রাজাপুরে সংস্কারের অভাবে পি এম নিম্ন মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়টি ঝুঁকির্পূন

জাকির সিকদার: ঝালকাঠি জেলাতে ১২২ টি ঝুঁকির্পূন স্কুল আছে। ধারাবাহিকতায় সংবাদ অনুসনদ্ধানে তার মধ্যে রাজাপুর উপজেলার মঠবাড়িয়া ইউনিয়নের মানকি গ্রামের বাদুরতলার এলাকার ৫২ নং পি এম নিম্ন মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়টি সংস্কারের অভাবে ঝুঁকির্পূন থাকায় শিক্ষা ব্যাহত হচ্ছে।

 

উক্ত স্কুলের সভাপতি শাহআলম প্যাদার কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আবেদন করা হয়েছে প্রদান শিক্ষকের মাধ্যমে ,সে দুই বার সভাপতি পদে থাকাবস্তায় কোন বরাদ্ধ হয়নি। ৮জন শিক্ষক আছেন, বিএসসি এবং লাইব্রেরিয়ান পদ খালি আছে। লেখা-পড়ার মান উন্নয়নের জন্য মানসম্মত ভবন নির্মান, বিদুৎ সংযোগ, ১কিঃমিঃ পাকা রাস্তা দরকার।

 

সরোজমিনে ঘুরে এসে জানাগেছে, রাজাপুরে পি এমনিম্ন মাধ্যমিক বালকিা বিদ্যালয়টি বিগত ১৯৮৮ সালের স্থাপিত হবার পর অদ্য ৩০-৬-২০১৮এর মধ্যে কোন উন্নয়নের ছোয়া লাগেনী “পি এম নিম্ন মাধ্যমিক বালকিা বিদ্যালয়”টি। উক্ত স্কুল সংস্কারের অভাবে ১ শত ২০ জন ছাত্রী নিয়ে ভাঙ্গাচুড়া স্কুলে চলছে নিয়মিত অধ্যায়ন। প্রধান শিক্ষক সমীরন বিকাশ রায় জানান,স্কুরে জেএসসি পরিক্ষায় গত বছর শতভাগ পাশ থাকা সত্বেও কোন উন্নয়নের বরাদ্ধ পাইনি। আমার স্কুলে বিশুদ্ধ পানির কোন নলকুপ নাই, ছাত্রীদের জন্য সরকারী ভাবে কোন কমিউনিটি সেনিঃটেরি টয়লেট বরাদ্ধ হয়নি। খেলা-ধুলা করার জন্য মাঠ থাকলেও মাঠ বরাদ্ধের অভাবে ব্যবহারের উপযোগি নয়।স্কুলের যাতায়াত ব্যবস্থা নাজুক থাকায় ছাত্রীদের চলাচলে ব্যাহত হচ্ছে। স্কুল থেকে মেইন রাস্তায় আসতে এক কিঃমিঃ পাকা করা প্রয়োজন ।

 

বৃষ্টির দিনে শিশু শ্রেনী থেকে দশম শ্রেনীতে পড়ুয়া ছাত্রীরা আসা যাওয়া করে গ্রামের ভিতরে কাঁদা রাস্তায়। নেই কোন বিদ্যুত সংযোগ, নেই কোন শিক্ষক মন্ডলির ভাল কক্ষ । স্কুলের দশম শ্রেনীর ছাত্রী শাহানাজ আক্তার জানান,বিগত দশ বছর যাবত ঝুঁকির্পূন স্কুলে লেখা-পড়া করতেছি, যে ভাবে স্কুল ছিল সেই রকমের ভাঙ্গা-চুড়া অবস্থায় আছে। স্কুলের ক্লাস করতে আমাদের অনেক ভয় লাগে। এর পর ৮ম শ্রেনীর ছাত্রী মোসাঃ ইভা আক্তার জানায়, স্কুলে বিদুৎ না থাকায় গড়মের অস্থির হয়ে যায়, মেঘ-বৃষ্টি হলেই অন্ধকার হয়ে যায় শ্রেনী কক্ষ। মোসাঃ ইতি আক্তার ৮ম শ্রেনীর ছাত্রী জানায়, স্কুলে আসার পরে পানির পিপাসায় কাতর হয়ে গেলে স্কুলে নেই কোন গভির নলকুপ,মানকি গ্রামের শেষে অবস্থিত বালিকা বিদ্যালয়টি কাঠ ও টিনের তৈরি, একটু বাতাস হলেই বিদ্যালয়টি ভেঙ্গে যেতে পারে।

 

আমাদের স্কুলের টয়লেট, মাঠ,স্কুল এরিয়া বাউন্ডারি নির্মান করা প্রয়োজন। উক্ত বিদ্যালয়ের ছাত্রী অভিভাবক ঝালকাঠি জেলা কৃষক লীগের যুগ্ম সম্পাদক একে মজিবুর রহমান জানান, স্কুলের সংস্কারের অভাবে জিমিয়ে পরছে লেখা-পড়ার মান,এখনি বিদ্যালয়টির উন্নয়ন না হলে সমস্যায় পড়বে ২শত ৫০ জন ছাত্রী। মানকি গ্রামের যুবলীগের সহ-সভাপতি মনিরুল ইসলাম জানায়, বিগত ২০ বছরে উন্নয়নের কোন ছোয়া লাগেনি। বর্তমানে বিদ্যালয়ের অবকাঠাঁমো মেরামত/সংস্কার জন্য মাননীয় সংসদ সদস্য বরাবর আবেদন করেছেন।উক্ত স্কুলের অবকাঠামো মেরামত ও খেলার মাঠটি ভরাট করে শিক্ষার পরিবেশ ফিরিয়ে আনার জন্য কাবিখা প্রকল্প হইতে ১৫টন চাল বরাদ্ধের আবেদন করেছেন প্রধান শিক্ষক সমীরন বিকাশ রায়।

নিউজটি শেয়ার করুন:

সর্বশেষ আপডেট



» মাদারীপুরের অদম্য মেধাবী কাকলীর পাশে র‌্যাব -৮

» মাহমুদুর রহমানকে নিয়ে আসা হচ্ছে ইউনাইটেড হাসপাতালে

» কুষ্টিয়ায় মাহমুদুর রহমানের ওপর হামলা

» ফতুল্লায় নারী শ্রমিক গনধর্ষনের শিকার থানায় মামলা গ্রেপ্তার-১

» ফতুল্লায় পরকিয়া প্রেমিকের সাথে চম্পট হওয়া লাকী আটক

» ফতুল্লায় ২৩০ পিস ইয়াবা ট্যাবলেটসহ গ্রেপ্তার-৫

» কোর্টের মাধ্যমে ‘মা’ খালেদা জিয়াকে মুক্ত করা যাবেনা – আজাদ বিশ্বাস

» আবারো হোন্ডা যোগে পালালো মনির শিষ্য সায়েম,মাহবুব

» ফতুল্লায় সংখ্যালঘু’র ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দিলো তোতলা বিল্লাল!

» সাকিব-তামিমের জোড়া ফিফটিতে স্বস্তিতে বাংলাদেশ

লাইক দিয়ে সংযুক্ত থাকুন






ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
Email: info@kuakatanews.com
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com
Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
,

রাজাপুরে সংস্কারের অভাবে পি এম নিম্ন মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়টি ঝুঁকির্পূন

জাকির সিকদার: ঝালকাঠি জেলাতে ১২২ টি ঝুঁকির্পূন স্কুল আছে। ধারাবাহিকতায় সংবাদ অনুসনদ্ধানে তার মধ্যে রাজাপুর উপজেলার মঠবাড়িয়া ইউনিয়নের মানকি গ্রামের বাদুরতলার এলাকার ৫২ নং পি এম নিম্ন মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়টি সংস্কারের অভাবে ঝুঁকির্পূন থাকায় শিক্ষা ব্যাহত হচ্ছে।

 

উক্ত স্কুলের সভাপতি শাহআলম প্যাদার কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আবেদন করা হয়েছে প্রদান শিক্ষকের মাধ্যমে ,সে দুই বার সভাপতি পদে থাকাবস্তায় কোন বরাদ্ধ হয়নি। ৮জন শিক্ষক আছেন, বিএসসি এবং লাইব্রেরিয়ান পদ খালি আছে। লেখা-পড়ার মান উন্নয়নের জন্য মানসম্মত ভবন নির্মান, বিদুৎ সংযোগ, ১কিঃমিঃ পাকা রাস্তা দরকার।

 

সরোজমিনে ঘুরে এসে জানাগেছে, রাজাপুরে পি এমনিম্ন মাধ্যমিক বালকিা বিদ্যালয়টি বিগত ১৯৮৮ সালের স্থাপিত হবার পর অদ্য ৩০-৬-২০১৮এর মধ্যে কোন উন্নয়নের ছোয়া লাগেনী “পি এম নিম্ন মাধ্যমিক বালকিা বিদ্যালয়”টি। উক্ত স্কুল সংস্কারের অভাবে ১ শত ২০ জন ছাত্রী নিয়ে ভাঙ্গাচুড়া স্কুলে চলছে নিয়মিত অধ্যায়ন। প্রধান শিক্ষক সমীরন বিকাশ রায় জানান,স্কুরে জেএসসি পরিক্ষায় গত বছর শতভাগ পাশ থাকা সত্বেও কোন উন্নয়নের বরাদ্ধ পাইনি। আমার স্কুলে বিশুদ্ধ পানির কোন নলকুপ নাই, ছাত্রীদের জন্য সরকারী ভাবে কোন কমিউনিটি সেনিঃটেরি টয়লেট বরাদ্ধ হয়নি। খেলা-ধুলা করার জন্য মাঠ থাকলেও মাঠ বরাদ্ধের অভাবে ব্যবহারের উপযোগি নয়।স্কুলের যাতায়াত ব্যবস্থা নাজুক থাকায় ছাত্রীদের চলাচলে ব্যাহত হচ্ছে। স্কুল থেকে মেইন রাস্তায় আসতে এক কিঃমিঃ পাকা করা প্রয়োজন ।

 

বৃষ্টির দিনে শিশু শ্রেনী থেকে দশম শ্রেনীতে পড়ুয়া ছাত্রীরা আসা যাওয়া করে গ্রামের ভিতরে কাঁদা রাস্তায়। নেই কোন বিদ্যুত সংযোগ, নেই কোন শিক্ষক মন্ডলির ভাল কক্ষ । স্কুলের দশম শ্রেনীর ছাত্রী শাহানাজ আক্তার জানান,বিগত দশ বছর যাবত ঝুঁকির্পূন স্কুলে লেখা-পড়া করতেছি, যে ভাবে স্কুল ছিল সেই রকমের ভাঙ্গা-চুড়া অবস্থায় আছে। স্কুলের ক্লাস করতে আমাদের অনেক ভয় লাগে। এর পর ৮ম শ্রেনীর ছাত্রী মোসাঃ ইভা আক্তার জানায়, স্কুলে বিদুৎ না থাকায় গড়মের অস্থির হয়ে যায়, মেঘ-বৃষ্টি হলেই অন্ধকার হয়ে যায় শ্রেনী কক্ষ। মোসাঃ ইতি আক্তার ৮ম শ্রেনীর ছাত্রী জানায়, স্কুলে আসার পরে পানির পিপাসায় কাতর হয়ে গেলে স্কুলে নেই কোন গভির নলকুপ,মানকি গ্রামের শেষে অবস্থিত বালিকা বিদ্যালয়টি কাঠ ও টিনের তৈরি, একটু বাতাস হলেই বিদ্যালয়টি ভেঙ্গে যেতে পারে।

 

আমাদের স্কুলের টয়লেট, মাঠ,স্কুল এরিয়া বাউন্ডারি নির্মান করা প্রয়োজন। উক্ত বিদ্যালয়ের ছাত্রী অভিভাবক ঝালকাঠি জেলা কৃষক লীগের যুগ্ম সম্পাদক একে মজিবুর রহমান জানান, স্কুলের সংস্কারের অভাবে জিমিয়ে পরছে লেখা-পড়ার মান,এখনি বিদ্যালয়টির উন্নয়ন না হলে সমস্যায় পড়বে ২শত ৫০ জন ছাত্রী। মানকি গ্রামের যুবলীগের সহ-সভাপতি মনিরুল ইসলাম জানায়, বিগত ২০ বছরে উন্নয়নের কোন ছোয়া লাগেনি। বর্তমানে বিদ্যালয়ের অবকাঠাঁমো মেরামত/সংস্কার জন্য মাননীয় সংসদ সদস্য বরাবর আবেদন করেছেন।উক্ত স্কুলের অবকাঠামো মেরামত ও খেলার মাঠটি ভরাট করে শিক্ষার পরিবেশ ফিরিয়ে আনার জন্য কাবিখা প্রকল্প হইতে ১৫টন চাল বরাদ্ধের আবেদন করেছেন প্রধান শিক্ষক সমীরন বিকাশ রায়।

নিউজটি শেয়ার করুন:

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
Email: info@kuakatanews.com
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com

© Copyright BY KuakataNews.Com

Design & Developed BY PopularITLimited