কলাপাড়ায় লাইসেন্স ও রেজিষ্ট্রেশন বিহীন মটোর সাইকেলে দিনদিন বেড়েই চলছে

Spread the love

এ,আর, কুতুবে আলম: পটুয়াখালীর কলাপাড়া উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে এমনকি কলাপাড়া পৌর-শহরের মধ্যেও লাইসেন্স বিহীন অদক্ষ চালকরা দেদারছে মটোর সাইকেল চালিয়ে যাত্রী নিয়ে এক স্থান হতে অন্য স্থানে চলাচল করে আসছে। এ যেন দেখার কেই নাই। প্রশাসনের নাকের ডগায়ই চলছে এই অদক্ষ চালকের রেজিষ্ট্রেশন বিহীন মটোর সাইকেলগুলো। এতে করে উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় প্রায়ই ঘটছে মর্মান্তিক সড়ক দূর্ঘটনা ।

 

এলাকা সূত্রে জানাযায়, কলাপাড়া উপজেলার ধানখালী ও চম্পাপুর ইউনিয়নের শেষ বর্ডার পাঁচজুনিয়া গ্রামের আ. মৌজলী খানের ছেলে মো. আব্দুল মালেক খান (৬৭)। তিনি তাদের বাড়ির সামনে সড়কে মসজীদের পাশে গত বৃহস্পতিবার বিকেল সাড়ে ৪টায় দাঁড়িয়ে কথা বলছেন। এমন সময় চম্পাপুর ইউনিয়নের গোলবুনিয়া গ্রামের ইসমাইল হাওলাদারের ছেলে রিয়াজ হাওলাদার (১৮) মিলন মৃধা নামের এক যাত্রী নিয়ে ধানখালী ডিগ্রী কলেজ বাজারের উদ্দেশ্যে রওয়ানা দেয়। এসময় অদক্ষ চালক নেশা খোরের ন্যায় মটোর সাইকেলটি ব্রেক ফেল করে আব্দুল মালেক খানের শরীরে উঠিয়ে দেয়। তখন মালেক খান অজ্ঞান হয়ে পড়ে। মালেক খানের পরিবার চালকসহ মটোর সাইকেলটি আটক করে।

 

এরপর তাৎক্ষনিক এ্যাম্বুলেন্স ডেকে মালেক খানকে নিয়ে বরিশাল শেরে বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করলে কর্তব্যরত চিকিৎসক ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করে। সেখানে মৃত্যূর সাথে যুদ্ধ করে অজ্ঞান অবস্থায়ই তিনি শুক্রবার সকাল সাড়ে ১১টায় মারা যান। এদিকে, স্থানীয় লোকজন পড়ে চালক রিয়াজ হাওলাদারকে ছাড়িয়ে নিয়ে যায়। তার মটোর সাইকেলটি আজো মালেক খানের বাড়িতে আছে। এর আগেও পাখিমারা এলাকায় রুবেল নামের এক স্কুল ছাত্র মটোর সাইকেল চাপায় নিহত হয়েছে। কয়েক মাস আগে ধানখালী লোন্দা খেয়াঘাট এলাকায় এক বৃদ্ধ মটোর সাইকেল চাপায় মারা গেছে। চম্পাপুর ইউনিয়নের পাটুয়া এলাকায়ও মটোর সাইকেলের চাপায় এক শিশু নিহত হয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে। বালিয়াতলী ভাবলাতলা একই পরিবারের ৩ জন গুরুত্বর রক্তাক্ত জখম হয়েছে। কলাপাড়ার মাদ্রাসা সড়কেও দুই মটোর সাইকেলের মুখোমুখী সংঘর্ষে ঢাকা থেকে যাওয়া সিনিয়র সাংবাদিক এর আত্মীয়সহ চারজন গুরুতর আহত হয়েছিল।

 

এলাকাবাসী আরো জানান, কলাপাড়া এলাকার প্রত্যেক ইউনিয়নেই রেজিষ্ট্রেশন বিহীন মটোর সাইকেল ও অদক্ষ চালকের হিড়িক। তারা অনেকে নেশা সেবন করেও মটোর সাইকেল চালায়। আবার কতিপয় চালকরা শহর ও কুয়াকাটা সাগর পাড় হতে ইয়াবা গাঁজাসহ নানা প্রকার নেশাদ্রব্যদি আনা নেওয়া করে। কলাপাড়া উপজেলার ট্রাফিক ব্যবস্থা নড়বড় হওয়ায় অপরাধীরা তাদের যানবাহনে অবৈধ মালামাল টানতে সহজ হয়। বিভিন্ন বিয়ে বাড়িতেও নেশা সেবনের আসর বসায় বলে গ্রামের সচেতন অভিভাবকগণ জানান। আর এই নেশা সরবরাহ করে কতিপয় কিছু অসাধু মটোর সাইকেল চালকরা। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, এই চালকের কিছু রাজনৈতিক মার্কা নেতাদের চামচাও বটে। তারা অপরাধ করতে দ্বিধাবোধ করছে না।

 

আওয়ামীলীগের এক প্রবীন নেতা ও আরেক ত্যাগীকর্মী জানান, নেশাখোর চালকদের হাত নাকি অনেক বড়। এরা নিজেরাও সেবন করে আর পাড়া মহল্লায়ও মাদক ছড়িয়ে দিতে সহায়তা করে আসছে। এদের কে সেল্টার দিচ্ছে কতিপয় কিছু পাতি নেতারা। ফলে কেহ ভয়ে মুখ খুলছেনা। বাংলাদেশ সরকারের প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, যারা সন্ত্রাস করবে নেশা বিক্রিতে সহায়তা করবে তাদেরকে ছাড় দেয়া হবেনা। সন্ত্রাস আর মাদক ব্যবসায়ীদের কোন দল নেই। তারা জাতির ধ্বংসকারী। সুতরাং গ্রামগঞ্জের সবাইর সচেতন হতে হবে এমনাই বলে আসছেন উন্নয়নের রূপকার ডিজিট্যাল দেশ গড়ার স্বপ্নাদ্রষ্টা শেখ হাসিনা।

 

এব্যাপারে কলাপাড়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শাহনেওয়াজ জানান, চালকের লাইসেন্স চেক ও রেজিষ্ট্রেশনবিহীন মটোর সাইকেল আটক করছি এবং মামলাও দিচ্ছি। গত শুক্রবারও ১০ (দশ)টি মটোর সাইকেল আটক করে মামলা দিয়েছি। আমাদের অভিযান নিয়মিত চলছে এবং চলবে। তিনি আরো বলেন, এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তি জনপ্রতিনিধিদেরও এই অবৈধ অদক্ষ চালকদের চিহ্নিত করতে সহায়তা করতে হবে। পুলিশের সংখ্যা কম। সুতরাং সবাই পুলিশের কাজে সহায়তা করলে দেশ আরো এগিয়ে যাবে এবং অপরাধ হ্রাস পাবে। নেশা বিক্রেতা ও বিক্রিতে সহায়তাকারী আমার কাছে কোন ক্রমেই ছাড় পাবেনা সে যেই হোক। আমাদের সরকার সন্ত্রাস ও মাদকের বিরুদ্ধে নির্মূলের প্রত্যয় নিয়ে জেহাদ ঘোষনা করে আসছেন ।

নিউজটি শেয়ার করুন:

সর্বশেষ আপডেট



» রাংঙ্গাবালীতে বন্ধ হওয়া প্রাথমিক বিদ্যালয় সংস্কার ও চালুর দাবীতে এলাকাবাসীর পাশে শিক্ষাবান্ধব তরুণ নেতা রনি মাহমুদ

» বাংলাদেশ-ভারতের পানি বণ্টনে আমরা প্রস্তুত: জয়শঙ্কর

» হুইল চেয়ারে বসে চিরুনি অভিযানে মাঠে মেয়র আতিকুল ইসলাম

» রাজবাড়ীর গোয়ালন্দে পুলিশ হেফাজতে বাসর রাত কাটলেও ভেঙ্গে গেল বিয়ে

» এবার বাগেরহাটে ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে মাদরাসা সুপারের বিরুদ্ধে মামলা

» বেনাপোলে ৩টি পিস্তল,৬৬ রাউন্ড গুলি,৩টি ম্যাগজিন ও ১কেজি গান পাউডার সহ গ্রেপ্তার-১

» নারায়ণগঞ্জ ফতুল্লায় মায়ের চিকিৎসা করাতে এসে ডাক্তারের ধর্ষণের শিকার তরুণী

» মায়ের কাছ থেকে চুরির পর ‘মায়া’ বিক্রি হয় দৌলতদিয়ায়!

» ক্ষমতাসীন দলের নেতা ও গোয়েন্দা সংস্থা থেকে প্রতিনিয়ত হুমকির সম্মুখীন হচ্ছি: ভিপি নুর

» আবারো ফিফার বিশ্বসেরা তালিকায় মেসির গোল

লাইক দিয়ে সংযুক্ত থাকুন

ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
সহ-সম্পাদক : নুরুজ্জামান কাফি
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com
Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
আজ মঙ্গলবার, ২০ আগস্ট ২০১৯ খ্রিষ্টাব্দ, ৫ই ভাদ্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

কলাপাড়ায় লাইসেন্স ও রেজিষ্ট্রেশন বিহীন মটোর সাইকেলে দিনদিন বেড়েই চলছে

ইউটিউবে সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:
Spread the love

এ,আর, কুতুবে আলম: পটুয়াখালীর কলাপাড়া উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে এমনকি কলাপাড়া পৌর-শহরের মধ্যেও লাইসেন্স বিহীন অদক্ষ চালকরা দেদারছে মটোর সাইকেল চালিয়ে যাত্রী নিয়ে এক স্থান হতে অন্য স্থানে চলাচল করে আসছে। এ যেন দেখার কেই নাই। প্রশাসনের নাকের ডগায়ই চলছে এই অদক্ষ চালকের রেজিষ্ট্রেশন বিহীন মটোর সাইকেলগুলো। এতে করে উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় প্রায়ই ঘটছে মর্মান্তিক সড়ক দূর্ঘটনা ।

 

এলাকা সূত্রে জানাযায়, কলাপাড়া উপজেলার ধানখালী ও চম্পাপুর ইউনিয়নের শেষ বর্ডার পাঁচজুনিয়া গ্রামের আ. মৌজলী খানের ছেলে মো. আব্দুল মালেক খান (৬৭)। তিনি তাদের বাড়ির সামনে সড়কে মসজীদের পাশে গত বৃহস্পতিবার বিকেল সাড়ে ৪টায় দাঁড়িয়ে কথা বলছেন। এমন সময় চম্পাপুর ইউনিয়নের গোলবুনিয়া গ্রামের ইসমাইল হাওলাদারের ছেলে রিয়াজ হাওলাদার (১৮) মিলন মৃধা নামের এক যাত্রী নিয়ে ধানখালী ডিগ্রী কলেজ বাজারের উদ্দেশ্যে রওয়ানা দেয়। এসময় অদক্ষ চালক নেশা খোরের ন্যায় মটোর সাইকেলটি ব্রেক ফেল করে আব্দুল মালেক খানের শরীরে উঠিয়ে দেয়। তখন মালেক খান অজ্ঞান হয়ে পড়ে। মালেক খানের পরিবার চালকসহ মটোর সাইকেলটি আটক করে।

 

এরপর তাৎক্ষনিক এ্যাম্বুলেন্স ডেকে মালেক খানকে নিয়ে বরিশাল শেরে বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করলে কর্তব্যরত চিকিৎসক ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করে। সেখানে মৃত্যূর সাথে যুদ্ধ করে অজ্ঞান অবস্থায়ই তিনি শুক্রবার সকাল সাড়ে ১১টায় মারা যান। এদিকে, স্থানীয় লোকজন পড়ে চালক রিয়াজ হাওলাদারকে ছাড়িয়ে নিয়ে যায়। তার মটোর সাইকেলটি আজো মালেক খানের বাড়িতে আছে। এর আগেও পাখিমারা এলাকায় রুবেল নামের এক স্কুল ছাত্র মটোর সাইকেল চাপায় নিহত হয়েছে। কয়েক মাস আগে ধানখালী লোন্দা খেয়াঘাট এলাকায় এক বৃদ্ধ মটোর সাইকেল চাপায় মারা গেছে। চম্পাপুর ইউনিয়নের পাটুয়া এলাকায়ও মটোর সাইকেলের চাপায় এক শিশু নিহত হয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে। বালিয়াতলী ভাবলাতলা একই পরিবারের ৩ জন গুরুত্বর রক্তাক্ত জখম হয়েছে। কলাপাড়ার মাদ্রাসা সড়কেও দুই মটোর সাইকেলের মুখোমুখী সংঘর্ষে ঢাকা থেকে যাওয়া সিনিয়র সাংবাদিক এর আত্মীয়সহ চারজন গুরুতর আহত হয়েছিল।

 

এলাকাবাসী আরো জানান, কলাপাড়া এলাকার প্রত্যেক ইউনিয়নেই রেজিষ্ট্রেশন বিহীন মটোর সাইকেল ও অদক্ষ চালকের হিড়িক। তারা অনেকে নেশা সেবন করেও মটোর সাইকেল চালায়। আবার কতিপয় চালকরা শহর ও কুয়াকাটা সাগর পাড় হতে ইয়াবা গাঁজাসহ নানা প্রকার নেশাদ্রব্যদি আনা নেওয়া করে। কলাপাড়া উপজেলার ট্রাফিক ব্যবস্থা নড়বড় হওয়ায় অপরাধীরা তাদের যানবাহনে অবৈধ মালামাল টানতে সহজ হয়। বিভিন্ন বিয়ে বাড়িতেও নেশা সেবনের আসর বসায় বলে গ্রামের সচেতন অভিভাবকগণ জানান। আর এই নেশা সরবরাহ করে কতিপয় কিছু অসাধু মটোর সাইকেল চালকরা। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, এই চালকের কিছু রাজনৈতিক মার্কা নেতাদের চামচাও বটে। তারা অপরাধ করতে দ্বিধাবোধ করছে না।

 

আওয়ামীলীগের এক প্রবীন নেতা ও আরেক ত্যাগীকর্মী জানান, নেশাখোর চালকদের হাত নাকি অনেক বড়। এরা নিজেরাও সেবন করে আর পাড়া মহল্লায়ও মাদক ছড়িয়ে দিতে সহায়তা করে আসছে। এদের কে সেল্টার দিচ্ছে কতিপয় কিছু পাতি নেতারা। ফলে কেহ ভয়ে মুখ খুলছেনা। বাংলাদেশ সরকারের প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, যারা সন্ত্রাস করবে নেশা বিক্রিতে সহায়তা করবে তাদেরকে ছাড় দেয়া হবেনা। সন্ত্রাস আর মাদক ব্যবসায়ীদের কোন দল নেই। তারা জাতির ধ্বংসকারী। সুতরাং গ্রামগঞ্জের সবাইর সচেতন হতে হবে এমনাই বলে আসছেন উন্নয়নের রূপকার ডিজিট্যাল দেশ গড়ার স্বপ্নাদ্রষ্টা শেখ হাসিনা।

 

এব্যাপারে কলাপাড়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শাহনেওয়াজ জানান, চালকের লাইসেন্স চেক ও রেজিষ্ট্রেশনবিহীন মটোর সাইকেল আটক করছি এবং মামলাও দিচ্ছি। গত শুক্রবারও ১০ (দশ)টি মটোর সাইকেল আটক করে মামলা দিয়েছি। আমাদের অভিযান নিয়মিত চলছে এবং চলবে। তিনি আরো বলেন, এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তি জনপ্রতিনিধিদেরও এই অবৈধ অদক্ষ চালকদের চিহ্নিত করতে সহায়তা করতে হবে। পুলিশের সংখ্যা কম। সুতরাং সবাই পুলিশের কাজে সহায়তা করলে দেশ আরো এগিয়ে যাবে এবং অপরাধ হ্রাস পাবে। নেশা বিক্রেতা ও বিক্রিতে সহায়তাকারী আমার কাছে কোন ক্রমেই ছাড় পাবেনা সে যেই হোক। আমাদের সরকার সন্ত্রাস ও মাদকের বিরুদ্ধে নির্মূলের প্রত্যয় নিয়ে জেহাদ ঘোষনা করে আসছেন ।

নিউজটি শেয়ার করুন:

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



Click Here

সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



About Us | Privacy Policy | Terms & Conditions | Contact Us | Sitemap
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
সহ-সম্পাদক : নুরুজ্জামান কাফি
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com

© Copyright BY KuakataNews.Com

Design & Developed BY PopularITLimited