সমুদ্রের অব্যাহত ভাঙ্গনে শ্রীহীন হয়ে পড়ছে কুয়াকাটার সৈকত

Spread the love

উত্তম কুমার হাওলাদার,কলাপাড়া(পটুয়াখালী)প্রতিনিধি, ২৭ জুলাই।। বঙ্গোপসাগরের বিক্ষুদ্ধ ঢেউয়ের তান্ডবে ’সূর্যোদয়-সূর্যাস্ত দর্শনের প্রসিদ্ধ স্থান খ্যাত’ পর্যটন কেন্দ্র কুয়াকাটার সমুদ্র সৈকত শ্রীহীন হয়ে পড়ছে।

 

আষাঢ়ের রুদ্র রোষে ও প্রকৃতির এমন হেয়ালিপনায় হতাশ হয়ে পড়েছেন ভ্রমনে আসা পর্যটক, পর্যটন শিল্পে বিনিয়োগকারী সহ স্থানীয়রা। অব্যাহত বালু ক্ষয় ও ভাঙ্গনের কবল থেকে রক্ষায় দ্রুত কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহনের জন্য মানববন্ধন, সমাবেশসহ সামাজিক যোগযোগ মাধ্যম ফেসবুকে জোরালো দাবী তুলেছেন স্থানীয়,পর্যটকসহ ব্যবসায়ীরা। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ ভাঙ্গন রোধে বারংবার আশ্বাসের বানী শোনালেও অদ্যবধি কার্যকর কোন পদক্ষেপ নেয়নি।

 

এদিকে কুয়াকাটার সমুদ্র সৈকত রক্ষায় পানি উন্নয়ন বোর্ডের উদ্যোগে একটি উন্নয়ন প্রকল্প পরিকল্পনা মন্ত্রনালয়ে পাঠালেও সেটি মন্ত্রনালয় থেকে বিস্তারিত সমীক্ষার জন্য ফেরত পাঠানোয় চলতি মৌসুমে সৈকত রক্ষার উদ্যোগ অনিশ্চয়তার মধ্যে পড়েছে। তাই কুয়াকাটাকে বাঁচাতে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ চান স্থানীয়রা।

 

সরেজমিন দেখা গেছে, কুয়াকাটা জিরো পয়েন্ট থেকে সৈকতের দিকে যেতেই চোখে পড়ে সমুদ্রের উত্তাল ঢেউ প্রচন্ড শব্দে সৈকতে আচড়ে পড়ছে। উত্তাল জলরাশির এমন উম্মাদ নৃত্যে কুয়াকাটার জিরো পয়েন্টর প্রায় ২০ ফুট সড়ক বিলীন হয়ে গেছে। সৈকতের পূর্ব দিকের নারিকেল, মেহেগনি,তাল গাছ সহ বনবিভাগের রোপিত শতাধিক দৃষ্টি নন্দন ঝাউ গাছ উপড়ে পড়ে আছে বালু তটে। কিছু গাছের গোড়া থেকে বালু সরে গিয়ে গাছের মূলসহ শিকড়-বাকর কঙ্কালের মতো করে দাড়িয়ে আছে এখন তাও ধ্বংসের অপেক্ষায়। জিও টেষ্টাইল ব্যাগ দ্বারা সৈকতের ভাঙ্গন ও বালুক্ষয় রোধে উদ্যোগ নিয়েছে পানি উন্নয়ন বোর্ড। চলমান এ কাজ নিয়েও জনমনে রয়েছে নানা ক্ষোভ।

 

স্থানীয় সমাজকর্মী ও কুয়াকাটা সী ট্যুরিজমের ব্যবস্থাপনা পরিচালক হোসাইন আমির বলেন, কুয়াকাটাকে রক্ষায় কার্যকর উদ্দোগ গ্রহন এখন সময়ের দাবী হয়ে উঠেছে। এখনই যথাযথ উদ্দোগ গ্রহন করা না হলে বনবিভাগের গড়ে তোলা সবুজ বেষ্টনী, কুয়াকাটার দর্শনীয় একাধিক স্পট, ঝাউ বাগান, নারিকেল বাগান, সৈকতের পশ্চিম দিকে অবস্থিত লেম্বুরচরের ম্যানগ্রোভ বন কিছুই আর অবশিষ্ট থাকবে কি না-এ নিয়ে শঙ্কা দেখা আছে। ভাঙ্গন রক্ষার দাবীতে স্থানীয় বেশ কয়েটি সংগঠনের উদ্যোগে ইতোমধ্যে বিভিন্ন কর্মসূচী গ্রহন করা হয়েছে। এখনও তা অব্যহত রয়েছে।

 

আবাসিক কিংস হোটেল’র মালিক মো.মোস্তাফিজুর রহমান সুমন বলেন, আমি সর্বশান্ত হয়ে গেছি। জমি এবং হোটেলসহ প্রায় এক কোটি টাকার সম্পত্তি সমুদ্রের হিং¯্রতায় শেষ হয়ে গেছে। এ বছর সমুদ্রের ঢেউয়ে তোরে হোটেল’র ভবনসহ জমি সমুদ্রের ঢেউয়ের তান্ডবে বিলিন হয়ে গেছে। এছাড়া সৈকতের পশ্চিমে মাঝি বাড়ি পয়েন্টের বেড়িবাঁধের পাঁচ ফুট অংশ সমুদ্রের ঢেউয়ের তান্ডবে বিলীন হয়ে গেছে। সৈকত ঘেষা হোটেল সান রাইস’র মালিক মো. শহ জালাল জানান, বালু ক্ষয় রোধে পানি উন্নয়ন বোর্ড জরুরী যে প্রকল্প হাতে নিয়েছে তা দ্রুত বাস্তবায়ন করা হলে কিছুটা রক্ষা পাবে কুয়াকাটা সৈকত।

 

কুয়াকাটা পৌর মেয়র ও সী বিচ ম্যানেজমেন্ট কমিটির সদস্য আ. বারেক মোল্লা বলেন,পর্যটকদের স্বার্থে পাবলিক টয়লেটটি রক্ষার জন্য বালুর বস্তা এবং ইট সুঁড়কি দিয়ে রক্ষার চেষ্টা চলছে। পৌর সভার উদ্যোগে কোরবানীর পর জিও পাইপে বালু ঢুকিয়ে স্বল্প পরিসরে সৈকত রক্ষা করার উদ্যোগ নেয়া হবে। বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) কলাপাড়ার নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ আবুল খায়ের জানান, বালু ক্ষয় ও ভাঙ্গন প্রতিরোধে স্থায়ীভাবে কুয়াকাটা সৈকত রক্ষার জন্য ‘সৈকত রক্ষা প্রকল্প’ প্রস্তাবনা আকারে পাঠানো হয়েছিল সংশ্লিষ্ট মন্ত্রনালয়ে, যা পরিকল্পনা মন্ত্রণালয় থেকে ফের বিস্তারিত সমীক্ষার জন্য ফেরত পাঠানো হয়েছে।

 

যার জন্য এবছর বর্ষা মোৗসুমে সাগরের বালু ক্ষয় রোধে সৈকত রক্ষা প্রকল্পের কাজ অনিশ্চিত। তবে পানি উন্নয়ন বোর্ডের নিজস্ব উদ্যোগে ও অর্থায়নে স্বল্প পরিসরে জরুরি ভিত্তিতে ঝুঁকিপূর্ণ বেড়িবাঁধ এবং সৈকত প্রটেকশনের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে বলে তিনি সাংবাদিকদের জানিয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন:

সর্বশেষ আপডেট



» রাজধানীর উত্তর বাড্ডায় মেয়ের ভর্তির জন্য স্কুলে মা, ছেলেধরা সন্দেহে পিটিয়ে হত্যা

» প্রিয়া সাহার বাড়ি ঘেরাও করে তালা দেওয়ার চেষ্টা!

» ফুলবাড়ীতে প্রতিবন্ধী শিশু ধর্ষনকারীর ফাঁসির দাবিতে মানববন্ধন

» ফুলবাড়ীতে ফলদ বৃক্ষমেলা উদ্বোধন

» যশোরের বেনাপোলে ফেন্সিডিলসহ আটক-১

» শার্শা প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বঙ্গবন্ধু – বঙ্গমাতা ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত

» রিফাত হত্যা মামলা: মিন্নিকে সহায়তা দিতে ৪০ আইনজীবী যাচ্ছেন বরগুনায়

» ঝিনাইদহের হাসপাতালের বাগানে লাল প্যাকেটের মধ্যে নবজাতকের কান্না

» ভিনদেশী খোলোয়ারদের দেখতে হাজারো দর্শকের ভীড়

» মানুষের বিপদে এরশাদ সবসময় ছুটে গেছেন: সালমা ইসলাম এমপি

লাইক দিয়ে সংযুক্ত থাকুন

ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
সহ-সম্পাদক : নুরুজ্জামান কাফি
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com
Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
আজ রবিবার, ২১ জুলাই ২০১৯ খ্রিষ্টাব্দ, ৬ই শ্রাবণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

সমুদ্রের অব্যাহত ভাঙ্গনে শ্রীহীন হয়ে পড়ছে কুয়াকাটার সৈকত

ইউটিউবে সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:
Spread the love

উত্তম কুমার হাওলাদার,কলাপাড়া(পটুয়াখালী)প্রতিনিধি, ২৭ জুলাই।। বঙ্গোপসাগরের বিক্ষুদ্ধ ঢেউয়ের তান্ডবে ’সূর্যোদয়-সূর্যাস্ত দর্শনের প্রসিদ্ধ স্থান খ্যাত’ পর্যটন কেন্দ্র কুয়াকাটার সমুদ্র সৈকত শ্রীহীন হয়ে পড়ছে।

 

আষাঢ়ের রুদ্র রোষে ও প্রকৃতির এমন হেয়ালিপনায় হতাশ হয়ে পড়েছেন ভ্রমনে আসা পর্যটক, পর্যটন শিল্পে বিনিয়োগকারী সহ স্থানীয়রা। অব্যাহত বালু ক্ষয় ও ভাঙ্গনের কবল থেকে রক্ষায় দ্রুত কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহনের জন্য মানববন্ধন, সমাবেশসহ সামাজিক যোগযোগ মাধ্যম ফেসবুকে জোরালো দাবী তুলেছেন স্থানীয়,পর্যটকসহ ব্যবসায়ীরা। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ ভাঙ্গন রোধে বারংবার আশ্বাসের বানী শোনালেও অদ্যবধি কার্যকর কোন পদক্ষেপ নেয়নি।

 

এদিকে কুয়াকাটার সমুদ্র সৈকত রক্ষায় পানি উন্নয়ন বোর্ডের উদ্যোগে একটি উন্নয়ন প্রকল্প পরিকল্পনা মন্ত্রনালয়ে পাঠালেও সেটি মন্ত্রনালয় থেকে বিস্তারিত সমীক্ষার জন্য ফেরত পাঠানোয় চলতি মৌসুমে সৈকত রক্ষার উদ্যোগ অনিশ্চয়তার মধ্যে পড়েছে। তাই কুয়াকাটাকে বাঁচাতে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ চান স্থানীয়রা।

 

সরেজমিন দেখা গেছে, কুয়াকাটা জিরো পয়েন্ট থেকে সৈকতের দিকে যেতেই চোখে পড়ে সমুদ্রের উত্তাল ঢেউ প্রচন্ড শব্দে সৈকতে আচড়ে পড়ছে। উত্তাল জলরাশির এমন উম্মাদ নৃত্যে কুয়াকাটার জিরো পয়েন্টর প্রায় ২০ ফুট সড়ক বিলীন হয়ে গেছে। সৈকতের পূর্ব দিকের নারিকেল, মেহেগনি,তাল গাছ সহ বনবিভাগের রোপিত শতাধিক দৃষ্টি নন্দন ঝাউ গাছ উপড়ে পড়ে আছে বালু তটে। কিছু গাছের গোড়া থেকে বালু সরে গিয়ে গাছের মূলসহ শিকড়-বাকর কঙ্কালের মতো করে দাড়িয়ে আছে এখন তাও ধ্বংসের অপেক্ষায়। জিও টেষ্টাইল ব্যাগ দ্বারা সৈকতের ভাঙ্গন ও বালুক্ষয় রোধে উদ্যোগ নিয়েছে পানি উন্নয়ন বোর্ড। চলমান এ কাজ নিয়েও জনমনে রয়েছে নানা ক্ষোভ।

 

স্থানীয় সমাজকর্মী ও কুয়াকাটা সী ট্যুরিজমের ব্যবস্থাপনা পরিচালক হোসাইন আমির বলেন, কুয়াকাটাকে রক্ষায় কার্যকর উদ্দোগ গ্রহন এখন সময়ের দাবী হয়ে উঠেছে। এখনই যথাযথ উদ্দোগ গ্রহন করা না হলে বনবিভাগের গড়ে তোলা সবুজ বেষ্টনী, কুয়াকাটার দর্শনীয় একাধিক স্পট, ঝাউ বাগান, নারিকেল বাগান, সৈকতের পশ্চিম দিকে অবস্থিত লেম্বুরচরের ম্যানগ্রোভ বন কিছুই আর অবশিষ্ট থাকবে কি না-এ নিয়ে শঙ্কা দেখা আছে। ভাঙ্গন রক্ষার দাবীতে স্থানীয় বেশ কয়েটি সংগঠনের উদ্যোগে ইতোমধ্যে বিভিন্ন কর্মসূচী গ্রহন করা হয়েছে। এখনও তা অব্যহত রয়েছে।

 

আবাসিক কিংস হোটেল’র মালিক মো.মোস্তাফিজুর রহমান সুমন বলেন, আমি সর্বশান্ত হয়ে গেছি। জমি এবং হোটেলসহ প্রায় এক কোটি টাকার সম্পত্তি সমুদ্রের হিং¯্রতায় শেষ হয়ে গেছে। এ বছর সমুদ্রের ঢেউয়ে তোরে হোটেল’র ভবনসহ জমি সমুদ্রের ঢেউয়ের তান্ডবে বিলিন হয়ে গেছে। এছাড়া সৈকতের পশ্চিমে মাঝি বাড়ি পয়েন্টের বেড়িবাঁধের পাঁচ ফুট অংশ সমুদ্রের ঢেউয়ের তান্ডবে বিলীন হয়ে গেছে। সৈকত ঘেষা হোটেল সান রাইস’র মালিক মো. শহ জালাল জানান, বালু ক্ষয় রোধে পানি উন্নয়ন বোর্ড জরুরী যে প্রকল্প হাতে নিয়েছে তা দ্রুত বাস্তবায়ন করা হলে কিছুটা রক্ষা পাবে কুয়াকাটা সৈকত।

 

কুয়াকাটা পৌর মেয়র ও সী বিচ ম্যানেজমেন্ট কমিটির সদস্য আ. বারেক মোল্লা বলেন,পর্যটকদের স্বার্থে পাবলিক টয়লেটটি রক্ষার জন্য বালুর বস্তা এবং ইট সুঁড়কি দিয়ে রক্ষার চেষ্টা চলছে। পৌর সভার উদ্যোগে কোরবানীর পর জিও পাইপে বালু ঢুকিয়ে স্বল্প পরিসরে সৈকত রক্ষা করার উদ্যোগ নেয়া হবে। বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) কলাপাড়ার নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ আবুল খায়ের জানান, বালু ক্ষয় ও ভাঙ্গন প্রতিরোধে স্থায়ীভাবে কুয়াকাটা সৈকত রক্ষার জন্য ‘সৈকত রক্ষা প্রকল্প’ প্রস্তাবনা আকারে পাঠানো হয়েছিল সংশ্লিষ্ট মন্ত্রনালয়ে, যা পরিকল্পনা মন্ত্রণালয় থেকে ফের বিস্তারিত সমীক্ষার জন্য ফেরত পাঠানো হয়েছে।

 

যার জন্য এবছর বর্ষা মোৗসুমে সাগরের বালু ক্ষয় রোধে সৈকত রক্ষা প্রকল্পের কাজ অনিশ্চিত। তবে পানি উন্নয়ন বোর্ডের নিজস্ব উদ্যোগে ও অর্থায়নে স্বল্প পরিসরে জরুরি ভিত্তিতে ঝুঁকিপূর্ণ বেড়িবাঁধ এবং সৈকত প্রটেকশনের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে বলে তিনি সাংবাদিকদের জানিয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন:

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



Click Here

সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



About Us | Privacy Policy | Terms & Conditions | Contact Us | Sitemap
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
সহ-সম্পাদক : নুরুজ্জামান কাফি
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com

© Copyright BY KuakataNews.Com

Design & Developed BY PopularITLimited