জবাবদিহিতাহীন টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন দিয়ে ৫জি’র সুফল পাওয়া সম্ভব না: বাংলাদেশ মুঠোফোন গ্রাহক এসোসিয়েশন

Spread the love

আজ ১৭ মে ২০১৯ বাংলাদেশ মুঠোফোন গ্রাহক এসোসিয়েশনের উদ্যোগে রাজধানীর তোপখানা রোডস্থ বাংলাদেশ শিশু কল্যাণ পরিষদের সেমিনার হলে ‘বিশ্ব টেলিযোগাযোগ ও তথ্য সংঘ দিবস’ উপলক্ষ্যে আলোচনা সভায় সংগঠনের সভাপতি মহিউদ্দিন আহমেদ বলেন, সরকার খুব দ্রুতই ৫জি মোবাইল ইন্টারনেট সেবা জনগণকে দিতে চায়।

 

মাননীয় টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী বলেছেন যে, ২০২০-২০২১ সালের মধ্যে ৫জি চালু করবে সরকার। কিন্তু আমাদের প্রশ্ন ৫জি চালু করার জন্য আমরা কি প্রস্তুত? এমনকি অপারেটররা? কেউই না। তবে সরকার কিভাবে ৫জি আনতে চাচ্ছে, তা আমাদের কাছে বোধগম্য নয়। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সবসময় স্বচ্ছতা, জবাবদিহিতা, ন্যায়পরায়ণতা এবং দুর্নীতিমুক্ত দেশ গড়ার লক্ষ্যে নির্দেশ দিলেও অন্যান্য মন্ত্রণালয় পালন করলেও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয় ও নিয়ন্ত্রণ কমিশন এর বাইরে। এ খাতের নিয়ন্ত্রন কমিশনের কোন প্রকার জবাবদিহিতা নেই। এই কমিশন ২০১৬ সালে গ্রাহকদের অভিযোগ নিয়ে গণশুনানী করেও আজ পর্যন্ত তার ফলাফল ঘোষনা করেনি। ভয়েস কলরেট বৃদ্ধি করার জন্য গ্রাহকদের মতামত না নিয়েই ভয়েস কলরেট বৃদ্ধি করেছে। ইন্টারনেটের মূল্য ও ভয়েস কলরেটের মূল্য নির্ধারণের ক্ষেত্রে গ্রাহকদের মতামতের তোয়াক্কা করে না এই প্রতিষ্ঠান। এরই ধারাবাহিকতায় অপারেটররা যত্রতত্র অফার, কলরেট বৃদ্ধি, কলড্রপ, ইন্টারনেট প্যাকেজে প্রতারণা করেই যাচ্ছে। যখন যে প্রযুক্তি তারা প্রয়োজন মনে করছে সে প্রযুক্তি যাচাই-বাছাই না করেই বা গ্রাহকদের সামর্থের কথা চিন্তা না করেই গ্রাহকদের উপরে চাপিয়ে দেওয়া হচ্ছে।

 

প্রযুক্তিগত পরিবর্তনের সাথে গ্রাহকদের ডিভাইস পরিবর্তনের জন্য হাজার হাজার কোটি টাকা বিনিয়োগ করে গ্রাহক কি অর্জন করলো? তা ভেবে দেখা দরকার। আবার অপারেটররাও তরঙ্গ ক্রয়, সিম রিপ্লেসমেন্ট ও নেটওয়ার্ক সম্প্রসারণ বাবদ বিপুল পরিমাণ অর্থ বিনিয়োগ করে উঠতে না উঠতেই নতুন বিনিয়োগ আসার ফলে মানসম্পন্ন সেবার চাইতে প্রতারণামূলক সেবাই গ্রাহকরা বেশি পাচ্ছে। মধ্যস্বত্ত্বভোগী অপারেটর আইজিডব্লিউ, আইসিএক্স, এনটিটিএন, এমএনপি ও নেটওয়ার্ক সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানগুলির কোন প্রকার জবাবদিহিতা নেই। অথচ গ্রাহকদের প্রদেয় অর্থেই প্রতিষ্ঠানগুলি পরিচালিত হয়। গ্রাহকদের সুসংগঠিত না হওয়ার দুর্বলতাকেও এরা কাজে লাগাচ্ছে। সবচাইতে অবাক ব্যাপার মহামান্য হাইকোর্টের নির্দেশও কমিশন বা অপারেটররা পালন করছে না। গ্রাহকদের মনে প্রশ্ন যেখানে ৩জি পাওয়া যায় না সেখানে নামে মাত্র ৪জি দিয়েছে সরকার। এমতাবস্থায় যদি ৫জি প্রযুক্তি আসে তাহলে এটি শুধু কাগজে কলমেই সীমাবদ্ধ থাকবে। গ্রাহকরা এর সুবিধা ভোগ করতে পারবে না।

 

তথ্য সংঘ দিবস সম্পর্কে মহিউদ্দীন আহমেদ বলেন, গত ১লা এপ্রিল কালের কন্ঠের সংবাদে দেখা যায় মন্ত্রী, ভিআইপিসহ গ্রাহকদের নাম্বার ও তথ্য বিক্রির সংবাদ। এমনকি গ্রাহকদের ভয়েস কলের গুরুত্বপূর্ণ রেকর্ড প্রকাশের মত ঘটনা ঘটছে অহরহ। এসকল কর্মকান্ডের জন্য অপারেটরদের বিরুদ্ধে ডিজিটাল সিকিউরিটি অ্যাক্টে মামলা হয় না। হয় শুধু গণমাধ্যম ও মুক্তমনা ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে। আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন, প্রকৌশলী উৎপল চন্দ্র দাস, আইটি প্রকৌশলী তন্ময় মালাকার, আমিনুল ইসলাম বুলু, এড. আবু বকর সিদ্দিক, বাপ্পী সরদার, আমানুল্লাহ মাহফুজ, রাজু আহমেদ খান প্রমুখ।

 

 

নিউজটি শেয়ার করুন:

সর্বশেষ আপডেট



» কমলগঞ্জে ভোক্তা অধিকার আইনে ২ প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা

» পর্যটকদের নতুন আকর্ষণ লংলা সিমেট্টি

» মোমিন মেহেদীর নেতৃত্বে মশার কয়েল ও স্প্রে প্রদান কর্মসূচী

» ঝিনাইদহ কালিচরনপুর ইউনিয়নে ডেঙ্গু প্রতিরোধে বিশাল র‌্যালী ও লিফলেট বিতরণ

» ঝিনাইদহে বিজিবি’র মাদক বিরোধী সমাবেশ ও সনাক্তকরণ মহড়া

» কালীগঞ্জে ৭ম শ্রেণীর ছাত্রীকে ধর্ষনের অভিযোগে গ্রেফতার-২

» ঝিনাইদহে ফেন্সিডিলসহ মাটর সাইকেলের গ্যারেজের মালিক বাইক মিস্ত্রি জনি গ্রেফতার

» বেনাপোল তালশারী মডেল স্কুলে ছাত্র-ছাত্রীদের ভোটাভুটিতে সেরা শিক্ষক নির্বাচন অনুষ্ঠিত

» “পদ্মা সেতুর রেল লাইনের মাধ্যমে শরীয়তপুর জেলাকেও সংযুক্ত করা হবে”

» আলীকদমে মাছের পোনা অবমুক্তকরণ কর্মসূচি

লাইক দিয়ে সংযুক্ত থাকুন

ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
সহ-সম্পাদক : নুরুজ্জামান কাফি
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com
Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
আজ শুক্রবার, ২৩ আগস্ট ২০১৯ খ্রিষ্টাব্দ, ৮ই ভাদ্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

জবাবদিহিতাহীন টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন দিয়ে ৫জি’র সুফল পাওয়া সম্ভব না: বাংলাদেশ মুঠোফোন গ্রাহক এসোসিয়েশন

ইউটিউবে সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:
Spread the love

আজ ১৭ মে ২০১৯ বাংলাদেশ মুঠোফোন গ্রাহক এসোসিয়েশনের উদ্যোগে রাজধানীর তোপখানা রোডস্থ বাংলাদেশ শিশু কল্যাণ পরিষদের সেমিনার হলে ‘বিশ্ব টেলিযোগাযোগ ও তথ্য সংঘ দিবস’ উপলক্ষ্যে আলোচনা সভায় সংগঠনের সভাপতি মহিউদ্দিন আহমেদ বলেন, সরকার খুব দ্রুতই ৫জি মোবাইল ইন্টারনেট সেবা জনগণকে দিতে চায়।

 

মাননীয় টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী বলেছেন যে, ২০২০-২০২১ সালের মধ্যে ৫জি চালু করবে সরকার। কিন্তু আমাদের প্রশ্ন ৫জি চালু করার জন্য আমরা কি প্রস্তুত? এমনকি অপারেটররা? কেউই না। তবে সরকার কিভাবে ৫জি আনতে চাচ্ছে, তা আমাদের কাছে বোধগম্য নয়। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সবসময় স্বচ্ছতা, জবাবদিহিতা, ন্যায়পরায়ণতা এবং দুর্নীতিমুক্ত দেশ গড়ার লক্ষ্যে নির্দেশ দিলেও অন্যান্য মন্ত্রণালয় পালন করলেও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয় ও নিয়ন্ত্রণ কমিশন এর বাইরে। এ খাতের নিয়ন্ত্রন কমিশনের কোন প্রকার জবাবদিহিতা নেই। এই কমিশন ২০১৬ সালে গ্রাহকদের অভিযোগ নিয়ে গণশুনানী করেও আজ পর্যন্ত তার ফলাফল ঘোষনা করেনি। ভয়েস কলরেট বৃদ্ধি করার জন্য গ্রাহকদের মতামত না নিয়েই ভয়েস কলরেট বৃদ্ধি করেছে। ইন্টারনেটের মূল্য ও ভয়েস কলরেটের মূল্য নির্ধারণের ক্ষেত্রে গ্রাহকদের মতামতের তোয়াক্কা করে না এই প্রতিষ্ঠান। এরই ধারাবাহিকতায় অপারেটররা যত্রতত্র অফার, কলরেট বৃদ্ধি, কলড্রপ, ইন্টারনেট প্যাকেজে প্রতারণা করেই যাচ্ছে। যখন যে প্রযুক্তি তারা প্রয়োজন মনে করছে সে প্রযুক্তি যাচাই-বাছাই না করেই বা গ্রাহকদের সামর্থের কথা চিন্তা না করেই গ্রাহকদের উপরে চাপিয়ে দেওয়া হচ্ছে।

 

প্রযুক্তিগত পরিবর্তনের সাথে গ্রাহকদের ডিভাইস পরিবর্তনের জন্য হাজার হাজার কোটি টাকা বিনিয়োগ করে গ্রাহক কি অর্জন করলো? তা ভেবে দেখা দরকার। আবার অপারেটররাও তরঙ্গ ক্রয়, সিম রিপ্লেসমেন্ট ও নেটওয়ার্ক সম্প্রসারণ বাবদ বিপুল পরিমাণ অর্থ বিনিয়োগ করে উঠতে না উঠতেই নতুন বিনিয়োগ আসার ফলে মানসম্পন্ন সেবার চাইতে প্রতারণামূলক সেবাই গ্রাহকরা বেশি পাচ্ছে। মধ্যস্বত্ত্বভোগী অপারেটর আইজিডব্লিউ, আইসিএক্স, এনটিটিএন, এমএনপি ও নেটওয়ার্ক সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানগুলির কোন প্রকার জবাবদিহিতা নেই। অথচ গ্রাহকদের প্রদেয় অর্থেই প্রতিষ্ঠানগুলি পরিচালিত হয়। গ্রাহকদের সুসংগঠিত না হওয়ার দুর্বলতাকেও এরা কাজে লাগাচ্ছে। সবচাইতে অবাক ব্যাপার মহামান্য হাইকোর্টের নির্দেশও কমিশন বা অপারেটররা পালন করছে না। গ্রাহকদের মনে প্রশ্ন যেখানে ৩জি পাওয়া যায় না সেখানে নামে মাত্র ৪জি দিয়েছে সরকার। এমতাবস্থায় যদি ৫জি প্রযুক্তি আসে তাহলে এটি শুধু কাগজে কলমেই সীমাবদ্ধ থাকবে। গ্রাহকরা এর সুবিধা ভোগ করতে পারবে না।

 

তথ্য সংঘ দিবস সম্পর্কে মহিউদ্দীন আহমেদ বলেন, গত ১লা এপ্রিল কালের কন্ঠের সংবাদে দেখা যায় মন্ত্রী, ভিআইপিসহ গ্রাহকদের নাম্বার ও তথ্য বিক্রির সংবাদ। এমনকি গ্রাহকদের ভয়েস কলের গুরুত্বপূর্ণ রেকর্ড প্রকাশের মত ঘটনা ঘটছে অহরহ। এসকল কর্মকান্ডের জন্য অপারেটরদের বিরুদ্ধে ডিজিটাল সিকিউরিটি অ্যাক্টে মামলা হয় না। হয় শুধু গণমাধ্যম ও মুক্তমনা ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে। আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন, প্রকৌশলী উৎপল চন্দ্র দাস, আইটি প্রকৌশলী তন্ময় মালাকার, আমিনুল ইসলাম বুলু, এড. আবু বকর সিদ্দিক, বাপ্পী সরদার, আমানুল্লাহ মাহফুজ, রাজু আহমেদ খান প্রমুখ।

 

 

নিউজটি শেয়ার করুন:

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



Click Here

সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



About Us | Privacy Policy | Terms & Conditions | Contact Us | Sitemap
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
সহ-সম্পাদক : নুরুজ্জামান কাফি
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com

© Copyright BY KuakataNews.Com

Design & Developed BY PopularITLimited