নিতাইগঞ্জকে যানজটমুক্ত করায় সেলিম ওসমান ও আইভীকে এসটি আলমগীরের অভিনন্দন

Spread the love

আজকের জনবানী রিপোর্ট:- শহরকে যানজটমুক্ত করতে অবশেষে নারায়ণগঞ্জ জেলা ট্রাক, ট্যাংকলড়ি, কভার্ড ভ্যান শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারন সম্পাদক এসটি আলমগীর সরকারের স্বপ্ন পূরন হলো। তার দীর্ঘদিনের স্বপ্ন ছিল নিতাইগঞ্জে যানজট নিরসনে ট্রাক স্ট্যান্ড অন্যত্র সরিয়ে নেয়া হোক।

 

একান্ত আলাপকালে এসটি আলমগীর আরো বলেন,সংসদ সদস্য উন্নয়নের রুপকার ও জননেতা সেলিম ওসমান ও নাসিক মেয়র ডাঃ সেলিনা হায়াত আইভীর বদৌলতে নিতাইগঞ্জ হতে ট্রাক স্ট্যান্ড উচ্ছেদ করা সম্ভব হয়েছে। এজন্য তিনি সংসদ সদস্য সেলিম ওসমান ও আইভীকে ধন্যবাদ জানান। যারা গাড়ি ভাড়া করে নিয়ে আসে তারাই যেখানে রাখতে বলে ট্রাক ড্রাইভার ও হেলপাররা সেখানে রাখতে বাধ্য হয়। গাড়ি রাখার কারনে কোন ড্রাইভার, হেলপারদেরকে নির্যাতন করা হলে তা বরদাশত করবোনা।তিনি আরও বলেন,২০১৬ সালে শহরকে যানজটমুক্ত রাখতে নারায়নগঞ্জ-৪ আসনের সাংসদ শামীম ওসমান যখন ট্রাফিকের ভুমিকা নিয়ে রাজপথে নামেন তখন তার নির্দেশেই আমি নিতাইগঞ্জকে যানজটমুক্ত রাখতে নিতাইগঞ্জ মোড়ে অবস্থান নেই। সেই সময় মালিকদের সাথে মিশে আলীরটেকের চেয়ারম্যান মতি জোড় করেই ট্রাক ঢোকানো নিয়ে তর্ক-বিতর্কে জড়ান। তিনি ক্ষমতার অপব্যবহার করে আমাকে হয়রানী করতে মামলাও করেন আমার বিরুদ্ধে। অথচ অত্যন্ত পরিতাপের বিষয় মতির নেতৃত্বে তখন সমস্যা সমাধান হয়নি।

 

তিনি আরও বলেন,নিতাইগঞ্জকে যানজটমুক্ত করে উভয়েই ভুয়সী প্রশংসা লাব করেন সেই তারা যদি নিতাইগঞ্জ ট্রাক স্টান্ড থেকে কথিত টোকেনবাজ নেতাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহন করেন তাহলে খেটে খাওয়া সাধারন শ্রমিক ও মালিকরা একটু হলেও শান্তিতে তাদের ব্যবসা পরিচালনা করতে পারেন।

 

প্রয়াত সংসদ সদস্য নাসিম ওসমানের ও রেললাইনের দক্ষিন পাশে দেওভোগের খাদেম সানাউল্লাহ ভাইয়ের ডাকে ১৯৮৫ সালে এরশাদ সরকারের আমলে ওসমান পরিবারের রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত হয় এসটি আলমগীর।
১৯৯৭ সালে চাষাড়া ও ২নং রেলগেইট এলাকায় পতিতা উচ্ছেদ নিয়ে দক্ষিন ও উত্তর পাশের মধ্যে যে সংঘর্ষ হয়েছিল তৎকালীন ছাত্রদলের জেলা সভাপতি জাকির খানের বিরুদ্ধে ২ টি মামলার বাদী ছিল এসটি আলমগীর সরকার। জাকির খান বাহিনীকে উচ্ছেদ করে ডিআইটির করিম মার্কেট এলাকাকে ওসমান পরিবারের ঘাটি হিসেবে গড়ে তোলে।

 

শ্রমিক নেতা এসটি আলমগীর সরকার বাংলাদেশ সরকারের মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী মোজাম্মেল হকের কাছ থেকে শ্রেষ্ট শ্রমিক নেতার স্বর্নপদক গ্রহন করেন।৭১ সালে স্বাধীনতা যুদ্ধে হানাদার বাহিনী গোগনগরে তার নানার বাড়ি ও আলীরটেকে দাদার বাড়ি পুড়িয়ে দেয়।হানাদার বাহিনী বড় বাবা সাইজুদ্দিন সরকারকে লক্ষীনগরে খেড় দিয়ে পুড়িয়ে ও এসটি আলমগীরের বড় ভাই আব্দুল মাজেদ সরকারকে কবরস্থানের ভিতর বেনেট দিয়ে খুচিয়ে হত্যা করে।

 

তাদের হত্যার কারন সাবেক এমপি কমান্ডার সিরাজের নেতৃত্বে আলীরটেকে মুক্তিযোদ্ধাদের ঘাটি হয়েছিল। তারা মুক্তিযোদ্ধাদের সহযোগিতা করেছিল।এসটি আলমগীর সরকার এই পরিবারের সন্তান।

নিউজটি শেয়ার করুন:

সর্বশেষ আপডেট



» গলাচিপায় ঝুঁকিপূর্ণ বিদ্যালয়ে পাঠদান

» কলাপাড়ায় গাঁজা সহ ব্যবসায়ী আটক

» এবার হাসপাতালে যাওয়ার পথে নার্সকে কুপিয়ে হত্যা

» গাছের সাথে বেঁধে গৃহবধূকে নির্যাতন

» খুনির সঙ্গে রিফাতের স্ত্রী মিন্নির ‘সম্পর্কের তথ্য’ ফাঁস

» দশমিনা-উলানিয়া সড়কের কারপিটিংপিচ উঠে খানা খন্দের সৃষ্টি

» দশমিনায় চাঁই ব্যবহারের ফলে: গল্পেরমত থেকে যাবে দেশী প্রজাতির মাছ

» কলাপাড়ায় গৃহবধু হত্যা মামলায় শ্বশুড় গ্রেফতার

» সীমান্ত প্রেসক্লাব বেনাপোলের প্রচার সম্পাদক রাসেলের উপর প্রাননাশের হুমকিতে থানায় জিডি

» কেরোসিনের চুলা বিস্ফোরণে তিন ছাত্রী দগ্ধ

লাইক দিয়ে সংযুক্ত থাকুন

ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
সহ-সম্পাদক : নুরুজ্জামান কাফি
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com
Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
আজ বৃহস্পতিবার, ২৭ জুন ২০১৯ খ্রিষ্টাব্দ, ১৩ই আষাঢ় ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

নিতাইগঞ্জকে যানজটমুক্ত করায় সেলিম ওসমান ও আইভীকে এসটি আলমগীরের অভিনন্দন

ইউটিউবে সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:
Spread the love

আজকের জনবানী রিপোর্ট:- শহরকে যানজটমুক্ত করতে অবশেষে নারায়ণগঞ্জ জেলা ট্রাক, ট্যাংকলড়ি, কভার্ড ভ্যান শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারন সম্পাদক এসটি আলমগীর সরকারের স্বপ্ন পূরন হলো। তার দীর্ঘদিনের স্বপ্ন ছিল নিতাইগঞ্জে যানজট নিরসনে ট্রাক স্ট্যান্ড অন্যত্র সরিয়ে নেয়া হোক।

 

একান্ত আলাপকালে এসটি আলমগীর আরো বলেন,সংসদ সদস্য উন্নয়নের রুপকার ও জননেতা সেলিম ওসমান ও নাসিক মেয়র ডাঃ সেলিনা হায়াত আইভীর বদৌলতে নিতাইগঞ্জ হতে ট্রাক স্ট্যান্ড উচ্ছেদ করা সম্ভব হয়েছে। এজন্য তিনি সংসদ সদস্য সেলিম ওসমান ও আইভীকে ধন্যবাদ জানান। যারা গাড়ি ভাড়া করে নিয়ে আসে তারাই যেখানে রাখতে বলে ট্রাক ড্রাইভার ও হেলপাররা সেখানে রাখতে বাধ্য হয়। গাড়ি রাখার কারনে কোন ড্রাইভার, হেলপারদেরকে নির্যাতন করা হলে তা বরদাশত করবোনা।তিনি আরও বলেন,২০১৬ সালে শহরকে যানজটমুক্ত রাখতে নারায়নগঞ্জ-৪ আসনের সাংসদ শামীম ওসমান যখন ট্রাফিকের ভুমিকা নিয়ে রাজপথে নামেন তখন তার নির্দেশেই আমি নিতাইগঞ্জকে যানজটমুক্ত রাখতে নিতাইগঞ্জ মোড়ে অবস্থান নেই। সেই সময় মালিকদের সাথে মিশে আলীরটেকের চেয়ারম্যান মতি জোড় করেই ট্রাক ঢোকানো নিয়ে তর্ক-বিতর্কে জড়ান। তিনি ক্ষমতার অপব্যবহার করে আমাকে হয়রানী করতে মামলাও করেন আমার বিরুদ্ধে। অথচ অত্যন্ত পরিতাপের বিষয় মতির নেতৃত্বে তখন সমস্যা সমাধান হয়নি।

 

তিনি আরও বলেন,নিতাইগঞ্জকে যানজটমুক্ত করে উভয়েই ভুয়সী প্রশংসা লাব করেন সেই তারা যদি নিতাইগঞ্জ ট্রাক স্টান্ড থেকে কথিত টোকেনবাজ নেতাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহন করেন তাহলে খেটে খাওয়া সাধারন শ্রমিক ও মালিকরা একটু হলেও শান্তিতে তাদের ব্যবসা পরিচালনা করতে পারেন।

 

প্রয়াত সংসদ সদস্য নাসিম ওসমানের ও রেললাইনের দক্ষিন পাশে দেওভোগের খাদেম সানাউল্লাহ ভাইয়ের ডাকে ১৯৮৫ সালে এরশাদ সরকারের আমলে ওসমান পরিবারের রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত হয় এসটি আলমগীর।
১৯৯৭ সালে চাষাড়া ও ২নং রেলগেইট এলাকায় পতিতা উচ্ছেদ নিয়ে দক্ষিন ও উত্তর পাশের মধ্যে যে সংঘর্ষ হয়েছিল তৎকালীন ছাত্রদলের জেলা সভাপতি জাকির খানের বিরুদ্ধে ২ টি মামলার বাদী ছিল এসটি আলমগীর সরকার। জাকির খান বাহিনীকে উচ্ছেদ করে ডিআইটির করিম মার্কেট এলাকাকে ওসমান পরিবারের ঘাটি হিসেবে গড়ে তোলে।

 

শ্রমিক নেতা এসটি আলমগীর সরকার বাংলাদেশ সরকারের মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী মোজাম্মেল হকের কাছ থেকে শ্রেষ্ট শ্রমিক নেতার স্বর্নপদক গ্রহন করেন।৭১ সালে স্বাধীনতা যুদ্ধে হানাদার বাহিনী গোগনগরে তার নানার বাড়ি ও আলীরটেকে দাদার বাড়ি পুড়িয়ে দেয়।হানাদার বাহিনী বড় বাবা সাইজুদ্দিন সরকারকে লক্ষীনগরে খেড় দিয়ে পুড়িয়ে ও এসটি আলমগীরের বড় ভাই আব্দুল মাজেদ সরকারকে কবরস্থানের ভিতর বেনেট দিয়ে খুচিয়ে হত্যা করে।

 

তাদের হত্যার কারন সাবেক এমপি কমান্ডার সিরাজের নেতৃত্বে আলীরটেকে মুক্তিযোদ্ধাদের ঘাটি হয়েছিল। তারা মুক্তিযোদ্ধাদের সহযোগিতা করেছিল।এসটি আলমগীর সরকার এই পরিবারের সন্তান।

নিউজটি শেয়ার করুন:

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



Click Here

সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



About Us | Privacy Policy | Terms & Conditions | Contact Us | Sitemap
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
সহ-সম্পাদক : নুরুজ্জামান কাফি
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com

© Copyright BY KuakataNews.Com

Design & Developed BY PopularITLimited