কুয়াকাটা সৈকত জুড়ে উপচেপড়া পর্যটক সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ছে ভ্রমনের দৃশ্য

Spread the love

উত্তম কুমার হাওলাদার,কলাপাড়া(পটুয়াখালী) প্রতিনিধি২১জুন ।। ঈদুলু ফিতরের ছুটির শেষ হলেও পর্যটন কেন্দ্র কুয়াকাটার পর্যটক স্পট গুলো এখনও উৎসব মুখর পরিবেশ বিরাজ করছে। দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে পরিবার পরিজন এখানে এসেছে।

 

আবার কেউ বা পছন্দের মানুষটিকে নিয়ে সাগর কন্যা খ্যাত কুয়াকাটার নৈসর্গিক সৌন্দর্য উপভোগ করতে ছুটে এসেছেন। তারা স্মার্ট ফোনের সেলফি ও ভিডিও ক্লিপস সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দিচ্ছে। হাজারো পর্যটকদের পদচারনায় হোটেলসহ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলোতে কেনা বেচার ধুম পড়েছে। এদিকে দর্শনীয় স্থানসহ পর্যটকদের নিরাপদ ভ্রমনে প্রশাসনের পক্ষ থেকে ব্যাপক নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহন করেছে।

 

সরেজমিনে ঘুরে দেখা গেছে, ওখানকার অধিকাংশ হোটেল, মোটেলের রুম বুকিং রয়েছে। ভালো রুম পেতে কষ্ট হলেও প্রাকৃতিক সৌন্দর্য সব দু:খ ভুলিয়ে দিয়েছে তাদের। জিরো পয়েন্টে, শ্রীমঙ্গল বৌদ্ধবিহার, মিশ্রিপাড়া সিমা বৌদ্ধ বিহার, জাতীয় উদ্যান, লেম্বুর চর, শুটকি পল্লী, রাখাইন মহিলা মার্কেট, গঙ্গামতি, কাউয়ারচর, লাল কাকড়ার চর, ইলিশ পার্ক সহ পর্যটন স্পটগুলো এখন পর্যটকদের পদভাড়ে মুখরিত। বিভিন্ন বয়সের নারী-পুরুষ আনন্দ-উচ্ছাসে সমুদ্রের লেনাজলে গোসল করতে দেখে গেছে। সৈকতে জেগে ওঠা পুরনো স্থাপনার অংশ অপসারনের দাবি জানিয়েছেন অনেকে পর্যটকসহ স্থানীয়রা।

 

ভ্রমনে আসা ব্যবসায়ি মো. কিবরিয়া বলেন, কুয়াকাটার ভাঙ্গন রক্ষায় সরকারের ব্যবস্থা নেয়া উচিত। সৈকতে গোসল করতে অনেক কষ্ট হয়েছে। এছাড়া কুয়াকাটা মহাসড়কের পাখিমারা থেকে মহিপুর পর্যন্ত সড়কের অবস্থা খুবই খারাপ। তবে এখানকার প্রাকৃতিক সৌন্দর্য সব কষ্ট ঘুচিয়ে দিয়েছে। অপর পর্যটক শম্পা আক্তার জানান, সৈকতে গোসল করতে গিয়ে আমাদের বেশ কয়েকজনের পা কেটে গেছে। এর পরও সৈকতে বেঞ্চিতে বসে রাতের সমুদ্র ও তার বিক্ষুব্দ গর্জন অসাধারণ লেগেছে। তবে বিদ্যুতের লোড শেডিংয়ের কারনে ছেলে-মেয়েরা হোটেলে একটু অস্বস্তি বোধ করেছে।

 

কুয়াকাটা ইলিশ পার্কের ব্যবস্থাপনা পরিচালক রুমান ইমতিয়াজ তুষার জানান, পর্যটকদের ব্যাপক ভিড় রয়েছে। আমরাও চেষ্টা করছি পর্যটকদের নিরাপত্তা সহ বিনোদন নিশ্চিত করতে। কুয়াকাটা হোটেল মোটেল ওনার্স এসোসিয়েশনের সাধারন সম্পাদক মো.মোতালেব শরিফ জানান, ঈদের পরদিন থেকে এখানকার হোটেল মোটেল আগাম বুকিং ছিলো।  কুয়াকাটা ট্যুরিষ্ট পুলিশ জেনের এস আই মো.নজরুল ইসলাম জানান, সৈকতে পর্যটকদের নির্বিঘেœ চলাফেরা এবং অপ্রীতিকর ঘটনা না ঘটে সে দিকে সার্বক্ষনিক নজর রাখা হচ্ছে।

 

এছাড়া পর্যটকের নিরাপত্তায় বিভিন্ন দর্শনীয় স্থানে পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। মহিপুর থানার ওসি মিজানুর রহমান জানান, পর্যটকের একটু চাপ রয়েছে। তাদের নিরাপত্তা দিতে ট্যুরিষ্ট পুলিশ, নৌ-পুলিশ সহ মহিপুর থানা পুলিশ দর্শনীয় স্থানে টহল জোরদার করা হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন:

সর্বশেষ আপডেট



» রাংঙ্গাবালীতে বন্ধ হওয়া প্রাথমিক বিদ্যালয় সংস্কার ও চালুর দাবীতে এলাকাবাসীর পাশে শিক্ষাবান্ধব তরুণ নেতা রনি মাহমুদ

» বাংলাদেশ-ভারতের পানি বণ্টনে আমরা প্রস্তুত: জয়শঙ্কর

» হুইল চেয়ারে বসে চিরুনি অভিযানে মাঠে মেয়র আতিকুল ইসলাম

» রাজবাড়ীর গোয়ালন্দে পুলিশ হেফাজতে বাসর রাত কাটলেও ভেঙ্গে গেল বিয়ে

» এবার বাগেরহাটে ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে মাদরাসা সুপারের বিরুদ্ধে মামলা

» বেনাপোলে ৩টি পিস্তল,৬৬ রাউন্ড গুলি,৩টি ম্যাগজিন ও ১কেজি গান পাউডার সহ গ্রেপ্তার-১

» নারায়ণগঞ্জ ফতুল্লায় মায়ের চিকিৎসা করাতে এসে ডাক্তারের ধর্ষণের শিকার তরুণী

» মায়ের কাছ থেকে চুরির পর ‘মায়া’ বিক্রি হয় দৌলতদিয়ায়!

» ক্ষমতাসীন দলের নেতা ও গোয়েন্দা সংস্থা থেকে প্রতিনিয়ত হুমকির সম্মুখীন হচ্ছি: ভিপি নুর

» আবারো ফিফার বিশ্বসেরা তালিকায় মেসির গোল

লাইক দিয়ে সংযুক্ত থাকুন

ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
সহ-সম্পাদক : নুরুজ্জামান কাফি
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com
Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
আজ মঙ্গলবার, ২০ আগস্ট ২০১৯ খ্রিষ্টাব্দ, ৫ই ভাদ্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

কুয়াকাটা সৈকত জুড়ে উপচেপড়া পর্যটক সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ছে ভ্রমনের দৃশ্য

ইউটিউবে সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:
Spread the love

উত্তম কুমার হাওলাদার,কলাপাড়া(পটুয়াখালী) প্রতিনিধি২১জুন ।। ঈদুলু ফিতরের ছুটির শেষ হলেও পর্যটন কেন্দ্র কুয়াকাটার পর্যটক স্পট গুলো এখনও উৎসব মুখর পরিবেশ বিরাজ করছে। দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে পরিবার পরিজন এখানে এসেছে।

 

আবার কেউ বা পছন্দের মানুষটিকে নিয়ে সাগর কন্যা খ্যাত কুয়াকাটার নৈসর্গিক সৌন্দর্য উপভোগ করতে ছুটে এসেছেন। তারা স্মার্ট ফোনের সেলফি ও ভিডিও ক্লিপস সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দিচ্ছে। হাজারো পর্যটকদের পদচারনায় হোটেলসহ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলোতে কেনা বেচার ধুম পড়েছে। এদিকে দর্শনীয় স্থানসহ পর্যটকদের নিরাপদ ভ্রমনে প্রশাসনের পক্ষ থেকে ব্যাপক নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহন করেছে।

 

সরেজমিনে ঘুরে দেখা গেছে, ওখানকার অধিকাংশ হোটেল, মোটেলের রুম বুকিং রয়েছে। ভালো রুম পেতে কষ্ট হলেও প্রাকৃতিক সৌন্দর্য সব দু:খ ভুলিয়ে দিয়েছে তাদের। জিরো পয়েন্টে, শ্রীমঙ্গল বৌদ্ধবিহার, মিশ্রিপাড়া সিমা বৌদ্ধ বিহার, জাতীয় উদ্যান, লেম্বুর চর, শুটকি পল্লী, রাখাইন মহিলা মার্কেট, গঙ্গামতি, কাউয়ারচর, লাল কাকড়ার চর, ইলিশ পার্ক সহ পর্যটন স্পটগুলো এখন পর্যটকদের পদভাড়ে মুখরিত। বিভিন্ন বয়সের নারী-পুরুষ আনন্দ-উচ্ছাসে সমুদ্রের লেনাজলে গোসল করতে দেখে গেছে। সৈকতে জেগে ওঠা পুরনো স্থাপনার অংশ অপসারনের দাবি জানিয়েছেন অনেকে পর্যটকসহ স্থানীয়রা।

 

ভ্রমনে আসা ব্যবসায়ি মো. কিবরিয়া বলেন, কুয়াকাটার ভাঙ্গন রক্ষায় সরকারের ব্যবস্থা নেয়া উচিত। সৈকতে গোসল করতে অনেক কষ্ট হয়েছে। এছাড়া কুয়াকাটা মহাসড়কের পাখিমারা থেকে মহিপুর পর্যন্ত সড়কের অবস্থা খুবই খারাপ। তবে এখানকার প্রাকৃতিক সৌন্দর্য সব কষ্ট ঘুচিয়ে দিয়েছে। অপর পর্যটক শম্পা আক্তার জানান, সৈকতে গোসল করতে গিয়ে আমাদের বেশ কয়েকজনের পা কেটে গেছে। এর পরও সৈকতে বেঞ্চিতে বসে রাতের সমুদ্র ও তার বিক্ষুব্দ গর্জন অসাধারণ লেগেছে। তবে বিদ্যুতের লোড শেডিংয়ের কারনে ছেলে-মেয়েরা হোটেলে একটু অস্বস্তি বোধ করেছে।

 

কুয়াকাটা ইলিশ পার্কের ব্যবস্থাপনা পরিচালক রুমান ইমতিয়াজ তুষার জানান, পর্যটকদের ব্যাপক ভিড় রয়েছে। আমরাও চেষ্টা করছি পর্যটকদের নিরাপত্তা সহ বিনোদন নিশ্চিত করতে। কুয়াকাটা হোটেল মোটেল ওনার্স এসোসিয়েশনের সাধারন সম্পাদক মো.মোতালেব শরিফ জানান, ঈদের পরদিন থেকে এখানকার হোটেল মোটেল আগাম বুকিং ছিলো।  কুয়াকাটা ট্যুরিষ্ট পুলিশ জেনের এস আই মো.নজরুল ইসলাম জানান, সৈকতে পর্যটকদের নির্বিঘেœ চলাফেরা এবং অপ্রীতিকর ঘটনা না ঘটে সে দিকে সার্বক্ষনিক নজর রাখা হচ্ছে।

 

এছাড়া পর্যটকের নিরাপত্তায় বিভিন্ন দর্শনীয় স্থানে পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। মহিপুর থানার ওসি মিজানুর রহমান জানান, পর্যটকের একটু চাপ রয়েছে। তাদের নিরাপত্তা দিতে ট্যুরিষ্ট পুলিশ, নৌ-পুলিশ সহ মহিপুর থানা পুলিশ দর্শনীয় স্থানে টহল জোরদার করা হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন:

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



Click Here

সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



About Us | Privacy Policy | Terms & Conditions | Contact Us | Sitemap
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
সহ-সম্পাদক : নুরুজ্জামান কাফি
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com

© Copyright BY KuakataNews.Com

Design & Developed BY PopularITLimited