কলাপাড়ায় স্বামীর পরকীয়ায় বাধা দেয়ায় প্রচন্ড মারধর

Spread the love

কলাপাড়া(পটুয়াখালী)প্রতিনিধি,১৭ জানুয়ারি।। কন্যা সন্তান হওয়ার পর থেকে চারটি বছরে কতবার যে মারধর-নির্যাতন করা হয়েছে তা গৃহবধু সানিয়ার নিজেরও মনে নেই। স্বামীর সংসার আগলে থাকার জন্য অন্তত ১০ লাখ দিয়েছে সানিয়ার বাবা আব্দুর রশিদ মাতুব্বর। তারপরও পাষন্ড স্বামী দন্ত চিকিৎসক হারুন-অর-রশীদের মন গলেনি। সবশেষ সোমবার সন্ধ্যায় বেধড়ক লাঠিপেটা করা হয়। কিল-ঘুষি এবং গলা চেপে ধরে নির্যাতন করা হয়। এক পর্যায় অচেতন হয়ে পড়েন সানিয়া। মারা গেছে ভেবে মুখে বিষ ঢেলে দেয়া হয়।

 

স্থানীয়দের সহায়তায় কলাপাড়া হাসপাতালে ভর্তি করা হয় সানিয়াকে। হাসপাতালের চিকিৎসকরা ওয়াশ করান। বর্তমানে সানিয়া কলাপাড়া হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। এ ঘটনার জন্য কোন অনুসোচনা তো দুরের কথা উল্টো আল্টিমেটাম দেয়া হয়েছে সানিয়াকে। তাকে স্বামীর সংসার করতে হলে মুচলেকা দিয়ে যেতে হবে। হুমকি দেয়া হচ্ছে সানিয়া ও ভাইদেরকে এনিয়ে যেন ঘাটা-ঘাটি না করে। উপজেলার মহিপুর ইউনিয়নের বিপিনপুর গ্রামে স্বামী হারুন-অর-রশীদের বাড়ি।

 

সানিয়ার মা ফাতেমা বেগম জানান, তার একমাত্র মেয়ে সানিয়াকে হারুনের সঙ্গে ২০১১ সালের ৮ নবেম্বর বিয়ে দেন। বিয়ের সময় মেয়ে-জামাইকে সবকিছু দিয়ে দেন। বিয়ের পরে কিছুদিন ভালই ছিল। সানিয়ার কোলজুড়ে চার বছর আগে জন্ম নেয় কন্যা সন্তান ইসরাত জাহান জেবা। জন্মের দিন থেকেই শুরু সানিয়ার প্রতি নানান মানসিক ও শারীরিক নির্যাতন। এরপরও মেয়ে-জামাইয়ের সুখের চিন্তা করে বিভিন্ন সময়ে নগদ টাকাসহ বিভিন্ন ধরনের সহায়তা করে আসছিলেন। সানিয়ার ভাই প্রভাষক আরিফুল ইসলাম জানান, একমাত্র বোনের সুখের চিন্তা করে বোন এবং বোন-জামাই হারুন-অর-রশীদকে অন্তত দশ লাখ টাকা দিয়েছেন।

 

এরপরও নানান ছল-ছুতোয় যৌতুকের অজুহাত তুলে মারধর করা রেওয়াজে পরিণত করে। এমনকি জেবার জন্মের পরে তাকে নিয়ে তার মা মিশ্রিপাড়া গ্রামের বাড়িতে লালন-পালন করেছেন। কন্যা সন্তানকে পর্যন্ত আদর-সোহাগ করত না হারুন। সানিয়া আরও জানান, তার স্বামীর সঙ্গে কারও পরকীয়া রয়েছে বলে তার দৃঢ় বিশ^াস। প্রায় সময় বাড়ির ছাদে উঠে মোবাইলে কথা বলত। এসব জিজ্ঞাসা করতেই তার ওপরে চরম নির্যাতন নেমে আসে। সবশেষ মারধর শেষে হত্যার চেষ্টা চালায়। এ ব্যাপারে ডাঃ হারুন-অর-রশীদ জানান, স্ত্রীকে কখনই তিনি মারধর করেননি। যৌতুকসহ পরকীয়ার অভিযোগ সম্পুর্ণ মিথ্যা বানোয়াট।

 

যৌতুকের জন্য কোন টাকা নেননি। উল্টো সানিয়ার বাবা-ভাইদের কাছে তিনি নয় লাখ ৯০ হাজার টাকা পাবেন বলে জানান। এর সকল প্রমাণাদি আছে বলেও তিনি দাবি করেন। কলাপাড়া ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেল এর প্রোগ্রাম অফিসার মোঃ ইদ্রিস আলম জানান, আমরা ভিকটিমের চিকিৎসা সহায়তাসহ আইনি সহায়তা দেয়ার জন্য উদ্যোগ নিয়েছি। চিকিৎসক ডাঃ কামরুজ্জামান জানান, সানিয়ার মুখে খানিকটা বিষ ছিল। খায়নি। চিকিৎসা দেয়ার পরে সুস্থ হয়ে উঠেছে।

নিউজটি শেয়ার করুন:

সর্বশেষ আপডেট



» ঝিনাইদহে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রন কার্যালয় ও সিও সংস্থার আয়োজনে কারাবন্দীদের সাথে মাদক বিরোধী আলোচনা সভা

» ঝিনাইদহে গোয়েন্দা পুলিশের সফল অভিযানে একাধিক মামলার আসামি দেশীয় ওয়ান শুটারগান ও গুলি সহ গ্রেফতার

» মৌলভীবাজারে সন্ত্রাসী হামলায় ব্যবসায়ী আহত

» রাম আদালত সক্রিয়করণে সবাইকে দায়িত্বশীল ভূমিকা নিতে হবে – জেলা প্রশাসক মোঃ মাজেদুর রহমান খান

» ঝালকাঠিতে বিনামূল্যে কৃষকদের মাঝে আমনের বীজ বিতরন

» “ন্যাশনাল সার্ভিস ১ম-৪র্থ পর্বের কর্মীদের পুনরায় নিয়োগ এবং চলমান কর্মসূচির মেয়াদ বৃদ্ধি করে স্থায়ী কর্মসংস্থান প্রদানে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা ও ৭ দফা বাস্তবায়নের দাবিতে” মানববন্ধন

» যশোরের বেনাপোল দৌলতপুর সীমান্তে ফেন্সিডিল মহিলাসহ আটক-২

» শার্শা থানার এসআই মামুন লুঙ্গী,গেঞ্জি পড়ে ছদ্ববেশে খুনের আসামীকে গ্রেফতার করলেন

» চলতি বাজেটে মুঠোফোনে বর্ধিত কর বাতিলের দাবিতে গণসমাবেশ

» রংপুরে ঘুষ নেয়ার ভিডিও করায় সাংবাদিককে পেটাল পুলিশ, ৪ পুলিশ সদস্য ক্লোজড

লাইক দিয়ে সংযুক্ত থাকুন





ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
সহ-সম্পাদক : নুরুজ্জামান কাফি
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com
Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
আজ মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০১৯ খ্রিষ্টাব্দ, ১১ই আষাঢ় ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

কলাপাড়ায় স্বামীর পরকীয়ায় বাধা দেয়ায় প্রচন্ড মারধর

ইউটিউবে সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:
Spread the love

কলাপাড়া(পটুয়াখালী)প্রতিনিধি,১৭ জানুয়ারি।। কন্যা সন্তান হওয়ার পর থেকে চারটি বছরে কতবার যে মারধর-নির্যাতন করা হয়েছে তা গৃহবধু সানিয়ার নিজেরও মনে নেই। স্বামীর সংসার আগলে থাকার জন্য অন্তত ১০ লাখ দিয়েছে সানিয়ার বাবা আব্দুর রশিদ মাতুব্বর। তারপরও পাষন্ড স্বামী দন্ত চিকিৎসক হারুন-অর-রশীদের মন গলেনি। সবশেষ সোমবার সন্ধ্যায় বেধড়ক লাঠিপেটা করা হয়। কিল-ঘুষি এবং গলা চেপে ধরে নির্যাতন করা হয়। এক পর্যায় অচেতন হয়ে পড়েন সানিয়া। মারা গেছে ভেবে মুখে বিষ ঢেলে দেয়া হয়।

 

স্থানীয়দের সহায়তায় কলাপাড়া হাসপাতালে ভর্তি করা হয় সানিয়াকে। হাসপাতালের চিকিৎসকরা ওয়াশ করান। বর্তমানে সানিয়া কলাপাড়া হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। এ ঘটনার জন্য কোন অনুসোচনা তো দুরের কথা উল্টো আল্টিমেটাম দেয়া হয়েছে সানিয়াকে। তাকে স্বামীর সংসার করতে হলে মুচলেকা দিয়ে যেতে হবে। হুমকি দেয়া হচ্ছে সানিয়া ও ভাইদেরকে এনিয়ে যেন ঘাটা-ঘাটি না করে। উপজেলার মহিপুর ইউনিয়নের বিপিনপুর গ্রামে স্বামী হারুন-অর-রশীদের বাড়ি।

 

সানিয়ার মা ফাতেমা বেগম জানান, তার একমাত্র মেয়ে সানিয়াকে হারুনের সঙ্গে ২০১১ সালের ৮ নবেম্বর বিয়ে দেন। বিয়ের সময় মেয়ে-জামাইকে সবকিছু দিয়ে দেন। বিয়ের পরে কিছুদিন ভালই ছিল। সানিয়ার কোলজুড়ে চার বছর আগে জন্ম নেয় কন্যা সন্তান ইসরাত জাহান জেবা। জন্মের দিন থেকেই শুরু সানিয়ার প্রতি নানান মানসিক ও শারীরিক নির্যাতন। এরপরও মেয়ে-জামাইয়ের সুখের চিন্তা করে বিভিন্ন সময়ে নগদ টাকাসহ বিভিন্ন ধরনের সহায়তা করে আসছিলেন। সানিয়ার ভাই প্রভাষক আরিফুল ইসলাম জানান, একমাত্র বোনের সুখের চিন্তা করে বোন এবং বোন-জামাই হারুন-অর-রশীদকে অন্তত দশ লাখ টাকা দিয়েছেন।

 

এরপরও নানান ছল-ছুতোয় যৌতুকের অজুহাত তুলে মারধর করা রেওয়াজে পরিণত করে। এমনকি জেবার জন্মের পরে তাকে নিয়ে তার মা মিশ্রিপাড়া গ্রামের বাড়িতে লালন-পালন করেছেন। কন্যা সন্তানকে পর্যন্ত আদর-সোহাগ করত না হারুন। সানিয়া আরও জানান, তার স্বামীর সঙ্গে কারও পরকীয়া রয়েছে বলে তার দৃঢ় বিশ^াস। প্রায় সময় বাড়ির ছাদে উঠে মোবাইলে কথা বলত। এসব জিজ্ঞাসা করতেই তার ওপরে চরম নির্যাতন নেমে আসে। সবশেষ মারধর শেষে হত্যার চেষ্টা চালায়। এ ব্যাপারে ডাঃ হারুন-অর-রশীদ জানান, স্ত্রীকে কখনই তিনি মারধর করেননি। যৌতুকসহ পরকীয়ার অভিযোগ সম্পুর্ণ মিথ্যা বানোয়াট।

 

যৌতুকের জন্য কোন টাকা নেননি। উল্টো সানিয়ার বাবা-ভাইদের কাছে তিনি নয় লাখ ৯০ হাজার টাকা পাবেন বলে জানান। এর সকল প্রমাণাদি আছে বলেও তিনি দাবি করেন। কলাপাড়া ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেল এর প্রোগ্রাম অফিসার মোঃ ইদ্রিস আলম জানান, আমরা ভিকটিমের চিকিৎসা সহায়তাসহ আইনি সহায়তা দেয়ার জন্য উদ্যোগ নিয়েছি। চিকিৎসক ডাঃ কামরুজ্জামান জানান, সানিয়ার মুখে খানিকটা বিষ ছিল। খায়নি। চিকিৎসা দেয়ার পরে সুস্থ হয়ে উঠেছে।

নিউজটি শেয়ার করুন:

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



Click Here



সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



About Us | Privacy Policy | Terms & Conditions | Contact Us | Sitemap
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
সহ-সম্পাদক : নুরুজ্জামান কাফি
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com

© Copyright BY KuakataNews.Com

Design & Developed BY PopularITLimited