কলাপাড়ায় তিনটি নদীর দুই পাড়ে অকেজো হয়ে পরে রয়েছে সওজ’র কোটি টাকার সম্পদ

উত্তম কুমার হাওলাদার, কলাপাড়া: পটুযাখালীর কলাপাড়ায় তিনটি নদীর দুই পাড়ে অকেজো হয়ে পরে রয়েছে কোটি টাকা মূল্যের ফেরী, পল্টুন আর গ্যাংওয়ে।

 

রক্ষনাবেক্ষনের সড়ক ও জনপদ অধিদপ্তরের এসব সম্পদ মাটির নিচে চাপা পড়ে নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। পটুয়াখালী-কুয়কাটা মহাসড়কের ২২কিলোমিটার সড়কের আন্ধারমানিক নদীর উপর শেখ কামাল সেতু, হাজিপুর সোনাতলা নদীর উপর শেখ জামাল সেতু, শিববাড়িয়া নদীর উপর শেখ রাসেল সেতু নির্মিত হয়। এর পর থেকেই ফেরী চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। সেতু নির্মানের দুই বছর পার হলেও কর্তৃপক্ষ এ ফেরিগুলো অপসারনের কোন উদ্যোগ নেয়নি। দীর্ঘদিন ধরে তিনটি নদীর উভয় চরে একই স্থানে পড়ে রয়েছে ফেরিগুলো। এর ফলে দিনে দিনে লবনাক্ত মাটির সাথে মিশে বিনষ্ট হয়ে যাচ্ছে। এছাড়া রাতের আধারে ওইসব ফেরীর যন্ত্রপাতি চুরি হয়ে যাচ্ছে বলে স্থানীয়রা জানিয়েছেন।

 

সরজমিনে ঘুরে দেখা যায়, কলাপাড়া অন্ধারমানিক নদী চরে ৩টি ফেরী, ১টি গ্যাওয়ে, হাজীপুর সোনাতলা নদী চরে ৪টি ফেরী, ১টি পল্টুন এবং মহিপুর শিববাড়িয়া নদী চরে ২টি ফেরী, ২টি পল্টুন, ২টি গ্যাংওয়ে অব্যবহৃত, অকেজো হয়ে পড়ে আছে সড়ক ও জনপদ অধিদপ্তরের কয়েক কোটি টাকা মূল্যের এসব মালামাল। এসব ফেরী ও পল্টুন গুলোর বেশির ভাগই ব্যবহার অনুপোযোগী ও মেরামত অযোগ্য হওয়ায় ফেলে রাখা হয়েছে। বছরের পর বছর ধরে পড়ে থেকে লবন পনি আর পলি মাটিতে মরিচা ধরে এগুলো মাটির সাথে মিশে যাচ্ছে।

 

হাজীপুরের সাব্বির রহমান জানান, অনেক দিন ধরেই এ ফেরিগুলো চরের উপর পড়ে আছে। লবনাক্ত মাটির নিচে পড়ে ফেরিগুলো দিনে দিনে ক্ষয় হয়ে যাচ্ছে। কলাপাড়া ফেরিঘাট এলাকার বাসিন্দা জসিম উদ্দিন জানান, ফেরিগুলো এখন আর কোন কাজে আসছেনা। রাতের আধারে এ ফেরিগুলোর বিভিন্ন মূল্যবান যন্ত্রাংশ চুরি হয়ে যাচ্ছে। পটুয়াখালী সওজের নির্বাহী প্রকৌশলী মীর নিজাম উদ্দিন সাংবাদিকদের জানান, পড়ে থাকা ফেরী এবং পল্টুন গুলো পরিসংখ্যান করে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। বর্তমানে উম্মুক্ত দরপত্র প্রক্রিয়ায় মাধ্যমে বিক্রির প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

লেখাটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন:

সর্বশেষ আপডেট



» বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে : চিফ হুইপ আসম ফিরোজ

» তারেকের স্ত্রী, কন্যার ব্রিটিশ নাগরিকত্বের আবেদনের খবর

» ঝিনাইদহে ছাত্রদলের বিক্ষোভ মিছিল

» কালীগঞ্জের ফুলের মাঠে নতুন অতিথি ইউরোপের জারবেরা

» আগৈলঝাড়ায় ইয়াবাসহ দুই ব্যবসায়ী গ্রেফতার

» ঝিনাইদহে সাপের ভয় দেখিয়ে চাঁদা দাবী ,আতংকে নিরুপায় পথচারিরা !

» আগৈলঝাড়ায় ডেনমার্ক সরকারের অর্থ সহায়তায় বহুল প্রতিক্ষিত সড়ক নির্মাণ কাজের উদ্বোধন

» আগৈলঝাড়ায় মন্দিরের মূর্ত্তি ভাংচুর করেছে অজ্ঞাতনামা দুবৃর্ত্তরা

» শ্রীমঙ্গলে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত বাদশার ৩ সন্তানের কান্না থামছে না

» ফতুল্লায় ১২শ‘২০পিস ইয়াবাসহ ৬ মাদক বিক্রেতা গ্রেফতার

লাইক দিয়ে সংযুক্ত থাকুন




ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
Email: kuakataonline@gmail.com
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com
Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
,

কলাপাড়ায় তিনটি নদীর দুই পাড়ে অকেজো হয়ে পরে রয়েছে সওজ’র কোটি টাকার সম্পদ

উত্তম কুমার হাওলাদার, কলাপাড়া: পটুযাখালীর কলাপাড়ায় তিনটি নদীর দুই পাড়ে অকেজো হয়ে পরে রয়েছে কোটি টাকা মূল্যের ফেরী, পল্টুন আর গ্যাংওয়ে।

 

রক্ষনাবেক্ষনের সড়ক ও জনপদ অধিদপ্তরের এসব সম্পদ মাটির নিচে চাপা পড়ে নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। পটুয়াখালী-কুয়কাটা মহাসড়কের ২২কিলোমিটার সড়কের আন্ধারমানিক নদীর উপর শেখ কামাল সেতু, হাজিপুর সোনাতলা নদীর উপর শেখ জামাল সেতু, শিববাড়িয়া নদীর উপর শেখ রাসেল সেতু নির্মিত হয়। এর পর থেকেই ফেরী চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। সেতু নির্মানের দুই বছর পার হলেও কর্তৃপক্ষ এ ফেরিগুলো অপসারনের কোন উদ্যোগ নেয়নি। দীর্ঘদিন ধরে তিনটি নদীর উভয় চরে একই স্থানে পড়ে রয়েছে ফেরিগুলো। এর ফলে দিনে দিনে লবনাক্ত মাটির সাথে মিশে বিনষ্ট হয়ে যাচ্ছে। এছাড়া রাতের আধারে ওইসব ফেরীর যন্ত্রপাতি চুরি হয়ে যাচ্ছে বলে স্থানীয়রা জানিয়েছেন।

 

সরজমিনে ঘুরে দেখা যায়, কলাপাড়া অন্ধারমানিক নদী চরে ৩টি ফেরী, ১টি গ্যাওয়ে, হাজীপুর সোনাতলা নদী চরে ৪টি ফেরী, ১টি পল্টুন এবং মহিপুর শিববাড়িয়া নদী চরে ২টি ফেরী, ২টি পল্টুন, ২টি গ্যাংওয়ে অব্যবহৃত, অকেজো হয়ে পড়ে আছে সড়ক ও জনপদ অধিদপ্তরের কয়েক কোটি টাকা মূল্যের এসব মালামাল। এসব ফেরী ও পল্টুন গুলোর বেশির ভাগই ব্যবহার অনুপোযোগী ও মেরামত অযোগ্য হওয়ায় ফেলে রাখা হয়েছে। বছরের পর বছর ধরে পড়ে থেকে লবন পনি আর পলি মাটিতে মরিচা ধরে এগুলো মাটির সাথে মিশে যাচ্ছে।

 

হাজীপুরের সাব্বির রহমান জানান, অনেক দিন ধরেই এ ফেরিগুলো চরের উপর পড়ে আছে। লবনাক্ত মাটির নিচে পড়ে ফেরিগুলো দিনে দিনে ক্ষয় হয়ে যাচ্ছে। কলাপাড়া ফেরিঘাট এলাকার বাসিন্দা জসিম উদ্দিন জানান, ফেরিগুলো এখন আর কোন কাজে আসছেনা। রাতের আধারে এ ফেরিগুলোর বিভিন্ন মূল্যবান যন্ত্রাংশ চুরি হয়ে যাচ্ছে। পটুয়াখালী সওজের নির্বাহী প্রকৌশলী মীর নিজাম উদ্দিন সাংবাদিকদের জানান, পড়ে থাকা ফেরী এবং পল্টুন গুলো পরিসংখ্যান করে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। বর্তমানে উম্মুক্ত দরপত্র প্রক্রিয়ায় মাধ্যমে বিক্রির প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

লেখাটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন:

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: আবুল কালাম আজাদ, খোকন
প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক : কামাল হোসেন খান
সম্পাদক : এডভোকেট মো: ফেরদৌস খান
বার্তা সম্পাদক : মো: সো‌হেল অাহ‌ম্মেদ
মফস্বল বিভাগ প্রধান: উত্তম কুমার হাওলাদার
Email: kuakataonline@gmail.com
যোগাযোগ: বাড়ী- ৫০৬/এ, রোড- ৩৫,
মহাখালী, ডি ও এইচ এস, ঢাকা- ১২০৬,
ফোন: +৮৮ ০১৭৩১ ৬০০ ১৯৯, ৯৮৯১৮২৫,
বার্তা এবং বিজ্ঞাপন : + ৮৮ ০১৬৭৪ ৬৩২ ৫০৯।
বিজ্ঞাপন এবং নিউজ : + ৮৮ ০১৭১৬ ৮৯২ ৯৭০।
News: editor.kuakatanews@gmail.com

© Copyright BY KuakataNews.Com

Design & Developed BY PopularITLimited