গোপালগঞ্জ যার আলোয় উদ্ভাসিত : সেইন্ট মথুরানাথ

Spread the love

নিজস্ব প্রতিনিধি, গোপালগঞ্জ : সেইন্ট মথুরানাথ বোস। অশিক্ষা আর কুসংস্কারের বিরুদ্ধে যে মানুষটির ছিল আজীবন লড়াই। আলোর দূত হয়ে তিনি ১৮৭৪ সালে গোপালগঞ্জে এসেছিলেন। সেইন্ট মথুরানাথ ছিলেন এ অঞ্চলের শিক্ষার অগ্রদূত, সমাজ সংস্কারক ও ভাটির মানুষের আশার আলো। ২ সেপ্টেম্বর পার হয়ে গেল সেই মহান মানুষটির ১১৭তম মৃত্যু বাষির্কী।

 

প্রায় দেড়’শ বছর আগে গোপালগঞ্জে অঞ্চল ছিল জলাভূমি ও পশ্চাৎপদএলাকা। এখানকার আদিবাসীদের প্রায় সবাই ছিল নিম্নবর্নের হিন্দু সম্প্রদায়ের লোক। এরা ছিল অতিশয় গরীব ও অশিক্ষিত। আঁধারে ঢাকা এ অঞ্চলে মুক্তির বার্তা পৌঁছে দিতে কলকাতার ভবানীপুরের লন্ডন মিশনারী উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষকতার চাকরি ছেড়ে ১৮৭৪ সালের ফেব্রুয়ারিতে নৌকা যোগে গোপালগঞ্জ পৌঁছান সেইন্ট মথুরানাথ বোস। তিনি শুরু করেন নিরক্ষর মানুষকে জাগিয়ে তোলার কাজ। গড়ে তোলেন শিক্ষাঙ্গণ, ভজনালয়, কোর্ট, পোষ্ট অফিস, হাইস্কুল, ব্যাংক, হাসপাতাল ও কৃষি খামার। গোপালগঞ্জের পশ্চাৎপদ জনগোষ্ঠীকে অন্ধকার থেকে আলোয় নিয়ে আসতে তার ভূমিকা ছিল অপরিসীম। অসহায় ও দরিদ্র মানুষের পাশে থেকে হয়ে ওঠেন তাদের বন্ধু। গোপালগঞ্জবাসীর জন্য তিনি আশির্বাদ হয়ে এসেছিলেন।

 

সেইন্ট মথুরানাথ বোস স্থাপিত এ অঞ্চলের প্রথম পাঠশালাটিই মিশন হাইস্কুল নামে পরিচিত। পরে তার নামানুসারে এম এন ইনস্টিটিউট রাখা হয়। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এ মিশন হাইস্কুলের ছাত্র ছিলেন। ১৯৪২ সালে বঙ্গবন্ধু এই মিশন স্কুল থেকে ম্যাট্রিক পাশ করেন। স্কুলটি ১৯৫০ সালে কায়েদে আযম কলেজ ও  পরে বঙ্গবন্ধু কলেজ (বর্তমানে সরকারী বঙ্গবন্ধু বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ) নামকরন করা হয়। এই মহান পুরুষ ১৯০১ সালের ২ সেপ্টেম্বর ৫৮ বছর বয়সে পরলোক গমন করেন। যে মানুষটির আপ্রাণ চেষ্টায় গোপালগঞ্জে সভ্যতার বিকাশ, সেই মহাপ্রাণ সেইন্ট মথুরানাথের নাম আজও গোপালগঞ্জবাসীর কাছে বিস্মৃত প্রায়। সেইন্ট মথুরানাথ বোসের ১১৭ তম মৃত্যু বার্ষিকী উপলক্ষে খ্রীষ্টিয়ান ফেলোশিপের উদ্যোগে নেওয়া হয়েছিল নানা কর্মসূচী। এর মধ্যে ছিল শোক র‌্যালি, সমাধিতে মাল্য দান, আলোচনা ও প্রার্থনা সভা এবং দুঃস্থদের মধ্যে খাবার বিতরণ।

নিউজটি শেয়ার করুন:

সর্বশেষ আপডেট



» গলাচিপায় ঝুঁকিপূর্ণ বিদ্যালয়ে পাঠদান

» কলাপাড়ায় গাঁজা সহ ব্যবসায়ী আটক

» এবার হাসপাতালে যাওয়ার পথে নার্সকে কুপিয়ে হত্যা

» গাছের সাথে বেঁধে গৃহবধূকে নির্যাতন

» খুনির সঙ্গে রিফাতের স্ত্রী মিন্নির ‘সম্পর্কের তথ্য’ ফাঁস

» দশমিনা-উলানিয়া সড়কের কারপিটিংপিচ উঠে খানা খন্দের সৃষ্টি

» দশমিনায় চাঁই ব্যবহারের ফলে: গল্পেরমত থেকে যাবে দেশী প্রজাতির মাছ

» কলাপাড়ায় গৃহবধু হত্যা মামলায় শ্বশুড় গ্রেফতার

» সীমান্ত প্রেসক্লাব বেনাপোলের প্রচার সম্পাদক রাসেলের উপর প্রাননাশের হুমকিতে থানায় জিডি

» কেরোসিনের চুলা বিস্ফোরণে তিন ছাত্রী দগ্ধ

লাইক দিয়ে সংযুক্ত থাকুন

ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
সহ-সম্পাদক : নুরুজ্জামান কাফি
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com
Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
আজ বৃহস্পতিবার, ২৭ জুন ২০১৯ খ্রিষ্টাব্দ, ১৩ই আষাঢ় ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

গোপালগঞ্জ যার আলোয় উদ্ভাসিত : সেইন্ট মথুরানাথ

ইউটিউবে সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:
Spread the love

নিজস্ব প্রতিনিধি, গোপালগঞ্জ : সেইন্ট মথুরানাথ বোস। অশিক্ষা আর কুসংস্কারের বিরুদ্ধে যে মানুষটির ছিল আজীবন লড়াই। আলোর দূত হয়ে তিনি ১৮৭৪ সালে গোপালগঞ্জে এসেছিলেন। সেইন্ট মথুরানাথ ছিলেন এ অঞ্চলের শিক্ষার অগ্রদূত, সমাজ সংস্কারক ও ভাটির মানুষের আশার আলো। ২ সেপ্টেম্বর পার হয়ে গেল সেই মহান মানুষটির ১১৭তম মৃত্যু বাষির্কী।

 

প্রায় দেড়’শ বছর আগে গোপালগঞ্জে অঞ্চল ছিল জলাভূমি ও পশ্চাৎপদএলাকা। এখানকার আদিবাসীদের প্রায় সবাই ছিল নিম্নবর্নের হিন্দু সম্প্রদায়ের লোক। এরা ছিল অতিশয় গরীব ও অশিক্ষিত। আঁধারে ঢাকা এ অঞ্চলে মুক্তির বার্তা পৌঁছে দিতে কলকাতার ভবানীপুরের লন্ডন মিশনারী উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষকতার চাকরি ছেড়ে ১৮৭৪ সালের ফেব্রুয়ারিতে নৌকা যোগে গোপালগঞ্জ পৌঁছান সেইন্ট মথুরানাথ বোস। তিনি শুরু করেন নিরক্ষর মানুষকে জাগিয়ে তোলার কাজ। গড়ে তোলেন শিক্ষাঙ্গণ, ভজনালয়, কোর্ট, পোষ্ট অফিস, হাইস্কুল, ব্যাংক, হাসপাতাল ও কৃষি খামার। গোপালগঞ্জের পশ্চাৎপদ জনগোষ্ঠীকে অন্ধকার থেকে আলোয় নিয়ে আসতে তার ভূমিকা ছিল অপরিসীম। অসহায় ও দরিদ্র মানুষের পাশে থেকে হয়ে ওঠেন তাদের বন্ধু। গোপালগঞ্জবাসীর জন্য তিনি আশির্বাদ হয়ে এসেছিলেন।

 

সেইন্ট মথুরানাথ বোস স্থাপিত এ অঞ্চলের প্রথম পাঠশালাটিই মিশন হাইস্কুল নামে পরিচিত। পরে তার নামানুসারে এম এন ইনস্টিটিউট রাখা হয়। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এ মিশন হাইস্কুলের ছাত্র ছিলেন। ১৯৪২ সালে বঙ্গবন্ধু এই মিশন স্কুল থেকে ম্যাট্রিক পাশ করেন। স্কুলটি ১৯৫০ সালে কায়েদে আযম কলেজ ও  পরে বঙ্গবন্ধু কলেজ (বর্তমানে সরকারী বঙ্গবন্ধু বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ) নামকরন করা হয়। এই মহান পুরুষ ১৯০১ সালের ২ সেপ্টেম্বর ৫৮ বছর বয়সে পরলোক গমন করেন। যে মানুষটির আপ্রাণ চেষ্টায় গোপালগঞ্জে সভ্যতার বিকাশ, সেই মহাপ্রাণ সেইন্ট মথুরানাথের নাম আজও গোপালগঞ্জবাসীর কাছে বিস্মৃত প্রায়। সেইন্ট মথুরানাথ বোসের ১১৭ তম মৃত্যু বার্ষিকী উপলক্ষে খ্রীষ্টিয়ান ফেলোশিপের উদ্যোগে নেওয়া হয়েছিল নানা কর্মসূচী। এর মধ্যে ছিল শোক র‌্যালি, সমাধিতে মাল্য দান, আলোচনা ও প্রার্থনা সভা এবং দুঃস্থদের মধ্যে খাবার বিতরণ।

নিউজটি শেয়ার করুন:

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



Click Here

সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



About Us | Privacy Policy | Terms & Conditions | Contact Us | Sitemap
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
সহ-সম্পাদক : নুরুজ্জামান কাফি
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com

© Copyright BY KuakataNews.Com

Design & Developed BY PopularITLimited