদের ল্যাব যেতে হয়। তাও ঘন্টার পর ঘন্টা বসে থাকতে হয়। এ ব্যাপারে স্বাস্থ্য প্রশাসক ডা: চিন্ময় হাওলাদার বলেন, হাসপাতালে বর্তমানে ডাক্তার সংকট আছে। আমি চেষ্টা করে যাচ্ছি কিভাবে ডাক্তার আনা যায় এবং অনেক সময় দুই একজন ডাক্তার থাকার কারণেই রোগীদের সামলাইতে সমস্যা হচ্ছে। কর্মরত ডাক্তার অনেক সময় নাইট ডিউটি করে থাকে। তার জন্য চেম্বারে আসতে দেরি হয়।

 

নিউজটি শেয়ার করুন:

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



Click Here



সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



About Us | Privacy Policy | Terms & Conditions | Contact Us | Sitemap
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
সহ-সম্পাদক : নুরুজ্জামান কাফি
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com

© Copyright BY KuakataNews.Com

Design & Developed BY PopularITLimited